একমাসে ৪৩ জেলায় ১৪৮ বার ত্রাণের দাবীতে বিক্ষোভ!

লকডাউনে ক্ষুধার্ত মানুষের টাইমলাইন

একমাসে ৪৩ জেলায় ১৪৮ বার ত্রাণের দাবীতে বিক্ষোভ!

লকডাউন চলাকালে গত ১ এপ্রিল দুর্যোগ ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী বলেন, “দেশে ত্রাণের কোন সংকট নেই।” (ইত্তেফাক, ১ এপ্রিল ২০২০)।  ১১ এপ্রিল তিনি আরও বলেন, “এখন পর্যন্ত দেশের কোথাও এমন কোনো রিপোর্ট পাইনি যে, কারও ঘরে খাদ্য নেই।” (জাগো নিউজ, ১১ এপ্রিল)।  ১৭ এপ্রিল তথ্যমন্ত্রী  ড. হাছান মাহমুদ বলেন, “লোক ভাড়া করে এনে বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষোভ করানো হচ্ছে।” (সময়নিউজ, ১৭ এপ্রিল)  ২০ এপ্রিল কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসনের সাথে ভিডিও কনফারেন্স চলার সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “…এখন যদি রিলিফ আবার বেশি দেয়া হয় তাহলে ওই রিলিফ পাওয়ার পরে কি তারা মাঠে যাবে? ধান কাটবে? বা কাজ করবে?.. আমাদের দেশের মানুষ একবেলা পেট ভরে খেতে পারলে পরেরবার আর চিন্তা করে না। তো যেই টাকা পাবে সেই, বা রিলিফ পাবে, আর কাজ করবে না, বসে যাবে।” (তথ্যসূত্র: ইউটিউব থেকে নেয়া ২০ এপ্রিল করোনা পরিস্থিতি নিয়ে ঢাকা বিভাগের কিশোরগঞ্জ, টাঙ্গাইল, গাজীপুর ও মানিকগঞ্জ জেলা এবং ময়মনসিংহ বিভাগের জেলাসমূহের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর ভিডিও কনফারেন্স, লিংক: https://www.youtube.com/watch?v=ac03Be2NXlM ১ ঘন্টা ১২ মিনিট ৫৫ সেকেন্ড থেকে দেখুন)

আসলে মাঠ পর্যায়ে বাস্তব পরিস্থিতি কী? অনলাইনে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক ও কিছু কিছু ক্ষেত্রে স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত রিপোর্টসমূহ থেকে সংকলিত ৬৪ জেলায় ত্রাণ বিষয়ক বিক্ষোভ-প্রতিবাদ-অভিযোগের এই প্রতিবেদনটি থেকে তার কিছু চিত্র পাওয়া যাবে।  তৈরি করেছেন মাহতাব উদ্দীন আহমদ

মাত্র ৫দিন অনলাইনে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক ও কিছু কিছু ক্ষেত্রে স্থানীয় পত্রিকাগুলোর ওয়েবসাইট ঘাঁটাঘাঁটি করে যেসব খবর পাওয়া গেছে তার ভিত্তিতে দেখা যাচ্ছে, করোনাভাইসের প্রাদুর্ভাবের ফলে দেশে সাধারণ ছুটি শুরু হওয়ার পর গত ২৯ মার্চ ২০২০ থেকে ২৮ এপ্রিল ২০২০ পর্যন্ত এই এক মাসে সারাদেশের ৪৩ টি জেলায় সর্বমোট ১৪৮ বার ত্রাণ দেয়ার দাবিতে সাধারণ মানুষের বিক্ষোভ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এছাড়াও গত এক মাসে সারাদেশের মোট ৪১ টি জেলায় সর্বমোট ৫৭ বার ত্রাণ নিয়ে অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ/ বিক্ষোভ/সাংবাদিকদের কাছে ত্রাণের দাবী বা অভিযোগ করার সংবাদ পাওয়া গেছে। সব মিলিয়ে ৬৪ জেলার প্রতিটিতেই হয় সরাসরি ত্রাণের দাবীতে বিক্ষোভ নয়তো ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম নিয়ে বিক্ষোভ নয়তো অনিয়মের অভিযোগ কিংবা বিক্ষোভ ছাড়া সাংবাদিকদের কাছে ত্রাণ দাবী করার খবর পাওয়া গেছে। উল্লেখ্য বিক্ষোভ প্রতিবাদ বা অভিযোগের প্রকৃত সংখ্যা এই প্রতিবেদনে উল্লেখিত সংখ্যার থেকে আরো অনেক বেশি হওয়ার কথা। তার কারণ প্রথমত সব খবর পত্রিকায় আসে না এবং দ্বিতীয়ত, এখানে মাত্র ৫ দিন অনলাইনে ঘাঁটাঘাঁটি করে সামনে যেগুলো পড়েছে শুধু সেগুলোকেই আনা গেছে। সকল জাতীয় দৈনিক ও সকল জেলার স্থানীয় পত্রিকাসমূহ ঘাঁটাঘাঁটি করা সম্ভব হয়নি। একারণে মাই ৫ দিন ঘাঁটাঘাঁটি করেই একমাসে ৬৪ জেলায় ত্রাণ বিষয়ক বিক্ষোভ, প্রতিবাদ, অভিযোগের খবর পাওয়া থেকে এটাই প্রতীয়মান হয় যে প্রকৃত পরিস্থিতি আরো কতটা ভয়াবহ।

 ত্রাণের দাবীতে বিক্ষোভের খবর পাওয়া গেছে যে ৪৩টি জেলায়

বিভিন্ন পত্রিকার খবর অনুযায়ী দেখা যাচ্ছে ত্রাণের দাবীতে গত একমাসে সবচেয়ে বেশি বিক্ষোভ হয়েছে সেযব জেলায় সেগুলো হচ্ছে: যশোর (১২টি), ঢাকা (১১টি), চট্টগ্রাম (৯টি), রংপুর (৮টি), নীলফামারি (৭টি), গাইবান্ধা (৭টি), পাবনা (৬টি), রাজশাহী (৬টি), লালমনিরহাট (৫টি), সিরাজগঞ্জ (৫টি), জামালপুর (৪টি), পঞ্চগড় (৪টি), দিনাজপুর (৪টি), ঠাকুরগাঁও (৪টি) এবং বরিশাল (৪টি) জেলায়। এখানে ব্র্যাকেটে যে বিক্ষোভের সংখ্যাটি দেয়া আছে সেটি হল অন্তত হিসেব। কারণ এটা পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে করা। যেসব ত্রাণের দাবীতে করা বিক্ষোভ নিয়ে কোন প্রতিবেদন হয়নি সেগুলো এই হিসেব এর মধ্যে নেই। তাছাড়া সকল পত্রিকা দেখাও সম্ভব হয়নি। অনলাইনে জেলার নাম দিয়ে সার্চ করে তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া খবরগুলোর ভিত্তিতেই এই বিক্ষোভের সংখ্যা পাওয়া গেছে।

এই জেলাগুলো ছাড়া গত এক মাসে ত্রাণের দাবীতে অন্তত ৩ বার বিক্ষোভ হয়েছে যেসব জেলায় সেই জেলাগুলো হচ্ছে: মাদারীপুর, টাঙ্গাইল, নারায়ণগঞ্জ, চাঁদপুর, কুড়িগ্রাম, বগুড়া, সাতক্ষীরা ও কুষ্টিয়া।

 ত্রাণের দাবীতে অন্তত ২ বার বিক্ষোভে হয়েছে: নরসিংদি, গোপালগঞ্জ, সিলেট, সুনামগঞ্জ, ফেনী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, খুলনা ও গাজীপুর জেলায়।

ত্রাণের দাবীতে অন্তত ১ বার বিক্ষোভ হয়েছে: গাজীপুর, মানিকগঞ্জ, শেরপুর, নেত্রকোনা, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, নোয়াখালি, কক্সবাজার, নাটোর, জয়পুরহাট, মাগুড়া ও ঝিনাইদহে।

ত্রাণ নিয়ে অনিয়মের প্রতিবাদে বিক্ষোভ/ প্রতিবাদ/ অভিযোগ জানানোর খবর পাওয়া গেছে যে ৪১টি জেলায়

 অন্তত ৩ বার করে ত্রাণ নিয়ে অনিয়মের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ/প্রতিবাদ/অভিযোগ জানানো হয়েছে এমন জেলাগুলো হল: নোয়াখালি, লক্ষ্মীপুর, বরিশাল, ঝালকাঠি।

অন্তত ২ বার করে ত্রাণ নিয়ে অনিয়মের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ/প্রতিবাদ/অভিযোগ জানানো হয়েছে এমন জেলাগুলো হল: ফরিদপুর, ময়মনসিংহ, হবিগঞ্জ, কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, খাগড়াছড়ি, রাজশাহী, কুষ্টিয়া,

অন্তত ১ বার করে ত্রাণ নিয়ে অনিয়মের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ/প্রতিবাদ/অভিযোগ জানানো হয়েছে এমন জেলাগুলো হল: শরীয়তপুর, কিশোরগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, রাজবাড়ী, শেরপুর, সুনামগঞ্জ, ফেনী, চাঁদপুর, কক্সবাজার, বান্দরবান, রাঙামাটি, ঠাকুরগাঁও, পাবনা, বগুড়া, নাটোর, জয়পুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগা, মেহেরপুর, নড়াইল, মাগুরা, ঝিনাইদহ, চুয়াডাঙ্গা, বাগেরহাট, পটুয়াখালি, ভোলা ও পিরোজপুর।

এই বিষয়ে জেলাওয়ারি ত্রাণ বিষয়ক বিক্ষোভের বিস্তারিত টাইমলাইন (মূল প্রতিবেদন) দেখতে এইখানে ক্লিক করুন।

ত্রাণ বিষয়ক বিক্ষোভ প্রতিবাদ অভিযোগ ৬৪ জেলার টাইমলাইন

Social Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *