খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বরখাস্ত ও বহিষ্কারের প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্ক- এর বক্তব্য

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বরখাস্ত ও বহিষ্কারের

প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্ক- এর বক্তব্য

২৫ জানুয়ারি ২০২১ তারিখে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্ক অনলাইনে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ বিষয়ে তাঁদের বক্তব্য উপস্থাপন করে । সংবাদ সম্মেলনে যৌথভাবে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) শিক্ষক আরাফাত রহমান ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মাইদুল ইসলাম। সংবাদ সম্মেলন সঞ্চালনা করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক মানস চৌধুরী৷ সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক আনু মুহাম্মদ, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক আবদুল্লাহ হারুণ চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক সামিনা লুৎফা, উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের শিক্ষক কাজী মারুফুল ইসলাম প্রমুখ। লিখিত বক্তব্য নীচে দেয়া হলো:

“মাত্র তিনদিন আগে আমরা খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের প্রতিহিংসামূলক আচরণের প্রতিবাদ জানিয়েছিলাম। আমরা একই সাথে অপেক্ষা করছিলাম যে ২৩ জানুয়ারি ২০২১-এর সিন্ডিকেটের সভায় প্রশাসনের শুভবুদ্ধির উদয় হবে; কিংবা সভাসদের কেউ কেউ এই গুরুতর অন্যায় ও হিংস্রতার প্রতিবাদ করে শাস্তি প্রদানের সিদ্ধান্ত থেকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বিরত রাখতে সমর্থ হবেন। আবার আমরা গত মাসগুলোতে এই কর্তৃপক্ষের তৎপরতা থেকে আশঙ্কা বোধও করছিলাম যে শায়েস্তা করবার ও ভয় দেখানোর যে সংস্কৃতি তাঁরা জারি রেখেছেন তাতে হয়তো প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার সিদ্ধান্তই জানানো হবে। পরিশেষে আমাদের আশঙ্কা সত্যি হলো। 

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করার কারণ দেখিয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আবুল ফজলকে চাকরি থেকে বরখাস্ত; ইতিহাস ও সভ্যতা বিভাগের প্রভাষক হৈমন্তী শুক্লা কাবেরী এবং বাংলা বিভাগের প্রভাষক শাকিলা আলমকে চাকরি থেকে অপসারণ করার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে। দৈনিক দেশ রূপান্তর পত্রিকার ‘খুবির এক শিক্ষক বরখাস্ত, দুজনকে অপসারণ’ শীর্ষক সংবাদ থেকে জানা যায়, ‘শনিবার বেলা ১১ টায় অনুষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের ২১২ তম সভায় এ চূূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।’ তবে এ সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর এক কর্মদিবস পার হয়ে গেলেও এখনো পর্যন্ত ভুক্তভোগী শিক্ষকদের হাতে চূড়ান্ত চিঠি পৌঁছায় নি।

ভুক্তভোগী শিক্ষক আবুল ফজল এ বিষয়ে জানার জন্য রেজিস্ট্রারের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, রেজ্যুলেশন তৈরি না হওয়ায় চিঠি দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। আমরা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্ক মনে করি, রেজ্যুলেশনের দোহাই দিয়ে সময়ক্ষেপণ করে তাঁদেরকে আবারও হয়রানি করা হচ্ছে যেমনটা করা হয়েছে গত তিনমাস ধরে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি তাঁর সহচরদের নিয়ে প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে শিক্ষকদেরকে এরূপ হেনস্তা করছেন। নিয়মতান্ত্রিকতা এবং আইনের দোহাই দিয়ে প্রশাসন অনবরত মিথ্যাচার করে যাচ্ছে। কারণ নির্যাতিত শিক্ষকদেরকে একের পর এক কারণ দর্শানোর নোটিশ এবং ব্যাখ্যা প্রদান চেয়ে চিঠি দিলেও প্রশাসন কোনো অভিযোগবিবরণী তাঁদেরকে সরবরাহ করেনি। অভিযোগকারীরা নিজেরাই তাঁদের দোষ সম্পর্কে সুস্পষ্টভাবে জ্ঞাত হতে পারেননি। অথচ অভিযোগ সম্পর্কে তথ্যপ্রাপ্তি অভিযুক্তের আইনানুগ অধিকার। চূড়ান্ত কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাব দেওয়ার জন্য তিনজন শিক্ষককে সময় দেওয়া হয়েছে মাত্র দেড় কর্মদিবস। আইনত অভিযুক্তদেরকে ন্যূনতম সাত কর্মদিবস সময় দিতে হয় জবাব দেওয়ার জন্য।

তাঁদেরকে যে অযৌক্তিক অভিযোগ দিয়ে নাটকীয় শাস্তি প্রদান করা হলো সে শাস্তির উদ্দেশ্যে গঠিত হওয়া তদন্ত কমিটি ধোঁয়াটে এবং সিন্ডিকেটের ভূমিকাও পূর্বপরিকল্পিত বলে প্রতীয়মান হচ্ছে। উপরন্তু, তদন্ত কমিটির একজন শিক্ষক নিজেই সিন্ডিকেট সদস্য। আবার অভিযুক্ত শিক্ষকদের বিরুদ্ধে থাকা একজন সাক্ষীও সিন্ডিকেট সদস্য। কেবল সাংগঠনিক-প্রশাসনিক বিধিবিধানের দিক থেকে দেখলেও এই অবস্থাকে প্রহসন ছাড়া আর কিছু বলার উপায় নেই। আবার তদন্ত করার নাম নিয়ে তদন্ত কমিটি লাগাতার মিথ্যাচারেরও আশ্রয় নিয়েছে। কথিত তদন্তের স্বার্থে অভিযুক্ত শিক্ষকদের ১০.০১.২০২১ তারিখের মধ্যে জানাতে বলা হয়েছিলো তাঁরা কোন মাধ্যমে বক্তব্য প্রদান করবেন এবং ১২.০১.২০২১ তারিখে তাঁদের উত্তর প্রদান করবেন। উল্লেখ্য, শিক্ষকেরা ১০.০১.২০২১ তারিখে প্রথমে ইলেকট্রনিক মেইলে এবং পরবর্তীতে সরাসরি তদন্ত কমিটির কাছে চিঠি দিয়ে আসেন এবং ১২.০১.২০২১ তারিখেই তাঁদের উত্তর প্রদান করেন। কিন্তু তদন্ত কমিটিকে যথাসময়ে না জানানোর অজুহাতে তাঁদের বক্তব্য গৃহীত হয় না। বরং তদন্ত কমিটি অভিযুক্তদের ডাকার আগেই অজ্ঞাতে-অসাক্ষাতে অন্যান্যদের সাক্ষ্য নিয়েছে। অথচ অভিযুক্তের অসাক্ষাতে সাক্ষ্য নেওয়া যায় না। সাক্ষ্যের অনুলিপি চাওয়া হলেও তদন্ত কমিটি তা দেয়নি। তাঁদের মিথ্যাচার এবং অমানবিকতার দৃষ্টান্ত আরো আছে। অভিযুক্ত শিক্ষক আবুল ফজল ২১.১২.২০-০৩.০১.২১ তারিখ পর্যন্ত হাসপাতালে ভর্তি থাকা অবস্থায় প্রশাসন তাঁকে চারটি চিঠি দিয়েছে। সেখানে সময় দেওয়া হয়েছে এক কার্যদিবস বা অর্ধকার্যদিবস। তাঁর অসুস্থতাকে মিথ্যা প্রমাণ করার জন্য সিভিল সার্জনের ভুয়া মেডিকেল সার্টিফিকেট ব্যবহার করে তাঁকে হয়রানি করা হয়েছে। ভুয়া সার্টিফিকেটের বিষয়ে চ্যালেঞ্জ করেছেন  জনাব ফজল, যার ফলে পরে সেই চিকিৎসক দুঃখপ্রকাশ করেন তাঁর কাছে। এই সকল ঘটনা গত কয়েক সপ্তাহ ধরে অশনি সঙ্কেত দিচ্ছিল যে কর্তৃপক্ষ অত্যন্ত হিংস্র একটা রাস্তা গ্রহণ করতে যাচ্ছেন। ক্যাম্পাসের কয়েকজন সাহসী, অন্যায়ের প্রতিবাদকারী, গণতন্ত্রমনা এবং শিক্ষার্থীবান্ধব শিক্ষককে শাস্তি প্রদানের মাধ্যমে ক্যাম্পাসকে দুর্নীতির অভয়ারণ্য বানানোর চেষ্টা এগুলো।

আপনারা বিস্মৃত হবেন না যে, এসব কিছুর সূচনা ঘটেছিল শিক্ষার্থীদের ন্যায়সঙ্গত আন্দোলনে কিছু শিক্ষকের সংহতি জানানোর মাধ্যমে। শিক্ষার্থীদের ৫ দফা দাবির মধ্যে আবাসিক সঙ্কট সমাধানের মতো দাবি ছিল। খুলনা বিশ^বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের আবাসিক সমস্যার সমাধান চান না। কারণ, তাঁরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে আবাসনের দায়মুক্ত করার যে সর্বাত্মক চক্রান্ত চলছে সেই চক্রান্তের একটা পক্ষ। আমরা এটাও মনে রেখেছি যে জনাব আবুল ফজল, হৈমন্তী শুক্লা কাবেরী এবং শাকিলা আলম আরো কিছু শিক্ষকসমেত এই আন্দোলনে সংহতি জানানোর মাধ্যমে শিক্ষকের অবশ্যপালনীয় কর্তব্য পালন করেছিলেন। কর্তৃপক্ষ তখন থেকেই সংহতি জানানো শিক্ষকদের মধ্য থেকে টার্গেট বাছাই করে ফেলেন। কারণ, তাঁরা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের জনদায়িত্বমূলক ভূমিকা বজায় রাখতে দিতে চান না। পত্রপত্রিকার মাধ্যমে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভবন নির্মাণে সুচতুর ও সুদূরপ্রসারী ক্ষতিকর দুর্নীতির খবর আমরা জেনেছিলাম। এইসব শিক্ষক ছিলেন শিক্ষার্থী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বার্থের পক্ষে এবং পুকুরচুরির ষড়যন্ত্রে লিপ্ত ঠিকাদার-প্রশাসনের ঐক্যের বিরুদ্ধে। ফলে এই শাস্তির কার্যকারণ সম্পূর্ণ স্বার্থান্বেষী ও প্রতিহিংসামূলক। শিক্ষার্থীদের মধ্যেও দুজনকে প্রশাসন টার্গেট করেন ও বহিষ্কার করেন। সেই শিক্ষার্থী দুজন গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন।  

আমরা নিশ্চিত হয়েছি যে, শিক্ষার্থীদের পাঁচদফা দাবির সঙ্গে সহমত পোষণ করার জন্য শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের বহিষ্কার করে বর্তমান প্রশাসন তার সমস্ত স্বেচ্ছাচারিতার ইতিহাস চাপা দিতে চেয়েছে। প্রশাসনের বিরুদ্ধে বিস্তর দুর্নীতি এবং কতিপয় শিক্ষকের নামে যৌন হয়রানির অভিযোগ গণমাধ্যমে উঠে আসার পর সকলের মনোযোগ ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার জন্য প্রশাসন গর্হিত এ কাজটি করেছে। আমরা এও মনে করি যে, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর গণতান্ত্রিক চেতনা ও স্বাধীনতার মূল্যবোধকে ক্ষতিগ্রস্ত করার এক সুবিশাল চক্রান্তের অংশ এগুলো। আমরা অনতিবিলম্বে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনজন শিক্ষক ও দুজন শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে প্রতিহিংসামূলক শাস্তি উঠিয়ে নেবার জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি। এই শাস্তির মাধ্যমে বাংলাদেশের সকল সার্বভৌম শিক্ষকদেরকে একটা ভয়প্রদানের সঙ্কেত দিচ্ছে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বাংলাদেশের শিক্ষায়তনগুলোকে আরো ক্ষয়ক্ষতির হাত থেকে বাঁচানোর জন্য এইসব অর্থলোভী, অগণতন্ত্রী, প্রতিহিংসাপরায়ণ ব্যক্তিদেরকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রশাসনিক দায়ত্বি¡ না দিতে দাবি জানাচ্ছি। বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের ভবিষ্যৎ আপনাদের হাতে। আমরা সকলকে এই ঐতিহাসিক মুহূর্তে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে আহ্বান জানাই।”

সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্কের পক্ষ থেকে চার দফা দাবি জানানো হয়। দাবিগুলো হলো: খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের শাস্তি অবিলম্বে বাতিল করতে হবে; প্রশাসনের বিরুদ্ধে দুর্নীতিসহ সব অভিযোগের তদন্ত করতে হবে; অযোগ্য-দুর্নীতিবাজ উপাচার্য নিয়োগ বন্ধ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালনাবিধিতে গণতন্ত্রায়ণ ও স্বায়ত্তশাসন নিশ্চিত করতে হবে এবং শিক্ষার্থীদের পক্ষে দাঁড়ানোর ‘শাস্তি’ হিসেবে শিক্ষকদের ভয় দেখানো বন্ধ করতে হবে।

চার দফা দাবি আদায়ে ২৮ জানুয়ারি দেশব্যাপী সব বিশ্ববিদ্যালয়ে দুপুর ১২টা থেকে একসঙ্গে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের প্রতিবাদ সমাবেশের ঘোষণা দেওয়া হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেটওয়ার্ক

২৫ জানুয়ারি ২০২১

Social Share
  • 53
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    53
    Shares
  •  
    53
    Shares
  • 53
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *