The Rooppur Nuclear Power Plant: The Long, Troubled, Costly and Dangerous Life and After-Life of a Very Old Idea

M V Ramana and Zia Mian

The Article has been written for Sarbojonkotha by renowned physicist and expert on Nuclear energy- M V Ramana and Zia Mian. M. V. Ramana is a physicist and the Simons Chair in Disarmament, Global and Human Security and Director of the Liu Institute for Global Issues at the School of Public Policy and Global Affairs, University of British Columbia. He is the author of The Power of Promise: Examining Nuclear Energy in India (Penguin Books, 2012) and is a former member of the Bulletin’s Science and Security Board (https://thebulletin.org/science-and-security-board). Zia Mian is a physicist and co-director of Princeton University’s Program on Science and Global Security, part of the School of Public and International Affairs, where he has worked since 1997. He also directs the Program’s Project on Peace and Security in South Asia. His research interests include issues of nuclear arms control, nonproliferation and disarmament and international peace and security. He is co-editor of Science & Global Security, the international technical journal of arms control, nonproliferation and disarmament and also co-chair of the International Panel on Fissile Materials (IPFM).

Bangladesh is on the way to having its first nuclear power plant. Designed and being built by Russia at a cost of over 12 billion dollars, the Rooppur nuclear plant has been part of an on-and-off planning process for six decades. This sixty-year quest for constructing a reactor is blind to what has been learned over the same period about nuclear energy. It could take many more years before the plant starts to produce any electricity. Intended to operate for sixty years, electricity from this power plant will contribute to higher electricity bills for Bangladeshi consumers for decades given the high cost of construction. The same amount of electricity could be had much cheaper and much more quickly. Worse, for its sixty-year working life, and possibly for longer, it will cast a shadow of a nuclear accident over the people of Bangladesh, who will be forced to live with constant worry or try to just forget. Even if an accident does not occur, the nuclear waste produced by Rooppur will threaten people and nature for millennia with risk of radioactive contamination. This is what it is now to be a nuclear-powered nation.

(more…)
Social Share
  •  
  •  
  • 350
  •  
  •  
  •  
  •  

হামীম গ্রুপের গুলিবিদ্ধ শ্রমিক কাঞ্চন মিয়ার কথা

গত ১০ মে হামীম গ্রুপের গার্মেন্টস কারখানা ক্রিয়েটিভ ওয়ানের শ্রমিকেরা ঈদের ছুটি বাড়ানোর দাবি নিয়ে জমায়েত হলে পুলিশ তাদের ওপর গুলি চালায়। গুরুতর আহত হন কাঞ্চন মিয়া (৫০)। চিকিৎসা, চিকিৎসা ব্যয়, ক্ষতিপূরণ নিয়ে যে অবহেলা, দায়িত্বহীনতা দেখা দেয় তার কারণে কাঞ্চন মিয়ার শারীরিক পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়। এ বিষয়ে গত ৫ জুন ২০২১ সাংবাদিক সম্মেলনে কাঞ্চন মিয়া সমগ্র পরিস্থিতি নিয়ে তাঁর বক্তব্য উপস্থাপন করেন। মনে রাখা দরকার যে, বাংলাদেশে কারখানা, নির্মাণসহ নানা ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তার অভাবে শ্রমিকদের নিহত ও জখম হবার ঘটনা নিয়মিতভাবে ঘটলেও সরকার বা মালিকেরা কোনো দায়িত্ব নিতে চায় না। কাঞ্চন মিয়ার ক্ষেত্রে আন্দোলনের চাপে হামীম গ্রুপ কিছু দায়িত্ব নিলেও তা ছিল দায়সারা, প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম। কাঞ্চন মিয়ার বিস্তারিত বক্তব্য এই পরিস্থিতি বুঝতে গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনা করে তা এখানে প্রকাশ করা হলো।      

পুলিশের গুলিতে পঙ্গু হয়ে যাওয়া ঈদের ছুটির দাবিতে আন্দোলন করা হামীম গ্রুপের ক্রিয়েটিভ ওয়ান ফ্যাক্টরির শ্রমিক কাঞ্চন মিয়ার সংবাদ সম্মেলন

ন্যায়বিচার চাই! দোষীদের শাস্তি চাই!

শারীরিক ও মানসিক ক্ষতির জন্য নায্য, সম্মানজনক ও দৃষ্টান্তমূলক ক্ষতিপূরণ চাই!

হাসপাতালে চিকিৎসা বাবদ খরচের পুরোটা সরকার ও মালিকপক্ষকে বহন করতে হবে!

প্রিয় সাংবাদিক ভাই ও বোনেরা,

আপনারা আমার কথা ও মনের ব্যাথাগুলো শোনার জন্য যারা এই সংবাদ সম্মেলনে এসেছেন তাদের প্রতি শুরুতেই আমি কৃতজ্ঞতা জানাই। আমি হামীম গ্রুপের গার্মেন্টস কারখানা ক্রিয়েটিভ ওয়ানের শ্রমিক কাঞ্চন মিয়া (৫০)। আপনারা জানেন, গত ১০ মে, ২০২১ তারিখে ঈদের ছুটি বাড়ানোর দাবীতে আন্দোলন করতে গিয়ে আমি আমার অপরাপর শ্রমিকভাইদের মতো পুলিশের গুলিতে আহত হই। আমার আঘাত অত্যন্ত গুরুতর ছিল বিধায় গত ১০ মে তারিখে আমাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়। গার্মেন্টস মালিকের কাছে ঈদের বর্ধিত ছুটির দাবি নিয়ে আন্দোলনে নামলে (যেই বর্ধিত ছুটি আমরা গার্মেন্টস শ্রমিকেরা সচরাচর পেয়ে থাকি) পুলিশ ওইদিন বিনা উস্কানিতে বিনা কারণে আমাদের উপর ছররা গুলি চালায়। আমি প্রথম দফা গুলি খেয়ে মাটিতে পড়ে যাই। তখন আমি শত অনুনয় বিনয় করলেও, আমার বাচ্চাদের দোহাই দিয়ে বাঁচার আকুতি জানালেও, আমার কাছ থেকে আমার তলপেট বরাবর লক্ষ্য করে আবারো আমার উপর ছররা গুলি চালানো হয়। আমার তলপেটে শতাধিক ছররা বুলেট বিদ্ধ হয়। খুব কাছ থেকে গুলি করার কারণেই হয়তো কিছু ছররা গুলি আমার তলপেট ভেদ করে আমার অন্ত্রে গিয়ে পৌঁছায়। সেদিন আমার উপর এই নির্মম নিষ্ঠুরতা চালিয়েই তারা ক্ষান্ত হয় নাই। এরপর আমাকে ওই গুলিবিদ্ধ অবস্থাতেই কারখানার একটি টয়লেটে নিয়ে আটকে রাখা হয়। আমি প্রচন্ড কান্নাকাটি করি, শতবার অনুনয় বিনয় করে, আমার বাচ্চাদের দোহাই দিয়ে বলি যে আমাকে যেন হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু আমার কথা শোনা হয় নাই। আমাকে তখন থেকে বলা হয়েছিল আমাকে ওই গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তৎক্ষণাৎ শ্রমিকদের সামনে দিয়ে বের করলে নাকি ‘সমস্যা’ হবে। আমি ওভাবেই একটা কক্ষে আটক হয়ে পড়ে থাকি দুই ঘন্টার অধিক।

(more…)
Social Share
  •  
  •  
  • 350
  •  
  •  
  •  
  •  

৭ম বর্ষ: ৪র্থ সংখ্যা (আগস্ট- অক্টোবর ২০২১)

(more…)
Social Share
  •  
  •  
  • 350
  •  
  •  
  •  
  •  

সর্বজনকথা ৭ম বর্ষ: ৩য় সংখ্যা (মে – জুলাই ২০২১)

(more…)
Social Share
  •  
  •  
  • 350
  •  
  •  
  •  
  •