সংবাদপত্রের পাতা থেকে (২৪ জানুয়ারি ২০২১- ২৪ এপ্রিল ২০২১)

সংবাদপত্রের পাতা থেকে (২৩ জানুয়ারি ২০২১- ২৪ এপ্রিল ২০২১)

অর্থনীতি

প্রতি কেজি চালে মিলারদের মুনাফা পাঁচ টাকা

২৭ জানুয়ারি, ২০২১, বণিক বার্তা

দেশে এখন চালের বাজারের বড় প্রভাবক ও নিয়ন্ত্রক হয়ে উঠেছে চালকল মালিক বা মিলাররা। চাল প্রক্রিয়াকরণের পর বাজারজাত করার সময় অস্বাভাবিক মুনাফা করছেন তারা। গত বছর বোরো মৌসুমে কেজিপ্রতি চালে তাদের গড় মুনাফার পরিমাণ ছিল প্রায় ৪ টাকা ৭০ পয়সা। আমন মৌসুমে তা আরো বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ টাকা ২০ পয়সায়। বাংলাদেশ ধান গবেষণা প্রতিষ্ঠান (ব্রি) সম্প্রতি গত চার বছরে মিলাররা চাল প্রক্রিয়াকরণ থেকে আহরিত মুনাফা নিয়ে এক গবেষণা চালায়। এ গবেষণার ফলাফল প্রকাশ হয়েছে ‘অ্যাভেইলেবিলিটি অ্যান্ড প্রাইস ভোলাটিলিটি অব রাইস ইন বাংলাদেশ: অ্যান ইন্টার ইনস্টিটিউশনাল স্টাডি ইন ২০২০’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে। সেখানেই চালের বাজার থেকে মিলারদের বিপুল পরিমাণ মুনাফা তুলে নেয়ার তথ্য উঠে এসেছে।

দেশের কৃষিভিত্তিক ১৪টি জোনের প্রায় ৭০টি চালকলে জরিপের ভিত্তিতে এ গবেষণা প্রতিবেদন তৈরি করেছে ব্রি। এসব জোনের মধ্যে নওগাঁ, ময়মনসিংহ ও কুমিল্লায় সরাসরি জরিপ কার্য পরিচালনা করা হয়। বাকিগুলোয় জরিপ চালানো হয় টেলিফোনের মাধ্যমে।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭ সালে আমন মৌসুমে মিলারদের প্রতি কেজি চালে মুনাফা ছিল সাড়ে ৯ টাকা। পরের বছর তা নেমে আসে ৫ টাকা ৪০ পয়সায়। এরপর ২০১৯ সালে ৪ টাকা ৬০ পয়সায় নামলেও গত বছর তা আবার ৫ টাকা ছাড়িয়ে যায়। গত বছর মিলাররা আমন মৌসুমের চাল প্রক্রিয়াকরণ থেকে মুনাফা তুলে নিয়েছে কেজিতে ৫ টাকা ২০ পয়সা করে। অন্যদিকে বোরো মৌসুমে ২০১৭ সালে প্রতি কেজি চালে মিলারদের মুনাফা হয়েছে ৭ টাকা ৯০ পয়সা। এরপর বোরো মৌসুমের চালে মিলারদের ২০১৮ সালে মুনাফা হয়েছে ৮ টাকা ২০ পয়সা, ২০১৯ সালে ৫ টাকা ৩০ পয়সা ও ২০২০ সালে মুনাফা হয়েছে ৪ টাকা ৭০ পয়সা।

১০ বছরে তেলের সর্বোচ্চ দাম

০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

… ….তেল আমদানি ও বাজারজাতকারী শীর্ষস্থানীয় একটি কোম্পানি গত সপ্তাহে এক লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য (এমআরপি) নির্ধারণ করেছে ১৪০ টাকা, যা দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ বলে জানিয়েছে বিপণনকারী।

শুধু বোতলজাত সয়াবিন তেল নয়, খোলা সয়াবিন ও পাম তেলের দামও ব্যাপক চড়া। চারজনের একটি পরিবারে মাসে পাঁচ লিটারের মতো তেল লাগে। ফলে একটি পরিবারে ছয় মাস আগের তুলনায় এখন মাসে তেলবাবদ খরচ ১৬০ থেকে ১৭০ টাকা বেশি। বাজারে এখন চালের দাম চড়া। গত সপ্তাহে পেঁয়াজ, আটা, ময়দা, মসুর ডাল ও অ্যাংকর ডালের দাম কিছুটা বেড়েছে। সব মিলিয়ে বিপাকে সাধারণ মানুষ।… ….

 ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে ভোজ্যতেলের ভ্যাট (মূল্য সংযোজন কর) এক স্তরের বদলে তিন স্তরে আরোপ শুরু হয়। সব মিলিয়ে যে করকাঠামো, তাতে এক লিটার তেলে প্রায় ২৫ টাকা করবাবদ পায় সরকার। বর্তমান কাঠামোয় বিশ্ববাজারে দাম যত বাড়ে, ভোজ্যতেলের ওপর ভ্যাটের পরিমাণও বাড়ে।… …

১২ দিনের মাথায় ভেঙে পড়ল ‘প্রধানমন্ত্রীর উপহার’ ঘরের দেয়াল

৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, কালের কণ্ঠ

প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের ১২ দিনের মাথায় (বুধবার) বরগুনার তালতলী উপজেলার বেহেলা গ্রামের স্বামী পরিত্যক্তা উর্মিলা রাণী (৭১) নামে এক নারীর নির্মাণাধীন বসতঘরেরর দেয়াল ভেঙে পড়েছে। গৃহ নির্মাণ করার সময় দুই দফা ওই নারীর বসতঘরের দেয়াল ধসে পড়েছে বলে ভুক্তভোগী জানান। এ নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প-২-এর আওতায় যার জমি আছে ঘর নেই, তার জমিতে গৃহ নির্মাণ করে দেওয়ার জন্য বরগুনার তালতলী উপজেলায় ১ কোটি ৭১ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। এ টাকা দিয়ে উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে ১০০টি গৃহ নির্মাণ করা হয়। এ প্রকল্পের গৃহ নির্মাণ বাস্তবায়নে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান এবং কাজের তদারকির দায়িত্ব তালতলী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রুনু বেগমের নাম থাকলেও তার পরিবর্তে পার্শ্ববর্তী আমতলী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. মফিজুল ইসলাম কাজের তদারকি করছেন বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করে। তিনিই নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী দিয়ে এসব গৃহ নির্মাণ করেছেন বলে উপজেলার ঘর পাওয়া একাধিক ব্যক্তি অভিযোগ করেন।

ইচ্ছাকৃত খেলাপিরাই ঋণ শোধে পিছিয়ে

০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, সমকাল

করোনার কারণে কিস্তি পরিশোধ না করলেও ২০২০ সালে কাউকে ঋণখেলাপি করা হয়নি। উল্টো ব্যবসা সচল রাখতে সরকার ঘোষিত প্রণোদনার আওতায় কম সুদে ঋণ দেওয়া হয়েছে। আর যারা ঋণ পরিশোধ করেননি, তাদের মেয়াদ স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে ঋণ পরিশোধের সামর্থ্য থাকলেও ইচ্ছা করেই অনেকে ব্যাংকের টাকা দেননি। ফলে ব্যাংকের ঋণ আদায় কমেছে। সংশ্নিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।… ….

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য বলছে, ব্যাংক খাতে প্রায় ১১ লাখ কোটি টাকার ঋণ স্থিতির মধ্যে ডেফারেল সুবিধার আওতায় ছিল দুই লাখ ৫৫ হাজার ৩৮৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে দুই লাখ ১৮ হাজার ৬৭৫ কোটি টাকা ঋণের বিপরীতে কোনো কিস্তি পরিশোধ হয়নি। আর ৩৬ হাজার ৭১১ কোটি টাকা ঋণের বিপরীতে কিছু কিস্তি পরিশোধ হয়েছে। অবশ্য ডেফারেল সুবিধা পাওয়া বিপুল অঙ্কের এই ঋণ গত বছরই পরিশোধ হওয়ার কথা ছিল- এমনটি নয়। তবে অধিকাংশই পরিশোধ না করায় ঋণ আদায় ব্যাপক কমেছে। গত এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শুধু ছয় মাসে আদায় কমেছে ৮১ হাজার ২৫৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় গত এপ্রিল-সেপ্টেম্বর সময়ে নিয়মিত গ্রাহকদের থেকে আদায় ৭৪ হাজার ৩৫১ কোটি টাকা কমে দুই লাখ ৬০ হাজার ৯০১ কোটি টাকায় নেমেছে। আর ঋণখেলাপিদের থেকে আদায় ব্যাপকভাবে কমে দুই হাজার ৩৫৮ কোটি টাকা হয়েছে। আগের বছরের একই সময়ে যেখানে নয় হাজার ২৬৩ কোটি টাকা আদায় ছিল। অক্টোবর-ডিসেম্বরের ঋণ আদায়ের তথ্য এখনও পাওয়া যায়নি। শেষ তিন মাসেও আদায় অনেক কম হবে বলে জানান ব্যাংকাররা। ঋণ পরিশোধ না করেও খেলাপিমুক্ত থাকার সুবিধার কারণে গত সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এক বছরে খেলাপি ঋণ ২১ হাজার ৮৪৮ কোটি টাকা কমে ৯৪ হাজার ৪৪০ কোটি টাকায় নেমেছে। মোট ঋণের যা মাত্র ৮ দশমিক ৮৮ শতাংশ।

জমি দিয়ে ব্যবসায় নামছে রেল

০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১,প্রথম আলো

নিজেদের নামে থাকা দামি জমি ভাড়া দিয়ে ব্যবসায় নামছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। এরই মধ্যে সরকারি-বেসরকারি যৌথ বিনিয়োগের (পিপিপি) জন্য ঢাকা-চট্টগ্রামসহ বড় শহরের প্রাণকেন্দ্রে প্রায় ২০০ একর নিষ্কণ্টক জমি চিহ্নিত করা হয়েছে। অর্থাৎ জমি দেবে রেল কর্তৃপক্ষ, আর অবকাঠামো বানাবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। এমনই এক প্রকল্প হলো মাল্টিমোডাল হাব নির্মাণ প্রকল্প। এর জন্য ৬৫ বছরের পুরোনো ঐতিহ্যবাহী কমলাপুর রেলস্টেশন ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

ইতিমধ্যে এ ধরনের ১২টি প্রকল্প সরকারের ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির নীতিগত অনুমোদন পেয়েছে। চট্টগ্রামে একটি হাসপাতাল ও একটি শপিং মল নির্মাণে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। কমলাপুর স্টেশন ঘিরে মাল্টিমোডাল হাব প্রকল্পে আগ্রহ দেখিয়ে জাপানি একটি কোম্পানি প্রাথমিক নকশা করেছে। বাকি প্রকল্পে বিনিয়োগকারী নিয়োগের প্রক্রিয়া চলছে। এর বাইরে আরও তিনটি প্রকল্প অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে।

ব্যবসার স্বার্থে ভাঙা পড়বে কমলাপুর স্টেশন

০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

কমলাপুর স্টেশন এবং এর আশপাশের রেলের জায়গা বরাদ্দ দেওয়া হবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে। তারা সেখানে কয়েকটি বহুতল ভবন নির্মাণ করবে। এর মধ্যে থাকবে পাঁচ তারকা হোটেল, শপিং মল, অফিস কমপ্লেক্স ও আবাসিক ভবন। এর জন্যই ভাঙা পড়বে ৫৩ বছরের পুরোনো ঐতিহ্যবাহী কমলাপুর রেলস্টেশন। আর নতুন রেলস্টেশন হবে এই এলাকায়ই, কিছুটা উত্তর দিকে সরে গিয়ে।

নতুন স্টেশন যদি শহরের মাঝখানে এই কমলাপুরেই বানানো হয়, তাহলে কেন হাতুড়ি পড়ছে ঐতিহ্যে? জবাব একটাই—ব্যবসা। সেবা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ রেলওয়ে জমি নিয়ে ব্যবসায় নামছে। একে তারা বলছে রেলের আয় বাড়ানোর উদ্যোগ। কিন্তু কত আয় বাড়বে এসব প্রকল্প থেকে, সে বিষয়ে কোনো সমীক্ষা করেনি রেল।

কমলাপুর রেলস্টেশনের স্থপতি ছিলেন দুই মার্কিন নাগরিক। ড্যানিয়েল বার্নহ্যাম এবং বব বুই। বার্নহ্যাম পড়াশোনা করেছেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে। বব বুই নিউইয়র্কের প্র্যাট ইনস্টিটিউটে ও লন্ডনের এএ স্কুলে। কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে বার্নহ্যাম ও বুই তৈরি করতে চেয়েছিলেন আধুনিক স্থাপত্য আর গ্রীষ্মমণ্ডলীয় আবহাওয়ার উপযোগী নির্মাণশৈলীর সংমিশ্রণে।

কমলাপুর রেলস্টেশন এবং শাহজাহানপুর রেলওয়ে আবাসিক এলাকা ঘিরে যে বাণিজ্যিক পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে রেলপথ মন্ত্রণালয়, তাকে তারা বলছে ‘মাল্টিমোডাল হাব’। আয়বর্ধক এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে সরকারি-বেসরকারি যৌথ বিনিয়োগে (পিপিপি)। জমি দেবে রেল কর্তৃপক্ষ আর অবকাঠামো বানাবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান।

সরকারের ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি ২০১৮ সালের অক্টোবরে প্রকল্পটি নীতিগতভাবে অনুমোদনও করেছে।

প্রকল্পটি বাস্তবায়নে জাপানের কাজিমা করপোরেশনের সঙ্গে তিন দফা বৈঠক করেছে রেল কর্তৃপক্ষ। তারা কমলাপুর স্টেশন সরানো এবং আশপাশে এক ডজনের বেশি বহুতল ভবন নির্মাণের প্রাথমিক নকশা তৈরি করেছে। রেলের পিপিপি প্রকল্পসংক্রান্ত নথি অনুসারে, এই ‘মাল্টিমোডাল হাব প্রকল্পে’ প্রাথমিক ব্যয় ধরা হয়েছে ৮০০ কোটি টাকা। বাস্তবায়নকাল ২০২১-২৫ সাল।

উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত মেট্রোরেল প্রকল্পের কাজ চলছে। এটি কমলাপুর পর্যন্ত বর্ধিত করার সিদ্ধান্ত হয় ২০২৯ সালের মাঝামাঝি। আর কাজিমা করপোরেশনের সঙ্গে মাল্টিমোডাল হাব প্রকল্প নিয়ে প্রাথমিক কথাবার্তা শুরু হয় ২০১৮ সালের এপ্রিলে। ২০১৯ সালের মার্চে তারা প্রকল্পের নমুনা নকশা দেয়। এতে কমলাপুর স্টেশন ভাঙার কোনো কথা উল্লেখ করেনি। কাজিমা এখনো বিস্তারিত নকশা করেনি।

দুই সপ্তাহেই প্রধানমন্ত্রীর উপহার দেওয়া ঘরে ফাটল

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ঢাকা ট্রিবিউন অনলাইন বাংলা

নেত্রকোনার পূর্বধলা উপজেলার ধলা এলাকায় ভূমিহীনদের সরকারের দেওয়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় বেশ কয়েকটি ঘরের মেঝে ও দেয়ালে ফাটল দেখা দিয়েছে। কারণ জানতে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন।

উদ্বোধনের ১১ দিনের মাথায় গত ২ ফেব্রুয়ারি নেত্রকোনার আটটি ঘরের দেয়াল ও মেঝেতে ফাটল দেখা দেয়ায় বরাদ্দপ্রাপ্তদের মাঝে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে।

জেলা প্রশাসক কার্যালয় সূত্র জানায়, গত ২৩ জানুয়ারি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করার পর একযোগে জেলার ১০ উপজেলা পরিষদের হলরুমে সুবিধাভোগী পরিবারগুলোর হাতে ঘর ও জমির দলিল তুলে দেয়া হয়। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ৪৩, কেন্দুয়ায় ৫০, দুর্গাপুরে ৩৫, পূর্বধলায় ৫৩, কলমাকান্দায় ১০১, মোহনগঞ্জে ৩৬, আটপাড়ায় ৯৮, মদনে ১২৬, বারহাট্টায় ৪৫ ও খালিয়াজুরী উপজেলায় ৪৪৩ পরিবার রয়েছে।

পূর্বধলা উপজেলায় ৫৩ ঘর নির্মাণের জন্য প্রতিটি ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা করে মোট ৯০ লাখ ৬৩ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়।

শিল্প ও বাণিজ্য প্রভিশন ঘাটতিতে ১১ ব্যাংক

১১ ফেব্রুয়ারি ২০২১, সমকাল

নানা ছাড়ের পরও গত ডিসেম্বর শেষে ১১টি ব্যাংকে প্রভিশন ঘাটতি রয়েছে। এ তালিকায় রয়েছে সরকারি ৫টি ও বেসরকারি খাতের ৬টি ব্যাংক। ব্যাংকগুলোর ঘাটতি দেখানো হয়েছে ৭ হাজার ১৪৬ কোটি টাকা। অবশ্য প্রকৃত ঘাটতির পরিমাণ আরও অনেক বেশি বলে জানা গেছে। আমানতকারীর স্বার্থে ব্যাংকগুলোকে বিভিন্ন ঋণের বিপরীতে নির্দিষ্ট হারে অর্থ আলাদা করে রাখতে হয়, যাকে প্রভিশন বলে।

ব্যাংকগুলোর আর্থিক প্রতিবেদন ভালো দেখানোর জন্য প্রভিশন সংরক্ষণে কোনো কোনো ব্যাংককে কয়েক বছরের সময় দিচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। যে কারণে প্রকৃত ঘাটতির বিষয়টি সামনে আসছে না।

ঢাকায় সবকিছু বদলায়, বাস কেন নয়

১২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

ঢাকায় চলা বেশির ভাগ বাস-মিনিবাস বাইরে থেকে দেখতে রংচটা ও লক্কড়ঝক্কড়। পেছনের লাইট-ইন্ডিকেটর নেই। ভেতরে আসনের তেল চিটচিটে আচ্ছাদনে যে কারও গা গুলিয়ে আসবে। দাঁড়িয়ে যেতে হয় গাদাগাদি করে। গরমে ঘামে ভিজতে হয়। বর্ষায় বৃষ্টি ও শীতে ঠান্ডার বিড়ম্বনা। রাষ্ট্রীয় পরিবহন সংস্থা বিআরটিসির বাসের দশাও এমন।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) হিসাবে, বর্তমানে ঢাকা ও এর আশপাশে প্রায় ৮ হাজার বাস-মিনিবাস চলার অনুমতি আছে। তবে পরিবহন সূত্রগুলো বলছে, এই সংখ্যা বাড়ে-কমে। অনেক কোম্পানি অনুমোদনের চেয়ে বেশি বাস চালায়। আবার অনেক কোম্পানি অনুমোদন নিয়ে বাস নামায়নি।

২০০৯ সালে জাপানের আন্তর্জাতিক সহায়তা সংস্থা জাইকার করা সমীক্ষা অনুসারে, ঢাকায় দিনে ৫৮ লাখ বারের বেশি যাতায়াত হয় বাস-মিনিবাসে, যা যান্ত্রিক যানবাহনে যাতায়াতের ৬৭ দশমিক ৪০ শতাংশ। মিরপুর-গুলিস্তান, উত্তরা-মতিঝিল, গাবতলী-যাত্রাবাড়ীর পথগুলোতে প্রচুর যাত্রী আছে। ভাড়াও নির্ধারিত হারের কয়েক গুণ। তবু ঢাকার বাসের এই করুণ দশা কেন?

পরিবহন খাতসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, ঢাকার বাস চলাচলের অনুমোদন থেকে এর পরিচালনা পদ্ধতি—সব ক্ষেত্রেই গলদ আছে। রাজনৈতিক প্রভাব থাকলে যে কেউ কোম্পানি খুলে যেকোনো পথে বাস নামাতে পারেন। এরপর কোম্পানির উদ্যোক্তারা শুরু করেন চাঁদাবাজি। মালিক চুক্তিতে চালক-শ্রমিকদের হাতে বাস ছেড়ে দেন। তাঁরা বেশি টাকার আশায় রাস্তায় অন্য বাসের সঙ্গে রেষারেষি করেন। ফলে নতুন বাসও কয়েক মাসের মধ্যে রংচটা হয়ে পড়ছে।… …

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ও পরিবহন বিশেষজ্ঞ মোয়াজ্জেম হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ১ লাখ ৪০ হাজার কোটি টাকা খরচ করে মেট্রোরেল নির্মাণ করলে ২০৩০ সালের পর ঢাকার মানুষ এর সুফল পাবে। আর মাত্র ৫ হাজার কোটি টাকা খরচ করে ঢাকাসহ দেশের ১০টি বড় শহরের বাস-ব্যবস্থা আধুনিকায়ন করা সম্ভব। এতে সময় লাগবে বড়জোর এক বছর। অথচ সরকার এই পথে হাঁটছে না। কম টাকার প্রকল্পে হয়তো সরকারের আগ্রহ নেই, নতুবা পরিবহনমালিকদের কাছে সরকার জিম্মি। ঢাকাসহ বড় শহরগুলোর বাস-ব্যবস্থা আধুনিকায়ন করার এখনই সময়। পরে টাকা খরচ করেও লাভ হবে না।

ব্যাংক খাত: আড়াই লাখ কোটি টাকা আটকা

১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

আদালতে এখন ব্যাংক ও আর্থিক খাতের ২ লাখ ৭৭ হাজার ৯৪টি মামলা নিষ্পত্তির অপেক্ষায় রয়েছে। এসব মামলার বিপরীতে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর ২ লাখ ৫১ হাজার ২৬৯ কোটি টাকা আটকে আছে। এই টাকা সর্বশেষ ২০১৯-২০ অর্থবছরে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) আদায় করা রাজস্ব আয়ের চেয়েও বেশি।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগে সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের পাঠানো এক প্রতিবেদনে এই তথ্য পাওয়া গেছে। প্রতিবেদনটিতে ২০২০ সালের জুন পর্যন্ত ব্যাংক ও আর্থিক খাতের মামলার সংখ্যা ও এর সঙ্গে জড়িত অর্থের পরিমাণ তুলে ধরা হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংক ছয় মাস পরপর মামলার হালনাগাদ তথ্যসংবলিত প্রতিবেদন তৈরি করে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগে পাঠায়। প্রতিবেদনে চার ধরনের মামলার কথা বলা হয়েছে—রিট মামলা, অর্থঋণ মামলা, সার্টিফিকেট মামলাএবং দেউলিয়া ও অন্যান্য মামলা। সাধারণত যেসব খেলাপি ঋণ আদায়ের সম্ভাবনা কম থাকে, সেগুলো আদায়ের জন্যই ব্যাংকগুলো আদালতে মামলা করে থাকে।

প্রতিবেদন অনুযায়ী সার্টিফিকেট মামলার সংখ্যাই সবচেয়ে বেশি, ১ লাখ ৫২ হাজার ৬২৬টি। আবার এই সার্টিফিকেট মামলায় জড়িত টাকার পরিমাণ সবচেয়ে কম, ২ হাজার ৪১৯ কোটি টাকা। অর্থঋণ আদালতে বিচারাধীন মামলার সংখ্যা ৬০ হাজার ৯৭৩টি। এসব মামলার বিপরীতে জড়িত রয়েছে ১ লাখ ২৯ হাজার ১১৫ কোটি টাকা। রিট মামলা আছে ৫ হাজারটি, যেগুলোতে জড়িত টাকার পরিমাণ ৩৪ হাজার ৭৮৮ কোটি। এ ছাড়া দেউলিয়া ও অন্যান্য মামলা রয়েছে ৫৮ হাজার ৪৯৫টি, এসব মামলার বিপরীতে জড়িত অর্থের পরিমাণ ৮৪ হাজার ৯০৬ কোটি টাকা।

গৃহহীনদের ঘর উপহার: আর বিব্রত হতে চায় না সরকার

২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

সারা দেশে দরিদ্র মানুষদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে ঘর দেওয়া কর্মসূচি প্রশংসা কুড়ালেও বেশ কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনায় বিব্রত হতে হয়েছে সরকারকে। কোথাও ঘর বুঝিয়ে দেওয়ার মাত্র দেড় সপ্তাহের মাথায় দেয়াল ভেঙে পড়েছে। কোথাও গৃহহীনদের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার অভিযোগও উঠেছে। প্রথম দফার এসব অপরাধের পুনরাবৃত্তি চায় না সরকার। দ্বিতীয় দফায় যাতে উল্লিখিত ভুল না হয়, সে জন্য মাঠ প্রশাসনকে কড়া বার্তা দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।

৮ কারণে চিনি শিল্পে লোকসান

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বাংলা ট্রিবিউন

রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান চিনি ও খাদ্য শিল্প করপোরেশন (বিএসএফআইসি) গত ৫ বছরে তিন হাজার ৯৩৮ কোটি টাকা লোকসান দিয়েছে। এই সময় প্রতিষ্ঠানটির আয় হয়েছে তিন হাজার ১৪৭ কোটি ২২ লাখ টাকা আর ব্যয় হয়েছে সাত হাজার ৮৬ কোটি ২ লাখ টাকা।

বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত শিল্প মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে উপস্থাপিত এক প্রতিবেদনে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

প্রতিবেদনে বিএসএফআইসি’র লোকসানের ৮টি কারণ চিহ্নিত করা হয়েছে। এগুলো হলো-চিনির উৎপাদন খরচের চেয়ে বিক্রয় মূল্য কম, বিশ্বব্যাপী চিনির দাম কমে যাওয়া, পুঞ্জিভূত ঋণ ও সুদের পরিমাণ অনেক বেশি, অধিক চিনি সম্পৃদ্ধ, পোকাও রোগবালাই প্রতিরোধ সক্ষম আখের জাত উদ্ভাবন না হওয়া, কারখানাগুলো দীর্ঘদিনের পুরনো ও জরাজীর্ণ, বেসরকারি খাতে আমদানীকৃত ‘র’ সুগার থেকে রিফাইন্ড সুগার উৎপাদন করে কম মূল্যে বাজারজাত করা আখের মূল্য ও চিনির মূল্যের মধ্যে সামঞ্জস্য না থাকার কারণে ক্রমাগত লোকসানের কারণে ঋণের সুদ বৃদ্ধির পাশাপাশি উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়া এবং চিনি সংগ্রহের হার কমে যাওয়া।

যশোরে এনজিওর ঋণের চাপে গৃহবধূর আত্মহত্যা

২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ঢাকা ট্রিবিউন অনলাইন বাংলা

২০ হাজার টাকা ঋণ গ্রহণ করে ১৭ হাজার টাকা পরিশোধ করেছিলেন লিপিকা। কিন্তু বাকী টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় তাকে পুলিশ দিয়ে হয়রানি ও এনজিও থেকে মামলার হুমকি দেয়া হয়েছিল

যশোর জেলার মণিরামপুরে এনজিও’র ঋণের কিস্তির টাকা আদায়ের চাপ সইতে না পেরে লিপিকা মন্ডল (২৫) নামের এক গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

গত মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যার দিকে নিজ ঘরের আড়ার সাথে গলায় রশি দিয়ে লিপিকা মন্ডল আত্মহত্যা করেন। তিনি উপজেলার হরিদাসকাটি ইউনিয়নের পাঁচকাটিয়া গ্রামের বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী ভ্যান চালক সুশান্ত মন্ডলের স্ত্রী।

বাংলাদেশে প্রতি কিমি ১২ কোটি, ভারতে ৯৩ লাখ

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, দেশ রুপান্তর

দেশে বিদ্যুতের সঞ্চালন লাইন নির্মাণে খরচ প্রতিবেশী দেশ ভারতের তুলনায় অনেক বেশি। প্রতি কিলোমিটার সঞ্চালন লাইন নির্মাণে যে খাতে ভারতে গড় ব্যয় ৯৩ লাখ টাকা, সেখানে একই ধরনের সঞ্চালন লাইন নির্মাণে বাংলাদেশে খরচ হয় ৮ থেকে ২৯ কোটি টাকা পর্যন্ত। দেশের বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন নির্মাণ ও তা দেখভালের দায়িত্বে থাকা পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ (পিজিসিবি) থেকে ব্যয়ের এ হিসাব পাওয়া গেছে। পিজিসিবির সঞ্চালন লাইন নির্মাণে অস্বাভাবিক এ খরচের জন্য দুর্নীতি দায়ী বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

আর শুধু বিদ্যুৎ খাতই নয়, দেশের অন্যান্য উন্নয়ন প্রকল্পেরও বাস্তবায়ন ব্যয় পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের চেয়ে তুলনামূলক অনেক বেশি। এর পক্ষে সরকারের যুক্তি হলো দেশে জমির মূল্য বেশি হওয়ায় প্রকল্প ব্যয় বেড়ে যায়। তবে বিদ্যুতের সঞ্চালন লাইন নির্মাণের জন্য যে টাওয়ার স্থাপন করা হয় তার জন্য জমির মালিককে কোনো ক্ষতিপূরণ দেয় না সরকার।

ভারতের সেন্ট্রাল ইলেকট্রিসিটি রেগুলেটরি কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, দেশটিতে হাইভোল্টেজ ডিরেক্ট কারেন্ট (এইচভিডিসি), ৪০০ কেভি ডাবল ও সিঙ্গেল সার্কিট, ২২০ কেভি ডাবল ও সিঙ্গেল সার্কিট এবং ১৩২ কেভি ডাবল ও সিঙ্গেল সার্কিট সঞ্চালন লাইনের গড় নির্মাণ ব্যয় প্রতি কিলোমিটারে ৯৪ লাখ টাকা। সেখানে দেশের ১০টি প্রকল্পের গড় ব্যয় বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে কিলোমিটারপ্রতি সঞ্চালন লাইন নির্মাণে খরচ পড়েছে ১২ কোটি টাকা।

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলের ইজারা বেসরকারি খাতে

৩ মার্চ, ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

রাষ্টায়ত্ত ২৫ পাটকলের সবগুলোকে বেসরকারি খাতে ইজারা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। প্রাথমিকভাবে পরিকল্পনা ছিল সেসব পাটকল যৌথ উদ্যোগ, সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্ব বা জিটুজি চুক্তির মাধ্যমে আবারও খুলে দেওয়ার।

বাংলাদেশ জুট মিলস করপোরেশনের (বিজেএমসি) সূত্র দ্য ডেইলি স্টারকে জানিয়েছে, নয় সদস্যের আন্তঃমন্ত্রণালয় কমিটি পাটকলগুলো ইজারা দেওয়ার ক্ষেত্রে চুক্তির শর্তগুলো প্রায় চূড়ান্ত করে ফেলেছে। আগামী দুই-এক সপ্তাহের মধ্যে আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করা হতে পারেও বলে সূত্র জানিয়েছে।

বিজেএমসি ও মন্ত্রণালয় সূত্র মতে, প্রকাশ্য নিলাম ব্যবস্থার মাধ্যমে পাটকলগুলো পাঁচ থেকে ২০ বছরের জন্যে ইজারা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বসে বসে বেতন নিচ্ছেন কর্মকর্তারা

০৬ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

বছর বছর কয়েক শ কোটি টাকার লোকসানে নিমজ্জিত থাকা ২৫টি পাটকল বন্ধ করার পর এখনো চালু করতে পারেনি সরকার। বেসরকারি উদ্যোক্তাদের ইজারা দিয়ে বন্ধ পাটকল চালু করার পরিকল্পনা থাকলেও তা হয়নি। এরই মধ্যে আট মাস পেরিয়েছে। পাটকল বন্ধের কারণে ৫০ হাজারের বেশি শ্রমিক বেকার হলেও কর্মকর্তারা বহাল তবিয়তেই আছেন। পাটকলের চাকা না ঘুরলেও প্রায় বসেই বসেই বেতন নিচ্ছেন বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশনের (বিজেএমসি) প্রায় তিন হাজার কর্মকর্তা–কর্মচারী।

 পাটকল বন্ধের আট মাস পার হওয়ার পরও সব শ্রমিকের পাওনা শোধ করতে পারেনি বিজেএমসি। আবার ইজারা দিয়ে কবে নাগাদ পুনরায় পাটকল চালানো যাবে, তা সুনির্দিষ্ট করে বলতে পারছেন না সংস্থাটির কর্মকর্তারা। যে প্রক্রিয়ায় পাটকল ইজারা দেওয়ার চিন্তাভাবনা চলছে, সেটি সফল হবে কি না, তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করছেন বেসরকারি খাতের অনেক উদ্যোক্তা। তাঁরা বলছেন, মধ্যমেয়াদি ইজারা দিলে ব্যাংক অর্থায়ন করবে না। নিজের গাঁটের ৪০০-৫০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করে তা তুলে আনাও কঠিন। এ ছাড়া সরকারের হুটহাট নীতি পরিবর্তনের ঝুঁকি তো আছেই।

 সরকারি পাটকল বন্ধ হলেও বেসরকারি খাতের উদ্যোক্তাদের হাত ধরে করোনাকালেও পাট ও পাটজাত পণ্যের রপ্তানি বাড়ছে। চলতি বছরের প্রথম আট মাসে (জুলাই–ফেব্রুয়ারি) পাট ও পাটজাত পণ্যের রপ্তানি বেড়েছে ২৩ শতাংশ, যেখানে তৈরি পোশাক, চামড়া, চামড়াজাত পণ্যসহ অন্য অনেক খাতের রপ্তানি কমে গেছে। এমন পরিস্থিতিতে আজ ৬ মার্চ জাতীয় পাট দিবস পালিত হচ্ছে। শুরুর দিকে দিবসটি নিয়ে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা থাকলেও চলতি বছর করোনার কারণে চুপচাপ বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়।

১২ বছরেও চালু হয়নি চিটাগং কেমিক্যাল কমপ্লেক্স

১১ মার্চ, ২০২১, বণিক বার্তা

দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর চিটাগং কেমিক্যাল কমপ্লেক্স (সিসিসি) উদ্বোধন হয় ২০০৯ সালে। এরপর প্রায় এক যুগ পেরিয়ে গেলেও এখনো চালু করা যায়নি কারখানাটি। এর আগে বিদেশী একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে এটি চালুর দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এতে ব্যর্থ হয়ে প্রতিষ্ঠানটি উধাও হয়ে যাওয়ার পর বিষয়টি কয়েক বছর ধরে থমকে রয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, সিসিসি বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল ২০০২ সালের ডিসেম্বরে। এরপর ২০০৯ সালে তা পুনরায় চালুর উদ্যোগ নেয়া হয়। ওই বছরেই কোনো সম্ভাব্যতা সমীক্ষা ছাড়াই তড়িঘড়ি করে কারখানাটি উদ্বোধনও করা হয়। যেকোনো উপায়ে কারখানাটি চালু করতে গিয়ে পাশ কাটিয়ে যাওয়া হয় বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন (বিসিআইসি) সংশ্লিষ্টদের। পরে কারখানাটি চালুর দায়িত্ব দেয়া হয় চীনা একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে। চালু করতে ব্যর্থ হয়ে প্রতিষ্ঠানটি ২০১৮ সালে উধাও হয়ে যায়। এরপর থেকে কারখানা চালুর কার্যক্রম থমকে রয়েছে।

সরকারি চিনিকলে যেদিকে দৃষ্টি সেদিকেই দুর্নীতি

০৯ মার্চ ২০২১, যুগান্তর

সরকারের ১৫টি চিনিকলে পদে পদে অনিয়ম। যেন ‘যেদিকে দৃষ্টি, সেদিকেই দুর্নীতি।’ লুটপাট করা হয়েছে কর্মচারীদের গ্র্যাচুইটি ও ওভারহেডের (উপরি ব্যয়) অর্থ। ভুয়া শ্রমিকের নামে তুলে নেওয়া হয়েছে চারগুণের বেশি মজুরি।

ঋণ নেওয়া হয়েছে প্রভিডেন্ট ফান্ড (পিএফ) থেকে। বিপরীতে পরিশোধ করা হয়নি কোনো সুদের টাকা। পাশাপাশি প্রকৃত লোকসানের চেয়ে অতিরিক্ত দেখিয়ে হাতিয়ে নেওয়া হয় মোটা অঙ্কের অর্থ।

ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে তা পরিশোধ করা হচ্ছে না বছরের পর বছর। শুধু তাই নয়, ডিলারদের জামানতে গড়ে তোলা তহবিলে নেই একটি টাকাও। এই তহবিলের অর্থ ফেরত দিতে রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছে মিলগুলো।

সরকারি চিনিকলগুলোর ওপর পরিচালিত অভ্যন্তরীণ নিরীক্ষা প্রতিবেদনে উঠে এসেছে অনিয়ম-দুর্নীতির এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য।

ওই প্রতিবেদনে আরও উল্লেখ করা হয়, কোনো কোনো মিলের সম্পদের চেয়ে লোকসানের পরিমাণ দেখানো হয়েছে বেশি। যা সন্দেহজনক হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। আর বিক্রি করা চিনির মূল্যের মধ্যে কৌশলে অন্তর্ভুক্ত করা হয় কাঁচামালের মূল্য।

লিটারে ভ্যাট ১৮ টাকা, সয়াবিনে নাভিশ্বাস ক্রেতাদের

১১ মার্চ, ২০২১, independent24.com

সয়াবিন তেলের দামে নাভিশ্বাস ক্রেতার। তবে, পোয়াবারো জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এনবিআরের। এক লিটার তেলে ১৮ টাকা ভ্যাট আদায় করছে সংস্থাটি। আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় প্রায় দ্বিগুণ ভ্যাট পাচ্ছে সরকার। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় মনে করছে, ভ্যাট কমালে দাম কিছুটা সহনীয় হবে।

ভোজ্য তেল বিক্রেতা আব্দুল মান্নান বলেন, সয়াবিন তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় কমেছে বিক্রি-মুনাফা, দুটোই। উল্টো ক্রেতার চোখে অপরাধী তারা। ক্ষোভ থেকেই কথাগুলো বলছিলেন কারওয়ান বাজারের এই ব্যবসায়ী।

ট্যারিফ কমিশনের হিসাবে, প্রতিটন অপরিশোধিত তেলের আমদানি মূল্য প্রায় ৯০ হাজার টাকা। এতে দিতে হচ্ছে ১৫ শতাংশ ভ্যাট ও ৪ শতাংশ অগ্রিম আয়কর। সব মিলিয়ে প্রতিটন তেলে কর প্রায় ১৮ হাজার টাকা। কিছুদিন আগেও যা ছিল প্রায় অর্ধেক।

রিজার্ভ থেকে প্রথম ৫৪১৭ কোটি টাকা ঋণ পেল পায়রা

১৬ মার্চ, ২০২১ , দেশ রুপান্তর

বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ নিয়ে গঠিত বাংলাদেশ অবকাঠামো উন্নয়ন তহবিলের (বিআইডিএফ) প্রথম ঋণ পাচ্ছে পায়রা বন্দর কর্র্তৃপক্ষ। এই বন্দরের রাবনাবাদ চ্যানেলের ক্যাপিটাল ও মেইনটেন্যান্স ড্রেজিং কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য এই ঋণের অর্থ ব্যয় করা হবে। এই কর্মসূচির অনুকূলে সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে ৫ হাজার ৪১৭ কোটি টাকা ছাড় করবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এ বিষয়ে গতকাল সোমবার অর্থ বিভাগ, পায়রা বন্দর কর্র্তৃপক্ষ ও সোনালী ব্যাংকের মধ্যে একটি ত্রিপক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষর হয়। রিজার্ভ থেকে দেশের কোনো উন্নয়ন প্রকল্পে অর্থায়ন এটাই প্রথম।

মতিঝিলে আদমজী কোর্টে আগুন

২৩ মার্চ ২০২১, সমকাল

রাজধানীর মতিঝিলে বাংলাদেশ পাটকল করপোরেশন (বিজেএমসি) ভবন আদমজী কোর্টে আগুন লেগেছে। সোমবার দুপুরে লাগা আগুন দুই ঘণ্টার চেষ্টায় বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়। আগুন নেভাতে গিয়ে ফায়ার সার্ভিসের দুই কর্মী আহত হলেও ভবনে থাকা কেউ হতাহত হয়নি বলে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে আগুন লাগার কারণ বা ক্ষয়ক্ষতি নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

অভাবে গরুর বদলে লাঙ্গল টানছেন দুই বৃদ্ধ

২৩ মার্চ, ২০২১, news24bd.tv

দিনমজুর কৃষক নূর ইসলাম (৬৫) ও আব্দুল জব্বার (৭০)। পেটের দায়ে বৃদ্ধ বয়সেও কাজ করেন দৈনিক ভিত্তিতে অন্যের কৃষি জমিতে। কারণ কাজ করলেই মিলবে অর্থ। আর সেই অর্থেই পরিবারের কপালে জুটবে খাবার। নয়তো অভুক্ততই থাকতে হবে পরিবার নিয়ে। কিন্তু পরিশ্রমী এই দুই বৃদ্ব এবার ‍গরুর পরিবর্তে নিজেরাই কৃষি জমিতে লাঙ্গল ঘাড়ে নিয়ে হাল চাষ করেছেন আলুর খেতে।

আজ মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) সকালে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার পাঁচগাছী ইউনিয়নের উত্তর নওয়াবস গ্রামে এ দৃশ্য দেখা যায়। এই দু’জন কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার পাঁচগাছী ইউনিয়নের উত্তর নওয়াবস গ্রামের বাসিন্দা।

এক মণ লবণে চাষী পায় ১৩০, ব্যবসায়ী ১২০০ টাকা

০১ এপ্রিল ২০২১, যুগান্তর

যে লবণের দাম চাষীরা পাচ্ছেন মণপ্রতি মাত্র ১৩০ টাকা, সেখানে প্যাকেটজাত করার পর সেই লবণ বিক্রি করা হচ্ছে মণপ্রতি ১০০০ থেকে ১২০০ টাকা। প্রান্তিক চাষী আর ভোক্তাদের মাঝে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে কী এমন রহস্য লুকিয়ে আছে যে, কেনা আর বিক্রির মধ্যে এত ফাঁরাক!

এমন প্রশ্ন তুলেছে কক্সবাজার লবণ চাষী ও ব্যবসায়ী সংগ্রাম পরিষদ। বৃহস্পতিবার সকালে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বরাবর স্মারকলিপি দেন তারা।

পাট খাত সংস্কারে ফের এডিবির ঋণ

৭ এপ্রিল, ২০২১, কালেরকন্ঠ

রাষ্ট্রীয় খাতের পাটকলগুলো সংস্কারের জন্য সরকার আবারও এডিবির (এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক) কাছ থেকে ঋণ নিতে যাচ্ছে। প্রাথমিকভাবে এ খাতে ৫০০ মিলিয়ন আমেরিকান ডলার ঋণ দিতে এডিবি সম্মত হয়েছে। পাট খাতে কিভাবে এই টাকা ব্যবহৃত হবে এবং রাষ্ট্রীয় পাট খাত সম্পর্কে সরকারের ভাবনা কী, তা জানতে গতকাল মঙ্গলবার বিজেএমসির (বাংলাদেশ জুট মিলস করপোরেশন) সঙ্গে এডিবি প্রতিনিধিদলের এক ভার্চুয়াল সভা অনুষ্ঠিত হয়। এই সভায় বিজেএমসির পক্ষে জেনারেল ম্যানেজার (অ্যাকাউন্টস অ্যান্ড ফিন্যান্স) মো. আব্দুল মালেক অংশ নেন।

২০ মণ ‘সাদা সোনা’তেও মিলছে না এক বস্তা চাল

১২ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

বাংলাদেশের একমাত্র পাহাড়ি দ্বীপ উপজেলা মহেশখালী; বিখ্যাত মিষ্টিপানের জন্য। এরপরেই লবণ। এখানকার লবণ কক্সবাজারের অন্য উপকূলে উৎপাদিত লবণের তুলনায় উন্নত, অর্থাৎ লবণাক্ততার পরিমাণ বেশি। ফলে দামেও চড়া। একসময় চড়া মূল্যে বিক্রি হওয়ায় স্থানীয় ব্যক্তিরা লবণকে ‘সাদা সোনা’র সঙ্গে তুলনা করেন।

কিন্তু করোনা মহামারির কালে এসে যেন জৌলুশ হারিয়েছে মহেশখালীবাসীর সাদা সোনা। ২০ মণ লবণ বিক্রি করে এখন এক বস্তা চালও কিনতে পারছেন না চাষিরা, বরং লবণ বেচে বিনিয়োগের টাকা তুলতে না পারায় গুনতে হচ্ছে লোকসান। অথচ প্রচণ্ড গরমে এবার লবণের ভালোই উৎপাদন হয়েছে। এখন কালবৈশাখীর ঝড়–বৃষ্টিতে মাঠের লবণ নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা নিয়ে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় চাষিরা।

প্রান্তিক পর্যায়ে বাজারের এমন অবস্থার জন্য ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের বড় ব্যবসায়ীদের দুষলেন কক্সবাজারের স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। আবার কতিপয় প্রভাবশালী শিল্পের কাঁচামাল আমদানির নামে সোডিয়াম সালফেট এনে বাজারজাত করায় এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন চাষি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা।

ন্যাশনাল ব্যাংক

সিকদার পরিবারে গৃহবিবাদ, ঋণের নথিও মিলছে না

১৮ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে (জানুয়ারি-মার্চ) বেসরকারি খাতের ন্যাশনাল ব্যাংক প্রায় ছয় শ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ করে, যার কোনো অনুমোদন ছিল না। এমনকি এসব ঋণের বেশির ভাগের কোনো নথিপত্র ব্যাংকটিতে মিলছে না। বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারাও এসব নথিপত্র খুঁজে পাচ্ছেন না। আর এ নিয়ে তদন্ত চলায় ব্যাংকটির পরিচালনাও পর্ষদও এখন বিতরণ করা এসব ঋণের অনুমোদন দিতে চাইছে না। যদিও এসব ঋণ দেওয়া হয়েছে ব্যাংকটির পরিচালক পদে থাকা সিকদার পরিবারের এক সদস্যের নির্দেশে।

এ নিয়ে সিকদার পরিবারের মধ্যে তৈরি হয়েছে গৃহবিবাদ। ভাইয়েরা এক পক্ষে, বিপরীতে আছেন এক বোন। এক পক্ষ চাচ্ছে অনিয়ম অনুমোদনের, অন্য পক্ষ অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা চায়।

এদিকে গত বছরের ২৬ ডিসেম্বরের পর যেসব ঋণ বিতরণ করা হয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংক এসব ঋণের বিষয়ে তথ্য চেয়ে চিঠি দিয়েছে। এরপর ন্যাশনাল ব্যাংকে কী ধরনের অনিয়ম ও কত টাকা পাচার হয়েছে, তার খোঁজে তদন্ত শুরু করেছে বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)। এই ইউনিটের কর্মকর্তারা ৭ ও ৮ এপ্রিল ব্যাংকটির প্রধান কার্যালয়, মহাখালী ও গুলশান করপোরেট শাখায় তদন্ত করেন। আইনত বিএফআইইউ অর্থ পাচার তদন্তের দায়িত্বে নিয়োজিত। ফলে বাংলাদেশ ব্যাংক ও বিএফআইইউ এখন যৌথভাবে ব্যাংকটির সামগ্রিক কার্যক্রম খতিয়ে দেখছে।… ….

পিপিআরসি-বিআইজিডির গবেষণা

করোনার এক বছরে দেশে নতুন দরিদ্র আড়াই কোটি

২১ এপ্রিল, ২০২১, কালের কন্ঠ

করোনা সংক্রমণের এই সময়ে দেশে শহরে বস্তিবাসীর আয় করোনার আগের সময়ের তুলনায় ১৪ শতাংশ কমে গেছে। বস্তিবাসীর ৮ শতাংশ এখনো বেকার। এ ছাড়া গত এক বছরে করোনার সময়ে ৪ শতাংশ অতিদরিদ্রের সংখ্যা বেড়েছে। দেশে নতুন করে দরিদ্র হয়েছে প্রায় আড়াই কোটি মানুষ।

পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টার (পিপিআরসি) ও ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (বিআইজিডি) যৌথ গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে। গতকাল মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে জরিপের এসব তথ্য তুলে ধরেন অর্থনীতিবিদ ও পিপিআরসির নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. হোসেন জিল্লুর রহমান ও বিআইজিডির নির্বাহী পরিচালক ড. ইমরান মতিন। ২০২০ সালের এপ্রিল থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত টেলিফোনের মাধ্যমে দেশব্যাপী এই গবেষণা জরিপ চালানো হয়। এতে কভিড-১৯-এর কারণে সৃষ্ট দারিদ্র্যের গতি-প্রকৃতি এবং স্বল্প আয়ের মানুষের ওপর এর প্রভাব সম্পর্কিত নানা তথ্য তুলে ধরা হয়।

গবেষণায় বলা হয়, করোনা মহামারি সংক্রমণের এক বছর পার হয়েছে। কিন্তু ঋণের জালে জড়িয়ে এবং সঞ্চয় হারিয়ে দেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠী এখনো দৈনন্দিন জীবন চালাতে প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করছে। বিশেষ করে শহুরে বস্তিবাসীর অবস্থা বেশ ভয়াবহ।

জরিপে বলা হয়, দরিদ্র নয়, কিন্তু সেই ঝুঁকিতে থাকা মানুষের ৭২ শতাংশ গত বছরের জুনে দারিদ্র্যসীমার নিচে অবস্থান করছিল। তাদের আখ্যায়িত করা হয়েছিল ‘নতুন দরিদ্র’ হিসেবে। সেই ‘নতুন দরিদ্র’দের ৫০ শতাংশ এখনো দারিদ্র্যঝুঁকিতে রয়েছে; শতাংশ হারে যার পরিমাণ শহরে ৫৯ শতাংশ এবং গ্রামে ৪৪ শতাংশ। তবে কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে জুন মাস থেকে উন্নতি লক্ষ করা যাচ্ছে। এর পরও কভিডের আগে কাজ ছিল কিন্তু এখন বেকার, এমন মানুষ রয়েছে ৮ শতাংশ।

করোনায় কর্মহীনতার ক্ষেত্রে নারীদের অবস্থা আশঙ্কাজনক। কভিডের আগে কর্মজীবী ছিলেন, এমন নারীদের এক-তৃতীয়াংশ গত বছরের জুন মাস থেকে এখনো বেকার। পুরুষদের ক্ষেত্রে এই হার নেমে এসেছে ১৬ থেকে ৬ শতাংশে।

গবেষণায় কভিডের প্রভাবে স্বল্প আয় ও বেকারত্বের পাশাপাশি কর্মসংস্থান পুনরুদ্ধারের প্রকৃতি বদলে যাওয়ার বিষয়টি উঠে এসেছে। কভিডের কারণে অনেককেই পেশা পরিবর্তন করতে হয়েছে। তাঁদের বেশির ভাগই অদক্ষ শ্রমিক হিসেবে নতুন পেশায় যুক্ত হয়েছে। সে ক্ষেত্রে অনেকে দক্ষ শ্রমিক থেকে বেতনভুক্ত কর্মী এবং কারখানার কর্মীরা দিনমজুর হিসেবে কাজ শুরু করেছেন।

যৌথ গবেষণার তথ্য মতে, শুধু কৃষি খাতই কভিডপূর্ব অবস্থার মতো ইতিবাচক অবস্থান গড়তে পেরেছে। শহরে আয়ের সুযোগ কমে যাওয়ায় বস্তি থেকে গ্রামে চলে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে অনেক। গত বছর ২৭.৩ শতাংশ বস্তিবাসী শহর ছাড়ে, যাদের মধ্যে ৯.৮ শতাংশ এখনো ফেরেনি। আবার দরিদ্র নয়, এমন শ্রেণির মানুষের সঞ্চয়ের পরিমাণ কভিডপূর্ববর্তী অবস্থার চেয়ে নিচে নেমে গেছে। একই সঙ্গে সব শ্রেণিতে ঋণের পরিমাণ দ্বিগুণ হয়েছে।… …

দুর্নীতি-অনিয়ম

ফেরির ফগ লাইট জলেই গেল

২৬ জানুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষকে রাজধানীতে আসতে হলে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া অথবা শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ঘাটে ফেরিতে উঠতে হয়। এই দুই নৌপথে ফেরি দিয়ে প্রতিদিন কয়েক হাজার গাড়ি ও মানুষ পারাপার হয়। শীতে কুয়াশার মধ্যেও যাতে ফেরি চলাচল ব্যাহত না হয়, সে জন্য চার বছর আগে প্রায় পাঁচ কোটি টাকা ব্যয়ে ১০টি ফেরিতে উন্নত প্রযুক্তির ফগ লাইট লাগানো হয়। তবে এসব ফগ লাইট কোনো কাজে আসেনি। ফেরি–সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, কোটি কোটি টাকার এসব ফগ লাইটের চেয়ে সাধারণ সার্চলাইট অনেক কাজের।

কুয়াশায় চলাচলের পর্যাপ্ত আলো বা উন্নত প্রযুক্তির সুবিধা না থাকায় একটু ভারী কুয়াশা পড়লেই রাতে আট থেকে নয় ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ রাখতে হচ্ছে। দৌলতদিয়া–পাটুরিয়া ঘাটসংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, চলতি মাসের ১৬ জানুয়ারি রাত থেকে ভারী কুয়াশা পড়তে থাকে। এ কারণে ওই নৌপথে ১৬ জানুয়ারি মধ্যরাত থেকে পরদিন সকাল পর্যন্ত প্রায় ৭ ঘণ্টা ফেরি বন্ধ ছিল। এভাবে ১৭ জানুয়ারি প্রায় সাড়ে ১০ ঘণ্টা, ১৮ জানুয়ারি সাড়ে ৮ ঘণ্টা, ২০ জানুয়ারি ৭ ঘণ্টা, ২২ জানুয়ারি সাড়ে ৯ ঘণ্টা, ২৩ জানুয়ারি ৯ ঘণ্টা এবং ২৪ জানুয়ারি সকাল পর্যন্ত ১২ ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ ছিল। অষ্টম দিনের মতো রোববার রাত আড়াইটা থেকে (ক্যালেন্ডারের হিসাবে ২৫ জানুয়ারি) গতকাল সোমবার সকাল পর্যন্ত দুই দফা প্রায় সাড়ে ৫ ঘণ্টা ফেরি বন্ধ ছিল। এই নিয়ে এক সপ্তাহে ৬৭ ঘণ্টার বেশি ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে ওই পথে যাতায়াতকারী লাখো মানুষকে।

গবেষণায় চৌর্যবৃত্তিতে সামিয়া রহমানসহ ঢাবির তিন শিক্ষকের পদাবনতি

২৮ জানুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

একাডেমিক গবেষণায় চৌর্যবৃত্তির দায়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সামিয়া রহমান এবং অপরাধবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক সৈয়দ মাহফুজুল হক মারজানের পদাবনতি করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি পিএইচডি গবেষণায় চৌর্যবৃত্তির অভিযোগে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মুহাম্মদ ওমর ফারুককেও একই শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম সিন্ডিকেটের নিয়মিত বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত হয়। সিন্ডিকেটের দুজন সদস্য প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গরিবের প্লটে কোটিপতিরা!

২৯ জানুয়ারি ২০২১, সমকাল

টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে সামাজিক বনায়ন কর্মসূচির আওতায় উপকারভোগীদের প্লট বরাদ্দে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভূমিহীন, দুস্থ নারী, অনগ্রসর গোষ্ঠী, দরিদ্র আদিবাসী ও অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের এসব প্লট বরাদ্দ দেওয়ার কথা থাকলেও বন বিভাগের কর্মকর্তারা অনৈতিক সুবিধা নিয়ে অপ্রাপ্তবয়স্ক, সরকারি কর্মকর্তা ও কোটিপতিদের নামে বরাদ্দ দিয়েছেন।

কোটিপতি, সরকারি বড় বড় কর্মকর্তা এমনকি ষষ্ঠ শ্রেণি পড়ূয়া শিক্ষার্থীর নামও রয়েছে প্লট বরাদ্দপ্রাপ্তদের তালিকায়। নিয়ম লঙ্ঘন করে অন্য উপজেলার লোকদেরও দেওয়া হয়েছে প্লট। সমকালের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে প্লট বরাদ্দের নানা অসঙ্গতির চিত্র। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সৃজন করা একটি বিটের প্লট প্রাপ্তির মাত্র ৫০ জনের তালিকা ধরে চালানো অনুসন্ধানে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

ধারণা সূচকে দুর্নীতিতে অবনতি বাংলাদেশে

২৯ জানুয়ারি, ২০২১, দেশ রুপান্তর

দুর্নীতির ধারণা সূচকে আগের বছরের তুলনায় আরও দুই ধাপ নিচে নেমে এসেছে বাংলাদেশ। বার্লিনভিত্তিক ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল (টিআই) কর্র্তৃক পরিচালিত ‘দুর্নীতির ধারণা সূচক (সিপিআই) ২০২০’-এর বৈশ্বিক প্রকাশ উপলক্ষে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য তুলে ধরেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান।

সিপিআই-২০২০ অনুযায়ী ১৮০টি দেশের মধ্যে তালিকার নিচের দিক থেকে বাংলাদেশ ১২তম অবস্থানে আছে। যেটা সিপিআই-২০১৯-এর তুলনায় দুই ধাপ নিচে নেমেছে বলে উল্লেখ করা হয়। ২০১৯ সালে নিম্নক্রম অনুযায়ী বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৪তম। এর পেছনে করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতে ব্যাপক দুর্নীতির বিষয়টিকে অন্যতম কারণ হিসেবে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

অন্যকে ফাঁসাতে থানায় বোমা মারতে বললেন সাংসদ

৩০ জানুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

যশোরের কেশবপুরের পরিবেশ আন্দোলনকর্মী সাইফুল্লাহর বিরুদ্ধে ‘ডাকাতির উদ্দেশে বোমা হামলা’ মামলা করতে স্থানীয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) নির্দেশনা দিয়েছেন সাংসদ শাহীন চাকলাদার। চাকলাদার যশোর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও কেশবপুর (যশোর–৬) আসনের সংসদ সদস্য।

সপ্তাহ দুয়েক আগে কেশবপুর থানার ওসি জসিম উদ্দিনের মোবাইল ফোনে কল করে চাকলাদার এই নির্দেশনা দেন। সাংসদ যার বিরুদ্ধে মামলা করতে বলেছেন সেই সাইফুল্লাহ ওই এলাকার একজন পরিবেশবাদী কর্মী। পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) সঙ্গে মিলে তিনি কাজ করেন। সম্প্রতি ওই এলাকায় ‘মেসার্স সুপার ব্রিকস’ নামে অবৈধ ভাবে গড়ে ওঠা একটি ইট ভাটার বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে রিট করেন সাইফুল্লাহ। আদালত ভাটা বন্ধের নির্দেশনাও দেন। আর এতেই ক্ষিপ্ত হন সাংসদ শাহীন চাকলাদার।

সাংসদ নিজের পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সদস্য পরিচয়ের কথা উল্লেখ করে ওসি জসিম উদ্দিনকে বলেন, আপনি রাতেই থানায় বোম মারেন। তারপর সাইফুলের নামে মামলা করেন। এরপর বলেন, পুলিশকে সিভিল কাপড়ে পাঠিয়ে ইউভাটায় বোমা মেরে ডাকাতির উদ্দেশে হামলা এমন একটা মামলা দেন। তিনি ওসিকে বলেন, মামলা করতেই হবে, এটাই শেষ কথা। তাছাড়া তিনি ওসিকে ভর্ৎসনা করে বলেন, সাইফুল কেন বারবার আদালতে গিয়ে মামলা করে, ওসি হয়ে তিনি কী করেন?

সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি: যোগ্য না হয়েও ভাতা নেন ৪৬%

৩০ জানুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

৬০ শতক জমির অর্ধেকে আধা পাকা বাড়ি। বাকি অংশে নিজের নামে একটি কিন্ডারগার্টেন স্কুল। চাষের জমি আছে দেড় একর। তিনটি পুকুর লিজ নিয়ে চলছে মাছ চাষ। স্থানীয় বাজারটিও ইজারা নিয়েছেন। তাঁর আয়ের এসব উৎসের সঙ্গে সম্প্রতি যোগ হয়েছে সরকারের ‘বয়স্ক ভাতা’।

তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া পৌরসভার দেবগ্রামের বাসিন্দা হাজি আবদুর রহিম। বয়স হলেও আর্থিক অবস্থা বিবেচনায় তিনি এ সুবিধা পাওয়ার যোগ্য নন।

সরকারি সমীক্ষা বলছে, বয়স্ক ভাতার তালিকায় অনিয়মের পরিমাণ সবচেয়ে বেশি। আর সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির পুরো আয়োজনে অনিয়মের পরিমাণ ৪৬ শতাংশ।

অনিয়ম দূর করে সঠিক লোকের কাছে এসব কর্মসূচির সহায়তা পৌঁছে দিতে পারলে কোনো বাড়তি ব্যয় ছাড়াই আরও ২৬ লাখ পরিবারের ১ কোটি ৭ লাখ মানুষকে দারিদ্র্যসীমার নিচ থেকে একঝটকায় তুলে আনা সম্ভব।

সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিগুলোর বাস্তবায়ন পরিস্থিতি নিয়ে জাতীয় সামাজিক নিরাপত্তা কৌশলের (এনএসএসএস) মধ্যবর্তী উন্নয়ন পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। বলা হয়েছে, তালিকাভুক্ত ভাতাভোগীদের ৪৬ শতাংশের বেশি ভাতা পাওয়ার যোগ্য নয়। তবে প্রতিবেদনে একে অনিয়ম না বলে বলা হয়েছে, ‘তালিকাভুক্তির ভুল’। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় প্রশাসন এই সব তালিকা তৈরির সঙ্গে যুক্ত।

পি কের প্রতিষ্ঠান থেকে ঘুষ নিতেন তাঁরা

০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর অনিয়ম চাপা দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শন কর্মকর্তাদের পাঁচ থেকে সাত লাখ টাকা করে দিত রিলায়েন্স ফাইন্যান্স ও ইন্টারন্যাশনাল লিজিং। আর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগের তৎকালীন মহাব্যবস্থাপক শাহ আলমকে প্রতি মাসে দেওয়া হতো দুই লাখ টাকা করে। আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর অনিয়ম-দুর্নীতি ‘ম্যানেজ’ করতেন সাবেক ডেপুটি গভর্নর এস কে সুর চৌধুরী।

এই কর্মকর্তাদের সহায়তায় কয়েকটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গেছেন আলোচিত প্রশান্ত কুমার (পি কে) হালদার। ফলে কমপক্ষে চারটি আর্থিক প্রতিষ্ঠানের আমানতকারীরা এখন টাকা ফেরত পাচ্ছেন না। এর মধ্যে একটি অবসায়নের সিদ্ধান্ত হয়েছে, দুটিতে চেয়ারম্যান নিয়োগ দিয়েছেন আদালত।

ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রাশেদুল হক আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এসব কথা বলেছেন।

এখনো ফিরল না ৫৬১ কোটি টাকা

০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির পাঁচ বছর হয়ে গেল। অথচ চুরি হওয়া অর্থের ৫৬১ কোটি টাকা এখনো ফেরত আসেনি। এমনকি অর্থ ফেরত দেওয়ার আশ্বাসও মেলেনি। রিজার্ভ চুরি নিয়ে বাংলাদেশ সরকার যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল কোর্টে যে মামলা করেছিল, তা–ও টেকেনি। অর্থ ফেরত ও জড়িতদের শাস্তির জন্য এখন নতুন করে স্টেট কোর্টে মামলা করেছে। এখনো সেই মামলার শুনানি শুরু হয়নি। ফলে অর্থ ফেরত পাওয়ার আশার আলো কোথাও দেখা যাচ্ছে না।

এদিকে রিজার্ভ চুরির ঘটনায় বাংলাদেশেও কারও বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। তবে নিরাপত্তাব্যবস্থা বাড়িয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এখন কোনো ধরনের সতর্কতা পেলেই বিভিন্ন নেটওয়ার্কে কড়া তদারকি ব্যবস্থা নিচ্ছে। এমনকি কর্মকর্তাদের কম্পিউটারে ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন রাখছে। আর ব্যাংকগুলোকেও সময় সময় সতর্ক করার পাশাপাশি বিভিন্ন ব্যবস্থা নিতে বলছে।

ঘুষ নেওয়ায় আপাতত শাস্তি দায়িত্ব পরিবর্তন

০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

 আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো দেখভালের দায়িত্বে থাকা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক শাহ আলমকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। প্রায় সাত বছর ধরে তিনি আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের দায়িত্ব ছিলেন। আলোচিত প্রশান্ত কুমার (পি কে) হালদারের প্রতিষ্ঠান থেকে ঘুষ গ্রহণ করার অভিযোগ আসার পর আজ কেন্দ্রীয় ব্যাংক এ সিদ্ধান্ত নেয়। একই সঙ্গে তাঁকে ব্যাংক পরিদর্শন বিভাগ-২–এর দায়িত্ব থেকেও সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

 ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রাশেদুল হক গত মঙ্গলবার আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে বলেন, আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর অনিয়ম চাপা দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শন কর্মকর্তাদের পাঁচ থেকে সাত লাখ টাকা করে দিত রিলায়েন্স ফাইন্যান্স ও ইন্টারন্যাশনাল লিজিং।

 আর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগের তৎকালীন মহাব্যবস্থাপক শাহ আলমকে প্রতি মাসে দেওয়া হতো দুই লাখ টাকা করে। আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর অনিয়ম-দুর্নীতি ‘ম্যানেজ’ করতেন সাবেক ডেপুটি গভর্নর এস কে সুর চৌধুরী।

স্বাস্থ্যসহ ১৩ খাতে দুর্নীতির ৭৫ উৎস

১০ ফেব্রুয়ারি ২০২১, সমকাল

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) দেশের ১৩টি গুরুত্বপূর্ণ খাতের দুর্নীতি চিহ্নিত করে সে সবের প্রতিরোধে ১১৫টি সুপারিশসহ ২০১৯ সালের বার্ষিক প্রতিবেদন রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদের কাছে পেশ করেছে। প্রতিবেদনে জনসংশ্নিষ্ট সেবা খাতগুলোতে অনিয়ম, দুর্নীতি, প্রতারণা ও জালিয়াতির নানা চিত্র তুলে ধরা হয়েছে।

প্রতিবেদনে যে ১৩টি খাতের দুর্নীতি তুলে ধরা হয়েছে সেগুলো হলো- স্বাস্থ্য; সড়কে যানবাহন ব্যবস্থাপনা; নকল, ভেজাল ও নিষিদ্ধ পণ্য সরবরাহ; নিষিদ্ধ পলিথিনের আগ্রাসন; নদী দখল; দক্ষ ও দুর্নীতিমুক্ত ভূমি রেজিস্ট্রেশন সেবা; ইটভাটা স্থাপন সংক্রান্ত; দীর্ঘমেয়াদি নৈতিকতার বিকাশে বিএনসিসি কার্যক্রম; সরকারি পরিষেবার মধ্যস্বত্বভোগী; ওয়াসা; আয়কর, কাস্টমস ও ভ্যাট-সংক্রান্ত; রেলওয়ে এবং স্থায়ী সিভিল সার্ভিস সংস্কার কমিশন গঠন। বিবিধ সুপারিশও রয়েছে এতে।

প্রকল্পের টাকা ভাগাভাগি নিয়ে চেয়ারম্যান-ইউপি সদস্যের ফোনালাপ ফাঁস

১২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

বরিশালের উজিরপুর উপজেলায় অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচি বাস্তবায়নে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সুবিধাবঞ্চিত অতিদরিদ্র শ্রমিকদের দিয়ে কাজ না করিয়ে অর্থ ভাগাভাগির ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ। উপজেলার জল্লা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ও সদস্যের মধ্যে ফোনালাপ প্রকাশ পেলে বিষয়টি সামনে আসে।… ….

ওই ফোনালাপে শোনা যায়, ইউপি সদস্য দীপালি হালদার চেয়ারম্যানকে বলছেন, ‘আপনি ইউএনওর কাছে আমার নামে প্রস্তাব দিয়েছেন কেন? আপনি যে টাকা চাইছেন, আমি আপনাকে ৭০ হাজার টাকা দিছি। আগেরবার কর্মসূচির ৫০ হাজার টাকা দিছি। আমি কি আপনারে কম টাকা দিছি? তারপরেও কেন অভিযোগ দিলেন?’ উত্তরে চেয়ারম্যান বেবী বলেন, ‘৭০ হাজার দেও, আর ৯০ হাজার টাকা দেও, সেটা কোনো বিষয় না। তোমার হিসাবে কত আসে, সেটাই দিতে হবে। উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা লিখে দিছেন, চেয়ারম্যানের প্রজেক্টে ১ লাখ ১০ হাজার, আর তোমার প্রজেক্টে ৯০ হাজার।’ তখন দীপালি বলেন, ‘আমি একবার ৭০ হাজার টাকা, পরে ৫০ হাজার টাকা দিছি। ওই কাজে আমি মোট ১ লাখ ২০ হাজার টাকা দিছি।’ চেয়ারম্যান ক্ষুব্ধ হয়ে ওই সদস্যকে বলেন, ‘আমি চেয়ারম্যান হইয়া ৭০ হাজার টাকা দিতে পারছি, আমার স্বামী (নিহত চেয়ারম্যান বিশ্বজিৎ হালাদার নান্টু) এত টাকা দেনা রেখে গেছেন। আমি সেগুলো দিতে পারছি, আর তোমরা মেম্বার হইয়া দিতে পারবা না!’

প্রতিবন্ধীদেরও ভাতা পেতে ঘুষ দিতে হয়

১২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য সরকারের বরাদ্দ বাস্তবসম্মত ও পর্যাপ্ত নয় বলে টিআইবির এক গবেষণায় উঠে এসেছে। এতে বলা হয়েছে, অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে সরকারের অপ্রতুল বরাদ্দও যথাযথভাবে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের কাছে পৌঁছায় না। ইউনিয়ন পর্যায়ে জনপ্রতিনিধিরা প্রতিবন্ধীদের ভাতার কার্ড দিতে বেআইনিভাবে টাকা নিচ্ছেন। এমনকি স্থানীয় পর্যায়ে জনপ্রতিনিধিদের একাংশ প্রতিবন্ধীদের ভাতার অংশবিশেষ আত্মসাৎও করছে।

‘উন্নয়নে অন্তর্ভুক্তি এবং প্রতিবন্ধিতা: সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদনটি গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলন করে প্রকাশ করে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। ২০১৯ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০২০ সালের নভেম্বর পর্যন্ত গবেষণাটি পরিচালিত হয়।

গবেষণায় বলা হয়, মাঠপর্যায়ে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের ভাতা পাওয়ার বিষয়টি নির্ভর করে জনপ্রতিনিধিদের সদিচ্ছার ওপর। স্থানীয় রাজনৈতিক নেতৃত্ব ও সমাজসেবা কার্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের তদবিরে এমন অনেককে ভাতার কার্ড দেওয়া হচ্ছে, যাঁরা প্রতিবন্ধী নন। ফলে প্রকৃত প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা অনেক ক্ষেত্রে কার্ড পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। আবার তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্ত করতে জনপ্রতিনিধিরা কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধী ব্যক্তির কাছ থেকে ১ হাজার থেকে ৩ হাজার টাকা নিয়ে থাকেন বলে গবেষণায় উঠে এসেছে।

অনিয়ম চাপা দিতে সাড়ে ৬ কোটি টাকা ঘুষ

১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

আর্থিক প্রতিষ্ঠানের অনিয়ম চাপা দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন ডেপুটি গভর্নর এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগের তৎকালীন মহাব্যবস্থাপক (জিএম) শাহ আলমসহ অন্যদের পিপলস লিজিং থেকে সাত বছরে (২০০৯-১৫) সাড়ে ৬ কোটি টাকা ঘুষ দেওয়া হয়েছে। এই টাকা দিয়ে ‘কিছু ভিআইপি ব্যক্তির জন্য মূল্যবান গিফট ক্রয়’ করা হয়েছিল বলে নথিপত্রে উল্লেখ রয়েছে।

পিপলস লিজিংয়ের চেয়ারম্যান উজ্জ্বল কুমার নন্দী আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এসব কথা বলেছেন। পি কে হালদারের সহযোগী হয়ে প্রায় ৭১ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। গত ২৩ জানুয়ারি রাজধানীর সেগুনবাগিচা থেকে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) উপপরিচালক মো. গুলশান আনোয়ার প্রধানের নেতৃত্বে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। ১৪ ফেব্রুয়ারি দুদক তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিয়ে আসে। সোমবার জিজ্ঞাসাবাদের দ্বিতীয় দিনই তিনি ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতিকুল ইসলামের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

এর আগে ২ ফেব্রুয়ারি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রাশেদুল হক। জবানবন্দিতে তিনি বলেছিলেন, আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর অনিয়ম চাপা দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিদর্শন কর্মকর্তাদের ৫ থেকে ৭ লাখ টাকা করে দিত রিলায়েন্স ফাইন্যান্স ও ইন্টারন্যাশনাল লিজিং। আর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও বাজার বিভাগের তৎকালীন মহাব্যবস্থাপক শাহ আলমকে প্রতি মাসে দেওয়া হতো ২ লাখ টাকা করে। আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর অনিয়ম-দুর্নীতি ‘ম্যানেজ’ করতেন সাবেক ডেপুটি গভর্নর এস কে সুর চৌধুরী।

অন্যের জমি দখল করে সাংসদের ‘হাওর বাংলা’

২০ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

সুনামগঞ্জ-১ আসন (ধরমপাশা, তাহিরপুর, জামালগঞ্জ) থেকে ২০০৮ সালে প্রথমবারের মতো জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেন মোয়াজ্জেম হোসেন (রতন)। তখন এই সাংসদের গ্রামে টিনশেডের পৈতৃক বাড়ি ছাড়া আর কোনো বাড়ি ছিল না। এখন নিজ গ্রাম, উপজেলা ও জেলায় তিনটি বাড়ি এবং ঢাকার গুলশানে একটি বড় ফ্ল্যাট রয়েছে তাঁর। এর মধ্যে অন্যের জমি দখল করে গড়েছেন অট্টালিকা, নাম দিয়েছেন ‘হাওর বাংলা’।

সরকারদলীয় এই সাংসদের কানাডায়ও বাড়ি আছে এবং বিদেশে টাকা পাচার করেছেন বলেও অভিযোগ আছে। যা নিয়ে তদন্ত করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ২০১৯ সালে ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের সময় গ্রেপ্তার হওয়া আলোচিত ঠিকাদার জি কে শামীমসহ প্রভাবশালীদের সঙ্গে সখ্য থেকে সরকারি অর্থ আত্মসাৎ, শতকোটি টাকা অবৈধ প্রক্রিয়ায় বিদেশে পাচার ও জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে তখন সাংসদ মোয়াজ্জেমকে দুদকে তলবও করা হয়েছিল।… …

ধরমপাশা উপজেলায় নিজ গ্রাম নওধারে সাংসদ গড়েছেন ‘হাওর বাংলা’ নামের একটি বিরাট অট্টালিকা। বাড়িটি যেখানে নির্মিত হয়েছে, সেখানে ওই এলাকার দুই ব্যক্তির ৬২ শতাংশ জমি রয়েছে। জমির কোনো দাম পরিশোধ না করেই সীমানাপ্রাচীর দিয়ে জায়গা ঘিরে নিয়েছেন এই আইনপ্রণেতা। শুধু বাড়ি বা ফ্ল্যাট নয়, গত ১২ বছরে এই সাংসদের কৃষি-অকৃষি জমিও বেড়েছে বহুগুণ। কিনেছেন দুটি গাড়ি।

তাঁদের ‘অপরাধী মন’ পায়নি দুদক

২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

বনানীর এফ আর টাওয়ারের নকশা জালিয়াতির মামলায় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) অভিযোগপত্র থেকে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) সাত কর্মকর্তাকে অব্যাহতি দেওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অন্য আসামি ও সংশ্লিষ্টরা। তাঁদের প্রশ্ন, জাল নকশা অনুমোদনকারী দোষী না হলে প্রস্তাবকারী কীভাবে দায়ী হয়?

এই মামলায় দুদকের চূড়ান্ত অভিযোগপত্রে রাজউকের তৎ​কালীন চেয়ারম্যান কে এ এম হারুনসহ সাতজন অব্যাহতি পেয়েছেন, যাঁরা দুদকের প্রথম অভিযোগপত্রে আসামি ছিলেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক মো. আবুবকর সিদ্দিক গত বছরের ২৫ নভেম্বর আদালতে সম্পূরক অভিযোগপত্র জমা দেন।

 ২০১৯ সালের ২৮ মার্চ ২৩ তলা এফ আর টাওয়ারে আগুন লাগে। অগ্নিকাণ্ডে ২৬ জন মারা যান, আহত হন ৭৩ জন। এরপরই এফ আর টাওয়ার নির্মাণে নকশা জালিয়াতির তথ্য জানাজানি হয়। এ ঘটনায় গণপূর্ত মন্ত্রণালয় ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আলাদা তদন্ত করে। দুর্নীতি দমন কমিশনও অনুসন্ধান শেষে মামলা করে।

মামলার চূড়ান্ত অভিযোগপত্রে দেখা যায়, সাতজনের প্রত্যেককে ভিন্ন ভিন্ন কারণ দেখিয়ে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। কারও ক্ষেত্রে অবৈধ কাজের সহযোগিতার ‘অপরাধী মন’ পাওয়া যায়নি, কেউ ‘সরল বিশ্বাসে’ ফাইলে অনুমতি দিয়েছেন, এমন কথাও বলা হয়েছে। আবার কেউ অন্য কাজে ব্যস্ত থাকায় দাপ্তরিক কাজ করেননি বলা হয়েছে।

পোশাকশিল্পের আড়ালে বছরে ৬৪ হাজার কোটি টাকা পাচার: দুদকের অনুসন্ধান

২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের বিরুদ্ধে আমদানি ও রপ্তানির আড়ালে বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর গড়ে ৬৪ হাজার কোটি টাকা পাচারের বিষয়ে অনুসন্ধান শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

আজ সোমবার দুদক সচিব ড. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার জানান, কিছু সংখ্যক সরকারি কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় তারা এই অর্থপাচার করেছেন বলে আমরা অভিযোগ পেয়েছি।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা বসে বসে মধু খেয়েছেন: হাই কোর্ট

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

অবসায়ন প্রক্রিয়ার মধ্যে থাকা পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফিনান্সিয়াল সার্ভিস লিমিটেড-পিএলএফএসএলের খেলাপি ঋণ উদ্ধারে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে হাই কোর্ট।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা আর্থিক প্রতিষ্ঠান দেখভালের দায়িত্বে বসে ‘মধু খেয়েছেন’ বলে মন্তব্য এসেছে হাই কোর্টের একটি একক বেঞ্চ থেকে।

পিএলএফএসএল থেকে পাঁচ লাখ টাকার বেশি ঋণ নিয়ে খেলাপি হওয়া কয়েকজনের বক্তব্য শোনার এক পর্যায়ে বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকার এ মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, “আর্থিক প্রতিষ্ঠান দেখভালের জন্য দায়িত্বে থাকা বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা সেখানে বসে বসে মধু খেয়েছেন। এই সমস্ত দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা পি কে হালদারসহ ঋণ গ্রহীতাদের কাছ থেকে বিভিন্নভাবে সুবিধা নিয়েছেন।”

ছোট নেতাদেরও অগাধ সম্পদ

০৬ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

পুরোনো জেলা শহর ফরিদপুর। এই শহরে থেকে এখানেই টেন্ডারবাজি, দখল, তদবির, চাঁদাবাজি আর কমিশন–বাণিজ্য করে যে হাজার কোটি টাকার সম্পদ অর্জন সম্ভব, তা জানা গেল দুই ভাই বরকত ও রুবেল গ্রেপ্তার হওয়ার পর। ফরিদপুরের স্থানীয় রাজনীতিকেরা বলছেন, কেবল ওই দুই ভাই–ই নন, সাবেক মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেনের প্রশ্রয়ে ফরিদপুরের শতাধিক আওয়ামী লীগ নেতা অবৈধভাবে কোটিপতি হয়েছেন। চুনোপুঁটি নেতাদেরও জমি, বাড়ি, গাড়ির বহর দেখে অবাক হতে হয়।

আড়াই হাজার কোটি টাকার মানি লন্ডারিংয়ের মামলায় গত বুধবার ফরিদপুরের আলোচিত দুই ভাই শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বরকত এবং ফরিদপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ইমতিয়াজ হাসান রুবেলসহ মোট ১০ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিয়েছে সিআইডি। ওই দুই ভাইয়ের পাশাপাশি অভিযোগপত্রভুক্ত বাকি আট আসামিও গত এক দশকে বিপুল সম্পদ অর্জন করেছেন। স্থানীয় বাসিন্দা, আওয়ামী লীগ নেতা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তথ্য এবং গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদন থেকে তাঁদের এ সম্পদের বিষয়ে জানা যায়

সরকারি মাল, নদীর পাড়ে ঢাল

১৫ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক চার লেন করতে গিয়ে সরকার মাটির সংকটে পড়েছিল। আবার সারা দেশে অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোর জমি ভরাট করতে মাটির জন্য বেগ পেতে হচ্ছে ঠিকাদারদের। নতুন রাস্তা নির্মাণেও মাটি খুঁজতে হচ্ছে সরকারকে। অথচ ঢাকার চারপাশে চারটি নদ–নদীর পাড় থেকে ১৮ লাখ ঘনমিটার মাটি সরাতে উল্টো ২২ কোটি টাকা খরচ করছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। এ যেন ‘সরকার কা মাল, দরিয়া মে ঢাল’।

সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে সবাই যেখানে টাকা নিয়ে মাটির জন্য হন্যে হয়ে ঘুরছে, সেখানে বিআইডব্লিউটিএ সরকারি কোষাগারের টাকা অপচয় করে মাটি সরাচ্ছে। পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পের ওপর নজরদারি করার একমাত্র সংস্থাটি বলেছে, ঢাকার চারপাশে চারটি নদ–নদীর তীর থেকে মাটি সরানোর জন্য ইতিমধ্যে ঠিকাদার নিয়োগ দিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান প্রতি ট্রলার মাটি ৮০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকায় বিক্রি করছে। এতে ঠিকাদার দুভাবেই লাভবান হচ্ছেন। একদিকে সরকারি কোষাগার থেকে টাকা পাচ্ছেন, অন্যদিকে মাটি বিক্রি করেও টাকা পাচ্ছেন।

এস কে সুর-শাহ আলম কেন গ্রেপ্তার হয়নি: হাইকোর্ট

১৫ মার্চ ২০২১, সমকাল

কয়েক হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ করে বিদেশে পলাতক প্রশান্ত কুমার (পি কে) হালদারের সহযোগী হিসেবে নাম আসার পরও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর এস কে সুর চৌধুরী ও বর্তমান নির্বাহী পরিচালক শাহ আলমকে গ্রেপ্তার না করায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি মহি উদ্দিন শামীম সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ সোমবার এ বিষয়ে এক শুনানিতে বলেন, এস কে সুর ও শাহ আলমের নাম বিভিন্ন মাধ্যমে আসছে। তাদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে না কেন? তাদের গ্রেপ্তারের বিষয়ে দুদক প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না নিলে তারা এ বিষয়ে আদেশ দিতে বাধ্য হবেন।

কালো টাকা সাদা, বিক্রি হয়ে গেছে প্রায় সব রেডি ফ্ল্যাট

২১ মার্চ ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

নির্ধারিত পরিমাণ কর দিয়ে কোনো প্রশ্ন ছাড়াই অবৈধ ও অপ্রদর্শিত আয় বিনিয়োগ করা যাবে নির্দিষ্ট কিছু খাতে। সরকারের এমন ঘোষণার পর থেকেই বেড়েছে জমি ও ফ্ল্যাটে এসব টাকার বিনিয়োগ।

বাড়ি ক্রয়ের জন্য কম সুদে ঋণ এবং শেয়ারবাজারে অস্থিতিশীল পরিস্থিতির কারণে এই চাহিদা আরও বেড়েছে।

রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব) জানায়, ২০১৮ সালের মে মাসে প্রায় ১১ হাজার ফ্ল্যাট অবিক্রীত অবস্থায় ছিল।

রিহ্যাব সভাপতি আলমগীর শামসুল আলামিন বলেন, ‘মহামারির মধ্যে আমরা সম্পূর্ণ তৈরি অ্যাপার্টমেন্ট বানানোর ঝুঁকি নেইনি। তবে সরকারের নীতিনির্ধারণী সহায়তার কারণে চাহিদা বেড়েছে। এজন্যই বর্তমানে চাহিদার বিপরীতে সম্পূর্ণ তৈরি অ্যাপার্টমেন্টের ঘাটতি আছে।’

তিনি জানান, গত নভেম্বর থেকে জানুয়ারির মধ্যে প্রায় দুই হাজার ফ্ল্যাট বিক্রি হয়েছে।

রিহ্যাব সভাপতি মনে করেন, আবাসন খাতে অন্তত পাঁচ হাজার কোটি কালো টাকা বিনিয়োগ করা হয়েছে।

মানিকগঞ্জের পরিবহন খাত: বছরে ১০ কোটি টাকা চাঁদা তোলেন সরকারদলীয়রা

০২ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

মানিকগঞ্জে বিভিন্ন গণপরিবহন থেকে বছরে ১০ কোটি টাকার বেশি চাঁদা তোলা হয়। জেলা পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের ব্যানারে এই চাঁদা ওঠানো হয়। ক্ষমতাসীন দলের নেতারাই এসব সমিতির নিয়ন্ত্রক। গণপরিবহন থেকে চাঁদাবাজি বন্ধে পুলিশ বা হাইওয়ে পুলিশের তৎপরতা দেখা যায় না। উল্টো বাসমালিকদের অভিযোগ, পুলিশ ভাগ নেওয়ায় তাঁদের চাঁদা বেশি দিতে হচ্ছে।

বাসমালিক ও শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মানিকগঞ্জের ৭০০ যাত্রীবাহী বাস থেকে প্রতিদিন গড়ে ৩০০ টাকা চাঁদা নেওয়া হচ্ছে। বছর শেষে বাসে চাঁদার অঙ্ক দাঁড়ায় প্রায় সাড়ে ৭ কোটি টাকা। আর জেলায় আড়াই হাজারের বেশি তিন চাকার সিএনজি ও অটোরিকশা থেকে চাঁদা আসে প্রায় আড়াই কোটি টাকা। এ ছাড়া দেড় শতাধিক ছোট মিনিবাস, মাইক্রো ও ভাড়ায় চালিত সেডান গাড়ি থেকেও চাঁদা নেওয়া হয় প্রায় ৭০ লাখ টাকা।

স্বাস্থ্যে ১৮০০ জনকে নিয়োগ

‘এখন এক কোটি দেব, পরে আরও পাবেন’

১২ এপ্রিল ২০২১, প্র্রথম আলো

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে বড় একটি নিয়োগে বড় অঙ্কের ঘুষ-বাণিজ্যের অভিযোগ করেছেন নিয়োগ কমিটিরই দুজন সদস্য। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিবকে চিঠি দিয়ে তাঁরা দাবি করেছেন, এই নিয়োগে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার জন্য প্রার্থীদের একটি অংশের কাছ থেকে ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকা করে নেওয়া হয়েছে।

লিখিত পরীক্ষায় অনিয়মের সন্দেহ হয় মৌখিক পরীক্ষা নিতে গিয়ে। নিয়োগ কমিটির সদস্যরা বলছেন, লিখিত পরীক্ষায় যেসব প্রার্থী ৮০ নম্বরের মধ্যে ৬০ থেকে ৭৯ পেয়েছেন, তাঁরা মৌখিক পরীক্ষায় প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেননি। বরং ভালো করেন লিখিত পরীক্ষায় কম নম্বর পাওয়া প্রার্থীরা।

মৌখিক পরীক্ষায় পাস করিয়ে দিতে নিয়োগ বোর্ডের এক সদস্যকে ঘুষ ও পদোন্নতির প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছিল। এ প্রস্তাব দিয়েছিলেন আরেক মন্ত্রণালয়ের একজন উপসচিব। স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিবকে দেওয়া চিঠিতে নিয়োগ কমিটির এক সদস্য অভিযোগ করেন, তাঁকে নগদ এক কোটি টাকা এবং পরে আরও টাকা ও পদোন্নতি দেওয়ার লোভ দেখানো হয়।

করোনাকালে সরকারি হাসপাতালে কারিগরি জনবল ঘাটতি মেটাতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এ নিয়োগের উদ্যোগ নিয়েছিল। এ জন্য বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয় গত বছরের ২৯ জুন। ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত লিখিত পরীক্ষায় ২ হাজার ৫২১ জন উত্তীর্ণ হন, যা মোট পরীক্ষার্থীর ৫ শতাংশের মতো। তবে যাঁরা উত্তীর্ণ হয়েছেন, তাঁদের ৮০ থেকে ৮৫ শতাংশ খুব ভালো নম্বর পান, যা থেকেই সন্দেহ তৈরি হয়। পরে মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হয় খুব কড়াকড়িভাবে।

লিখিত পরীক্ষায় অনিয়মের অভিযোগে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এই নিয়োগসংক্রান্ত কমিটির দুজন সদস্যকে সরিয়ে দিয়েছে। অধিদপ্তর বলছে, পুরো পরীক্ষা বাদ দেওয়া সম্ভব নয়। এ জন্য মৌখিক পরীক্ষায় ২০ নম্বরের মধ্যে ১০ পাওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা সব পদের বিপরীতে মৌখিক পরীক্ষায় যোগ্য প্রার্থী পাওয়া যায়নি। এ জন্য ৮০০ জনের মতো প্রার্থীকে নিয়োগের চিন্তা করা হচ্ছে।… ….

শ্রমজীবি মানুষ

 পাওনা মজুরির দাবিতে রাস্তায় পাটকল শ্রমিক

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, কালের কণ্ঠ

নগরীর ডেমরায় বকেয়া মজুরিসহ আইনসঙ্গত সকল পাওনাদি পরিশোধের দাবিসহ সরকারিভাবে ২৫টি বন্ধ পাটকল চালুর দাবিতে মানববন্ধন ও আলোচনা সভা করেছে রাষ্ট্রায়ত্ত্ব করিম ও লতিফ বাওয়ানী জুট মিলের অস্থায়ী ও বদলি শ্রমিকরা। শ্রমিক, কৃষক ও ছাত্র জনতা ঐক্য পরিষদের সমন্বয়ক (খুলনা অঞ্চল) রুহুল আমিনের নেতৃত্বে রবিবার দুপুরে করিম জুট মিলের মেইন গেইটে ও ডেমরা-শিমরাইল সড়কে এ কর্মসূচী পালন হয়।

 

জীবনঝুঁকিতে কর্মীরা ১০ বছরে ১৩৫ মৃত্যু

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, দেশ রুপান্তর

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীর মাজড়া গ্রামের মো. মোতালেব মোল্লার বড় ছেলে নওশের মোল্লা। ছয় ভাইয়ের মধ্যে বড় নওশেরই ছিলেন সংসারের একমাত্র উপার্জনকারী ব্যক্তি। কাজ করতেন পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের (আরইবি) লাইনম্যান হিসেবে। স্ত্রী নিলুফার ইয়াসমিন নীলা, এক ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে কোনোমতে টেনেটুনে চলছিল তাদের লড়াইয়ের সংসার। ২০১৫ সালের ২০ জুন মুন্সীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সরবরাহ লাইনে কাজ করার সময় নিহত হন নওশের। তার জীবন প্রদীপ নিভে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পরিবারেও যেন নেমে আসে লোডশেডিংয়ের মতো ঘন কালো অন্ধকার।… …

নওশেরের মতো এভাবে গত ১০ বছরে পল্লী বিদ্যুতের ১৩৫ কর্মী কাজ করতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে নিহত হয়েছেন। কিন্তু এসব কর্মী কেউই ক্ষতিপূরণ পাননি। নিহতের পরিবার উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে পথে বসার উপায়। অধিকাংশ ক্ষেত্রে লাইনে কাজ করার সময় বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করায় কর্মীরা মারা গেছেন; সে কারণে নিহতদের পরিবার এসব মৃত্যুকে হত্যা হিসেবে অভিহিত করেছেন। তবে এসব ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি।

১৩৫ কর্মী নিহত হয়েছেন পল্লী বিদ্যুতের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘসময় চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্বে মইন উদ্দিনের সময়। গত প্রায় ১০ বছর তিনি পল্লী বিদ্যুতের দায়িত্ব পালন করছেন। নিহত কর্মীদের সবাই লাইনম্যান। আরইবির ৮০টি সমিতি থেকে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে এ পরিসংখ্যান পাওয়া গেছে।

বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা যাওয়ার কারণ হিসেবে দেশ রূপান্তরের অনুসন্ধানে জানা গেছে, লাইনম্যান পদের এসব কর্মীর সাপ্তাহিক কোনো ছুটি না থাকার পাশাপাশি রয়েছে কাজের বাড়তি চাপ। লাইন মেরামতের সময় হঠাৎ বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করে দেওয়ায় তারা মারা পড়ছেন। সারা দেশে আরইবির তিন কোটি ছয় হাজার গ্রাহকের বিপরীতে সেবার জন্য লাইনম্যান রয়েছেন মাত্র ১৮ হাজার। লাইনম্যানদের কাজ নতুন সংযোগ দেওয়া এবং লাইনে যেকোনো ধরনের ত্রুটি মেরামত করা। ফলে বিপুলসংখ্যক গ্রাহককে দিনেরাতে সেবা দিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে স্বল্পসংখ্যক লাইনম্যানদের। বিদ্যুৎ খাতের বিশেষজ্ঞরা এ মৃত্যুকে অস্বাভাবিক ও হত্যার সঙ্গে তুলনা করেছেন।

 

ঘরে সন্তানসম্ভবা স্ত্রী, রিকশা পুলিশের রেকারে, চালকের আত্মহত্যার চেষ্টা

২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

অস্ত্রোপচারের অপেক্ষায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বিছানায় সোমবার বিকেলে কাতরাচ্ছিলেন জুম্মন মিয়া। বয়স ২২–২৩ বছর হবে। পরনে ধুলোমলিন কালো টি-শার্ট। পেটে ব্যান্ডেজ। কী হয়েছিল, জানতে চাইলে জুম্মন খুব আস্তে দুটি লাইন বলতে পারলেন, ‘নিজের পেটে নিজেই চাক্কু ঢুকাইছি। নিজের ওপর জিদ আমার।’ তাঁর চোখের কোণ বেয়ে পানি গড়িয়ে পড়ল।

মা, তিনভাই ও স্ত্রীকে নিয়ে জুম্মন নারায়ণগঞ্জে থাকেন। পরিবারের সদস্যরা বলেন, করোনায় পোশাক কারখানার কাজ হারিয়ে কয়েক মাস ধরে অটোরিকশা চালাচ্ছেন জুম্মন। কোনোরকমে সংসারটা চলছিল। এদিকে সন্তানসম্ভবা স্ত্রীর প্রসবের দিন ঘনিয়ে আসছে। হাসপাতালে নিতে টাকা জমাতে হবে।

জুম্মন সোমবারও সকাল আটটার দিকে বেরিয়েছিলেন। এর মধ্যেই দুপুর ১২টার দিকে পরিবারের লোকজন জানতে পারেন জুম্মন রক্তে ভাসছেন। পুলিশ তাঁকে নিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দিকে যাচ্ছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা প্রথম আলোকে বলেন, সোমবার বেলা সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাসহ জুম্মনকে আটক করেন ট্রাফিক পুলিশের উপসহকারী পরিদর্শক (এটিএসআই) রাশেদুল ইসলাম। স্থানীয়ভাবে জায়গাটি ডাচ্‌–বাংলা ব্যাংক ইউটার্ন নামে পরিচিত। রাশেদ চড়-থাপ্পড় দিয়ে জুম্মনের কাছ থেকে আড়াই হাজার টাকা রেকার বিল দাবি করেন। ক্ষোভে-হতাশায় অটোচালক জুম্মন ধারালো ছুরি নিজের পেটে ঢুকিয়ে দেন।

কাতারে বিশ্বকাপ, ১০ বছরে সাড়ে ৬ হাজার শ্রমিকের মৃত্যু

২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

২০২২ বিশ্বকাপ কাতারে আয়োজনের সিদ্ধান্ত গ্রহণের পর থেকেই আলোচনাটা চলছে। একে তো দেশটি বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্বটা বৈধ উপায়ে পায়নি বলে ইতিমধ্যেই প্রমাণ মিলেছে। ওদিকে দেশটি প্রবাসী শ্রমিকদের সঙ্গে মানবাধিকার লঙ্ঘন করা হচ্ছে বলে বহু দিন ধরেই অভিযোগ করে আসছে বিভিন্ন সংগঠন। এ নিয়ে বিশেষ এক প্রতিবেদন ছাপিয়েছে ইংলিশ পত্রিকা গার্ডিয়ান। তাদের বিশেষ প্রতিবেদনে উঠে এসেছে চমকে দেওয়া এক তথ্য। ১০ বছর আগে বিশ্বকাপ আয়োজনের সুযোগ পাওয়ার পর এর প্রস্তুতিতে সেখানে সাড়ে ৬ হাজারের বেশি দক্ষিণ এশিয়ান শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে।

গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, বিশ্বকাপ আয়োজনের গৌরব অর্জনের পর থেকে কাতারে প্রতি সপ্তাহে গড়ে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল ও শ্রীলঙ্কার ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। পাকিস্তান বাদে ৪টি দেশে গার্ডিয়ানের নির্ভরযোগ্য সূত্র ও দেশগুলোর সরকারি হিসাবই বলছে—২০১১ থেকে ২০২০ পর্যন্ত ৫ হাজার ৯২৭ জন প্রবাসী শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে মৃত বাংলাদেশি শ্রমিকের সংখ্যা ১ হাজার ১৮। কাতারে পাকিস্তানের দূতাবাস থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, এ সময়ে ৮২৪ জন পাকিস্তানি শ্রমিক মারা গেছেন মধ্যপ্রাচ্যের এ দেশে। 

আগুন দেখে বের হতে চান শ্রমিকরা, গেট খোলেনি কর্তৃপক্ষ

০৬ মার্চ ২০২১, বাংলা ট্রিবিউন

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার দক্ষিণ ভাংনাহাটী এলাকায় ঢাকা গার্মেন্টস অ্যান্ড ওয়াশিং লিমিটেড কারখানার কেমিক্যাল গুদামে সকাল ১০টার দিকে আগুন দেখতে পান শ্রমিকরা। এর পরপরই শ্রমিকেরা কারখানা থেকে বের হতে চাইলে কর্তৃপক্ষ গেট খুলতে অস্বীকৃতি জানান। এ সময় পাশের ৫ তলা ভবনের কিছু শ্রমিক ও স্টাফ আগুন নেভাতে গেলে কেমিক্যালের গ্যাসের গন্ধে অনেকেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। একপর্যায়ে শ্রমিকেরা গেটে উপর্যুপরি আঘাত করলে কর্তৃপক্ষ গেট খুলে দিতে বাধ্য হন। প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনা থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

শনিবার (৬ মার্চ) সকালে কারখানাটিতে লাগা আগুনে এখন পর্যন্ত একজন শ্রমিকের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছেন আরও ৪২ জন। এদের মধ্যে ১২ জনকে ঢাকার শেখ হাসিনা জাতীয় বর্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে পাঠানো হয়েছে।

 

পোশাক খাতে নারী শ্রমিক কমছে

০৭ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

দেশের পোশাকশিল্প খাতে নারীর অংশগ্রহণ কমছে, বাড়ছে পুরুষের অংশগ্রহণ। তবে সার্বিকভাবে পোশাক খাতে যে হারে কর্মসংস্থান হওয়ার কথা, তা হচ্ছে না। প্রতিবছর গড়ে মাত্র ১ শতাংশ হারে শ্রমিক যোগ হচ্ছে। এই খাতে সবচেয়ে বেশি কাজ করছেন রংপুর ও ময়মনসিংহ জেলার মানুষ। আর মোট কর্মীর ১৬ শতাংশ বিদেশি।

এশিয়ান সেন্টার ফর ডেভেলপমেন্ট (এসিডি) নামের একটি প্রতিষ্ঠানের জরিপে এসব তথ্য উঠে এসেছে। দৈবচয়নের ভিত্তিতে ঢাকা ও চট্টগ্রামে ১৬০টি পোশাক কারখানার ওপর জরিপটি করা হয়। এর মধ্যে ঢাকা ও এর আশপাশের জেলার কারখানা ১২৯টি, বাকি ৩১টি চট্টগ্রামের। নিটওয়্যার, ওভেন ও সোয়েটার—এই তিন ক্যাটাগরি বা শ্রেণিতে কাজ করেন, এমন ১ হাজার ১১৯ জনের ওপর জরিপটি করা হয়।

পোশাক খাতে এখন মোট ৪২ লাখ ২০ হাজার শ্রমিক কাজ করেন। এর মধ্যে নারী ২৪ লাখ ৯৮ হাজার আর পুরুষ ১৭ লাখ ২২ হাজার। ৫ বছর আগে পোশাক খাতে মোট ৪০ লাখ ১ হাজার শ্রমিক কাজ করতেন। এর মধ্যে নারীর সংখ্যা ছিল ২৫ লাখ ৯১ হাজার। আর পুরুষ ছিলেন ১৪ লাখ ১০ হাজার। ৫ বছরে পোশাক খাতে ২ লাখ ১৯ হাজার শ্রমিক যুক্ত হয়েছেন। অর্থাৎ প্রতিবছর গড়ে ১ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ হারে শ্রমিক বেড়েছে পোশাক খাতে। এই সময়ে পোশাক খাতে পুরুষের অন্তর্ভুক্তির প্রবৃদ্ধি ছিল ৪ শতাংশ। অন্যদিকে প্রতিবছর নারী শ্রমিক কমেছে শূন্য দশমিক ৭ শতাংশ হারে।

জরিপ অনুযায়ী সার্বিকভাবে বাংলাদেশে পোশাক খাতের মোট জনবলের ১৬ শতাংশ বিদেশি। কার্যক্রমের ক্ষেত্রে আলাদাভাবে চিত্রটি এ রকম—ব্যবস্থাপনায় সর্বোচ্চ ৮৪ শতাংশ, কারিগরি কার্যক্রমে ১৬ শতাংশ ও মার্চেন্ডাইজিংয়ে ৮ শতাংশ বিদেশি।

বেশি কাজ করেও কম মজুরি পাচ্ছেন নারীরা

০৭ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

 কাকডাকা ভোরে ঘুম থেকে উঠেই শোভা রানীকে (৫২) কাজে ছুটতে হয়। প্রায় দুই কিলোমিটার দূরে দাড়ছিড়া নদীর পাড়ে এসে দাঁড়িয়ে দক্ষিণ দিকে বঙ্গোপসাগরের মোহনার দিকে তাকিয়ে থাকেন তিনি। সাগর থেকে চিংড়ি মাছের ট্রলার ঘাটে পৌঁছার সঙ্গে সঙ্গে কাজ শুরু হয়ে যায় তাঁর। ট্রলার থেকে পুরুষ শ্রমিকেরা ‘টুকরি’ বোঝাই করে চিংড়ি মাছ তীরে এনে ফেলে দেওয়ার পর নারীরা মাছের মাথা ফেলে দিয়ে স্তূপ করতে থাকেন। এভাবে মাছ বাছাই করে দিন শেষে মজুরি নিয়ে বাড়ি ফেরেন তাঁরা।

 তবে পুরুষ শ্রমিকদের চেয়ে বেশি কাজ করলেও শোভা রানীর মতো অনেক নারী শ্রমিক মজুরি কম পাচ্ছেন। কাল ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস। সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে নারীদের উন্নয়নের জন্য এবং তাঁদের বিভিন্ন সমস্যা দূর করার জন্য নানা ধরনের কথা বলা হয়। কিন্তু নারী দিবসকে সামনে রেখেও মজুরিসহ নানা ক্ষেত্রে পুরুষের সঙ্গে নারীর বৈষম্য দূর করতে ব্যবস্থা নেওয়া হয় না।

মজুরিবৈষম্যের শিকার শোভা রানীর বাড়ি পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার বড় বাইশদিয়া ইউনিয়নের তুলাতলী গ্রামে। স্বামী শেখর দাস বছরখানেক আগে মারা গেছেন। ছেলে দিনমজুরির কাজ করেন। টানাপোড়েনের সংসার। করোনার কারণে স্কুল বন্ধ থাকায় তিনি তাঁর এক নাতনিকে নিয়ে মাছ বাছাইয়ের কাজ করছেন।

শোভা রানী বলেন, ‘আমরা চিংড়ি মাছের “কল্লা কাটি” (মাছের শরীর থেকে মাধা বিচ্ছিন্ন করা) এবং এই সময় হাতে মাছের কাঁটার খোঁচা লাগে, ক্ষত হয়। অনেক কষ্ট হয় এই কাজ করতে। তারপরও পেটের দায়ে কাজটি করছি। ১ কেজি কাটতে পারলে ১০ টাকা মজুরি পাই। এভাবে প্রতিদিন ১৫৯ টাকা থেকে ২৫০ টাকা মজুরি পাই।’

করোনাকালে উৎপাদনমুখী খাতের ৫৮ শতাংশ শ্রমিকের আয় কমেছে

১১ মার্চ ১১, ২০২১, বণিক বার্তা

দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব শুরুর পর পুরো দেশ লকডাউনে পড়লে অর্থনীতির চাকা মন্থর হয়ে পড়ে। ছোট-বড়, সরকারি-বেসরকারি সব খাতের মানুষের জীবন-জীবিকায় করোনার প্রভাব পড়তে শুরু করে। পরিসংখ্যান বলছে, গেল বছরের মার্চ থেকে ডিসেম্বরের সময়টুকুতে কেবল উৎপাদনমুখী খাতে কর্মরত ৫৮ শতাংশ শ্রমিকের আয় কমেছে। বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিংয়ের (সানেম) এক জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে।

জাটকা নিধনবিরোধী অভিযানে নৌপুলিশের গুলিতে জেলে নিহত

১৬ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

চাঁদপুরের মতলব উত্তরে মেঘনা নদীতে জাটকা নিধনবিরোধী অভিযানে জেলেদের সঙ্গে নৌপুলিশের টহল দলের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় শটগানের গুলিতে আহত হন মাসুদ হোসেন (২২) নামের এক জেলে। গুরুতর আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর তাঁর মৃত্যু হয়।

৫০ শতাংশ নয়, শতভাগ শ্রমিকেই চলবে পোশাক কারখানা

৩১ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় গত সোমবার জরুরি সেবায় নিয়োজিত প্রতিষ্ঠান ছাড়া সব সরকারি-বেসরকারি কার্যালয়, প্রতিষ্ঠান ও শিল্পকারখানা ৫০ শতাংশ জনবল দিয়ে পরিচালনার নির্দেশনা দিয়েছে। তবে দেশের শীর্ষ রপ্তানি আয়ের খাত তৈরি পোশাক কারখানা ৫০ নয়, শতভাগ শ্রমিক নিয়েই উৎপাদন কার্যক্রম চালাবে।

তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের দুই সংগঠন বিজিএমইএ ও বিকেএমইএর শীর্ষ নেতৃত্ব গতকাল মঙ্গলবার এমনটাই জানিয়েছে। তাঁরা বলছেন, বিষয়টি নিয়ে তাঁদের পক্ষ থেকে সরকারের উচ্চপর্যায়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে সেখান থেকে জানানো হয়েছে, অর্ধেক জনবল দিয়ে কারখানা পরিচালনার নির্দেশনাটি তৈরি পোশাক খাতের বেলায় প্রযোজ্য হবে না। তবে কারখানাগুলোতে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি পরিপালন করতে হবে।

রিকশা ফেরত পাওয়ার আশায় আনিস শেখরা…

১৫ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

বুধবার বিকেল সাড়ে পাঁচটা। বাংলা নববর্ষের দিন। একই সঙ্গে প্রথম রোজা। সরকার ঘোষিত ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ চলছে। কুষ্টিয়া মডেল থানার সামনে ফুটপাতে বিমর্ষ হয়ে বসে আছেন আনিস শেখ। তাঁর পাশে বসা ওবায়দুল শেখেরও একই অবস্থা।

গতকাল বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আনিস ও ওবায়দুলের দুটি রিকশা শহরের থানা মোড় এলাকা থেকে জব্দ করে পুলিশ। এ রকম অন্তত ৩৫টি ব্যাটারিচালিত রিকশা, প্যাডেলচালিত রিকশা ও ভ্যান জব্দ করে মডেল থানার ভেতরে নেওয়া হয়। তাঁদের অপরাধ, কঠোর লকডাউনে তাঁরা আইন ভঙ্গ করেছেন।

আনিস ও ওবায়দুল দুজনই বলছিলেন, পুলিশ আশ্বাস দিয়েছিল, আসরের নামাজের পর ছেড়ে দেবে। কিন্তু কেন জানি পুলিশ আর ছাড়ছে না। থানা-পুলিশের এক কর্মকর্তা তাঁদের জানিয়েছেন, ‘বড় স্যারের অনুমতি না মেলায় ছাড়া হচ্ছে না, সন্ধ্যার পর ব্যবস্থা হতে পারে।’

আজ বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা পর্যন্ত তাঁদের রিকশাগুলো ছাড়া হয়নি। রিকশাচালকেরা থানার আশপাশ দিয়ে ঘোরাঘুরি করছেন নিজ নিজ রিকশা ফেরত পাওয়ার আশায়। উপার্জনের একমাত্র উপায় বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তাঁদের চোখে-মুখে কেবল হতাশা আর বিষণ্নতা।

ফুটপাতে বসেই কথা হচ্ছিল আনিস ও ওবায়দুলের সঙ্গে। সদর উপজেলার খাজানগর এলাকার বাসিন্দা আনিস জানালেন, সংসারে স্ত্রী, দুই ছেলে আছে। সকাল নয়টায় রিকশা নিয়ে বের হয়েছিলেন। ৯০ টাকা আয়ও হয়েছিল। সাড়ে ১১টার দিকে থানা মোড় থেকে পুলিশ তাঁর রিকশা জব্দ করে থানায় নেয়।

ওবায়দুল শেখ বললেন, তাঁর পরিবারে একমাত্র ছোট ভাই ও মা ছাড়া আর কেউ নেই। বাড়িতে একটি গরুও পালন করেন তিনি। একই সময়ে তাঁরও রিকশা জব্দ করে থানায় নেয় পুলিশ। এর আগে মাত্র ৪০ টাকা আয় করেছেন। বাড়িতে ফোন করে জানান যে তাঁর রিকশা জব্দ হয়েছে।

সন্ধ্যা ছয়টার দিকে থানায় গিয়ে দেখা যায়, ৩০ থেকে ৩৫ জন রিকশাচালক গোলচত্বরে এদিক–সেদিক বসে আছেন। তাঁদের অনেকের বয়স ৫০ থেকে ৬০ বছর। কেউ জানতে পারছেন না, ইফতারের আগে তাঁদের রিকশাগুলো ছাড়া হবে কি না।… …

পরিবহন ব্যবস্থা ছাড়াই গার্মেন্টস খোলা, ভোগান্তিতে শ্রমিকরা

১৫ এপ্রিল ২০২১, ঢাকা পোস্ট

কর্মকর্তাদের অফিসে যাতায়াতের জন্য পরিবহন ব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু শ্রমিকদের জন্য কোনো পরিবহন নেই। পরিবহনের ব্যবস্থা ছাড়াই খোলা রাখা হয়েছে বেশিরভাগ পোশাক কারখানা। ফলে করোনার প্রকোপ রোধে সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধের দ্বিতীয় দিন বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) গার্মেন্টসে উপস্থিত হতে বেশ ভোগান্তিতে পড়েন শ্রমিকরা।

একদিকে রোজা অন্যদিকে লকডাউনের কারণে গণপরিবহন না থাকায় রিকশা, ভ্যান এমনকি পিকআপ ভ্যানে করে কারখানায় যাচ্ছেন তারা। তাতে যেমন কষ্ট করতে হচ্ছে, তেমনি ভাড়াও দিতে হচ্ছে দ্বিগুণ।

অথচ কারখানা খোলা রাখতে মালিকরা সরকারের সঙ্গে দেনদরবার করে বলেছিলেন, সকল স্বাস্থ্যবিধি পরিপালন এবং শ্রমিকদের জন্য পরিবহন ব্যবস্থা নিশ্চিত করেই কারখানা খোলা রাখা হবে। সেই আশ্বাসে সরকারও গত ১২ এপ্রিল শ্রমিকদের স্ব স্ব প্রতিষ্ঠান থেকে নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থাপনায় আনা-নেওয়া নিশ্চিত করার শর্তে শিল্প-কারখানাগুলো স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণপূর্বক নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় চালু রাখার সিদ্ধান্ত নেয়।

বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) থেকে মালিকরা কারখানা খোলা রেখেছেন। কিন্তু সরকারের সিদ্ধান্তের তোয়াক্কা করছেন না। তারা শ্রমিকদের জন্য কোনো পরিবহন ব্যবস্থা চালু করেননি। আর তাতে রাজধানীর আশপাশের আশুলিয়া, টঙ্গী, গাজীপুর এবং নারায়ণগঞ্জ এলাকার কারখানাগুলোর শ্রমিকরা চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন। চাকরি হারানোর ভয়ে, রোজা রেখে পায়ে হেঁটে দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে কাজে যাচ্ছেন তারা।

লকডাউনে সরকারি সহায়তা পাননি দুস্থরা

২০ এপ্রিল ২০২১, মানব জমিন

কঠোর লকডাউনে দরিদ্র ও দুস্থ জনগোষ্ঠীর কাছে পৌঁছায়নি কোনো প্রকার নগদ সাহায্য-সহযোগিতা। কাগজে কলমে দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে ৫৭২ কোটি টাকা বরাদ্দের কথা বলা হলেও তা গতকাল পর্যন্ত মাঠ পর্যায়ে পৌঁছেনি। এদিকে ১৪ই এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া সাতদিনের লকডাউন ২৮শে এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। ৫ই এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া সরকারি বিধি-নিষেধের পর লকডাউনে স্থবির হয়ে পড়েছে জনজীবন। এতে শ্রমজীবী মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। শহর কিংবা গ্রামে একই চিত্র। শিল্প মালিকদের অনুরোধে কল-কারখানা খোলা থাকলেও শহর ছেড়েছেন বহু মানুষ। অপরদিকে লকডাউনের কারণে অফিস-আদালত-বিপণি বিতান বন্ধ থাকায় দিনমজুররা রয়েছেন বিপাকে।

একই চিত্র গ্রামীণ জনপদেও। লকডাউনের কারণে বেকার জীবনযাপন করছেন অনেকে। নগদ কোনো সরকারি সহায়তা পৌঁছেনি প্রান্তিক দরিদ্র জনগোষ্ঠীর কাছে।

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূর-এ-জান্নাত রুমি জানান, করোনা উপলক্ষে কোনো প্রণোদনা বিতরণের বিষয়ে তারা জানা নেই। ঈদকে সামনে রেখে ভিজিএফ কর্মসূচির অধীনে সহায়তা আসার কথা ছিল। তবে তা স্থগিত হয়েছে বলে তিনি শুনেছেন। দরিদ্রদের নগদ অর্থ সহায়তার কথা জানেন না বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবরিনা সুলতানা। বিষয়টি নিয়ে তিনি জেলা প্রশাসক এবং জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলার পরামর্শ দেন। বরগুনা জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মো. লুৎফর রহমান বলেন, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর জন্য তিনি কোনো বরাদ্দ পাননি। এ বিষয়ে বরগুনার জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমানকে ফোন করা হলে তিনি ফোন ধরেননি। কিশোরগঞ্জের ইটনা উপজেলার জয়সিন্ধি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মনির উদ্দিন বলেন, গত বছর করোনা মোকাবিলায় নগদ অর্থ বরাদ্দ পেয়েছেন। কিন্তু এ বছর তার কাছে এ সংক্রান্ত কোনো সাহায্যের খবর নেই।

করোনার নগদ অর্থ সহায়তার বিষয়ে জানতে চাইলে, রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা বলেন, সরকারি সহায়তার ৫ লাখ  টাকার একটি চেক এসেছিল জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে। কিন্তু তিনি তা গ্রহণ করেননি। মোস্তফার ভাষ্য, রংপুর সিটি করপোরেশনে মোট ৩০টি ওয়ার্ড আছে। সরকারি এই বরাদ্দ থেকে প্রতিটি ওয়ার্ডে মাত্র ২৩টি পরিবার ৫০০ টাকা পাওয়ার কথা। ২০/২৫ হাজার জনসংখ্যার একেকটি ওয়ার্ডে ২৩টি পরিবার খুবই নগণ্য। এই ২৩ পরিবার বাছাই করতে গিয়ে বিতর্কের মধ্যে পড়তে হতে পারে। আর ৫০০ টাকা দিয়ে একটি পরিবারের একদিনের খরচ মেটানো দুষ্কর। বিতরণ প্রক্রিয়া নিয়েও প্রশ্ন রাখেন মোস্তফা। গত বছর করোনার প্রণোদনার অর্থ জাতীয় পরিচয়পত্র যাচাইয়ের পর মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে পাঠানো হয়েছিল দরিদ্রদের কাছে। কিন্তু এ বছর সে প্রক্রিয়াটি অনুসরণ না করায় জনপ্রতিনিধিরা বিতর্কিত হতে পারেন বলে মনে করছেন রংপুর সিটি মেয়র।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্মসূচি-২, ত্রাণ) মো. মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, সাধারণত ঈদের আগে ভিজিএফের অর্থ ছাড় করা হয়। আজকালের মধ্যে জিআর-এর ১২১ কোটি টাকা অর্থ সহায়তা পৌঁছানোর কথা রয়েছে। নিম্ন আয়ের প্রায় ৩৫ লাখ পরিবারকে আড়াই হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তার ঘোষণা দিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে অর্থ ছাড়ের বিষয়গুলো সমন্বয় হয়ে থাকে। তাই পুরো প্রক্রিয়াটা কিছুটা সময়সাপেক্ষ।… ….

কবিরের দিনের আয় এখন ৬০ টাকা

২০ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা নামে। আরও বেশি ব্যস্ত হয়ে ওঠে নারায়ণগঞ্জ শহরের সড়কগুলো। যাঁরা হন্তদন্ত হয়ে ছুটছেন, তাঁদের অধিকাংশই তৈরি পোশাকশিল্পের শ্রমিক। সবাই ইফতারের আগে বাড়ি ফিরতে চান। শ্রমিকদের বাইরে কেউ কেউ ইফতারি কিনছেন সড়কের পাশের রেস্তোরাঁগুলো থেকে। বাহারি সব ইফতারি হাতে তাঁরাও গন্তব্যে ছুটছেন। একই সময়ে শহরের এক সরু গলিতে ক্লান্ত দেহ এলিয়ে নির্বিকার বসে আছেন কবির হোসেন (৩৮)। বাড়ি ফেরার তাড়া নেই তাঁর।

শহরের ডিআইটি করিম মার্কেট এলাকায় দেখা হয় কবিরের সঙ্গে। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৮ নম্বর ওয়ার্ড এলাকার বাসিন্দা কবির হোসেন রিকশা চালান। একার রোজগারে ছয়জনের সংসার চলে। পড়াশোনা চলে চার ছেলেমেয়ের। পরিবারের খাবার জোটাতে লকডাউনের মধ্যেই রোববার সকালে রিকশা নিয়ে বের হন। ১০ বছরের ছোট মেয়েকে কথা দিয়ে এসেছেন ইফতারের আগেই মেয়ের পছন্দের জিলাপি নিয়ে ফিরবেন। তবে লকডাউনে শহরের সড়কগুলো প্রায় জনশূন্য। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত রিকশা চালিয়ে জমা টাকার অতিরিক্ত ষাট টাকা উপার্জন হয়েছে। এটাই তাঁর দিনের আয়। এই টাকা দিয়ে চাল–ডাল কিনবেন, নাকি মেয়ের আবদার পূরণ করবেন—রিকশায় বসে সে হিসাব মেলাচ্ছিলেন কবির। তিনি বলেন, সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, আর ইফতারের আগে বাড়ি ফিরবেন না। কিছু একটা বলে মেয়েকে বোঝাবেন।… ….

পেশা পাল্টেও ভালো নেই বদলি শ্রমিকরা

২১ এপ্রিল ২০২১, ঢাকা পোস্ট

চায়ের দোকানের বেঞ্চে বসে কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলছিলেন রুহুল আমিন। তিনি প্লাটিনাম জুট মিলের ব্যাচিং বিভাগের বদলি শ্রমিক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। কিন্তু ২০২০ সালের ১ জুলাই বিজেএমসির ২৫টি মিলের উৎপাদন কার্যক্রম বন্ধ হওয়ায় অন্য শ্রমিকদের মতো তিনিও বেকার।

তবে জীবনযুদ্ধে টিকে থাকার জন্য রিকশা ও ইজিবাইক চালক হয়েছেন তিনি। সংসারের আর্থিক অনটন ঘোচাতে রিকশা-ইজিবাইক চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতেন। কিন্তু করোনাভাইরাস তার সংসারে অভিশাপ হিসেবে দেখা দেয়।

করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় ৫ এপ্রিল থেকে শুরু হয় কঠোর বিধিনিষেধ। চলে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত। ফের ১৪ থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত আট দিনের বিধিনিষেধ প্রদান করা হয়। গত মঙ্গলবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ বিধিনিষেধের মেয়াদ আরও এক সপ্তাহ বাড়িয়ে ২৮ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বর্ধিত করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

বিধিনিষেধের কারণে এখন রাস্তায় রিকশা বা ইজিবাইক নিয়ে নামতে পারছেন না রুহুল আমিন। তার আয়ের পথ প্রায় বন্ধ। ছেলেও একই পেশায়। সব মিলিয়ে সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন তিনি। এ অবস্থায় মিলের বদলি শ্রমিক রুহুল আমিন পেশা পাল্টেও ভালো নেই।

ঢাকা পোস্টকে এমনটাই জানিয়েছেন বদলি শ্রমিক রুহুল আমিন। তিনি ঢাকা পোস্টকে বলেন, ২০০৪ সালে বদলি শ্রমিক হিসেবে প্লাটিনাম জুট মিলে যোগদান করি। দীর্ঘ দিন ধরে কাজ করেছি। মিল চালু থাকাকালীন কাজ করে সংসার চালিয়েছি। কিন্তু মিল বন্ধ হওয়ার পর বেকার হয়ে যাই।

রুহুল আমিন বলেন, এরপর রিকশা, ইজিবাইক চালাতাম। কিন্তু লকডাউনের কারণে গাড়ি বন্ধ। এখন তাও চালাতে পারছি না। রিকশা নামলে পুলিশ উঠিয়ে দেয়। এখন খুব কষ্টে যাচ্ছে দিন।

তিনি আরও বলেন, আমার এক ছেলে, এক মেয়ে। ছেলেটা মাহিন্দ্রা ও ইজিবাইকচালক। সেও ঘরে বসা। মেয়েটা এবার অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে। তার লেখাপড়ার খরচ দিতে পারছি না। মেয়েটাকে কীভাবে লেখাপড়া করাব? আমার মতো মিলের যারা বদলি শ্রমিক ছিল, সবারই একই অবস্থা।

শুধু রুহুল আমিনই নয়, এমন অসংখ্য শ্রমিক রিকশা, ভ্যানগাড়ি, ইজিবাইক, দিনমজুরের কাজ করছেন। এখন কাজ করতে না পেরে তারা হতাশায় রয়েছেন। এমনটা বললেন স্টার জুট মিলের শ্রমিক এবং বদলি, দৈনিকভিত্তিক শ্রমিক হাজিরায় কর্মরত কর্মচারী সমন্বয়ক খুলনা-যশোর আঞ্চলিক কমিটির সদস্য সচিব আলতাফ হোসেন।… ….

সাড়ে ৯ শতাংশ আহত শ্রমিকের আয় শূন্য

২২ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো অনলাইন

সাভারের রানা প্লাজা ধসে আহত পোশাকশ্রমিকদের সাড়ে ৯ শতাংশের কোনো আয় নেই। সাড়ে ১০ শতাংশের আয় ৫ হাজার ৩০০ টাকার নিচে। সাড়ে ৩৭ শতাংশ আহত শ্রমিকের আয় ৫ হাজার ৩০০ থেকে ১০ হাজার ৩০০ টাকা। সাড়ে ২৯ শতাংশ শ্রমিকের আয় ১০ হাজার ৩০১ থেকে ১৫ হাজার ৩০০ টাকা। এর বেশি আয় ১৩ শতাংশের।

 করোনাকালে আহত শ্রমিকদের মধ্যে বেকারত্বও বেড়ে গেছে। ২০১৯ সালে ৫১ শতাংশ শ্রমিক বেকার ছিলেন। গত বছর সেটি বেড়ে ৫৭ শতাংশ হয়েছে, যা গত ছয় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। আহত ব্যক্তিদের মধ্যে কাজে থাকা ৪৩ শতাংশ শ্রমিকের ১২ শতাংশ পোশাক কারখানা, ১২ শতাংশ দরজি, ৩ শতাংশ কৃষিকাজ, আড়াই শতাংশ দিনমজুরি, ২ শতাংশ গৃহকাজ, সাড়ে ৩ শতাংশ বিক্রয়কর্মী এবং ৭ শতাংশ অন্যান্য কাজ করেন।

রানা প্লাজা ধসের আট বছর পূর্তি উপলক্ষে একশনএইড বাংলাদেশের এক জরিপে এমন তথ্য উঠে এসেছে। এতে ভবন ধসের ঘটনায় ১ হাজার ৪০০ আহত শ্রমিকের মধ্যে ২০০ জন অংশ নিয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার ভার্চ্যুয়াল মাধ্যমে ‘কোভিড-১৯: চ্যালেঞ্জেস ফর দ্য রানা প্লাজা ট্র্যাজেডি সারভাইভারস’ শীর্ষক আলোচনায় জরিপের ফল প্রকাশ করা হয়।

 জরিপে উঠে এসেছে, রানা প্লাজা ধসে আহত শ্রমিকদের মধ্যে ৯২ শতাংশই করোনাকালে সরকারের কোনো সহায়তা পাননি। মাত্র ৮ শতাংশ শ্রমিক অল্প কিছু সহায়তা পেয়েছেন। যদিও প্রাণে বেঁচে যাওয়া এসব শ্রমিক দুঃসহ জীবন যাপন করছেন। ১৪ শতাংশ শ্রমিকের স্বাস্থ্যের অবনতি হয়েছে। তাঁরা মাথাব্যথা, হাত ও পায়ে ব্যথা এবং কোমরব্যথার সমস্যায় ভুগছেন। আবার সাড়ে ১২ শতাংশ শ্রমিক মানসিক ট্রমার মধ্যে আছেন। সংখ্যাটি ২০১৯ সালেও ছিল সাড়ে ১০ শতাংশ। এর মানে ২ শতাংশ শ্রমিকের মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতি হয়েছে।

সব বন্ধ, পেট তো বন্ধ নেই, কামড় দেয় ক্ষুধা

২১ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

রাজধানীর তোপখানা রোডের যে পাশে জাতীয় প্রেসক্লাব, ঠিক তার উল্টো দিকেই মুদ্রাক্ষরিকদের (টাইপরাইটার) ছোট ছোট দোকান। একই সঙ্গে আইনজীবীদের সহকারী হিসেবে নোটারি পাবলিক করিয়ে দেওয়ার কাজও করেন তাঁরা। বিনিময়ে আইনজীবীরা কিছু পান, বাকিটা নেন এসব সহকারী। তবে দোকান মানে একটা কাঠের চেয়ার, একটা টেবিল আর একটা টুল। গতকাল মঙ্গলবার খাঁ খাঁ দুপুরে সেখানে গিয়ে দেখা যায়, কাঠের চেয়ার-টেবিলগুলো ওলটানো। শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা এগুলো।

মুদ্রণজগতে কম্পিউটারের প্রচলন শুরু হওয়ার পর থেকে এমনিতেই মুদ্রাক্ষরিকদের কাজ ও কদর কমে আসছে। করোনাভাইরাস আসার পর তা এখন একেবারেই বন্ধ হয়ে যাওয়ার জোগাড়। ১৪ এপ্রিল দেশব্যাপী সর্বাত্মক লকডাউন শুরুর পর থেকে মুদ্রাক্ষরিকেরা সবাই ঘরবন্দী। কথা বলার একজন লোকও পাওয়া যায়নি গতকাল।

সেখানে পাওয়া যায় মো. আকরামুল ইসলাম নামের একজনের, যাঁর একটি দোকান রয়েছে। ওই দোকানে তিনি ফটোকপি ও মোবাইলে টাকা রিচার্জের পাশাপাশি মোবাইলে আর্থিক সেবা দাতা (এমএফএস) প্রতিষ্ঠানের এজেন্ট হিসেবেও কাজ করেন। বিকাশ, নগদ, রকেটের দোকান খুলতে যেহেতু বাধা নেই, তাই তিনি খুলেছেন। কিন্তু গ্রাহক নেই। তিনি জানান, ১৯৭৩ সালে ৬৫ জন মুদ্রাক্ষরিক এখানে বসা শুরু করেন। এখন আছেন ৩৪ জন। তোপখানা রোড পেশাজীবী মুদ্রাক্ষরিক কল্যাণ সমিতির সদস্য তাঁরা। কাজ না থাকায় লোকগুলো খুবই কষ্টে আছেন।

আকরামুল ইসলাম জানান, কাজ নেই, গ্রাহকও নেই। তবু কাজের আশায় গতকাল ঢাকার মানিকনগর থেকে পায়ে হেঁটে তোপখানা রোডে এসেছিলেন টাইপরাইটার নূরনবী হোসেন। কিন্তু সেই আশার গুড়ে বালি। কিছুক্ষণ বসে থেকে আবার হেঁটে হেঁটে চলে যান তিনি। কারও সঙ্গে যোগাযোগ করতে চাই বলায় আকরামুল পুরোনো মুদ্রাক্ষরিক আলী আহমেদের মোবাইল নম্বর দেন।

বিকেলে ফোন করে পরিচয় দিতেই আলী আহমেদ বলেন, ‘৩০ বছর ধরে তোপখানা রোডে আসছি। এমন খারাপ সময় কখনো আসেনি, যদিও অনেক আগে থেকেই আমাদের দিন খারাপ হয়ে আছে। টাইপ করতে কেউ আসেন না। সব খেয়ে ফেলেছে কম্পিউটার। তবে মাঝে মাঝে নোটারি করতে লোক আসেন। আইনজীবীদের মাধ্যমে তা করাতে হয়। গ্রাহকদের কাছ থেকে যা পাওয়া যায়, তা থেকে আইনজীবীরা আমাদের একটা অংশ দেন। তাতে কোনো দিন ২০০ টাকা, কোনো দিন ৩০০ টাকা পাই। ভাগ্য ভালো থাকলে ৫০০ টাকাও পাওয়া যায় কোনো কোনো দিন। এই আয় থেকে চেয়ার-টেবিল নিয়ে বসার একটা ভাড়াও দিতে হয় সিটি করপোরেশনকে।’

কিন্তু এখন তো সবই বন্ধ। ফলে দোকান ভাড়াই কী দেবেন, আবার বাড়ি ভাড়াই কী দেবেন—তা নিয়ে চিন্তিত আলী আহমেদ। তিন বেলা খাওয়ার ব্যবস্থা কীভাবে করবেন—সেই চিন্তায় দিশেহারা তিনি। বলেন, ‘জীবনে আর কিছু শিখিনি। বয়স হয়েছে, শেখার সুযোগও নেই আর। কিন্তু পেটটা তো আছে। পেট তো বন্ধ নেই, কামড় দেয় ক্ষুধা।’

১১০০ মানুষ হত্যার বিচারের জন্য অন্তহীন অপেক্ষা

২৪ এপ্রিল, ২০২১, দেশ রুপান্তর

ঢাকার উপকণ্ঠে সাভারে ‘রানা প্লাজা’ ভবনের ধসের পর পেরিয়ে গেল আটটি বছর। ১ হাজার ১০০-এর বেশি মানুষের প্রাণহানির ঘটনায় এখনো বিচারই শুরু হয়নি। দুই আসামির ক্ষেত্রে মামলার কার্যক্রমে হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ থাকা এবং এ বিষয়ে আইনি প্রশ্নের সুরাহা না হওয়ায় বিচারিক আদালতে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হচ্ছে না। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা জানান, স্থগিতাদেশ বাতিলের উদ্যোগ এবং আইনি সুরাহার বিষয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল কার্যালয়ে ২০১৭ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত তারা চারবার চিঠি দিয়ে পদক্ষেপ গ্রহণের তাগিদ দিলেও সেটি না হওয়ায় বিচারকাজে অগ্রগতি নেই। অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন জানান, তিনি দায়িত্ব নেওয়ার আগে আসা এসব চিঠির বিষয়ে অবগত ছিলেন না। এছাড়া করোনাভাইরাসজনিত মহামারীর কারণে দীর্ঘদিন আদালতের নিয়মিত কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। তবে উচ্চ আদালত খুললে দ্রুত বিষয়টি উপস্থাপন করে সুরাহার উদ্যোগ নেবেন।

আলোচিত এ হত্যা মামলাটি ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা আদালতে বিচারাধীন। ফৌজদারি মামলায় আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের পর সাক্ষ্যগ্রহণের (জবানবন্দি ও জেরা) মাধ্যমে বিচার শুরু হয়। এরপর আসামিপক্ষের আত্মপক্ষ সমর্থন, সাফাই সাক্ষ্য ও সবশেষ উভয়পক্ষের আইনজীবীদের যুক্তি-তর্কের শুনানি শেষে মামলা রায়ের পর্যায়ে আসে। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা জানান, রানা প্লাজা ট্র্যাজেডির পর নিহতদের শোকাগ্রস্ত স্বজন ও ভুক্তভোগীরা দ্রুত বিচারের আশায় থাকলেও দীর্ঘসূত্রিতায় তারা হতাশ। তারা আরও জানান, প্রায় পাঁচ বছর আগে অভিযোগ গঠনের পর তারিখের পর তারিখ পড়লেও আইনি জটিলতায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু করা যায়নি। ইতিমধ্যে তিনজন আসামি মারা গেছেন। সাক্ষীরাও অনেকে অন্য ঠিকানায় চলে গেছেন। দীর্ঘদিন ধরে করোনা মহামারীর প্রভাব পড়েছে আদালত অঙ্গনে। ফলে সাক্ষী হাজির করে বিচার শুরু এবং তা নিষ্পত্তি আরও দীর্ঘসূত্রিতায় পড়তে পারে।

২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সকালে ঢাকার অদূরে সাভার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ধসে পড়ে রানা প্লাজা ভবন। আগের দিনই ভবনটিতে ফাটল দেখা দেওয়ায় সতর্ক করা হয়। ভবন ধসে নিহত হন ১ হাজার ১৩৬ জন। আহত হন দুই হাজারের বেশি মানুষ। চিরজীবনের জন্য পঙ্গু হয়ে কর্মক্ষতা হারিয়ে ফেলেন অনেকে। প্রায় মাসব্যাপী উদ্ধারকাজ চলে। হতাহতদের বেশিরভাগ ছিলেন ওই ভবনে থাকা বিভিন্ন পোশাক কারখানার শ্রমিক এবং আহতদের অনেকে আর স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারেননি। পৃথিবীকে নাড়িয়ে দেওয়া মর্মস্পর্শী এ ঘটনাটি দেশ-বিদেশে আলোচনার শিরোনাম হয়।… ….

রানা প্লাজা ধসের ৮ বছর

বছর যায়, সংস্কারকাজ শেষ হয় না

২৪ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

সাড়ে পাঁচ বছর আগে প্রাথমিক পরিদর্শনে দেড় হাজার পোশাক কারখানায় নিরাপত্তাজনিত ত্রুটি পাওয়া যায়। কিন্তু সেসব ক্রটির সংস্কারকাজ করতে গড়িমসি করেন কারখানার মালিকেরা। তখন সংস্কারকাজে গতি আনতে শুল্কমুক্ত কাঁচামাল আমদানি প্রাপ্যতা (ইউডি) ও কারখানার বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তাতেও কাজের কাজ কিছু হয়নি। এ কারণে দুই বছর ধরে এসব কারখানার সংস্কারকাজের অগ্রগতি ৩৮ থেকে ৪৫ শতাংশের মধ্যেই ঘুরপাক খাচ্ছে। যদিও বন্ধ, স্থানান্তরসহ নানা কারণে ত্রুটিপূর্ণ কারখানার সংখ্যা অর্ধেকের বেশি কমে সাড়ে ছয় শতে নেমেছে।

জাতীয় ত্রিপক্ষীয় কর্মপরিকল্পনার (এনটিএপি) অধীনে থাকা এই কারখানাগুলোর সংস্কারকাজ কচ্ছপগতিতে চলার কারণে রানা প্লাজা ধসের আট বছর পরও রপ্তানিমুখী তৈরি পোশাকশিল্পে নিরাপদ কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করা যায়নি। আদৌও করা যাবে কি না তা নিয়েও শঙ্কা রয়েছে। কারণ, মহামারি করোনার অজুহাতে অধিকাংশ কারখানা মালিকই এখন সংস্কারকাজে নতুন করে অর্থ বিনিয়োগ করতে আগ্রহী নন। তা ছাড়া সরকার কিংবা বিদেশি ক্রেতাদেরও এ নিয়ে তেমন চাপ নেই।

ক্রেতাদের দুই জোট অ্যাকর্ড ও অ্যালায়েন্স এ দেশ থেকে কার্যক্রম গোটানোর কারণে মাঝারি ও বড় প্রায় দুই হাজার কারখানার সংস্কারকাজেও ধাক্কা লেগেছে। কারখানাগুলোর ৯০ শতাংশের বেশি ত্রুটি সংশোধন করা হলেও বাদবাকি কাজ কবে শেষ হবে, তা কেউ বলতে পারছে না। যদিও অ্যাকর্ডের কার্যক্রমকে এগিয়ে নিতে আরএমজি সাসটেইনিবিলিটি কাউন্সিল (আরএসসি) গঠিত হয়েছে। আর অ্যালায়েন্সের তত্ত্বাবধানে থাকা কারখানাগুলো দেখভাল করতে নিরাপন নামের একটি সংস্থা গঠিত হলেও সেটি এখন নেই।… …

করোনার প্রভাব

৮০ শতাংশেরই মজুরি কমেছে

২৪ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

করোনাভাইরাসের প্রভাবে চার শিল্প খাতের ৮০ শতাংশ, অর্থাৎ প্রতি ১০০ জন শ্রমিকের মধ্যে ৮০ জনেরই মজুরি কমেছে। তাই পরিস্থিতি সামাল দিতে শ্রমিকদের ধারকর্জের জন্য হয় আত্মীয়স্বজন, নয়তো ক্ষুদ্র ঋণদানকারী প্রতিষ্ঠানের দ্বারস্থ হতে হয়েছে। আবার কাউকে কাউকে নিতে হয়েছে সরকারের দেওয়া খাদ্যসহায়তা। তৈরি পোশাক, চামড়া, নির্মাণ ও চা—এই চার শিল্প খাতের শ্রমিকদের ওপর করা এক যৌথ জরিপে এসব তথ্য পেয়েছে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিআইডিএস) ও সুইডেনের ওয়েজ ইন্ডিকেটর ফাউন্ডেশন (ডব্লিউআইএফ)।… ….

স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ও করোনা পরিস্থিতি

রোগের উল্লেখ থাকে না ৬৩ শতাংশ ব্যবস্থাপত্রে

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, বণিক বার্তা

টানা কয়েকদিনের জ্বরের সঙ্গে শ্বাসকষ্ট ও কাশি নিয়ে সরকারি একটি হাসপাতালে গিয়েছিলেন খুলনার গৃহবধূ খোদেজা (ছদ্মনাম)। রোগীকে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই ব্যবস্থাপত্র দেন চিকিৎসক। ওষুধের দীর্ঘ তালিকাসংবলিত ব্যবস্থাপত্রে স্থান পায় অ্যান্টিবায়োটিকও। যদিও ব্যবস্থাপত্রে সঠিকভাবে রোগের বিবরণ উল্লেখ করেননি চিকিৎসক। ওষুধের কোনটি কী কারণে দেয়া হয়েছে, রোগীকে তা-ও জানানো হয়নি। দেশের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালের বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা বেশির ভাগ রোগীর ক্ষেত্রে ঘটছে এ ঘটনা। অথচ অ্যান্টিবায়োটিকের এ ধরনের অনিয়ন্ত্রিত প্রয়োগের কারণে ক্রমেই বাড়ছে নানা জটিলতা।

সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইউনিটের উদ্যোগে ‘প্যাশেন্ট অ্যাওয়ারনেস অন দ্য র্যাশনাল ইউজ অ্যান্টিবায়োটিক অ্যান্ড ইটস রেজিস্ট্যান্স ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক সাম্প্রতিক এক গবেষণায় পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়া ব্যবস্থাপত্র দেয়ার এমন প্রবণতার বিষয়টি উঠে এসেছে।… ….

গবেষণায় বলা হয়, সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা ৬৩ শতাংশ, জেলা হাসপাতালে ৪৮ শতাংশ, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫১ শতাংশ, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে ৫১ শতাংশ, কমিউনিটি ক্লিনিকে ৮৫ শতাংশ, বেসরকারি হাসপাতালে ৫৬ শতাংশ, ফার্মেসিতে ৭৮ শতাংশ এবং অন্যান্য চিকিৎসা দেয়া ব্যক্তিরা ৫০ শতাংশ রোগীদের ব্যবস্থাপত্রে রোগের নাম ও ধরন উল্লেখ করা হয় না।

পর্যাপ্ত অবকাঠামো সুবিধার অভাবে সরকারি হাসপাতালে রোগ নির্ণয়ে পরীক্ষা করা হয় না বলে গবেষণায় উঠে এসেছে। এতে সরকারি চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্রে উল্লেখিত পরীক্ষার বেশির ভাগ বেসরকারিভাবে করতে হয়। অনেক পরীক্ষা আবার অপ্রয়োজনীয়ও হয়ে থাকে। বেসরকারিভাবে পরীক্ষা করলে তাতে সরকারি চিকিৎসকরা কমিশন পান। নামমাত্র মূল্য নেয়ায় সরকারি ব্যবস্থাপনায় রোগের পরীক্ষা করা গেলে স্বাস্থ্যসেবার উন্নতি ঘটত বলে গবেষণায় উল্লেখ করা হয়েছে।

কোভিডে যখন ৫ হাজার মৃত্যু, দ্বিগুণ মানুষের আত্মহত্যা: পরিসংখ্যান সচিব

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

দেশে চলমান মহামারীর মধ্যে যখন করোনাভাইরাসের সংক্রমণে ৫ হাজার ২০০ মানুষের মৃত্যু হয়েছে, সেই সময় ১১ হাজারের বেশি মানুষ আত্মহত্যা করেছেন বলে তথ্য দিয়েছেন পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব মোহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী।

পরিসংখ্যান ব্যুরোর চলমান চলমান এক জরিপে চলতি অর্থবছরের দশ মাসের তথ্য বিশ্লেষণ করে এই চিত্র পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আগের অর্থবছরের ১০ মাস এবং এ অর্থবছরের ১০ মাসের তথ্য নিয়ে এই পর্যালোচনা করা হয়েছে জানিয়ে সচিব ইয়ামিন চৌধুরী বলেন,  “স্টাডিতে দেখা গেছে, যখন দেশে করোনাভাইরাসে ৫ হাজার দু্ইশর মতো লোক মারা গেছে, তখন আত্মহত্যায় প্রায় ১১ হাজার মানুষ মারা গেছে।”

মহামারীর এই সময়ে দেশে শুধু হার্ট-অ্যাটাক, হার্ট-ফেইলিওর ও হৃদরোগে প্রায় ১ লাখ ৮০ হাজার মানুষের মৃত্যুর তথ্য পাওয়ার কথা তিনি তুলে ধরেন।

করোনাকালে আয় কমেছে ৭০ শতাংশ মানুষের

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, বণিক বার্তা

করোনা মহামারী বিশ্বজুড়ে সাধারণ মানুষের ব্যক্তিগত আয়ে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। বাদ যায়নি বাংলাদেশও। মহামারীর ধাক্কায় অনেকে বেকার হয়েছেন। অনেকের আয়ে টান পড়েছে। এ ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশে করোনাকালে ৭০ শতাংশ মানুষের আয় কমেছে। সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিং (সানেম) এবং অ্যাকশনএইডের যৌথ উদ্যোগে দেশের চারটি জেলার (বরগুনা, সাতক্ষীরা, রাজশাহী ও কুড়িগ্রাম) ১ হাজার ৫৪১ খানার ওপর চালানো জরিপের ফলাফলে এমন তথ্য উঠে এসেছে। গতকাল ‘মহামারী এবং বাংলাদেশের যুব জনগোষ্ঠী: চারটি নির্বাচিত জেলার জরিপের ফলাফল’ শীর্ষক এক ওয়েবিনারে গবেষণার ফলাফল উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক এবং সানেমের রিসার্চ ইকোনমিস্ট মাহতাব উদ্দিন।

দেশে করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত ঊর্ধ্বমুখী

০৮ মার্চ ২০২১, সমকাল

দেশে সর্বশেষ ৫৪ দিনের মধ্যে সর্বোচ্চ করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হয়েছেন গত ২৪ ঘণ্টায়। এ সময় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৮৪৫ জনের।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মারা গেছেন ১৪ জন। গত রোববার ভাইরাসটিতে মৃত্যু হয়েছিল ১১ জনের।

শনাক্ত হয়নি ৭৭ হাজার যক্ষ্মারোগী

১০ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

মহামারির প্রভাব পড়েছে দেশের যক্ষ্মা পরিস্থিতির ওপর। করোনার কারণে গত বছর ৭৭ হাজারের বেশি যক্ষ্মা রোগী শনাক্ত হয়নি। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির এক প্রতিবেদনে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

কেবল বিপুলসংখ্যক সাধারণ যক্ষ্মা রোগী শনাক্ত হয়নি, তা নয়, শনাক্তের বাইরে থেকে গেছে ওষুধপ্রতিরোধী যক্ষ্মারোগী। চিকিৎসার বাইরে থেকে এরা যক্ষ্মার সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিচ্ছে বলে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন।

ঢামেকে করোনা আইসিইউতে আগুন, স্থানান্তরের পর ৩ রোগীর মৃত্যু

১৭ মার্চ, ২০২১, দেশ রুপান্তর

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ইউনিটের আইসিইউতে অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে।

এ ঘটনায় রোগী স্থানান্তর করার পর চিকিৎসাধীন ৩ রোগীর মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালটির পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাজমুল হক।

৮ মাস পর ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ করোনা শনাক্ত

২৩ মার্চ ২০২১, বাংলা ট্রিবিউন

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছেন তিন হাজার ৫৫৪ জন। এর আগে সর্বশেষ গত ১৫ জুলাই একদিনে শনাক্ত ছিল তিন হাজার ৫৩৩ জন। এরপর গত আট মাসে একদিনে সাড়ে তিন হাজার অতিক্রম করেনি করোনা শনাক্ত। মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) স্বাস্থ্য অধিদফতরের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

দেশে করোনায় রেকর্ড ৫১৮১ শনাক্ত, মৃত্যু ৪৫

২৯ মার্চ, ২০২১, দেশ রুপান্তর

দেশে করোনাভাইরাসে দৈনিক শনাক্তের সর্বোচ্চ রেকর্ড হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ৫ হাজার ১৮১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে; যা এ যাবতকালের সর্বোচ্চ।   

এর আগে গত বছরের ২ জুলাই সর্বোচ্চ ৪ হাজার ১৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়।

গণপরিবহনে ভাড়া বাড়লো ৬০ শতাংশ

৩০ মার্চ, ২০২১, দেশ রুপান্তর

করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) মহামারী পরিস্থিতি অবনতি হওয়ায় অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের সিদ্ধান্তের কারণে গণপরিবহনে ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। বুধবার থেকে নতুন ভাড়া কার্যকর হবে।

গুনতে হচ্ছে বেশি ভাড়া, তবু অর্ধেকের বেশি যাত্রী বাসে

৩১ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

গণপরিবহনে অর্ধেক যাত্রী নেওয়ার সরকারি নির্দেশনা কার্যকর হওয়ার কথা আজ বুধবার সকাল থেকে। পুরান ঢাকা, মিরপুর, উত্তরা, সাভার, গাজীপুর রুটের বাসসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় দেখা গেছে, গণপরিবহনে অর্ধেকের বেশি যাত্রী তোলা হচ্ছে। অনেক বাসেই যাত্রীরা পাশাপাশি বসছেন। অনেক বাসে আবার অর্ধেক যাত্রী নেওয়ার পর অতিরিক্ত আরও পাঁচ থেকে সাতজন যাত্রী তোলা হচ্ছে। কিন্তু অতিরিক্ত ৬০ শতাংশ ভাড়া ঠিকই নেওয়া হচ্ছে। অনেক বাসে আবার ৬০ শতাংশ নয়, দ্বিগুন ভাড়া নেওয়া হচ্ছে।

করোনা রোগী বাড়ছে, আইসিইউ সংকট

০১ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

করোনা সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা ৩১ জেলার মধ্যে ১৫টিতেই নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ) নেই। ১০ মাস আগে প্রধানমন্ত্রী প্রতিটি জেলা সদর হাসপাতালে আইসিইউ ইউনিট স্থাপনের নির্দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু এত দিনেও জেলা পর্যায়ে আইসিইউ ইউনিট তৈরি না হওয়ায় স্বাস্থ্য বিভাগের গাফিলতিকে দায়ী করছেন জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

গতকাল বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে প্রকাশিত উচ্চ সংক্রমণ রয়েছে এমন ৩১টি জেলার মধ্যে ১১টি জেলা ঢাকা বিভাগে। এক সপ্তাহ ধরে ঢাকা বিভাগে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ শনাক্ত হচ্ছে, মৃত্যুও এই বিভাগে বেশি। সারা দেশে এক সপ্তাহে মারা যাওয়া ২৪৯ জনের মধ্যে ১৭৮ জনই ঢাকা বিভাগের। অথচ সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী, এ বিভাগে উচ্চ সংক্রমণ থাকা ১১ জেলার ছয়টিতেই আইসিইউ নেই। জেলাগুলো হলো: টাঙ্গাইল, মাদারীপুর, শরীয়তপুর, নরসিংদী, রাজবাড়ী ও মুন্সিগঞ্জ। গত এক সপ্তাহে চট্টগ্রাম বিভাগে মারা গেছেন ৩১ জন। এই বিভাগে উচ্চ সংক্রমণের ঝুঁকিতে থাকা নোয়াখালী, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আইসিইউ নেই।

উচ্চ সংক্রমণের ঝুঁকিতে থাকা খুলনা বিভাগের নড়াইল ও যশোর, রাজশাহী বিভাগের নওগাঁ ও নাটোর এবং রংপুর বিভাগের নীলফামারী জেলায় আইসিইউ সুবিধা নেই।

অনেক ক্ষেত্রে করোনার জটিল রোগীদের আইসিইউর চেয়েও উচ্চমাত্রায় অক্সিজেন সরবরাহের প্রয়োজন বেশি হয়। এ জন্য জেলা হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্তসংখ্যক অক্সিজেন সরবরাহের যন্ত্র হাই ফ্লো নাজাল ক্যানুলা থাকা প্রয়োজন। সংক্রমণ ঝুঁকির ৩১ জেলার মধ্যে অন্তত ৪টি জেলায় কোনো হাই ফ্লো নাজাল ক্যানুলা নেই। অধিকাংশ জেলায় ১ থেকে ৫টি করে নাজাল ক্যানুলা রয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, সারা দেশে হাই ফ্লো নাজাল ক্যানুলা রয়েছে ৭১৫টি।

রাইড শেয়ারিং বন্ধ করায় মোটরসাইকেল চালকদের বিক্ষোভ

০১ এপ্রিল ২০২১, সমকাল

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় রাইডশেয়ারিং সার্ভিসের মাধ্যমে মোটরসাইকেলে যাত্রী তোলার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়ায় বিক্ষোভ করেছেন চালকরা।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে কয়েকশ’ চালক তাদের মোটরসাইকেল রাস্তায় রেখে বিক্ষোভ করেন। তারা এসময় এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানান। এরপর রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় এ বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।

দেশে রেকর্ড ৬৪৬৯ শনাক্ত, মৃত্যু ৫৯

১ এপ্রিল, ২০২১, দেশ রুপান্তর

দেশে করোনাভাইরাসে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বৃহস্পতিবার রেকর্ড করেছে। ২৮ হাজার ১৯৮টি নমুনা পরীক্ষা করে গত ২৪ ঘণ্টায় ৬ হাজার ৪৬৯ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে মারা গেছেন ৫৯ রোগী; যা গত নয় মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।

৫ হাসপাতাল ঘুরেও পর্যাপ্ত অক্সিজেন পেলেন না, মা মারা গেলেন অ্যাম্বুলেন্সেই

২ এপ্রিল ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

গুরুতর অসুস্থ মায়ের জরুরিভিত্তিতে অক্সিজেন সাপোর্ট দরকার। ছেলে অ্যাম্বুলেন্সে মাকে নিয়ে এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতালে ছুটছিলেন। কোনো হাসপাতালই প্রয়োজন অনুযায়ী পর্যাপ্ত অক্সিজেন সাপোর্ট দিতে পারেনি। গতকাল বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে অ্যাম্বুলেন্সেই মা মৃত্যুবরণ করেন।

রাজধানীর উত্তরখানের বাসিন্দা মনোয়ারা বেগমকে (৫৫) নিয়ে তার ছেলে রায়হান একের পর এক রাজধানীর পাঁচটি হাসপাতালে যায়। কিন্তু, কোনো হাসপাতালই তাকে জরুরি অক্সিজেন সাপোর্ট দিতে পারেনি। পরে মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে অ্যাম্বুলেন্সেই ওই মায়ের মৃত্যু হলে কান্নায় ভেঙে পড়েন তার ছেলে। গুরুতর অবস্থায় মাকে প্রথমে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নেন রায়হান। কিন্তু, সেখানে ভর্তি করানোর পরও অক্সিজেন সাপোর্ট দেওয়া যায়নি। পরে সেখান থেকে রেফার করা হলে মাকে নিয়ে বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও আল রাজি ইসলামী হাসপাতাল হয়ে মুগদায় যান রায়হান।

রেকর্ড ভেঙে একদিনে শনাক্ত ৬৮৩০

০২ এপ্রিল ২০২১, বাংলা ট্রিবিউন

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছেন ছয় হাজার ৮৩০ জন, যা কিনা এযাবৎকালের সর্বোচ্চ। গতকাল দেশে প্রথমবারের মতো দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ছয় হাজার ছাড়িয়ে যায়। গতকাল শনাক্ত হন ছয় হাজার ৪৬৯ জন। আজ নতুন শনাক্ত হওয়াদের নিয়ে এ পর্যন্ত সরকারি হিসাবে শনাক্ত হয়েছেন ছয় লাখ ২৪ হাজার ৫৯৪ জন।

সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্ল্যান্ট: এক বছরে অর্ধেক কাজও হয়নি

০২ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

করোনা সংক্রমণ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নির্ধারিত হাসপাতালগুলোতে নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহের কাজে তোড়জোড় শুরু হয়। সংক্রমণের হার কমে এলে কাজের গতিও কমে যায়। এক বছর পরও তাই সারা দেশে নিশ্চিত হয়নি নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহ।

শ্বাসতন্ত্রের রোগ কোভিড-১৯-এর চিকিৎসা ব্যবস্থাপনার গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হলো নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহ। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্র বলছে, গত বছর সারা দেশে ৭৯টি হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্ল্যান্ট (নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা) বসানোর পরিকল্পনা নেয় সরকার। গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৩৮টিতে অক্সিজেন সরবরাহ শুরু হয়েছে।

স্বাস্থ্যসেবা খাতের তিনজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেন, গত বছরের মে মাসে নেওয়া পরিকল্পনাটি জুনে চূড়ান্ত হয়। এরপর ২৬টি হাসপাতালে প্ল্যান্ট বসানোর কাজ পায় ন্যাশনাল ইলেকট্রো-মেডিকেল ইকুইপমেন্ট মেইনটেন্যান্স ওয়ার্কশপ অ্যান্ড ট্রেনিং সেন্টার (নিমিউ অ্যান্ড টিসি)। সিদ্ধান্তহীনতায় বাকি ৫৩টি হাসপাতালের কার্যাদেশ ঝুলে যায়। শীতে সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কায় গত অক্টোবরে আবার তাগাদা শুরু হলে তড়িঘড়ি করে এসব হাসপাতালে কার্যাদেশ দেওয়া হয়। কিন্তু হাসপাতালের তালিকা নির্ধারণ নিয়ে শুরু হয় দীর্ঘসূত্রতা। নভেম্বরের মধ্যে ২৩টি হাসপাতালের তালিকা চূড়ান্ত হয়। সবশেষ গত বুধবার বৈঠক করে আরও ৩০টি হাসপাতালের তালিকা চূড়ান্ত করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

করোনায় হতদরিদ্রদের জন্য সামাজিক সুরক্ষা প্যাকেজ: অর্ধেকের বেশি এখনো অবণ্টিত

৩ এপ্রিল, ২০২১, বণিক বার্তা

পুরান ঢাকার একটি রেস্টুরেন্টে কাজ করতেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের সুন্দরপুরের আকবর আলী। করোনার প্রাদুর্ভাবে সবকিছু বন্ধ হয়ে যাওয়ায় গত বছরের এপ্রিলে তিনি চাকরি হারান। এর পরও কিছুদিন কাজের সন্ধানে ঢাকায়ই ছিলেন। তবে সাধারণ ছুটির মধ্যে নতুন কাজের সুযোগ মেলেনি। এদিকে জাতীয় পরিচয়পত্রে তার ঠিকানা দেয়া রয়েছে গ্রামের বাড়ির। ফলে ঢাকায় সরকার ঘোষিত কোনো সহায়তা তিনি পাননি। এক পর্যায়ে গ্রামে ফিরে যেতে বাধ্য হন। কাজ মেলেনি সেখানেও। ত্রাণের জন্য জনপ্রতিনিধির কাছে আবেদন জানান। প্রাথমিক তালিকায় থাকলেও পরে তা থেকে বাদ পড়েন। চরম অর্থকষ্টে থাকা আকবর আলী এখনো কোনো সরকারি সহায়তা পাননি।

আকবর আলীর মতো দরিদ্রদের কভিড-১৯-এর অভিঘাত থেকে সুরক্ষা দিতে ১০ হাজার ১৭৩ কোটি টাকার সাতটি প্যাকেজ ঘোষণা করেছিল সরকার। কিন্তু অর্থ মন্ত্রণালয়ের তথ্য বলছে, সামাজিক সুরক্ষার আওতায় নেয়া এসব প্যাকেজের অর্ধেকই অবণ্টিত থেকে গেছে। এজন্য প্যাকেজ বাস্তবায়নের প্রক্রিয়াগত দুর্বলতাকেই দায়ী করছেন সংশ্লিষ্টরা।

প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নের অগ্রগতি-সংক্রান্ত অর্থ মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদন সূত্রে জানা গেছে, সামাজিক সুরক্ষার আওতায় করোনায় কর্মহীন দরিদ্র মানুষকে খাদ্যসহায়তা দিতে ২ হাজার ৫০০ কোটি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়। গত ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ১ হাজার ৬৮ কোটি টাকা দেয়া হয়েছে। আরো ১ হাজার ৪৩২ কোটি টাকা বিতরণ বাকি আছে। এ প্যাকেজের আওতায় ৫ লাখ টন চাল ও এক লাখ টন গম বিতরণ করা হয়েছে।

করোনার নেতিবাচক প্রভাব কাটিয়ে উঠতে সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সরকার। ১১২টি উপজেলায় শতভাগ বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধীদের এর আওতায় আনার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এ প্যাকেজে ৮১৫ কোটি টাকা বরাদ্দ থাকলেও বিতরণ করা হয়েছে মাত্র ২৩ কোটি টাকা। বিতরণ বাকি আছে ৭৯২ কোটি টাকা।

এদিকে তৈরি পোশাক, চামড়াজাত পণ্য ও পাদুকা শিল্পের কর্মহীন শ্রমিকদের জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়ন, জাপান ও সরকার যৌথভাবে ১ হাজার ৫০০ কোটি টাকার প্রণোদনা দেয়। চিহ্নিত বেকার শ্রমিকদের তিন মাস নগদ সহায়তা হিসেবে ৩ হাজার টাকা করে প্রতি মাসে দেয়া হবে। গত ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময়ে এ তহবিল থেকে শ্রমিকদের দেয়া হয়েছে মাত্র ৫ কোটি ৪৩ লাখ টাকা।

গৃহহীন মানুষের জন্য ঘর নির্মাণ করে দেয়া কর্মসূচির আওতায় ২ হাজার ১৩০ কোটি টাকার প্যাকেজের মধ্যে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ১ হাজার ৪৭৪ কোটি টাকা দেয়া হয়েছে। এছাড়া নিম্ন আয়ের মানুষের মধ্যে ১০ টাকা কেজির চাল বিতরণের জন্য ৭৭০ কোটি টাকা প্রণোদনার পুরোটাই ব্যয় হয়েছে। এতে ১৮ লাখ গরিব মানুষ উপকৃত হয়েছে। ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সারা দেশে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় অতিরিক্ত ১ লাখ ৫০ হাজার টন চাল বিতরণ করা হয়েছে। এতে সরকারের অতিরিক্ত ব্যয় হয়েছে ৫২৯ কোটি টাকা। পাশাপাশি শহরাঞ্চলে বিশেষ ওএমএসের আওতায় অতিরিক্ত ৬৮ হাজার টন চাল বিতরণ করা হয়েছে। এতে সরকারের ২৪১ কোটি টাকা অতিরিক্ত ব্যয় হয়েছে।

আর সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির বাইরে করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের নগদ আড়াই হাজার টাকা দেয়ার জন্য ১ হাজার ২৫৮ কোটি টাকার প্যাকেজ দেয়া হয়। সর্বশেষ তথ্যমতে ৩৭৮ কোটি ৪২ টাকা বিতরণ করা হয়নি। তবে মাঠ পর্যায়ে ৮৭৯ কোটি ৫৮ লাখ টাকা প্রায় ৩৫ লাখ গরিব মানুষকে দেয়া হয়েছে।

দ্বিতীয় ধাপে ঘোষিত প্যাকেজের আওতায় ১ হাজার ২০০ কোটি টাকায় দেশের ১৫০টি উপজেলায় দরিদ্র বয়স্ক এবং বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্তা নারীর ভাতার ব্যবস্থা করা হবে। গত ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত এ প্যাকেজ থেকে ২৬২ কোটি টাকা বিতরণ করা হয়েছে।

সাত দিনের ‘লকডাউনে’ যা যা নিষেধ

৪ এপ্রিল ২০২১, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সামাল দিতে সোমবার থেকে সাত দিন গণপরিবহন চলাচল বন্ধের পাশাপাশি বাজার-মার্কেট, হোটেল-রেস্তোরাঁসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ আরোপ করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার।

রোববার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে জারি করা ওই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ৫ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে ১১ এপ্রিলে রাত ১২টা পর্যন্ত এসব নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে।

মহামারী পরিস্থিতি পর্যালোচনায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় গত ২৯ মার্চ যে ১৮ দফা নির্দেশনা দিয়েছিল, তার আলোকে এসব নির্দেশনা দেওয়ার কথা জানানো হয়েছে প্রজ্ঞাপনে।

এর মধ্যে সব ধরনের গণপরিবহন এবং শপিংমল বন্ধ রাখার কথা যেমন আছে, তেমনি সন্ধ্যা ৬টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে যেতে নিষেধ করা হয়েছে।

কাঁচাবাজার এবং অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কেনাবেচা করতে বলা হয়েছে।

লকডাউনের বিরুদ্ধে চাঁদপুরে ব্যবসায়ীদের বিক্ষোভ

৫ এপ্রিল, ২০২১, মানবজমিন

সরকার ঘোষিত লকডাউনেরর প্রথম দিনে চাঁদপুরে ‘লকডাউন মানি না’ স্লোগানে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। সোমবার বেলা ১২টার দিকে এই বিক্ষোভ সমাবেশ করেন তারা। এ সময় চাঁদপুর শহরের হাকিম প্লাজা, হকার্স মার্কেটসহ বিভিন্ন মার্কেটের ব্যবসায়ীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করে পৌরসভার সামনে অবস্থান নেয়। সেখান থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি পুনরায় হর্কাস মার্কেট সংলগ্ন চাঁদপুর টাওয়ারের সামনে এসে সমাবেশে মিলিত হয়।

খবর পেয়ে মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুর রশিদ ও অন্যান্য পুলিশ সদস্যরা ঘটনাস্থলে এসে ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলেন। এরপর দুপুর ১টার দিকে ব্যবসায়ীরা বিক্ষোভ ও সমাবেশ শেষ করে।

মার্কেট খোলা রাখার দাবিতে সড়কে নিউমার্কেট, বসুন্ধরার ব্যবসায়ীরা

০৪ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

কাল সোমবার থেকে সাত দিন মার্কেট–শপিং মল বন্ধের প্রতিবাদে নিউমার্কেটের ব্যবসায়ীরা সমাবেশ করছেন। মার্কেটের সামনে অবস্থান নিয়ে সরকারের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানাচ্ছেন তাঁরা।

 নিউমার্কেট থানার উপপরিদর্শক (এসআই) তবিবর রহমান প্রথম আলোকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে আগামীকাল সোমবার সকাল ৬টা থেকে ১১ এপ্রিল রাত পর্যন্ত চলাচল ও কাজে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে সরকার। এ সময় শুধু জরুরি সেবা ছাড়া প্রায় সবকিছু বন্ধ থাকবে। আজ রোববার সরকারের এক প্রজ্ঞাপনে এ কথা জানানো হয়।

গণপরিবহনের দাবিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ

৫ এপ্রিল, ২০২১, কালের কন্ঠ

দেশের করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি সামাল দিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার। আজ সোমবার সকাল ৬টা থেকে আগামী ১১ এপ্রিল রাত ১২টা পর্যন্ত এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর থাকবে।

প্রজ্ঞাপনে উল্লিখিত সময়ে সব ধরনের গণপরিবহন (বাস, ট্রেন, লঞ্চ ও অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট) চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। আজ সোমবার (৫ এপ্রিল) সকাল থেকে সড়কে কোনো গণপরিবহন চলছে না।

এদিকে গণপরিবহন না পেয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের রায়েরবাগ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অবরোধ করেছেন অফিস ও কর্মস্থলগামী মানুষ। এতে ওই এলাকার সড়কে যানজট সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে পুলিশ সকাল সাড়ে ৯টার দিকে  অবরোধকারীদের সরিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করে।

যানবাহনের অপেক্ষায় মানুষ, রিকশা-সিএনজির দাপট

৫ এপ্রিল, ২০২১, দেশ রুপান্তর

করোনার বিস্তার রোধে দেশে এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ শুরু হয়েছে। অফিস ও শিল্পকারখানা খোলা রেখে গণপরিবহন বন্ধ রাখায় বিপাকে পড়েছে মানুষ। রিকশা এবং সিএনজিচালিত অটোরিকশাই একমাত্র ভরসা।

সোমবার সকালে রাজধানীর বিভিন্ন সড়কের মোড় এবং বাস স্টপেজে অফিসগামী মানুষকে যানবাহনের জন্য অপেক্ষা করতে দেখা যায়।

বাস না থাকলেও সড়কে ছিল প্রাইভেটকার, সিএনজি, রিকশার দাপট। এছাড়া সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব গাড়িও চলতে দেখা গেছে।

সালথায় করোনার কড়াকড়ি ঘিরে সংঘর্ষ-ঘেরাও-অগ্নিসংযোগ, নিহত ১

০৬ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

করোনা মোকাবিলায় বিধিনিষেধ কার্যকর করতে ফরিদপুরের সালথায় লোকজনকে পেটানো হয়েছে—এমন অভিযোগে গতকাল সোমবার রাতে থানা ও উপজেলা কমপ্লেক্স ঘেরাও করেন স্থানীয় লোকজন। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ও সহকারী কমিশনারের (ভূমি–এসি ল্যান্ড) গাড়িতে আগুন দেওয়ার ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লোকজনের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কয়েক দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনায় একজন নিহত হয়েছেন বলে পুলিশের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়েছে।

ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকেও করোনার নমুনা দেওয়ার টিকিট মেলে না

০৬ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

রাজধানীর মেরাদিয়ার বাসিন্দা খুকু বেগমের পাঁচ দিন ধরে জ্বর। আছে গলাব্যথা। সঙ্গে খুশখুশ কাশি। প্রথমে ভেবেছিলেন, তাঁর সাধারণ জ্বর হয়েছে। এ জন্য জ্বর নিরাময়ের ওষুধ খাচ্ছিলেন। কিন্তু জ্বর সারেনি। খুশখুশে কাশিও কমেনি। এবার তাঁর সন্দেহ হয়। করোনা পরীক্ষা করাতে সকাল নয়টার আগেই চলে আসেন মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এসে দেখেন, করোনার নমুনা দেওয়ার জন্য টিকিট নিতে হচ্ছে। সেই টিকিট নিতে মানুষের দীর্ঘ লাইন। সেই লাইনে দাঁড়িয়ে পড়লেন খুকু বেগম।

এক ঘণ্টা গেল, দুই ঘণ্টা গেল, তবু তিনি টিকিট হাতে পেলেন না। হাসপাতালের গেটে আসার প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টা পর টিকিট দেওয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা খুকু বেগমকে জানিয়ে দিলেন, আজ তিনি করোনার নমুনা দেওয়ার টিকিট পাবেন না। কারণ টিকিট সব শেষ।

একা খুকু বেগম নন, তাঁর মতো আরও ৪০–৫০ জন মুগদা হাসপাতালে টানা তিন ঘণ্টা অপেক্ষা করেও একটি টিকিট জোগাড় করতে পারেননি। অথচ তাঁরা সবাই ন্যূনতম শারীরিক দূরত্ব বজায় না রেখে ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন।

বাংলাদেশে করোনার দ. আফ্রিকার ভ্যারিয়েন্ট প্রাধান্য বিস্তার করছে: আইসিডিডিআর,বি

০৭ এপ্রিল ০৭, ২০২১, ডেইলিস্টার বাংলা অনলাইন

বাংলাদেশে সম্প্রতি করোনাভাইরাসের দক্ষিণ আফ্রিকার ভ্যারিয়েন্টের বেশি সংক্রমণ হচ্ছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআর,বি)। সম্প্রতি আইসিডিডিআরবি’র এক গবেষণায় এ তথ্য প্রকাশিত হয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটি জানায়, গত ১৮ থেকে ২৪ মার্চের মধ্যে আইসিডিডিআরবি’র বিজ্ঞানীরা করোনা রোগীদের প্রায় ৫৭টি নমুনার জিনোম সিকোয়েন্স বিশ্লেষণ করেছেন। এর মধ্যে, ৪৬টি অর্থাৎ ৮০ শতাংশেরও বেশি দক্ষিণ আফ্রিকার করোনা ভ্যারিয়েন্ট পাওয়া গেছে।

এর আগের সপ্তাহে ১২ থেকে ১৭ মার্চের মধ্যে আইসিডিডিআর,বি ৯৯টি করোনা রোগীর নমুনার জিনোম সিকোয়েন্স বিশ্লেষণ করে ৬৪টি অর্থাৎ ৬৪ শতাংশের বেশি দক্ষিণ আফ্রিকার ভ্যারিয়েন্ট পেয়েছে।

মার্চের প্রথম সপ্তাহে প্রায় ৩০টি নমুনার জিনোম সিকোয়েন্স বিশ্লেষণ করে অবশ্য আফ্রিকার ভ্যারিয়েন্ট পাওয়া যায়নি।

একটি সিরিঞ্জের সুইয়ের ট্যাক্সও ৩১ শতাংশ: ডা. জাফরুল্লাহ

০৮ এপ্রিল, ২০২১, ডেইলিস্টার বাংলা অনলাইন

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, করোনা জাতীয় জীবনে ভয়াবহ অবস্থা সৃষ্টি করেছে। করোনায় একজন মানুষের মৃত্যু হয় কিন্তু পুরো পরিবারকে হত্যা করছে সরকার। একটা আইসিউতে প্রতি দিনের খরচ ৩০ হাজার থেকে আড়াই লাখ টাকা। একটি সিরিঞ্জের সুইয়ের ট্যাক্সও ৩১ শতাংশ। অক্সিজেনের উপরেও ভ্যাট ১৯ শতাংশ। চিকিৎসা করাতে গিয়ে একটি পরিবার নিঃস্ব হয়ে যায়। এটা সরকারের ব্যর্থতা।

আজ ৭৭ জন, মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছেই

১০ এপ্রিল, ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

করোনাভাইরাসে মৃত্যু এখন শুধু সংখ্যায় পরিণত হয়েছে! প্রতিদিনই দেশে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে, আর তা গণনা চলছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৭৭ জন। এটিই এখন পর্যন্ত দেশে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু। গতকাল ৬৩ জন ও গত পরশু ৭৪ জনের মৃত্যু হয়েছিল। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন নয় হাজার ৬৬১ জন।

একই সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও পাঁচ হাজার ৩৪৩ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। গতকাল সাত হাজার ৪৬২ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এর আগে গত ৭ এপ্রিল সর্বোচ্চ সাত হাজার ৬২৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হয়েছেন ছয় লাখ ৭৮ হাজার ৯৩৭ জন।

বুধবার থেকে বন্ধ অফিস-পরিবহন, চলাচলেও নিষেধাজ্ঞা

১২ এপ্রিল ২০২১, সমকাল

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে আগামী ১৪ এপ্রিল থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত দেশের সব সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে, বিধি-নিষেধ থাকবে সার্বিক কার্যাবলী ও চলাচলেও।

সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

১৩ দফা নির্দেশনায় বলা হয়, সকল সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস/আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ও সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী নিজ নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করবেন। সকল প্রকার পরিবহন (সড়ক, নৌ, রেল, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট) বন্ধ থাকবে। সুপ্রিম কোর্ট আদালতসমূহের জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনা জারি করবে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, শিল্প-কারখানা স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় চালু থাকবে।

২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ৮৩ জনের মৃত্যু

১২ এপ্রিল ২০২১, বাংলা ট্রিবিউন

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৮৩ জন; যা কিনা দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে সর্বোচ্চ মৃতের সংখ্যা। গতকাল রবিবার (১১ এপ্রিল) মারা যান ৭৮ জন, তার আগের দিন মারা যান ৭৭ জন। ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৮৩ জনকে নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত করোনায় মারা গেছেন ৯ হাজার ৮২২ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছেন সাত হাজার ২০১ জন। তাদের নিয়ে দেশে সরকারি হিসাবে এখন পর্যন্ত শনাক্ত হলেন ছয় লাখ ৯১ হাজার ৯৫৭ জন।

করোনা রোগী

হাসপাতালে ভর্তি আছে, অধিদপ্তরের খাতায় নেই

১২ এপ্রিল ২০২১, ২১: ০৬

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, রাজধানীর মাত্র ১৪টি বেসরকারি হাসপাতালে করোনা রোগী ভর্তি থাকছেন। অথচ অধিদপ্তরের তালিকার বাইরে আরও ১৪টি হাসপাতালে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, ১১টিতেই করোনা রোগী ভর্তি আছেন। এসব হাসপাতালের সাধারণ শয্যা এবং নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) প্রায় সব শয্যা রোগীতে পূর্ণ।

গতকাল রোববার দৈবচয়নের ভিত্তিতে রাজধানীর ১৪টি হাসপাতালে কথা বলেন এই প্রতিবেদক। ১১টি হাসপাতালে করোনা রোগীদের জন্য ৪৫৭টি সাধারণ শয্যা এবং ১০৩টি আইসিইউ শয্যা রয়েছে। এর মধ্যে ৪৪৬টি সাধারণ শয্যায় এবং ১০৩টি আইসিইউতেই করোনা রোগী ভর্তি ছিলেন। অবশ্য গতকাল মোট ১৯টি বেসরকারি হাসপাতালের সঙ্গে কথা বলেছিল প্রথম আলো। এর মধ্যে ১৬টিতেই করোনা রোগী ভর্তির তথ্য পাওয়া গিয়েছিল। কিন্তু স্বাস্থ্য অধিদপ্তর গতকাল বিকেলে প্রথম আলোর খোঁজ নেওয়া তিনটি হাসপাতালকে তাদের তালিকায় যুক্ত করে। আর আজ সোমবার আরও দুটি হাসপাতালকে তালিকায় যুক্ত করা হয়েছে।… ….

করোনা চিকিৎসা

পড়ে আছে জীবন রক্ষাকারী সামগ্রী

১৩ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

ঢাকায় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ১০ মাস ধরে পড়ে আছে অক্সিজেন সরবরাহ সামগ্রী। কেন্দ্রীয় ঔষধাগারে পড়ে আছে কৃত্রিম শ্বাসপ্রশ্বাসের যন্ত্র ৩০০ ভেন্টিলেটর। অথচ করোনার রোগী হাসপাতালে প্রয়োজনে অক্সিজেন পাচ্ছে না। প্রতিদিনই করোনায় আক্রান্ত মানুষের মৃত্যু বাড়ছে।

বিশ্বব্যাংক ও এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) অর্থায়নে বাস্তবায়নাধীন দুটি পৃথক প্রকল্পের অগ্রগতির পর্যালোচনার কাগজপত্রে জীবন রক্ষাকারী চিকিৎসাসামগ্রী সম্পর্কে এই তথ্য পাওয়া গেছে। অবহেলা, অদক্ষতা ও নিষ্ক্রিয়তার এই নজির সৃষ্টি করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এবং এর অধীন বিভিন্ন অধিদপ্তর ও প্রতিষ্ঠান। এক বছরে প্রকল্প বাস্তবায়নের কার্যকর কোনো উদ্যোগ তারা নেয়নি।.. …

জীবন রক্ষাকারী সামগ্রী বিমানবন্দরে

১১ এপ্রিলের সভায় অংশগ্রহণকারীদের যেসব কাগজপত্র দেওয়া হয়েছিল, তাতে বলা আছে, বিশ্বব্যাংকের প্রকল্পের আওতায় ইউনিসেফের মাধ্যমে সংগ্রহ করা মালামাল বিমানবন্দরে (হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর) দীর্ঘদিন ধরে আটকে আছে। কে সই করে মালামাল ছাড়াবে, তা নিয়ে জটিলতা দেখা দিয়েছে। মালামাল দীর্ঘদিন বিমানবন্দরে থাকায় স্টোর চার্জ (গুদাম ভাড়া) অনেক হয়েছে। তা কে পরিশোধ করবে, তা নিয়েও জটিলতা আছে।

গত বছর প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ার পর জুলাই মাসে বিশ্বের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে জরুরি ভিত্তিতে চিকিৎসাসামগ্রী সংগ্রহ করেছিল ইউনিসেফ। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি প্রভাবশালী দাতা সংস্থার কর্মকর্তা গতকাল প্রথম আলোকে বলেন, ইউনিসেফ ১০২ কোটি টাকার (১২ মিলিয়ন ডলারের) চিকিৎসাসামগ্রী কিনে এনেছিল। এগুলোর মধ্যে ১ হাজার ২০০টি অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটার আছে। এই যন্ত্র বাতাস থেকে অক্সিজেন পৃথক করে তা ব্যবহার উপযোগী করে তোলে। আছে বিপুল পরিমাণ পালস অক্সিমিটার, হাই ফ্লো নাজাল ক্যানুলা, মাস্ক, পিপিইসহ আরও নানা সামগ্রী। গত ১০ মাস এসব সামগ্রী বিমানবন্দরে পড়ে আছে। অনেক সামগ্রী নষ্ট হয়েছে।… …

পড়ে আছে ৩০০ ভেন্টিলেটর, আছে দুর্নীতিও

জটিল ও গুরুতর রোগীর জীবন রক্ষায় ভেন্টিলেটরের বড় ভূমিকা আছে। এই করোনাকালেও অনেক রোগী জীবন ফিরে পেয়েছে ভেন্টিলেটরের কারণে। বিশ্বব্যাংকের প্রকল্পের আওতায় ৩০০ ভেন্টিলেটর কেনা হয়েছিল। কেন্দ্রীয় ঔষধাগারে এসব ভেন্টিলেটর পড়ে আছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কাগজপত্র বলছে, ভেন্টিলেটর কেনায় দুর্নীতি হয়েছিল। ১০০ ভেন্টিলেটর বেশি দাম দিয়ে কেনা হয়েছিল।

প্রকল্প পরিচালক ডা. আজিজুর রহমান সিদ্দিকী বলেন, এই অনিয়ম হয়েছে অন্য প্রকল্প পরিচালকের সময়। তবে ভেন্টিলেটর নিয়ে যে অডিট আপত্তি আছে, তার নিষ্পত্তি হলেই এগুলোর ব্যবহার শুরু হবে। … …

করোনায় একদিনে সর্বোচ্চ ৯৬ জনের মৃত্যু

১৪ এপ্রিল ২০২১, সমকাল

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ৯৬ জনের মৃত্যু হয়েছে; যা  করোনায় মৃতের সংখ্যার দিক থেকে এ পর্যন্ত সর্বোচ্চ। এই নিয়ে দেশে সরকারি হিসাবে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন ৯ হাজার ৯৮৭ জন।

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে পাঁচ হাজার ১৮৫ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

চিকিৎসকদেরও গুনতে হয়েছে জরিমানা, আটকা পড়েছেন অনেকে

১৪ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

লকডাউনের প্রথম দিনে কর্মস্থলে যাওয়া-আসার পথে ভোগান্তিতে পড়েছেন চিকিৎসকেরা। কাউকে কাউকে জরিমানা গুনতে হয়েছে।  অ্যাম্বুলেন্স থেকে নামিয়ে দেওয়া, কিংবা দুই ঘণ্টা পর্যন্ত পথে আটকে থাকার মতো ঘটনাও ঘটেছে। ফাউন্ডেশন ফর ডক্টরস সেফটি রাইটস অ্যান্ড রেসপনসিবিলিটিজ (এফডিআরএস) এসব খবর দিয়েছে।

 এফডিআরএস এর যুগ্ম মহাসচিব রাহাত আনোয়ার চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, সকাল থেকে বেশ কিছু চিকিৎসক অভিযোগ করেছেন। প্রধানত দুই ধরনের সমস্যায় পড়েছেন তাঁরা। কেউ কেউ হাসপাতালে যাওয়া বা আসার পথে চেকপোস্টে হয়রানির শিকার হয়েছেন। আবার কেউ কেউ হাসপাতালে যাওয়ার জন্য রাস্তায় নেমে কোনো যানবাহন পাননি। লকডাউনে চিকিৎসকেরা কী করে হাসপাতালে পৌঁছাবেন, তার একটা ব্যবস্থা করা অতি জরুরি।

 চিকিৎসকদের নিজস্ব বেশ কিছু গ্রুপে ভোগান্তির শিকার ব্যক্তিরা পোস্ট দিয়েছেন। বাংলাদেশ ডক্টরস ফাউন্ডেশনের পেজে লিখেছেন কৃষ্ণা হালদার। তিনি লিখেছেন, ‍‘গত রাতে কুয়েত মৈত্রী সরকারি  হাসপাতালে আমার নাইট শিফটে ডিউটি ছিল। সকালে আমার ব্যক্তিগত প্রাইভেট কার পিক আপ করার সময় কারওয়ান বাজার সিগন্যালে ড্রাইভার আমার আইডি কার্ড দেখানোর পরও পুলিশ মামলা করেছে।’… …

দেশব্যাপী ‘সর্বাত্মক’ লকডাউন

দ্বিতীয় দিনে লোক সমাগম বেশি, পোশাককর্মীদের ভোগান্তি

১৫ এপ্রিল, ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

‘রাস্তায় বেশিভাগই ছিল প্রাইভেট কার। তারপর কিছু মোটরসাইকেল। মাঝে-মধ্যে দুই-একটা রিকশা দেখা যাচ্ছিল। তখন সকাল ৯টা, যেহেতু অফিস আওয়ার ছিল তাই সব গাড়িকে না আটকিয়ে কিছু কিছু গাড়িকে থামানো হচ্ছিল। গাড়ির কাগজ দেখার পাশাপাশি তাদের বাইরে যাওয়ার অনুমতি আছে কি না তা দেখা হচ্ছিল।’

আজ বৃহস্পতিবার দ্য ডেইলি স্টার’র সংবাদদাতা শাহীন মোল্লাকে কথাগুলো বলছিলেন হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে কাউলা এলাকা থেকে নিজের মোটরসাইকেলে কারওয়ান বাজার আসা সেখানকার প্রিমিয়াম ব্যাংকের এক কর্মকর্তা এমরান হোসেন।

তিনি আরও বলেন, ‘খিলক্ষেত ওভারব্রিজের আগে শত শত মানুষ দেখেছি। অফিসে যাওয়ার জন্যে গাড়ির অপেক্ষা করছেন। অনেককে হেঁটে হেঁটে মহাখালীর দিকে যেতে দেখেছি। খিলক্ষেতের এক চেকপোস্টে যখনই গাড়ি স্লো করেছিলাম তখনই একদল মানুষ আমার দিকে ছুটে আসেন। তারা আমার মোটরসাইকেলে ওঠার জন্যে পীড়াপীড়ি করেন।’… …

করোনায় মৃত্যু ১০ হাজার ছাড়াল

১৫ এপ্রিল ২০২১, সমকাল

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৯৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে করোনায় দেশে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ১০ হাজার ৮১ জনে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ৪ হাজার ১৯২ জন। এ নিয়ে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৭ লাখ ৭ হাজার ৩৬২ জনে।

২৪ ঘণ্টায় আইসিইউ শয্যা বাড়ল আড়াইগুণ!

১৬ এপ্রিল ২০২১, ঢাকা পোস্ট

দেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমণ পরিস্থিতির দিন দিন অবনতি হচ্ছে। প্রতিদিনই আক্রান্তের পাশাপাশি মৃত্যুর রেকর্ডও হচ্ছে। এ অবস্থায় হাসপাতালগুলোতে যখন আইসিইউ শয্যার জন্য তীব্র হাহাকার, তখন স্বাস্থ্য অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তিতে আইসিইউর সঙ্গে হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলা যুক্ত করে ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে আইসিইউ শয্যা আড়াইগুণ দেখানো হয়েছে। যদিও আক্রান্তদের স্বজনরা বলছেন, ঢাকায় করোনা আক্রান্ত কোনো রোগীর জন্য প্রয়োজন হলেই একটি আইসিইউ শয্যা পাওয়া কঠিন ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, বুধবার (১৪ এপ্রিল) রাজধানীর ১০টি সরকারি ও ১৭টি বেসরকারি হাসপাতালে (করোনার জন্য নির্ধারিত বা করোনা ইউনিট রয়েছে) ৪৪৫টি আইসিইউ শয্যার মধ্যে ৪৩৭টিতেই রোগী ভর্তি ছিল। কিন্তু বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) স্বাস্থ্য অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তির ধরনে কিছুটা পরিবর্তন আনা হয়। সেখানে আইসিইউ শয্যার পাশাপাশি হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলা সংযুক্ত শয্যাকেও আইসিইউর সমতুল্য ধরে একত্রে দেখানো হয়েছে। কতটি আইসিইউ ফাঁকা রয়েছে, সেটি বৃহস্পতিবার আলাদা করে দেখানো হয়নি। তবে আইসিইউর সমতুল্য হিসেবে পূর্বের তুলনায় প্রায় আড়াইগুণ বেশি শয্যা দেখানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার করোনা বিষয়ক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, রাজধানীতে সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে ৪১টি হাসপাতালে আইসিইউ সমতুল্যসহ মোট আইসিইউ শয্যা সংখ্যা রয়েছে এক হাজার ২৪৩টি। আগের দিনের (১৪ এপ্রিল) বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকায় ৩৯টি সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ৪৯৯টি আইসিইউ শয্যার মধ্যে ৪৮৭টিতে রোগী ভর্তি আছে। সরকারি পাঁচটি ও বেসরকারি হাসপাতালে সাতটিসহ মোট আইসিইউ শয্যা খালি ছিল ১২টি।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা ঢাকা পোস্টকে বলেন, গতকালের (বৃহস্পতিবার) বিজ্ঞপ্তিতে আইসিইউর সংখ্যাটা বেড়েছে। হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলা যুক্ত শয্যাকেও আইসিইউ শয্যা হিসেবে দেখানো হয়েছে। আইসিইউর একটি প্রধান সাপোর্ট হলো অক্সিজেন দেওয়া। যেহেতু হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলা দিয়েই আইসিইউর মতো সাপোর্ট দেওয়া যাচ্ছে, এজন্য আইসিইউর পাশাপাশি এগুলোকেও আইসিইউ শয্যা সংখ্যা হিসেবে গণনা করা হয়েছে।… ….

আইসিইউ দখল

১৬ এপ্রিল, ২০২১, কালের কন্ঠ

কত কিছুই তো দখল হয়। বাড়ি, গাড়ি, খেয়াঘাট থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের হল পর্যন্ত। তাই বলে জরুরি মুহূর্তে জীবনরক্ষাকারী নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্র (আইসিইউ)? তাও দখলের খবর শোনা যাচ্ছে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুুক এক রোগীর স্বজন বলেন, ‘আইসিইউ শয্যাগুলো দখল করা হয়েছে। যাঁরা আছেন, তাঁদের আদৌ আইসিইউ প্রয়োজন কি?’ আইসিইউবঞ্চিতদের দাবি, যদি রোগীর অবস্থা মুমূর্ষ হতো, তাহলে ৭২ ঘণ্টায় আইসিইউ শয্যায় কোনো না কোনো রোগী মারা যেতেন। কিন্তু শেবাচিম হাসপাতালের পরিসংখ্যান বলছে, ৭২ ঘণ্টায় আইসিইউ শয্যায় চিকিৎসাধীন কোনো রোগীর মৃত্যু হয়নি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে শেবাচিম হাসপাতালের শীর্ষ পর্যায়ে কর্মকর্তারা জানান, গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের (ভিআইপি) রোগী ভর্তি হলে, তাঁদের প্রয়োজন না হলেও আইসিইউ দিতে হয়। শুধু তাই না, জরুরি মুহূর্তে আইসিইউ নিলেও একসময় এই রোগীদের তা আর দরকার পড়ে না, তারপরও তাঁরা অনেকটা জোর করে শয্যা দখল করে রাখেন। গড়ে প্রতিদিন দুটি শয্যা ভিআইপিদের দখলে থাকে। গত মঙ্গলবার চারটি শয্যা বিনা প্রয়োজনে ভিআইপিদের দখলে ছিল। এই ভিআইপিদের মধ্যে রয়েছেন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ প্রশাসনের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং সরকারি দলের নেতারা। ফলে এ নিয়ে চিকিৎসকদের মধ্যে ক্ষোভ থাকলেও শেবাচিম কর্তৃপক্ষ কোনো পদক্ষেপ নিতে পারছে না… …

করোনায় এক দিনে শতাধিক মৃত্যুর রেকর্ড

১৬ এপ্রিল, ২০২১, দেশ রুপান্তর

দেশে করোনাভাইরাসে এক দিনে ১০১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এটি এখন পর্যন্ত এক দিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড। এর আগে পহেলা বৈশাখের দিন ৯৬ জনের মৃত্যু হয়। পরদিন ৯৪ জনের মৃত্যুর তথ্য জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে চার হাজার ৪১৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় (বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে শুক্রবার সকাল ৮টা পর্যন্ত) নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১৮ হাজার ৯০৬ জনের। নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় রোগী শনাক্তের হার ২৩ দশমিক ৩৬ শতাংশ।

১১০ কিলোমিটার রিকশা চালিয়ে সন্তানকে নিয়ে হাসপাতালে বাবা

১৮ এপ্রিল ২০২১,যুগান্তর অনলাইন

সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউনের কারণে আন্তঃজেলায় যাত্রীবাহী পরিবহন বন্ধ, তার ওপর পকেটে নেই টাকা যে অসুস্থ সন্তানকে অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে রংপুরে আনবেন। তাই অ্যাম্বুলেন্স ভাড়ার টাকা না থাকায় ৯ ঘণ্টা রিকশা চালিয়ে ঠাকুরগাঁও থেকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অসুস্থ সন্তানকে নিয়ে যান তারেক ইসলাম নামে এক অসহায় বাবা।

শনিবার সকাল ৬টার দিকে বাসা থেকে বের হয়ে ১১০ কিলোমিটারেরও বেশি পথ পাড়ি দিয়ে বিকাল সোয়া ৩টার দিকে রংপুরে পৌঁছান তিনি। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে বারবার হু হু করে কাঁদতে থাকেন বাবা তারেক।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার দক্ষিণ সালন্দর গ্রামের রামবাবুর গোডাউন এলাকার আনোয়ার হোসেনের বড় ছেলে তারেক ইসলাম। তিনি ১২ বছর বয়সেই রিকশা প্যাডেল ঘুরিয়ে বাবার সংসারের বোঝা সামলানোর যুদ্ধ শুরু করেন। কিন্তু করোনার মহামারি শুরুর পর থেকে তার বাড়তি আয়ের পথ বন্ধ হয়ে যায়।

বর্তমানে লকডাউন পরিস্থিতিতে ঠিকমতো রিকশা চালাতে না পেরে অসহনীয় কষ্ট নেমে এসেছে তার পরিবারে। বর্তমানে শিশুটি রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু বিভাগে (১৮নং ওয়ার্ড) চিকিৎসাধীন।… …

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১১২ জনের মৃত্যু

১৯ এপ্রিল ২০২১, সমকাল অনলাইন

করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে রেকর্ড ১১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এটিই এখন পর্যন্ত দেশে একদিনে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু। এ নিয়ে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১০ হাজার ৪৯৭ জনে।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৪ হাজার ২৭১ জনের। মোট শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ লাখ ২৩ হাজার ২২১ জন।

করোনার মধ্যে ডায়রিয়া, ২০ মৃত্যু

২১ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ৫০ বেডের। এর মধ্যে ডায়রিয়া ওয়ার্ডের বেড ১৫টি। তবে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে সেখানে ২৬৫ জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগী চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন ৮৩ জন। হাসপাতালে আইভি স্যালাইনের তীব্র সংকট রয়েছে। মির্জাগঞ্জে গত ১২ দিনে ১২ জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

শুধু মির্জাগঞ্জ নয়, গোটা বরিশাল বিভাগে করোনার সংক্রমণের মধ্যে ব্যাপক হারে ছড়াচ্ছে ডায়রিয়া। গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ৫৮০ জন। সেই হিসাবে প্রতি ঘণ্টায় আক্রান্ত হচ্ছেন ৬৫ জন। দুই সপ্তাহে বিভাগে ডায়রিয়ায় মারা গেছেন ২০ জন।… ….

চাহিদা দ্বিগুণ, চ্যালেঞ্জে অক্সিজেন সরবরাহ

২১ এপ্রিল ২১, ২০২১ , ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

করোনা সংক্রমণ দ্রুত বাড়তে থাকায় সরকারি হাসপাতালগুলোতে গত কয়েক সপ্তাহে অক্সিজেনের চাহিদা বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে। জীবন রক্ষাকারী এই গ্যাসের সরবরাহ নিশ্চিত করা হয়ে দাঁড়িয়েছে নতুন চ্যালেঞ্জ।

অক্সিজেনের ঊর্ধ্বমুখী চাহিদার কারণে বেশিরভাগ সরবরাহকারী ইতোমধ্যে শিল্প কারখানায় অক্সিজেন সরবরাহ করা বন্ধ করে দিয়েছে। উৎপাদিত অক্সিজেনের সবটুকুই করোনা রোগীদের চিকিৎসায় নিয়োজিত হাসপাতালগুলোতে দিয়ে দিচ্ছে তারা।

হাসপাতাল সূত্র বলছে, গত বছরের তুলনায় এ বছর করোনা সংক্রমণ অনেক বেশি বেড়ে যাওয়ায় এবং নতুন স্ট্রেইনগুলো অতি মাত্রায় সংক্রামক হওয়ায় রোগীদের ফুসফুস মারাত্মকভাবে আক্রান্ত হচ্ছে। অনেকেরই তীব্র শ্বাসকষ্টের সমস্যা দেখা দিচ্ছে। ফলে বেশি সংখ্যক রোগীকে অক্সিজেন দিতে হচ্ছে।

তারা আরও জানান, গুরুতর অসুস্থদের জীবন বাঁচাতে অক্সিজেন সরবরাহ নিরবচ্ছিন্ন রাখা অত্যন্ত জরুরি। বেশিরভাগ রোগীই তীব্র শ্বাসকষ্ট নিয়ে আসছেন এবং তাদের হাই-ফ্লো নজেল ক্যানুলার মাধ্যমে অক্সিজেন দিতে হচ্ছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, সরকারি হাসপাতালগুলোতে অক্সিজেন সরবরাহ নিরবচ্ছিন্ন রাখতে প্রতিদিন প্রায় এক হাজার টন অক্সিজেন প্রয়োজন। এ অক্সিজেনের ৯০ শতাংশই সরবরাহ করে লিন্ডে বাংলাদেশ লিমিটেড নামের একটি বহুজাতিক কোম্পানি। বাকিটা সরবরাহ করে ইসলাম অক্সিজেন লিমিটেড ও স্পেকট্রা অক্সিজেন লিমিটেড।

লিন্ডে বাংলাদেশের মুখপাত্র সাইকা মাজেদ দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘কোভিড হাসপাতালগুলোতে মেডিকেল অক্সিজেনের চাহিদা বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়ে গেছে। এই চাহিদা মেটাতে আমরা এখন শিল্পজাত অক্সিজেনের চেয়ে মেডিকেল অক্সিজেন উৎপাদনকে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি।’

তিনি জানান, লিন্ডে বাংলাদেশ দেশের সবগুলো সরকারি হাসপাতালেই অক্সিজেন সরবরাহ করে। পাশাপাশি নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রগুলোতে (আইসিইউ) নিরবচ্ছিন্ন অক্সিজেন দরকার হয়, এমন কিছু বড় বেসরকারি হাসপাতালেও অক্সিজেন সরবরাহ করে।

লিন্ডে বাংলাদেশের অক্সিজেনের ঘাটতি আছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এক অর্থে, কিছু ঘাটতি তো আমাদের আছেই।’

সাইকা মাজেদ বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ ও চট্টগ্রামে আমাদের দুটি অক্সিজেন প্ল্যান্ট আছে। এগুলো থেকে প্রতিদিন ৯০ টন অক্সিজেন উৎপাদিত হয়। আগে মেডিকেল ও শিল্পজাত অক্সিজেনের অনুপাত ছিল প্রায় ৬০:৪০। শিল্পজাত অক্সিজেনের চাহিদা আগের মতো থাকলেও মেডিকেল অক্সিজেনের চাহিদা ৮০ শতাংশ পর্যন্ত বেড়ে গেছে। ফলে অনুপাত হয়ে গেছে ৮০:২০। এ কারণে আমরা শিল্পজাত অক্সিজেনের উৎপাদন কমিয়ে মেডিকেল অক্সিজেন উৎপাদনকে প্রাধান্য দিচ্ছি।’

ভারতেও লিন্ডে বাংলাদেশের একটা অক্সিজেন প্ল্যান্ট রয়েছে। সেখান থেকে ট্যাংকারে করে অক্সিজেন এনে বাংলাদেশের হাসপাতালগুলোতে সরবরাহ করা হচ্ছে।

সাইকা মাজেদ বলেন, ‘ভারত থেকে আরও ২০ শতাংশ অক্সিজেন আনার চেষ্টা করছি আমরা।’

বিপুল পরিমাণ অভ্যন্তরীণ চাহিদা মেটাতে ২২ এপ্রিল থেকে শিল্পজাত অক্সিজেন সরবরাহে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ভারত।

এ নিষেধাজ্ঞা বাংলাদেশে অক্সিজেন সরবরাহের ওপর কোনো প্রভাব ফেলবে কি না-এ প্রশ্নের জবাবে লিন্ডের মুখপাত্র বলেন, ‘এখন পর্যন্ত কোনো সমস্যার মুখোমুখি হইনি আমরা। যেহেতু ভারতে লিন্ডের একটি অক্সিজেন প্ল্যান্ট আছে, সেহেতু আন্তকোম্পানি হস্তান্তর প্রক্রিয়ায় এখানে অক্সিজেন আনা যায়। যদি ভারত সরকার এটা বন্ধ করে দেয়, তবে এ ব্যাপারে দুই দেশের সরকারের একটা সমঝোতায় আসতে হবে।’

লিন্ডে ছাড়া আরও যেসব কোম্পানি ভারত থেকে অক্সিজেন আনছে, তাদের নতুন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হয়েছে। আগে যতটুকু অক্সিজেন পাওয়া যেত, এখন তার অর্ধেক পাচ্ছে তারা।

ইসলাম অক্সিজেন লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মুস্তাইন বিল্লাহ জানান, আগে তারা প্রতি সপ্তাহে ভারত থেকে ৩০ টন অক্সিজেন আমদানি করতেন। কিন্তু এখন মাত্র ১৫ টন আমদানি করা যাচ্ছে।… ….

আইসিইউ শয্যা দুর্লভ, ভেন্টিলেটর যেন অধরা

২২ এপ্রিল ২২, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) একটি শয্যা পাওয়ার চেষ্টা করাটা যে কতটা বেদনাদায়ক, এই মুহূর্তে শুধু গুরুতর অসুস্থ কোভিড-১৯ রোগীদের পরিবারের সদস্যরাই তা জানেন। সারা শহরজুড়ে আইসিইউ ওয়ার্ডগুলোতে এক বিন্দু জায়গাও খালি পাওয়া যাচ্ছে না। আর গুরুতর রোগীরা অপেক্ষমাণ জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে।

কেউ যদি ইতোমধ্যে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে না থাকে, তাহলে তার জন্যে সরকারি হাস্পাতালে আইসিইউ শয্যা পাওয়া যেন এক অলীক স্বপ্ন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের আইসিইউর বাইরে একাধিক পরিবারের সঙ্গে কথা বলে একটি বিষয় খুব পরিষ্কার হয়েছে যে, একটি আইসিইউ শয্যা খুঁজে পেতে হলে অনেকের দ্বারে দ্বারে ঘুরতে হয়।

কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসকরা বলছেন, বিভিন্ন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ৩০-৩২ জন রোগী হাসপাতালটির ১০ শয্যা বিশিষ্ট আইসিইউতে একটি শয্যা পাওয়ার জন্যে অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় রয়েছেন।

একমাত্র বিকল্প হিসেবে আছে বেসরকারি হাসপাতালগুলো।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ২৯টি বেসরকারি হাসপাতালের ৪৭৬টি আইসিইউ শয্যাকে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসার জন্যে তালিকাভুক্ত করেছে। কিন্তু, প্রকৃতপক্ষে সংখ্যাটি আরও বেশি।

একটি আইসিইউ শয্যা খুঁজে পাওয়ার যে স্বস্তি, তার কোনো কিছুরই তুলনা হয় না।

এক্ষেত্রে হয়তো ধরে নেওয়া যায় যে, রোগীটি শেষ পর্যন্ত নিরাপত্তা খুঁজে পেয়েছেন। কিন্তু, তারপর হয়তো দেখা গেল যে রোগীর পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাচ্ছে এবং তার শরীরে টিউব ও ঘনীভূত অক্সিজেন প্রবেশ করানোর প্রয়োজন হচ্ছে। এ অবস্থায় হঠাৎ রোগীর পরিবার আবিষ্কার করলো যে তাদেরকে দেওয়া আইসিইউ শয্যার সঙ্গে ভেন্টিলেটর সুবিধা নেই।

তখন নতুন আরেকটি শয্যার জন্য আবারও খোঁজাখুঁজি শুরু হয়, শুরু হয় বিভিন্ন হাসপাতালে ফোন করার সেই ক্লান্তিকর অভিজ্ঞতা এবং তাদের প্রায় সবার কাছ থেকে একই উত্তর আসে— ‘কোনো শয্যা কিংবা ভেন্টিলেটর খালি নেই’।… ….

করোনার ৯ হাসপাতালে ৩৭৫ কোটির দুর্নীতি

২১ এপ্রিল, ২০২১, কালের কন্ঠ

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে বিপর্যস্ত দেশের স্বাস্থ্য খাত দুর্নীতি ও অনিয়মের কলঙ্ক থেকে বেরিয়ে আসতে পারছে না, বরং নিত্যনতুন কেলেঙ্কারি প্রকাশ পাচ্ছে। সর্বশেষ ঢাকায় করোনা চিকিৎসায় বিশেষায়িত হিসেবে বিবেচিত ৯টি হাসপাতালে কেনাকাটায় অনিয়মের চিত্র তুলে ধরেছে খোদ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নিরীক্ষা বিভাগ। এই ৯টি হাসপাতালে ৯৫ খাতে কেনাকাটায় ৩৭৫ কোটি টাকার অনিয়ম পাওয়া গেছে। ২০ ধরনের অনিয়ম চিহ্নিত করা হয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে কয়েক গুণ বেশি দামে ওষুধ-সরঞ্জাম কেনা, ৩৫০ টাকার কম্বল দুই হাজার ৪১৮ টাকায় কেনা, ওষুধ-সরঞ্জাম বুঝে না পেয়েই বিল পরিশোধ, ব্যবহারের অযোগ্য পণ্যও কেনা, একই মালিকানার তিন প্রতিষ্ঠানকে দরপত্রে অংশ নেওয়ার জন্য বাছাই করা, কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়া এবং প্রয়োজন ছাড়াও কেনাকাটা করা ইত্যাদি। গত বছরের নভেম্বর মাস থেকে ১১ সদস্যের একটি দল এই নিরীক্ষা কার্যক্রম চালায়।

হাসপাতালগুলো হচ্ছে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, মুগদা জেনারেল হাসপাতাল, ঢাকা ডেন্টাল কলেজ, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী হাসপাতাল, পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠান, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল।… ….

অক্সিজেন সংকটের আশঙ্কা

২২ এপ্রিল ২০২১, যুগান্তর

রাজধানীর মহাখালী করোনা হাসপাতালে এক রোগীকে নিয়ে আসছেন স্বজনরা। বুধবারের ছবি -যুগান্তর

দেশে যেকোনো সময় অক্সিজেনের ভয়াবহ সংকট সৃষ্টি হতে পারে। বন্ধ হয়ে যেতে পারে মেডিকেল গ্রেড অক্সিজেনের মূল জোগানদাতা লিন্ডের দুটি প্ল্যান্ট। পাশাপাশি করোনা পরিস্থিতিতে ভারতে অক্সিজেনের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় দেশটি অক্সিজেন রপ্তানি বন্ধ করে দিতে পারে।

এসব আশঙ্কা বাস্তবে রূপ নিলে চলমান করোনা সংক্রমণে প্রতিদিন যে পরিমাণ অক্সিজেনের প্রয়োজন তার চার ভাগের এক ভাগও সরবরাহ করা সম্ভব হবে না। ভয়াবহ সমস্যায় পড়তে পারেন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কোভিড রোগীরা। সম্প্রতি অক্সিজেন সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, দেশে বর্তমানে অক্সিজেনের চাহিদা ১৫০ টন। এর মধ্যে লিন্ডে ও স্পেক্টা সরবরাহ করছে যথাক্রমে ৮০ টন এবং স্পেক্ট্রা ৩৮ টন। সম মিলিয়ে ১১৮ টন। কিন্তু লিন্ডের দুটি ইউনিট যেকোনো সময় বন্ধ হয়ে যেতে পারে। সেজন্য অধিদপ্তর ৩টি নতুন উৎসের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। এসব উৎস থেকে পাওয়া যাবে মোট ৭৫ টন। তবে বর্তমানে এই তিনটি প্রতিষ্ঠান মাত্র ৩৫ টন অক্সিজেন দিতে পারবে বলে জানিয়েছে। এর মধ্যে আবুল খায়ের স্টিল মেল্টিং লি. দৈনিক ৭ টন, ইসলাম অক্সিজেন ২০ টন এবং এ কে অক্সিজেন লি. ৮ টন সরবরাহ করতে পারবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কোভিড পরিস্থিতির আগে দেশে দৈনিক ১০০ টন মেডিকেল গ্রেড অক্সিজেনের চাহিদা ছিল। কোভিড রোগীদের সংখ্যা বাড়ায় হাইফ্লো নেজাল ক্যানুলা, ভেন্টিলেটর ও আইসিইউর চাহিদা অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ায় অক্সিজেনের চাহিদা বাড়ছে, যা বর্তমানে ১৫০ টনে পৌঁছেছে। এই চাহিদা আরও বাড়তে পারে। সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে পরিচালক হাসপাতাল, লাইন ডিরেক্টর হাসপাতাল ও একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তার সঙ্গে অক্সিজেন সরবরাহকারী কোম্পানিগুলোর প্রতিনিধিরা আলোচনা করেন। সেখানে তারা তাদের সামগ্রিক অবস্থা তুলে ধরেন।

সেই সভায় জানানো হয়, লিন্ডে বাংলাদেশ দেশের সব সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয় অক্সিজেনের বড় অংশ সরবরাহ করে থাকে। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জে অবস্থিত প্ল্যান্ট থেকে ৬০ টন এবং চট্টগ্রামে অবস্থিত প্ল্যান্ট থেকে ২০ টন অক্সিজেন উৎপাদন করে। ২০২০-এর ১১ ডিসেম্বর লিন্ডের নারায়ণগঞ্জে অবস্থিত প্ল্যান্টের কম্প্রেসারের মোটর পুড়ে যায়। ফলে অক্সিজেন উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়। বর্তমানে এই কারখানা চালু আছে। অন্যদিকে চট্টগ্রামের প্ল্যান্ট যেকোনো সময় বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলে তারা জানিয়েছে। গত ৩ থেকে ১২ ডিসেম্বর পর্যন্ত এই প্ল্যান্ট বন্ধ ছিল।

অন্যদিকে স্পেক্ট্রা অক্সিজেন লি. প্রতিদিন ৩৮ টন অক্সিজেন সরবরাহ করছে। তারা স্থানীয়ভাবে ২০ টন এবং ভারত থেকে ১৮ টন আমদানি করছে। সেখানে আরও বলা হয়, ভারত থেকে লিকুইড অক্সিজেন আনা সময়সাপেক্ষ হওয়ায় এবং সাপ্তাহিক ছুটির দিনে পরিবহণ বন্ধ থাকায় অক্সিজেনের সংকট তৈরি হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এ ছাড়া লিন্ডের দুটি প্ল্যান্টই যেকোনো মুহূর্তে বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

এ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম যুগান্তরকে বলেন, অক্সিজেনের চাহিদা নিশ্চিত করতে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। এখন পর্যন্ত চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে। আশা করছি, কোনো বড় ধরনের সংকট হবে না।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ) ডা. ফরিদ হোসেন মিঞা যুগান্তরকে বলেন, দেশের বর্তমান অক্সিজেন চাহিদা মেটাতে স্থানীয়ভাবে দুটি কোম্পানি উৎপাদন করছে। পাশাপাশি ভারত থেকে তরলীকৃত অক্সিজেন আমদানি করা হচ্ছে। কিন্তু ভারতে অক্সিজেনের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় রপ্তানি বন্ধ হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

তিনি বলেন, ভারত যদি অক্সিজেন রপ্তানি বন্ধ করে দেয়, তাহলে আমাদের হাসপাতালগুলোয় অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা দেবে। সেই ঘটতি পূরণে আমরা তিনটি অক্সিজেন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আলোচনা করেছি। কিন্তু তাদের তরল অক্সিজেন উৎপাদনের সক্ষমতা অনেক কম, যা দিয়ে ঘটতি পূরণ করা সম্ভব হবে না। সেরকম পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে কী করবেন-জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রাপ্ত অক্সিজেনের সুসম বণ্টন নিশ্চিত করা হবে।… ….

আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি

চাঁদাবাজির অভিযোগে গ্রেপ্তার ৬ পুলিশ সদস্য কারাগারে

৯ ফেব্রুয়ারি, দেশ রুপান্তর

চট্টগ্রামের আনোয়ারা থানা এলাকায় চাঁদাবাজি করার অভিযোগে গ্রেপ্তার নগর পুলিশ কমিশনারের দেহরক্ষীসহ ছয় পুলিশ সদস্যকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। গত রবিবার চট্টগ্রামের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শিপলু কুমার দে এ আদেশ দেন। ১ লাখ ৮০ হাজার ৫০০ টাকা চাঁদা আদায়ের অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে মামলাটি করেন আনোয়ারা থানার পূর্ব বৈরাগ গ্রামের বাসিন্দা আবদুল মান্নান।

অভিযুক্ত ছয় পুলিশ সদস্য হলেন নগর পুলিশ কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীরের দেহরক্ষী কনস্টেবল মোরশেদ বিল্লাহ, নগর পুলিশের উপকমিশনার গোয়েন্দা (পশ্চিম) মনজুর মোরশেদের দেহরক্ষী কনস্টেবল মো. মাসুদ, নগরের দামপাড়া রিজার্ভ ফোর্স অফিসে কর্মরত কনস্টেবল শাকিল খান ও এস্কান্দর হোসেন, নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার কর্ণফুলী কার্যালয়ের কম্পিউটার অপারেটর কনস্টেবল মনিরুল ইসলাম ও নগর গোয়েন্দা পুলিশ (উত্তর) কর্মরত কনস্টেবল আবদুল নবী।

গ্রেপ্তারের ৫ ঘণ্টার মধ্যে রন হক সিকদারের জামিন

১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

হত্যাচেষ্টার মামলায় গ্রেপ্তার সিকদার গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রন হক সিকদারের জামিন মঞ্জুর করেছেন আদালত। আজ শুক্রবার দুপুর সোয়া ৩টার দিকে ঢাকা মহানগর হাকিম মো. আশেক ইমাম এ রায় ঘোষণা করেন।

গ্রেপ্তারের প্রায় পাঁচ ঘণ্টার মধ্যেই জামিন পেলেন রন হক সিকদার। রায়ে মো. আশেক ইমাম বলেন, মানবিক দিক বিবেচনা করে আগামী ১০ মার্চ পর্যন্ত তাকে জামিন দেওয়া হলো।

হারিছ, আনিসের সাজাও মাফ করেছে সরকার

১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

বহুল আলোচিত দুই সহোদর হারিছ আহমেদ ও আনিস আহমেদের সাজা মওকুফ করেছে সরকার। হারিছ দুটি এবং আনিস একটি খুনের মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ছিলেন। ২০১৯ সালের ২৮ মার্চ তাঁদের সাজা মওকুফের প্রজ্ঞাপন জারি করেছিল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

সম্প্রতি কাতারভিত্তিক টেলিভিশন চ্যানেল আল–জাজিরায় প্রচারিত অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন তথ্যচিত্রে এই দুই ভাইকে পলাতক আসামি হিসেবে উল্লেখ করা হয়। বাংলাদেশেও গতকাল পর্যন্ত সবাই জানত তাঁরা সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি। তবে প্রথম আলোর অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে সম্পূর্ণ ভিন্ন তথ্য।

জার্মানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক সম্পর্কবিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভীকে তাদের টক শো কনফ্লিক্ট জোনে আমন্ত্রণ জানায়। সেখানে এই দুই পলাতক সহোদরের বাংলাদেশে প্রকাশ্য অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণসহ নানা বিষয় উঠে আসে। 

ব্যবসায়ী মোস্তাফিজ হত্যা মামলায় হারিছ আহমেদ ও আনিস আহমেদের যাবজ্জীবন সাজা হয়। মৃত্যুদণ্ড হয় জোসেফের।

রাজনৈতিক কর্মী মোরশেদ হত্যা মামলায়ও হারিছের যাবজ্জীবন সাজা হয়। মৃত্যুদণ্ড হয় জোসেফের। আনিস এই মামলায় আসামি ছিলেন না।

হারিছ আহমেদ ও আনিস আহমেদ সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের ভাই। তাঁদের আরেক ভাই তোফায়েল আহমেদ ওরফে জোসেফও খুনের মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত  আসামি ছিলেন। রাষ্ট্রপতির বিশেষ ক্ষমায় কারামুক্ত হন তিনি। জোসেফের সাজা মাফ করার জন্য আবেদন করেছিলেন তাঁর মা রেনুজা বেগম। হারিছ ও আনিসের জন্য কে, কখন, কীভাবে আবেদন করেছেন, সে তথ্য এখনো পরিষ্কার হয়নি। জেনারেল আজিজ আহমেদের আরেক ছোট ভাই টিপু আহমেদ ১৯৯৯ সালে প্রতিপক্ষের হাতে খুন হয়েছিলেন।

জেনারেল আজিজ আহমেদ ২০১৮ সালের ২৫ জুন সেনাপ্রধান নিযুক্ত হন। এর এক মাস আগে ২০১৮ সালের ২৭ মে সাজা মওকুফের পর ছাড়া পান জোসেফ। আর ৯ মাস পর হারিছ আহমেদ ও আনিস আহমেদের সাজা মওকুফের প্রজ্ঞাপন জারি হয়।

 হারিছ আহমেদ ও আনিস আহমেদের যাবজ্জীবন সাজা মাফ করা হয়েছে ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারার ক্ষমতাবলে। ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১(১) উপধারায় বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি কোনো অপরাধের জন্য দণ্ডিত হলে সরকার যেকোনো সময় বিনা শর্তে বা দণ্ডিত ব্যক্তি যে শর্ত মেনে নেয়, সেই শর্তে তার দণ্ডের কার্যকারিতা স্থগিত বা সম্পূর্ণ দণ্ড বা দণ্ডের অংশবিশেষ মওকুফ করতে পারে।

টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ৩ রোহিঙ্গা নিহত

২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, সমকাল

কক্সবাজারের টেকনাফে রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন পাহাড়ে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিনজন নিহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় টেকনাফের নয়াপাড়া মৌচনি রোহিঙ্গা শিবিরের পশ্চিমে পাহাড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ব্যক্তি সেই ট্রাকচালক

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

গত শুক্রবার ঢাকার কেরানীগঞ্জে র‌্যাব–১০–এর সঙ্গে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ব্যক্তি পেশায় ট্রাকচালক। তাঁর নাম শহীদুল ইসলাম শফিক। ১৪ ফেব্রুয়ারি ময়মনসিংহের ভালুকায় যে ট্রাকের চাপায় র‌্যাব সদস্য মো ইদ্রিস নিহত হন, সেই ট্রাক তিনি চালাচ্ছিলেন বলে নিশ্চিত করেছে র‌্যাব।

ছাত্রদল নেতার তিন ভাইকে তুলে নেয়ার অভিযোগ

২ মার্চ ২, মানবজমিন

সাভার পৌর ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক সজিব রায়হানের তিন ভাই কে সাদা পোশাকে আইনশৃংখলারক্ষাকারী বাহিনী কর্তৃক উঠিয়ে নেয়ার অভিযোগ করেছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল। তিনি বলেন, সোমবার মধ্য রাতে সাদা পোশাকে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী সজীবের বাসায় তল্লাশি চালায়। এ সময় সজীবকে না পেয়ে তার তিন ভাইকে তুলে নিয়ে গেছে তারা। এখন পর্যন্ত সজীবের তিন ভাইয়ের কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। উল্লেখ্য, রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ছাত্রদলের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ৪৭ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত ২৫০ জনের নামে মামলা দায়ের করে শাহবাগ থানা পুলিশ। এ মামলায় সাভার পৌর ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক সজীবকে আসামী করা হয়েছে।

কারাগারে শক ও ইনজেকশনে বন্দিকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ

১ মার্চ, ২০২১, ডিবিসি নিউজ

চট্টগ্রাম কারাগারে বন্দি এক ব্যক্তিকে বৈদ্যুতিক শক ও বিষাক্ত ইনজেকশন দিয়ে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে জেল সুপার, জেলার ও কারা হাসপাতালের সার্জনসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে ভুক্তভোগীর স্ত্রী।

সোমবার (১ মার্চ) মহানগর হাকিম ২ এর বিচারক হোসাইন মো: রেজার আদালতে তিনি মামলাটি দায়ের করেন ভুক্তভোগীর স্ত্রী ঝর্ণা রাণী দেবনাথ। আদালত মামলা আমলে নিয়ে পরবর্তী আদেশের জন্য রেখেছেন।

ছাত্রদলের ১৩ নেতা–কর্মী রিমান্ডে

০১ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সংঘর্ষের ঘটনায় গ্রেপ্তার ছাত্রদলের ১৩ জন নেতা–কর্মীকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছেন আদালত। পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুজ্জামান নূর আজ সোমবার এ আদেশ দেন।

আদালত–সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, পুলিশ ১৩ জন আসামিকে আদালতে হাজির করে ১০ দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করে। উভয় পক্ষের শুনানি নিয়ে আদালত ১২ জনকে পাঁচ দিন এবং একজনকে দুদিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দেন।

রিমান্ড পাওয়া ১৩ জন আসামি হলেন আহসান হাবিব ভূঁইয়া, কবির হোসেন, মঞ্জুরুল আলম, মনোয়ার ইসলাম, আরিফুল হক, আনিসুর রহমান, আতাউর রহমান, মাসুদ রানা, আতিফ মোরশেদ, রমজান আহমেদ, শফিকুল ইসলাম, মো. শাহিরাজ ও আবু হায়াত জুলফিকার।

টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২

১০ মার্চ, ২০২১, দেশ রুপান্তর

কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যদের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে দুই ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার ভোরে উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের আলুগোলার মৎস্য খামার এলাকায় বন্দুকযুদ্ধের এ ঘটনা ঘটে।

নিহতদের নাম-পরিচয় বলতে পারেনি বিজিবি। তবে সংস্থাটির ধারণা, নিহতরা ইয়াবা কারবারের সঙ্গে জড়িত এবং মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নাগরিক, যাদের বয়স ২০ থেকে ৩৫ বছর হতে পারে।

হত্যাচেষ্টা মামলায় রন হক সিকদারের জামিনের মেয়াদ বাড়ল

১০ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

রাজধানীর গুলশান থানায় হত্যাচেষ্টা মামলায় সিকদার গ্রুপ অব কোম্পানিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রন হক সিকদারের জামিনের মেয়াদ ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

রন হক সিকদারের জামিনের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন আজ বুধবার মঞ্জুর করেছেন আদালত। ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট রাজেশ চৌধুরী এ আবেদন মঞ্জুর করেন।

৯৯৯-এ সাহায্য চাওয়াই কাল হলো তাঁর

১৩ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯-এ ফোন করে পুলিশের সহযোগিতা চেয়েছিলেন তিনি। সাহায্যের বদলে পুলিশের এক উপপরিদর্শক (এসআই) সন্ত্রাসীদের কাছে তথ্য জানিয়ে দেন। পরবর্তী সময়ে ক্ষিপ্ত হয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে সাহায্য চাওয়া যুবককে কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই যুবকের মাথা ও হাতে আঘাত লেগেছে।

গতকাল শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে ভেড়ামারা উপজেলার জুনিয়াদাহ এলাকার ফয়জুল্লাপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগী যুবকের নাম আসাদুল হক (২৮)। তিনি ওই এলাকার মৃত আবু বক্করের ছেলে। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে আজ শনিবার দুপুরে তিনি বাড়ি ফিরেছেন। এ ব্যাপারে ওই এসআইসহ সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন তিনি।

মেয়র তাপসের বহরের সঙ্গে ফেরিতে ওঠায় দুজনকে বেদম পিটুনি

১৪ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসের বহরের জন্য নির্ধারিত ফেরিতে ওঠায় ব্যক্তিগত গাড়ির দুই যাত্রীকে বেদম পেটানো হয়েছে। মেয়র তাপসের প্রটোকলে থাকা ব্যক্তিরা মারধর করেন বলে অভিযোগ করেছেন ওই দুই ভুক্তভোগী।

 গতকাল শনিবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে মাদারীপুরের বাংলাবাজার ফেরিঘাটে এ ঘটনা ঘটে। মারধরের শিকার দুজন বরিশাল থেকে নিজেদের গাড়িতে ঢাকায় ফিরছিলেন। আর সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তাদের নিয়ে মেয়র তাপসের গাড়িবহর গোপালগঞ্জ থেকে ঢাকায় ফিরছিল।

সুনামগঞ্জে হিন্দু গ্রামে হেফাজত ইসলাম সমর্থকদের হামলা, ভাংচুর, লুটপাট

১৭ মার্চ ২০২১, বিবিসি বাংলা

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার একটি হিন্দু অধ্যুষিত গ্রামে হামলা ভাংচুর ও লুটপাট চালিয়েছে কয়েক হাজার মানুষ।

সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন বিবিসিকে বলেন, হেফাজতে ইসলামের একজন নেতা মামুনুল হককে নিয়ে এক হিন্দু ব্যক্তির স্ট্যাটাস দেয়ার জের ধরে কয়েক হাজার মানুষ আজ সকালে নোয়াগাঁও গ্রামে হামলা চালায়।

এসময় তারা অন্তত ৮৮টি বাড়িঘর ও সাত-আটটি পারিবারিক মন্দিরে ভাংচুর করে এবং লুটতরাজ চালায়।

দু’মাস আগেই হিন্দুদের হুমকি দেয় মামুনুলের অনুসারী স্বাধীন মেম্বার

১৮ মার্চ, ২০২১, কালের কন্ঠ

সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার একটি হিন্দু অধ্যুষিত গ্রামে হামলা ভাংচুর ও লুটপাট চালিয়েছে কয়েক হাজার মানুষ। এ হামলা পূর্বপরিকল্পিত বলে কালের কণ্ঠের অনুসন্ধানে উঠে এসেছে। পূর্ব শত্রুতার জেরেই হেফাজত নেতা মামুনুল হকের অনুসারী নাচনি চণ্ডিপুর গ্রামের ইউপি সদস্য স্বাধীন মিয়া সাম্প্রদায়িক উস্কানী দিয়ে হিন্দু অধ্যুষিত নোওয়াগাওয়ে এসে হামলা ও লুটপাট করেছে বলে সরেজমিন অনুসন্ধানে জানা গেছে।

শাল্লায় তাণ্ডবের মূলহোতা যুবলীগ নেতা স্বাধীন মেম্বার গ্রেফতার

২০ মার্চ ২০২১, বাংলা ট্রিবিউন

সুনামগঞ্জের শাল্লার নোয়াগাঁওয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনায় ইউপি সদস্য ও যুবলীগ নেতা শহীদুল ইসলাম স্বাধীনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

১৭ মার্চ সুনামগঞ্জের শাল্লার নোয়াগাঁওয়ে হিন্দুদের বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনার পর থেকেই ওঠে আসে স্বাধীন মেম্বারের নাম। হামলার পরদিন স্থানীয় হবিবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়ের করা মামলায়ও স্বাধীন মেম্বারকে আসামি করা হয়।

স্বাধীনের বাড়ি শাল্লার পার্শ্ববর্তী দিরাই উপজেলার নাচনি গ্রামে। তিনি স্থানীয় ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ও ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য। হেফাজত ইসলামের নেতা মাওলানা মুহাম্মদ মামুনুল হকের সমালোচনা করে ফেসবুকে এক যুবকের দেওয়া স্ট্যাটাসের জেরে ১৭ মার্চ শাল্লার নোয়াগাঁওয়ে হামলার ঘটনা ঘটে। অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে হাজারও লোক মিছিল নিয়ে এসে এই হামলা চালায়।

প্রয়োজনে বেশি ক্ষমতার অস্ত্র চালানোর নির্দেশ আইজিপির

০৮ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

কিছুদিন ধরে দেশের বিভিন্ন জায়গায় একের পর এক সহিংসতার ঘটনা ঘটছে। জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়, ভূমি অফিস, থানা ও পুলিশ ফাঁড়ি এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ করা হচ্ছে। এমনকি পুলিশের হাত থেকে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে ছিনিয়ে নেওয়ার মতো ঘটনাও ঘটেছে। বিষয়টি নিয়ে পুলিশ প্রশাসন উদ্বিগ্ন।

এসব ঘটনা কঠোরভাবে দমন করতে জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ। তিনি বলেছেন, রাবার বুলেটে সহিংসতা দমানো না গেলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আরও বেশি ক্ষমতাসম্পন্ন অস্ত্র চালাতে হবে। একই সঙ্গে পুলিশকে মনোবল শক্ত রাখারও তাগিদ দেন তিনি।

‘ক্রসফায়ারেও দেওয়া হতে পারে…দুই কোটি টাকা রেডি করেন’

০৯ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

তামজিদ হোসেন (২৭) নামের এক তরুণকে আটক করেছিলেন র‌্যাবের সদস্যরা। এরপর মুঠোফোনে তাঁর বোনকে বলেছিলেন তামজিদকে ‘ক্রসফায়ারেও দেওয়া হতে পারে।’ ‘ভাইকে বাঁচাতে হলে দুই কোটি টাকা রেডি’ করতে বলা হয়। কোনো টাকা নেই জানালে ‘১২ লাখ টাকা নিয়ে যমুনা ফিউচার পার্ক মার্কেটে’ যেতে বলা হয় বোনকে।

অপহরণ করে টাকা আদায়ের অভিযোগে এক নারী ও র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‌্যাব) চার সদস্যকে আজ শুক্রবার গ্রেপ্তার করে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) হাতিরঝিল থানা–পুলিশ। এর মধ্যে সেনাবাহিনীর তিনজন ও বিমানবাহিনীর একজন সদস্য রয়েছেন। ঘটনার সঙ্গে যুক্ত বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) এক সদস্য পলাতক রয়েছেন। অপহরণ মামলায় গ্রেপ্তারকৃত ল্যান্স করপোরাল দুলাল মৃধা, সৈনিক রোকন মিয়া, ল্যান্স করপোরাল মো. রনি ও সৈনিক সাগরকে সংশ্লিষ্ট বাহিনীর কাছে সোপর্দ করা হয়েছে বলে আদালতকে জানিয়েছে হাতিরঝিল থানা-পুলিশ। আর রানু বেগম নামের ওই নারীকে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে হাজির করা হলে আদালত তাঁকে দুদিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছেন।

২০১৩ সালের সহিংসতা

প্রায় ৮ বছর পর তদন্তে ‘গতি’

১৩ এপ্রিল ২০২১,  প্রথম আলো

প্রায় আট বছর আগে হেফাজতে ইসলামের ঢাকা অবরোধকে কেন্দ্র করে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় সারা দেশে মোট ৮৩টি মামলা হয়েছিল। এর মধ্যে ৬১টি মামলার তদন্ত এখনো পুলিশ শেষ করতে পারেনি। গত মাসে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরকে ঘিরে হেফাজতের বিক্ষোভ ও সহিংসতার পর নতুন করে পুরোনো মামলার তদন্ত শেষ করতে উদ্যোগী হয়েছে পুলিশ। আগের সব মামলার তদন্ত দ্রুত শেষ করতে পুলিশ সদর দপ্তর নির্দেশনা দিয়েছে।

পুলিশের উচ্চপর্যায়ের একাধিক কর্মকর্তা প্রথম আলোকে বলেছেন, হেফাজতের একটি অংশের সঙ্গে সরকারের এক ধরনের বোঝাপড়ার কারণে এত দিন মামলাগুলোর তদন্ত চাপা পড়েছিল। এখন পরিস্থিতি ভিন্ন। গত বছরের সেপ্টেম্বরে হেফাজতের আমির শাহ আহমদ শফীর মৃত্যুর পর সংগঠনের নতুন নেতৃত্বের সঙ্গে সরকারের এক ধরনের বোঝাপড়া হলেও তা আগের মতো ছিল না। এর মধ্যে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সফরকে ঘিরে বিক্ষোভ ও সহিংসতার কারণে নতুন টানাপোড়েন তৈরি হয়েছে।… ….

ডাকসুর সাবেক সমাজসেবা সম্পাদক আকতার হোসেন ক্যাম্পাস থেকে গ্রেপ্তার

১৩ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

ডাকসুর সাবেক সমাজসেবা সম্পাদক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্র আকতার হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)। মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে তিনি গ্রেপ্তার হন।

গোয়েন্দা বিভাগের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম প্রথম আলোকে এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ছাত্র, যুব ও শ্রম অধিকার পরিষদের সমন্বয়ক নুরুল হক প্রথম আলোকে বলেন, ক্যাম্পাসে যাঁরা ফেরি করে বিভিন্ন পণ্য বিক্রি করেন, তাঁদের খাবার দেওয়ার একটা কর্মসূচি ছিল মঙ্গলবার। ওই কর্মসূচিতে গিয়েছিলেন আকতার। সেখান থেকে একটি সাদা গাড়িতে তাঁকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।

সহিংসতার পর এবার হেফাজতের বিষয়ে কঠোর সরকার

১৬ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের বর্তমান নেতৃত্ব সরকারের পছন্দের নয়। তাঁদের ওপর সরকারের সেভাবে নিয়ন্ত্রণও ছিল না। তারপরও সরকার হেফাজতকে পুরোপুরি বৈরী অবস্থানে ঠেলে দিতে চায়নি। কিন্তু ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরের বিরুদ্ধে বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে সহিংসতার পর এবার সংগঠনটির ব্যাপারে সরকার কঠোর অবস্থান নিয়েছে। এর মধ্য দিয়ে চাপে ফেলে সংগঠনটির নেতৃত্বে নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠারও লক্ষ্য রয়েছে বলে সরকারি দল আওয়ামী লীগের উচ্চপর্যায়ে কথা বলে জানা গেছে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এরই মধ্যে সহিংসতার ঘটনায় করা মামলায় সারা দেশে তিন শতাধিক হেফাজত নেতা–কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে। কেন্দ্রীয় ও মাঝারি সারির কিছু নেতাকেও আইনের আওতায় এনে শীর্ষ নেতাদের প্রতি একটা বার্তা দেওয়া হবে বলে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে। এরই অংশ হিসেবে হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদীকে গত সোমবার গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট চারজন কেন্দ্রীয় নেতাকে গ্রেপ্তার করা হলো। চট্টগ্রাম অঞ্চলের একজন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকসহ আরও কয়েকজন পরবর্তী লক্ষ্যবস্তু বলে জানা গেছে।

রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসায় হেফাজত নেতাদের বৈঠক

২০ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

অযৌক্তিকভাবে কাউকে যাতে হয়রানি বা গ্রেপ্তার করা না হয়, সে জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে দাবি জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের নেতারা। সোমবার রাতে সংগঠনের একটি প্রতিনিধিদল ধানমন্ডিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের বাসায় যায়। বৈঠকে পুলিশের কয়েকজন কর্মকর্তাও ছিলেন বলে একটি সূত্র জানিয়েছে।

বৈঠক সূত্র জানায়, গত রাত ১০টার দিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসায় প্রবেশের আগে গেটের বাইরে হেফাজত নেতারা বেশ কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ সময় তাঁরা নিজেদের মধ্যে আলাপ করেন। পরে তাঁরা বাসার ভেতরে ঢোকেন। বৈঠকে অংশ নেওয়া হেফাজতে ইসলামের নেতাদের মধ্যে ছিলেন সংগঠনের মহাসচিব মাওলানা নূরুল ইসলাম জিহাদী, মাওলানা মাহফুজুল হক, মাওলানা আতাউল্লাহ হাফেজী প্রমুখ। তাঁদের মধ্যে মাওলানা মাহফুজুল হক গত রোববার গ্রেপ্তার হওয়া হেফাজতের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের ভাই।… …

গণতন্ত্র ও মতপ্রকাশের অধিকার

গোপন কক্ষে ভোটারের সঙ্গে থাকছেন একজন

২৭ জানুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

চট্টগ্রামের বাকলিয়া টিচার্স ট্রেনিং কলেজ কেন্দ্রে আজ বুধবার সকালে ভোট গ্রহণের সময় বেশ কিছু অনিয়মের ঘটনা ঘটেছে। ইভিএমে ভোট দেওয়ার গোপন কক্ষে প্রত্যেক ভোটারের সঙ্গে একজনকে থাকতে দেখা গেছে। একজন ভোটার জানিয়েছেন, তাঁর ভোট আগেই দেওয়া হয়ে গেছে। এ ছাড়া বিএনপির এক নারী এজেন্ট অভিযোগ করেন, তাঁকে হকিস্টিক দিয়ে মারধর করে কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে।

এই কেন্দ্রেই ভোট দিয়েছেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী শাহাদাত হোসেন। তিনি অভিযোগ করেছেন, সিটির সব ভোটকেন্দ্র থেকে তাঁর এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে।

টিচার্স ট্রেনিং কলেজের প্রশাসনিক ভবনের নিচতলার কেন্দ্রে বিএনপির কোনো এজেন্ট দেখা যায়নি। ইভিএমে ভোট দেওয়ার গোপন কক্ষে প্রত্যেক ভোটারের সঙ্গে একজনকে থাকতে দেখা গেছে। দায়িত্বরত কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ভোটাররা ভোট দিতে পারছেন না। তাই তাঁদের ফিঙ্গারপ্রিন্ট দিতে সহায়তা করা হচ্ছে।

ওই কেন্দ্রের বাইরে জসীমউদ্দিন নামের একজন ভোটার জানান, তিনি ভোট দিতে গিয়ে দেখেছেন, তাঁর ভোট আগেই দেওয়া হয়ে গেছে। এ নিয়ে চিৎকার-চেঁচামেচি করেন তিনি। পুলিশকে তাঁকে বের করে দিতে দেখা যায়।

কেন্দ্রের বাইরে ভিড় ভেতরে ফাঁকা!

২৮ জানুয়ারি, ২০২১, দেশ রুপান্তর

ভোটকেন্দ্রগুলোর বাইরে ভিড়, আর ভেতরে ফাঁকা মোদ্দা কথায় এই ছিল এবারের চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনের ভোটের দিনের মাঠের চিত্র। কেন্দ্র দখল এবং ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) নিয়ন্ত্রণে নেওয়ার মাধ্যমে অনেকটা একতরফা ভোট হয়েছে। গতকাল বুধবার সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত নগরীর অর্ধ-শতাধিক ভোটকেন্দ্র ঘুরে প্রায় সবকটিতেই ভোটগ্রহণের এই চিত্র দেখা গেছে।

গতকাল সকাল ৭টা ৪৫ মিনিটে নগরীর ২২ নম্বর এনায়েত বাজার ওয়ার্ডের এবাদুল্লাহ পণ্ডিত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়, ভেতরে ১১ জন ভোটার নিচে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে অছেন। তখনই দ্বিতীয়তলা থেকে ধানের শীষ প্রতীকের এজেন্টদের বের করে দেন আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থক ও বহিরাগতরা। এরপর সেখানে সুজন ঘোষ নামে এক ভোটার ভোট দিতে গেলে তাকে জোর করেই নৌকা ও ঘুড়ি মার্কায় ভোট দিতে বাধ্য করেন নৌকা প্রতীকের এজেন্টরা।

‘কিসের জন্য ভোট দিবি? তুই কে? আমি জীবন দিয়েছি আ. লীগের জন্য’

২৭ জানুয়ারি, ২০২১, ডেইলিস্টার বাংলা অনলাইন

‘কিসের জন্য ভোট দিবি? ভোট আমার নাগরিক অধিকার। তুই কে? আমি আমার জীবন দিয়েছি আওয়ামী লীগের জন্য।  তুই আমাকে জিজ্ঞেস করবি না? তুই আমাকে চিনিস না আমি এই কেন্দ্রের যুগ্ম আহ্বায়ক।’

বুধবার অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএমে) নিজের ভোট নিজে দিতে না পেরে এভাবেই এক ছাত্রলীগ কর্মীর সাঙ্গে তর্ক করছিলেন বাকলিয়া টিচার্স ট্রেনিং কলেজের আওয়ামী লীগের কেন্দ্র ভোট পরিচালনা কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক মো. জসীম উদ্দিন।

ইভিএমে ভোটেও ১০ ঘণ্টা পর ফল

২৮ জানুয়ারি ২০২১, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

বিএনপির প্রবল আপত্তির মুখে ইভিএমে ভোট গ্রহণের ক্ষেত্রে দ্রুত ফল প্রকাশকে অন্যতম সুবিধা হিসেবে নির্বাচন কমিশন দেখিয়ে এলেও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তা দেখা যায়নি।

বুধবার চট্টগ্রামের এই নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পর রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. হাসানুজ্জামানের পূর্ণাঙ্গ ফলাফল ঘোষণা করতে প্রায় ১০ ঘণ্টা লেগে যায়।

বেলা ৪টায় শেষ হয় ভোটগ্রহণ; আর পূর্ণাঙ্গ ফল ঘোষণা করা হয় মধ্যরাত পেরিয়ে পৌনে ২টায়।

১৯ লাখ ৩৮ হাজার ৭০৬ ভোটারের এই সিটি করপোরেশনে মোট ৭৩৫টি কেন্দ্রের সবক’টিতেই ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ হয়।

প্রতিটি ভোট কক্ষে যে ইভিএম যন্ত্র থাকে, ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সে ফল পাওয়া যায়। ফলে একটি কেন্দ্রে যতটি যন্ত্র থাকে, সেগুলোর ভোট যোগ করলেই কেন্দ্রের ফল আসে। এভাবে প্রতিটি কেন্দ্রের ফল যোগ করার পর আসে পূর্ণাঙ্গ ফল।

ভোট গ্রহণের আগে রিটার্নিং কর্মকর্তা হাসানুজ্জামান বলেছিলেন, ভোটের ফল ঘোষণায় বেশি সময় লাগবে না।

এর আগে বিভিন্ন নির্বাচনে ইভিএম যন্ত্রে গোলযোগ দেখা গেলেও চট্টগ্রামে তেমনটি ঘটেনি। তারপরও ব্যালট পেপারে ভোটের মতোই সময় লাগল ইভিএমের এই ভোটে।

ভোটগ্রহণের পর সাড়ে আট ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও যখন পূর্ণাঙ্গ ফল পাওয়া যাচ্ছিল না, তখন তার কারণ জানতে চেয়েছিলেন সংবাদকর্মীরা।

তার উত্তরে রিটার্নিং কর্মকর্তা হাসানুজ্জামান বলেন, “নির্বাচন নিয়ে আমরা সফল। কিন্তু নির্ভুলভাবে ফল দিতে সময় লাগছে।”

‘নির্ভুল’ প্রক্রিয়া নিয়ে জানতে চাইলে হাসানুজ্জামান ব্যাখ্যা দেন এভাবে- “ইভিএমে যে ফল পাওয়া যাচ্ছে, তা নির্ভুলভাবে দিতে আবারও ম্যানুয়ালি যোগ-বিয়োগ করে কম্পিউটারে দিচ্ছে। তাই সময় বেশি লাগছে।”

ভোটার উপস্থিতি চায়নি আওয়ামী লীগ, ইসি ছিল দর্শকের ভূমিকায়

২৯ জানুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মেয়র প্রার্থীদের পথসভা, গণসংযোগ ও নির্বাচনী কার্যালয়গুলোতে মানুষের কমতি ছিল না। কাউন্সিলর প্রার্থীদের উঠান বৈঠক কিংবা প্রচারের জন্য গলিতে হাঁটার সময়ও সমর্থকদের উপস্থিতি রীতিমতো মিছিলে রূপ নিত। কিন্তু ভোটের দিন ভোটাররা কেন্দ্রমুখী হয়েছেন খুবই কম। ২৭ জানুয়ারি চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে শেষ পর্যন্ত ভোট পড়েছে মাত্র ২২ দশমিক ৫২ শতাংশ।

এর আগে ২০১৫ সালের চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনে ভোট পড়ার হার ছিল ৪৭ দশমিক ৯০ শতাংশ। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আ জ ম নাছিরের কর্মী-সমর্থকদের বিরুদ্ধে কেন্দ্র নিয়ন্ত্রণের অভিযোগ ছিল।

চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নির্বাচনে প্রচুর ভোটারের উপস্থিতি চাননি ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতারা। এ জন্য তাঁরা শুরু থেকে কেন্দ্রে অবস্থান নিয়ে ভোটারের উপস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছেন। অন্যদিকে বিএনপি চেয়েছে কেন্দ্রে প্রচুর ভোটার আসুক। কিন্তু ভোটারদের কেন্দ্রে নিয়ে আসার জন্য যে কৌশল দরকার, তা দেখাতে পারেনি। অন্যদিকে সাধারণ ভোটার এবং নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা বলছেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী নির্বিঘ্নে ভোট দেওয়ার পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারেনি। নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা সীমাবদ্ধ ছিল শুধু বক্তৃতায়।

এসপি গাড়িতে উঠিয়ে ওবায়দুল কাদেরের কাছে নিয়ে যান

০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

মাদারীপুরের কালকিনি পৌরসভার স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মসিউর রহমান ওরফে সবুজ অভিযোগ করেছেন, পুলিশ সুপারের (এসপি) গাড়িতে উঠিয়ে তাঁকে ঢাকায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। নিখোঁজের প্রায় ১১ ঘণ্টা পর আজ রোববার এলাকায় ফিরে তিনি এমন কথা বলেন।

এর আগে গতকাল শনিবার বিকেল পাঁচটার দিকে কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) সরকারি গাড়িতে ওঠার পরই নিখোঁজ হন সবুজ। নিখোঁজের প্রায় ১১ ঘণ্টা পর আজ রোববার ভোররাত পৌনে চারটার দিকে তিনি তাঁর নিজের বাড়িতে ফিরে আসেন।… ….

‘এসপি আপনাকে ঢাকায় কেন নিলেন?’—এমন প্রশ্নের জবাবে সবুজ দাবি করেন, ‘এসপি আমাকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের কাছে নিয়ে যান। সেখানে ওবায়দুল কাদের আমাকে দলীয় সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে দল যাকে প্রার্থী নির্বাচন করেছে (আওয়ামী লীগের প্রার্থী এস এম হানিফ), তাঁর পক্ষে কাজ করার জন্য বলেন। আমাকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর অনুরোধ জানান।’ তাঁর দাবি, গতকাল রাত আটটার দিকে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নির্ধারিত কক্ষে তাঁর সঙ্গে সরাসরি কথা হয়। প্রায় ৩৫ মিনিট তাঁদের মধ্যে কথা হয়।

আগের রাতে ভোটারদের আটকানোর ‘কায়দা’ শেখালেন আ.লীগ নেতা

০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

‘ভোট করার কায়দা আছে, অনেক কায়দা আছে। ভোট আগে থাকতি কইরে ফেলতি হবে। স্যান্টারে (কেন্দ্রে) যায়ে ভোট হবে না।’

এই বক্তব্য দিয়েছেন চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন। নেতা–কর্মীদের তিনি ভোট করার সেই ‘কায়দা’ও শিখিয়ে দিয়েছেন। নেতা–কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেছেন, ‘টুক করে ভোটের আগের রাত্রি গলির মদ্যি বুলে আসতি হবে, তুই বাড়ির মদ্যিতি নড়বিনে। নড়লি তোর খবর আছে, এবং তুই হচ্চে রাজাকার, তুই হচ্চে জামাত।’

১৪ ফেব্রুয়ারি আলমডাঙ্গা পৌরসভা নির্বাচনে দলের মনোনীত মেয়র প্রার্থী হাসান কাদির গণুর সমর্থনে আয়োজিত এক শ্রমিক সমাবেশে দেলোয়ার এই বক্তব্য দেন।

রাউজানে ‘বিনা ভোট’ রীতিতে জনপ্রতিনিধি

১১ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

ভোটের জন্য প্রার্থীর পক্ষে মাইকিং, পোস্টার ছাপানো, লিফলেট বিতরণ, পথসভা বা বাড়ি বাড়ি গিয়ে গণসংযোগ—এসবের দরকার হয় না চট্টগ্রামের রাউজানে। বিরোধী প্রার্থীদের প্রচারে বাধা, হুমকি, সংঘর্ষের মতো ঘটনাও এই উপজেলায় নেই। এর কারণ, সাড়ে ছয় বছর ধরে এখানকার ছয় লাখের বেশি মানুষ ভোট দিয়ে পছন্দের প্রার্থীকে জনপ্রতিনিধি হিসেবে নির্বাচনের সুযোগই পাচ্ছেন না।

উপজেলা পরিষদ, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে ‘বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়’ ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের জয়ী হওয়ার রীতি প্রায় প্রতিষ্ঠিত হতে চলেছে এখানে। রাউজান পৌরসভায় নির্বাচন ২৮ ফেব্রুয়ারি। কিন্তু ভোট গ্রহণের আগেই মেয়র ও সাধারণ ওয়ার্ডের ১২ জন এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ডের ৩ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কাউন্সিলর নির্বাচিত হতে চলেছেন।

ইভিএমে নৌকার বাইরে ভোট দিলে ধরে ফেলা যায়

১২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুর উদ্দিন চৌধুরী ওরফে নয়ন বলেছেন, ‘ইভিএম এমন এক সিস্টেম, নৌকার বাহিরে কেউ ভোট দিলে ধরি হালান যায়। চিটাগাং (চট্টগ্রাম) এক কেন্দ্রে ইভিএমে নৌকা পেয়েছে ২ হাজার ৩০০ ভোট। এক ভোট পান ধানের শীষ। পরের দিন এ ভোট কে দিছে, ওই ওয়ার্ডের নেতারা তারে ধরি হালান। কত নম্বর ভোট নৌকার বাহিরে গেছে, তা ধরি হালা যায়।’

নুর উদ্দিন আরও বলেন, ‘দলের সিদ্ধান্ত, মেয়র পদে ভোট হবে উন্নয়নের জন্য। আর কাউন্সিলর পদে ভোট হবে নিরপেক্ষ। তারের মতো সোজা।’

গত বুধবার বিকেলে লক্ষ্মীপুরের রামগতি পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থীর কর্মিসভায় নুর উদ্দিন এসব কথা বলেন।

‘নৌকায় ভোট না দিলে এলাকা ছাড়ুন’

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

ভোট ঘনিয়ে এলেই কেন্দ্রে না আসতে ভোটারদের ভয় দেখানোর বিস্তর অভিযোগ ওঠে। বিরোধী পক্ষের লোকজনকে এলাকা ছাড়ার হুমকির কৌশলটিও কিছুটা পুরোনো। এই সবই চলত অনেকটা গোপনে। তবে এবার পৌরসভা নির্বাচনে সরকারদলীয় নেতাদের মুখের পর্দা যেন খসে পড়েছে। তাঁরা প্রকাশ্য সভায় হুমকি দিচ্ছেন, নৌকায় ভোট না দিলে এলাকা ছাড়তে বলছেন, প্রকাশ্যে নৌকায় ভোট দেওয়ার কথা বলছেন।

সর্বশেষ ঠাকুরগাঁও পৌরসভায় নির্বাচনী প্রচারণায় প্রকাশ্য হুমকি দিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোচিত হয়েছেন কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম। গত বৃহস্পতিবার শহরের ২ নম্বর ওয়ার্ডে এক নির্বাচনী সভায় মাহমুদা বেগম বলেন, ‘যাঁদের মনে ধানের শীষের সঙ্গে প্রেম আছে, তাঁরা কী করবেন? ১৩ তারিখে ঠাকুরগাঁও ছেড়ে চলে যাবেন। ১৩ তারিখ সন্ধ্যার পরে তাঁদের দেখতে চাই না। তাঁদের ভোটকেন্দ্রে আসার কোনো প্রায়োজন নাই। তাহলে ভোটকেন্দ্রে যাবে শুধু কে? নৌকা, নৌকা আর নৌকা।’

আওয়ামী লীগ নেতার হাতে ইভিএম, নৌকায় ভোট বাধ্যতামূলক!

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, কালের কণ্ঠ

লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে ইভিএম বাইরে রেখে নৌকা প্রতীকে ভোট দিতে বাধ্য করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আজ রবিবার সকালে ৬ নম্বর ওয়ার্ডের আলেকজান্ডার পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটেছে।

সরেজমিনে ওই কেন্দ্রের নারী ও পুরুষ বুথে ৬ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা কামাল হোসেনসহ প্রত্যেকটি বুথে একই রকমভাবে নৌকায় ভোট দিতে বাধ্য করতে দেখা গেছে। সহকারী প্রিসাইডিং অফিসারদের ভাষ্য, তারা দেখেননি। ইভিএম নিয়ে বসে থাকা আওয়ামী লীগ নেতারা নিজেদের নৌকা প্রতীকের এজেন্ট দাবি করেছেন। তবে একটি বুথেই নৌকার তিন থেকে চারজন করে এজেন্ট দেখা গেছে

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার লেখক মুশতাকের মৃত্যু কারাগারে, কিশোরও অসুস্থ

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে কারাবন্দী লেখক মুশতাক আহমেদ (৫৩) রাতে মারা গেছেন। তিনি গাজীপুরের কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কারাগারে ছিলেন।   

কারা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, মুশতাক আহমেদ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে কারাগারের ভেতর হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাঁকে প্রথমে কারা হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে মৃত ঘোষণা করেন।

গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মোহাম্মদ শরীফ জানান, কাশিমপুর কারাগার থেকে ওই বন্দীকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়।

ফেসবুকে রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রের সাক্ষী নিরাপত্তারক্ষী–পিয়ন

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোর, লেখক মুশতাক আহমেদ ও রাষ্ট্রচিন্তার কর্মী দিদারুল ইসলাম ভূঁইয়া ফেসবুক, মেসেঞ্জার, হোয়াটসঅ্যাপসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক কথাবার্তা ও গুজব ছড়িয়েছেন বলে অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে। আর অনলাইনে তাঁদের এসব কর্মকাণ্ডের সাক্ষী করা হয়েছে বাসা, মার্কেটের নিরাপত্তারক্ষী, পিয়ন, আত্মীয়সহ ছয়জন সাধারণ নাগরিককে।

অভিযুক্ত তিন ব্যক্তি কী ধরনের মুঠোফোন ব্যবহার করতেন, কোন কোন নামে তাঁদের ফেসবুক আইডি আছে এবং কোন পেজ থেকে ষড়যন্ত্রমূলক পোস্ট দিয়েছেন বা অনলাইনে নিজেদের মধ্যে কী কথা বলতেন, তা-ও এই সাক্ষীরা জানতেন। গত মাসে আদালতে জমা দেওয়া অভিযোগপত্র পর্যালোচনা করে এ তথ্য জানা গেছে। যদিও এই ছয় সাক্ষীর পাঁচজনই প্রথম আলোকে বলেছেন, এ ধরনের কোনো সাক্ষ্য তাঁরা পুলিশকে দেননি।

গত বছরের মে মাসে কিশোর, মুশতাক ও দিদারুলকে লালমাটিয়া ও কাকরাইল এলাকার নিজ নিজ বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। এরপর তাঁদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা হয়। এর মধ্যে কারাবন্দী মুশতাক গত রাতে মারা গেছেন। দিদারুল জামিনে ও কিশোর কারাগারে আছেন।

ওই মামলায় পুলিশের দাখিল করা অভিযোগপত্র অনুযায়ী, র‌্যাব, পুলিশ ও সিআইডির সদস্য ছাড়াও ছয়জন সাক্ষী হিসেবে জবানবন্দি দেন। তাঁদের তিনজন বাড়ি ও বিপণিবিতানের নিরাপত্তারক্ষী ও একজন পিয়ন, একজনের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি ও একজন চিকিৎসক। কার্টুনিস্ট কিশোর কাকরাইলের ১২২/১ নম্বর বাসায় থাকতেন। সাক্ষী ছয়জনের তিনজন কাকরাইলের এই বাসা ও এর আশপাশে থাকেন। আরও যে তিনজনকে সাক্ষী করা হয়েছে, তাঁদের প্রত্যেকেরই বর্তমান ঠিকানা লালমাটিয়ার ‘পরম্পরায়’ নামের একটি বাড়ি। এখানে থাকেন লেখক মুশতাক আহমেদ।

প্রথম আলো এই ছয় সাক্ষীর পাঁচজনের সঙ্গে কথা বলেছে। এঁদের একজন মো. হাবিবুর রহমান। তিনি কিশোর যে বাসায় থাকতেন, তার পাশের ভবনের পিয়ন। আরেক সাক্ষী মো. সালাউদ্দীন বিশ্বাস ওই ভবনের পাঁচতলায় একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের অফিসে থাকতেন এবং সাক্ষী মো. আবদুল হাকিম পাশের মৌবন মার্কেটের নিরাপত্তারক্ষী।

হাবিবুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ‘ঘটনার (কিশোর আটক হওয়া) অনেক দিন পর পুলিশ এসেছিল। আমার কাছে জানতে চাইল পাশের ভবনে র‍্যাব একটা অভিযান করেছিল, আমি জানি কি না। আমি বললাম, হ্যাঁ, শুনেছি। কী কারণে অভিযান হয়েছে, কিছুই আমি জানি না। আমি কোনো কাগজপত্রেও সই করিনি।’

নিরাপত্তারক্ষী মো. আবদুল হাকিম বলেন, ‘একদিন দুপুরে র‌্যাব-পুলিশ আইসা কইল, একটু আসেন। আপনার একটা সাইন লাগবে। এর অনেক দিন পর মহসীন সর্দার নামে একজন পুলিশ আইসা আমাদের তিনজনকে এক জায়গায় নিয়া গেল। সেই জায়গায় আবার লুঙ্গি পইরা এবং মাস্ক ছাড়া ঢোকা যায় না। এরপর একটা কাগজরে তিনটা ফটোকপি কইরা বলছে সাইন দিতে, আমরা দিলাম।’ তিনি আহমেদ কবীর কিশোরকে চেনেন কি না জানতে চাইলে বলেন, ওই দিনই তিনি কিশোরকে প্রথম দেখেন।

অন্য যে তিনজনকে সাক্ষী করা হয়েছে, তাঁরা লালমাটিয়ার মুশতাকের বাসার নিরাপত্তারক্ষী মো. চান মিয়া (৩৫), মো. জব্বার খান (৬২) ও মুশতাকের আত্মীয় চিকিৎসক রিয়াসাত আলম (৪৭)। এই তিনজনই প্রথম আলোকে বলেছেন, তাঁরা কোনো জবানবন্দি দেননি। যে রাতে মুশতাক আহমেদকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়, সেই রাতে তাঁর মুঠোফোন ও ডিজিটাল ডিভাইস নেওয়া হয়েছিল। র‌্যাবের কথামতো তাঁরা শুধু জব্দতালিকায় সই করেছেন।

মুশতাকের মৃত্যু : মশাল মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল-রাবার বুলেট নিক্ষেপ

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, দেশ রুপান্তর অনলাইন

বৃহস্পতিবার রাতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে কারাবন্দি লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর বিচার চেয়ে টিএসসি থেকে বের হওয়া মশাল মিছিলে লাঠিচার্জ করেছে পুলিশ। পুলিশ এ সময় টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে বলে অভিযোগ প্রগতিশীল ছাত্রসংগঠনগুলোর।

আজ শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে প্রগতিশীল ছাত্রসংগঠনগুলো এ মশাল মিছিল বের করে।

ডিজিটাল দৈত্যের ভয়ে অনেকে সত্য লিখতে ভয় পান

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

কারাবন্দী অবস্থায় লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নিজ নিজ অ্যাকাউন্ট থেকে অনেকেই প্রতিবাদ ও প্রতিক্রিয়া জানিয়ে লিখছেন। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় কারাগারে থাকা অবস্থায় এই লেখকের মৃত্যুর ঘটনাকে হত্যাকাণ্ড বলে অভিযোগ করেছেন অনেকে।

অন্যদিকে একজন লেখকের প্রতিবাদী লেখার কারণে তাঁকে জেলে বন্দী রাখা, মৃত্যুর ঘটনা তথা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের কালো দিক নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য করেছেন কেউ কেউ। তাঁরা এই আইনটি বাতিলের দাবি জানিয়েছেন। এই আইনের কারণে অনেক লেখক আজকাল সত্য লিখতে ভয় পান বলে মন্তব্য করেছেন কেউ কেউ।

এক গণমাধ্যমকর্মী তাঁর ফেসবুক পেজে লিখেছেন, কারাগারে কীভাবে মৃত্যু হলো, সে তদন্তের আগে জরুরি হচ্ছে মুশতাক কীভাবে কারাগারে গেলেন, কার কারণে গেলেন, কার কারণে জামিন পেলেন না, সেটা জানা।

ক্ষুদ্র জাতিসত্তার ছাত্রনেতা অনন্ত ধামাই লিখেছেন, লেখালেখির কারণে মাসের পর মাস কারাভোগ এবং সেখানেই মৃত্যু। অথচ তিনি তো কাউকে খুন করেননি, চুরি করেননি, রাষ্ট্রের কিছু লুটপাট করেননি, দুর্নীতি করেননি। তাঁর অপরাধ, তিনি শুধু লিখেছিলেন।

বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের নেত্রী নাসরিন আক্‌তার তাঁর ফেসবুক স্ট্যাটাসে অভিযোগ করে লিখেছেন, জেলে থাকা অবস্থায় লেখক মুশতাক আহমেদ খুন হয়েছেন।

গণমাধ্যমকর্মী সুমিত্র নাথ লিখেছেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ফেঁসে গিয়ে একজন লোক ‘নিরাপদে’ মরে গেলেন। এক নিরাপত্তা আইনের ফাঁদে কত লোককে এভাবে ফাঁসানো হচ্ছে, তার কোনো ইয়ত্তা নেই।

অনেকেই মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। কেউ বলছেন, এই আইনের কারণে সাধারণ মানুষের বাক্‌স্বাধীনতা বাধাগ্রস্ত করা হচ্ছে। তাই অনেকের দাবি, ডিজিটাল নিরাপত্তা নামক কালো আইন নিপাত যাক। বাক্‌স্বাধীনতা মুক্তি পাক।

মৃত্যু তো মৃত্যুই, এর শোধ কোনো কিছুতেই ফেরত পাওয়ার নয়—এমন মন্তব্য করে তুরস্কে অবস্থানরত বাংলাদেশের শিক্ষার্থী হাফিজ মাহমুদ ফেসবুকে লিখেছেন, যে ভূমিতে স্বাভাবিক মৃত্যুর নিশ্চয়তা নেই, সেখানে সেতু আর রাস্তার উন্নয়ন খাইয়ে পেট ভরে দেয় একদল। কেননা, উন্নয়নের মহাসড়ক দিয়েই তো এসব লাশ পরিবহন করবে।

মুশতাক আহমেদের মৃত্যু ও ঘটনাপ্রবাহ নিয়ে প্রথম আলোর বিভিন্ন প্রতিবেদনে মন্তব্য করেছেন, করছেন অনেকেই। নাদিম মাহমুদ লিখেছেন, এই লাশের দায় কিছুটা মিডিয়ার ওপরও বর্তায়। কারণ, তাঁরা নানাভাবে এই আইনের সমর্থন দিয়েছেন।

সারওয়ার চৌধুরীর মন্তব্য, কেন সবাই মিথ্যা বলে, কারাগারে মুশতাকের মৃত্যু হয়েছে? উনি কারাগারে নিহত হয়েছেন। রাশেদ নামের একজন লিখেছেন, আমার সাহস থাকলে আমিও এই আন্দোলনে যুক্ত হতাম। কিন্তু আমার সে সাহস নেই। আমি একজন গতানুগতিক বাংলাদেশি। রসিদুল্লাহ নামের একজনের মন্তব্য, দেশের বুদ্ধিজীবীরা এই হত্যার দায় এড়াতে পারবেন না। এই সরকার মুক্তিযুদ্ধের সব আদর্শ ধুয়েমুছে ফেলেছে।

ফখরুল ইসলাম মন্তব্য করেছেন, প্রতিবাদ চলুক সারা দেশে। আর কত মুশতাক খুন হবেন? মো. আবদুল মান্নান লিখেছেন, সামান্য কারণে র‍্যাব–পুলিশ-গোয়েন্দা সংস্থার হাতে নাজেহালের সংখ্যা কম নয়। সবটা কাগজেও আসেনি। মানুষকে হয়রানির সংস্থা একটু বেশিই যেন। সবার আবার কাজ দেখানোর প্রবণতা।

মুজিব রহমান বলেন, তাঁকে হত্যার তীব্র নিন্দা জানাই। লেখকদের জীবন, চিন্তাশীল মানুষের জীবন কঠিন করে দিচ্ছে রাষ্ট্র। এই মৃত্যু শেষ নয়, চলমানই থাকবে। সুষ্ঠু ধারার গণতন্ত্র ফিরে না এলে এমন মৃত্যু চলতেই থাকবে। নুরুর রহমান নামে একজন লিখেছেন, গ্রেপ্তার লেখক মুশতাকের মৃত্যু কারাগারে, ডিজিটাল দৈত্যের ভয়ে অনেক লেখক আজকাল সত্য কথা লিখতে ভয় পান।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় গত বছরের ৪ মে গ্রেপ্তারের পর গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে ছিলেন লেখক মুশতাক আহমেদ। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে তিনি মারা যান।

রাতে তুলে নেওয়া এক বাম নেতাকে সকালে গ্রেপ্তার দেখালো পুলিশ

২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

খুলনা নগরীর গোয়ালখালী এলাকা থেকে ডিবি পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়ার পরে বাম সংগঠন শ্রমিক-কৃষক-ছাত্র-জনতা ঐক্য পরিষদের সমন্বয়ক রুহুল আমিনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। আজ শনিবার দুপুরে খুলনা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখার উপকমিশনার বিএম নুরুজ্জামান দ্য ডেইলি স্টারকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্রের স্থিতিশীলতা নষ্ট ও সামাজিক অস্থিরতা তৈরি অভিযোগে রাতেই রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। ডিবি’র এক পরিদর্শক বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেছেন। তাকে আদালতে হাজির করে রিমান্ড আবেদনের প্রক্রিয়া চলছে।’

কেউ অসুস্থ হয়ে মারা গেলে কী করার আছে? : প্রধানমন্ত্রী

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, কালের কণ্ঠ

কারও মৃত্যুকে ঘিরে সরকারবিরোধী অসন্তোষ তৈরির চেষ্টা কাম্য হতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, কারও মৃত্যুই কাম্য নয়। ডিজিটাল বাংলাদেশ যখন গড়েছি, তখন ডিজিটাল বিশ্বে নিরাপত্তা দেওয়াও সরকারের কাজ। কেউ যেন সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদে না জড়াতে পারে, সেজন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা অপরিহার্য।

আজ শনিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বাংলাদেশের উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ নিয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে গণভবন প্রান্ত থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্ত হয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, সমালোচনা যারা করছে, তারা সবকিছু কি অনুধাবন করছে? আজকের এই দিনে আমি অন্য কিছু বলতে চাই না। শুধু এটুকুই বলবো, কারো মৃত্যুই কাম্য নয়। তবে সেটাকে উদ্দেশ্য করে অশান্তিও কাম্য নয়। অসুস্থ হয়ে মারা গেলে কী করার আছে?

রাজধানীতে পুলিশের সঙ্গে ছাত্রদলের নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষ, লাঠিপেটা-কাঁদানে গ্যাস

২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

রাজধানীতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ছাত্রদলের কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে নেতা-কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ চলছে। আজ রোববার বেলা সোয়া ১১টার দিকে এই সংঘর্ষ শুরু হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্য, কর্মসূচি ঘিরে সকাল ১০টার দিক থেকে ছাত্রদল ও বিএনপির নেতা-কর্মীরা প্রেসক্লাব এলাকায় জড়ো হতে থাকেন। বেলা সোয়া ১১টার দিকে তাঁরা রাস্তায় নামেন। তখন তাঁদের বাধা দেয় পুলিশ। একপর্যায়ে পুলিশ লাঠিপেটা শুরু করে। পুলিশের লাঠিপেটায় নেতা-কর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যান। তারপর নেতা-কর্মীরা পুলিশকে লক্ষ করে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকেন। ভাঙচুর করেন আশপাশে। তখন তাঁদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ ফাঁকা গুলি ও কাঁদানে গ্যাসের শেল নিক্ষেপ করে। নেতা-কর্মীদের যাকে সামনে পায়, তাকে লাঠিপেটা করে। চলে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া।

বুথের মধ্যে ‘নৌকার ভূত’

২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

রোববার সকাল থেকে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর পৌরসভায় ভোট চলছে। মধুপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দিতে গিয়েছিলেন জাকির হোসেন। তিনি যখন নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র দেখিয়ে পরিচয় নিশ্চিত করছিলেন, তখনই গোপন ভোট বুথের মধ্যে থাকা লোকটি মেয়র পদে নৌকা মার্কায় বোতাম টিপে দেন। ভোট দিয়ে ফিরে ক্ষুব্ধ জাকির বলেন, তিনি মেয়র পদে ভোট দিতে পারেননি। সে ভোট নৌকার লোকজন টিপে দিয়েছেন। কাউন্সিলর প্রার্থীদের ভোট দিয়েই ফিরতে হয়েছে।

ওই নির্বাচনে ইভিএমে প্রকাশ্যে নৌকা প্রতীকে ভোট দিতে দেখা গেছে। দুপুরের মধ্যে অধিকাংশ কেন্দ্র থেকে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। তবে কাউন্সিলর প্রার্থীদের ভোট ঠিকঠাক দিয়েছেন ভোটাররা। এ জন্য অবশ্য সব কাউন্সিলর প্রার্থীকেই সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হয়েছে।

রায়পুরের শায়েস্তানগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নারী ও পুরুষ, রায়পুর সরকারি ডিগ্রি কলেজসহ আটটি কেন্দ্রে ঘুরে একই চিত্র দেখা গেছে। সব জায়গাতেই ভোট বুথের মধ্যে ঢুকে রয়েছে নৌকার লোকজন। ক্ষুব্ধ এক ভোটার স্বগতোক্তি করে বললেন ‘নৌকার ভূত’।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন লুটেরাদের রক্ষায়: আনু মুহাম্মদ

১ মার্চ ২০২১, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

লুটেরা ও দুর্নীতিবাজদের রক্ষায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ব্যবহার হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বন্দি মুশতাক আহমেদের মৃত্যু এবং তারপর বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে রোববার ঢাকার শাহবাগে এক সমাবেশে এই অভিযোগ করেন তিনি।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতির অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ বলেন, “লুটেরা-দুর্নীতিবাজদের রক্ষা করার জন্য সরকার নানাবিধ আইনি এবং বে-আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছে৷

“ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন না থাকলে এ সরকার নিপীড়কদের থেকে আলাদা হয়ে যাবে৷ তাদের নিরাপত্তার জন্যই এই আইন প্রণয়ন করা হয়েছে।”

রিমান্ড শেষে কারাগারে রুহুল, মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ

০১ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

খুলনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার হওয়া রুহুল আমিনকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আজ সোমবার দুই দিনের রিমান্ড শেষে তাঁকে আদালতের কাছে সোপর্দ করা হলে আদালত কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এদিকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল এবং রুহুল আমিন, কার্টুনিস্ট কিশোর ও সাত ছাত্রনেতার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে খুলনায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে খুলনা প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ শেষে বিক্ষোভ মিছিল করে শ্রমিক-কৃষক-ছাত্র-জনতা ঐক্য পরিষদ। মিছিলটি বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে গিয়ে শেষ হয়। রুহুল আমিন ওই পরিষদের প্রধান সমন্বয়ক ছিলেন। ওই সংগঠনের ব্যানারেই তিনি শ্রমিকদের নিয়ে পাটকল আন্দোলনের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত ছিলেন।

ভোটার আছে, দিবসও আছে, সুষ্ঠু ভোট নেই

০২ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

দেশে নাগরিকদের ভোটার হওয়ার নিশ্চয়তা থাকলেও সব নাগরিক যে তাঁদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারবেন, সে নিশ্চয়তা দিতে পারছে না নির্বাচন কমিশন। আইন অনুযায়ী ভোটের গোপনীয়তাও রক্ষা করতে পারছে না সাংবিধানিক এই প্রতিষ্ঠান। পাঁচ দফায় অনুষ্ঠিত সাম্প্রতিক পৌর নির্বাচনের পরিবেশ ও পরিস্থিতি বিশ্লেষণে এমন চিত্রই প্রকাশ পাচ্ছে। ভোটের গোপনীয়তা রক্ষা করতে না পারা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

এই পরিস্থিতিতে আজ ২ মার্চ, মঙ্গলবার জাতীয় ভোটার দিবস পালন করছে নির্বাচন কমিশন। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, দেশে ভোটার আছে, ভোটার দিবসও আছে; কিন্তু ভোটের সুষ্ঠু পরিবেশটা নেই। সেটা নিশ্চিত করা সরকার ও নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব। 

ভোটার দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য ‘বয়স যদি আঠার হয়, ভোটার হতে দেরি নয়’। মূলত ভোটার হতে এবং ভোটাধিকার প্রয়োগে উৎসাহিত করতে এই দিবস পালনের আয়োজন করা হয়। প্রথমবার ২০১৯ সালে ভোটার দিবসের প্রতিপাদ্য ছিল ‘ভোটার হব, ভোট দেব’। গত বছরের প্রতিপাদ্য ছিল, ‘ভোটার হয়ে ভোট দেব, দেশ গড়ায় অংশ নেব’। এবার তৃতীয়বারের মতো জাতীয় ভোটার দিবস পালন করা হচ্ছে। ভোটের অধিকার নিশ্চিত না করে ভোটার দিবস পালন করাকে দৃষ্টিকটু বলছেন বিশ্লেষকেরা।

বর্তমান নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে গুরুতর অসদাচরণের অভিযোগ এনে দেশের ৪২ জন বিশিষ্ট নাগরিক সম্প্রতি দুই দফা রাষ্ট্রপতিকে চিঠি দিয়েছেন। চিঠিতে বলা হয়েছে, একাদশ সংসদ নির্বাচনের কেন্দ্রভিত্তিক ফলাফলে অনেক অস্বাভাবিকতা ও অসংগতি দেখা গেছে। ২১৩টি কেন্দ্রে শতভাগ ভোট পড়েছে, যা সম্ভব নয়। ৫৯০টি ভোটকেন্দ্রে শতভাগ বৈধ ভোট একটিমাত্র প্রতীকেই পড়েছে। রিটার্নিং কর্মকর্তার সই করা প্রাথমিক ফলাফলের সঙ্গে কেন্দ্রভিত্তিক ফলাফলেও অমিল পাওয়া গেছে। ৩২টি আসনে বৈধ ভোট বেড়েছে। ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ও পেপার ব্যালটে ভোটের হারে ৩০ শতাংশ ব্যবধান ছিল; যা ফলাফলকে গুরুতরভাবে প্রশ্নবিদ্ধ করে।

বস্তুত একাদশ সংসদ নির্বাচনের পর থেকে বিভিন্ন স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ভোটার খরা দেখা দেয়। তবে গত ডিসেম্বর থেকে পাঁচ ধাপে অনুষ্ঠিত পৌরসভার ভোটে কাগজে–কলমে ভোটার উপস্থিতি বেড়েছে। নির্বাচন কমিশনের হিসাব বলছে, পাঁচ ধাপ মিলিয়ে মেয়র পদে ভোট পড়ার হার ৬৪ দশমিক ৩৮ শতাংশ। যদিও কেন্দ্রে কেন্দ্রে নানা অনিয়ম আর সহিংসতা ছিল প্রতিটি ধাপের সঙ্গী। অনেক জায়গায় গোপন বুথে অবস্থান নিয়েছেন ক্ষমতাসীন দলের সমর্থকেরা। কোথাও কোথাও তাঁরাই নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে দিয়েছেন ভোটারের পক্ষে। লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে এক ভোটার বুথের ভেতরের এই অবৈধ অবস্থানকারীদের ‘ভোটের বুথে নৌকার ভূত’ বলে আখ্যা দিয়েছেন। তবে বিভিন্ন জায়গায় এই দলীয় কর্মীরা নিজেদের পরিচয় দিয়েছেন ভোটারের ‘সহযোগী’ বলে।

বিএনপির সমাবেশের আগে এবার রাজশাহীর বাস বন্ধ

১ মার্চ, ২০২১, দেশ রুপান্তর

পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই রাজশাহী থেকে সব রুটের বাস চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। পরিবহন মালিকরা বলছেন, মঙ্গলবার বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশ ঘিরে ‘হামলার আশঙ্কায়’ বাস চলাচল বন্ধ করা হয়েছে।

আকস্মিক বাস বন্ধ করে দেয়ায় যাত্রীরা চরম দুর্ভোগে পড়েছেন।

সোমবার সকাল থেকে রাজশাহী থেকে বিভিন্ন রুটে বাস চলাচল করছিল সীমিত আকারে। তবে দুপুর ১২টা থেকে পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। রাজশাহী থেকে ঢাকা রুটে দু’একটি বাস চলাচল চালু রাখা হয়েছে। আন্তজেলা ও উপজেলা পর্যায়ের বাস পুরোপুরি বন্ধ।

এর আগে খুলনায় বিএনপির সমাবেশের আগে সব রুটের বাস চলাচল বন্ধ রাখা হয়।

জামিন পেলেন কার্টুনিস্ট কিশোর

৩ মার্চ, ২০২১, দেশ রুপান্তর

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বন্দি কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোর জামিন পেয়েছেন।

বিচারপতি এম এনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ বুধবার সকালে ছয় মাসের জন্যে কিশোরের জামিন মঞ্জুর করে আদেশ দেন।

এর আগে ছয় বার কিশোরের জামিন আবেদন আদালতে নাকচ হয়। এরপর সবশেষ গত ১ মার্চ কিশোরের জামিন আবেদনের আদেশের তারিখ ৩ মার্চ নির্ধারণ করেন আদালত।

অজ্ঞাত স্থানে ৬৯ ঘণ্টা রেখে কার্টুন নিয়ে প্রশ্ন, মারধর

০৫ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

২ মে ২০২০। কলবেলের শব্দে বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে ঘুম ভাঙে কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোরের। দরজা খুলতেই অপরিচিত একজন জানতে চাইলেন, ‘দরজা খোলেন না কেন? আর হ্যাঁ, লুঙ্গিটা বদলে প্যান্ট পরে নেন, ভালো একটা শার্ট। যেতে হবে।’ ঠাট্টাচ্ছলে কার্টুনিস্ট কিশোর তখন জানতে চান, ‘আপনারা কারা? আমাকে কি কোনো শুটিংয়ের জন্য নেওয়া হচ্ছে?’

কাকরাইলের বাসা থেকে ওই দিন কারা তাঁকে তুলে নিয়ে গিয়েছিলেন, তা এখনো জানেন না কিশোর। অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের কাছ থেকে ৫ মে র‌্যাব হেফাজতে গিয়ে তিনি জানতে পারেন, তাঁর বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। তিনি এখন গ্রেপ্তার। মামলার এজাহার অনুযায়ী, কাকরাইলের বাসা থেকে ৫ মে বেলা আড়াইটায় র‌্যাব–৩ তাঁকে গ্রেপ্তার করে। মাঝের ৬৯ ঘণ্টা কোথায় ছিলেন, সেটা জানেন না কিশোর। তাঁর অভিযোগ, ওই সময়ে কয়েক দফায় তাঁর ওপর চলে নির্যাতন।

জনগণ সবই জানে, সবকিছু দেখছে

০৫ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

অর্থনীতিবিদ আনু মুহাম্মদ বলেছেন, ত্বকী হত্যার প্রতিবাদ ও বিচারের দাবিতে নারায়ণগঞ্জের মানুষ যে প্রতিবাদ জারি রেখেছেন, কাজ করে যাচ্ছে, তার সুদূরপ্রসারী তাৎপর্য আছে। এটা শুধু ত্বকী হত্যার বিচার করবে না, সারা বাংলাদেশে সব খুন, গুম, নির্যাতনের বিরুদ্ধে মানুষের যে আন্দোলন, সেটার প্রতীক হয়ে থাকবে, প্রেরণা হয়ে থাকবে।

আজ শুক্রবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ নগরের ডিআইটি বাণিজ্যিক এলাকায় আলী আহাম্মদ চুনকা নগর পাঠাগার মিলনায়তনের সামনে বঙ্গবন্ধু সড়কে তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী হত্যা ও বিচারহীনতার আট বছর উপলক্ষে সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চ আয়োজিত সমাবেশে বক্তব্যকালে তিনি এসব কথা বলেন।

সরকারের উদ্দেশে আনু মুহাম্মদ বলেন, ‘আপনাদের নিয়ন্ত্রিত আদালতের চেয়ে জনতার আদালত অনেক বেশি শক্তিশালী। আপনাদের নিয়ন্ত্রিত গোয়েন্দা সংস্থার চাইতে জনগণের নজরদারি অনেক বেশি শক্তিশালী। জনগণ সবই জানে, সবকিছু দেখছে। জনগণ যে রায় দেবে, সেই রায় সরকার ও রাষ্ট্রকে বাস্তবায়ন করতে হবে। সেটা ত্বকী হত্যা, সাগর-রুনি, মুশতাক হত্যার ক্ষেত্রে হবে। বাংলাদেশ এখন লুটেরা দখলদার নির্যাতনকারী, পাচারকারীদের হাতে জিম্মি হয়ে আছে।’

৯ মাসে ১৪৫ মামলায় ২৯১ জন আসামি

৬ মার্চ, ২০২১, দেশ রুপান্তর

২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৯ মাসে সারা দেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ১৪৫টি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় ২৯১ জনকে আসামি করা হয়েছে। এ মামলাগুলোর বেশির ভাগেরই বাদী ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তি ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। ফেইসবুকে সরকার ও সরকারি দলের নেতাদের বিরুদ্ধে ‘সমালোচনামূলক’ লেখালেখির কারণে সবচেয়ে বেশি মামলা হয়েছে। গত বছর নভেম্বরে প্রকাশিত যুক্তরাজ্যভিত্তিক আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা আর্টিকেল-১৯-এর এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

দেশের সুনাম ক্ষুণ্ন করলে ডিজিটাল আইনে জামিন নয়: প্রধান বিচারপতি

০৭ মার্চ ২০২১, সমকাল

দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করলে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় জামিন বিবেচনা করা হবে না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুসহ দেশের রাজনৈতিক নেতাদের নামে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কটূক্তি করায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা এক মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের ওপর (ভার্চুয়াল) শুনানিতে রোববার এ মন্তব্য করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রীসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি সম্পর্কে কটাক্ষ ও নেতিবাচক বিভিন্ন পোষ্ট ও ছবি বিকৃত করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট ও শেয়ার করার অভিযোগে গোলাম সারোয়ারের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গত বছরের মার্চ মাসে সিলেট থানায় মামলা হয়। এ মামলায় গত বছরের অক্টোবরে হাইকোর্ট রুল দিয়ে সারোয়ারকে অর্ন্তবর্তীকালীন জামিন দেন। এর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আবেদন করলে গত বছরের ১৮ অক্টোবর আপিল বিভাগের চেম্বার আদালতে হাইকোর্টের দেওয়া আদেশ স্থগিত করেন। এর ধারাবাহিকতায় রোববার আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে আবেদনের ওপর শুনানি হয়। এ সময় গ্রেফতার সিলেটের গোলাম সরোয়ারকে স্বাস্থ্যগত কারণে হাইকোর্টের দেয়া জামিন বহাল রাখেন আপিল বিভাগ।

শুনানিতে সারোয়ারের আইনজীবী মো. আসাদুজ্জামান আদালতকে বলেন, এক বছর ধরে কারাগারে আছেন সারোয়ার। এই মামলায় এখন পর্যন্ত চার্জশিট দেওয়া হয়নি। তার হৃদযন্ত্রে চারটি রিং (স্টেন্ট) পরানো আছে, স্বাস্থ্যগত কারণে জামিন চাওয়া হয়েছে।

আদালত বলেন, এত স্টেন্ট থাকার পরেও আপনি এসব কেন করেন? এ সময় আসাদুজ্জামান বলেন, গত ১৪ মার্চ থেকে কারাগারে আছেন। প্রায় এক বছর ধরে বিনা বিচারে কারাগারে আছেন। হাইকোর্ট মূলত স্বাস্থ্যগত কারণে জামিন দিয়েছেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অশালীন ও কুরুচিপূর্ণ কথা লেখার বিষয়ে সবাইকে সতর্ক করে আইনজীবীদের প্রধান বিচারপতি বলেন, লেখেন, কিন্তু কোনোভাবেই যেনো দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন না হয়। শিক্ষিত মানুষরা কুরুচিপূর্ণ ভাষা কিভাবে লেখেন? তাদের শিক্ষার দাম কী রইলো। তিনি বলেন, দেশের ইমেজ সবার আগে। কারও লেখায় দেশের ইমেজ নষ্ট হলে ভবিষ্যতে আমরা জামিন বিবেচনা করব না।

তিনি বলেন, আমেরিকাতেও তো মানুষ ‘স্যাটায়ার’ করে। কিন্তু আমাদের এখানকার মতো এতো কুরুচিপূর্ণ কথা লেখা না। এসময় আসামি গোলাম সরোয়ারের আইনজীবীকে উদ্দেশ্য করে প্রধান বিচারপতি বলেন, আমরা সতর্ক করে দিচ্ছি, এ রকম হলে আর জামিন হবে না।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে কলেজশিক্ষক ১৮ দিন ধরে কারাগারে

৮ মার্চ ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

আওয়ামী লীগ নেতাকে নিয়ে ‘বিরূপ’ মন্তব্য করার অভিযোগ এনে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা একটি মামলায় ১৮ দিন ধরে কুষ্টিয়া কারাগারে বন্দি রয়েছেন পাবনার পাকশী রেলওয়ে কলেজের কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক রাজিবুল আলম। ইতোমধ্যে তাকে একদিনের রিমান্ডেও নেওয়া হয়েছে।

কুষ্টিয়া মডেল থানায় দায়ের করা মামলার সূত্রে জানা যায়, গত বছর ৪ ডিসেম্বর রাতে কুষ্টিয়া শহরের পাঁচ রাস্তার মোড়ে দুর্বৃত্তদের ভেঙে ফেলা বঙ্গবন্ধুর নির্মাণার্ধীন ভাস্কর্য নিয়ে ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন পাবনার ঈশ্বরদীর পাকশী রেলওয়ে কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক সাদ আহমেদ। তার স্ট্যাটাসটি হলো— ‘ঘরে আশ্রিত পোলাও পায়েস অন্নে পালিত কেউটে সাপের বিষদাঁতে চূর্ণ-বিচূর্ণ জনকের সম্মান। হেফাজতের এই বিষদাঁত উপড়ে ফেলতে হবে’।

ওই স্ট্যাটাসে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফের ভাইকে নিয়ে মন্তব্য করেন একই কলেজের কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক রাজিবুল আলম।

রাজিবুলের ওই মন্তব্যে ক্ষুব্ধ হন কুষ্টিয়া সদর উপজেলা যুবলীগ নেতা মো. মিজানুর রহমান মিজু। তিনি ওই স্ট্যাটাস ও মন্তব্যের স্ক্রিনশটসহ গত ১৪ ডিসেম্বর কুষ্টিয়া মডেল থানায় শিক্ষক রাজিবুলের বিরুদ্ধে ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫(২)/২৯(১)/৩১(২) ধারায় মামলা করেন।

খুলনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার রুহুল আমিনের জামিন আবেদন আবারও নামঞ্জুর

১৪ মার্চ, ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

খুলনার একটি আদালত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার শ্রমিক-কৃষক-ছাত্র-জনতা ঐক্য পরিষদের সমন্বয়ক রুহুল আমিনের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেছেন।

আজ রোববার রুহুল আমিনের পক্ষে জামিন আবেদন করেন অ্যাডভোকেট বেগম আক্তার জাহান রুকু।

মহানগর দায়রা জজ শহিদুল ইসলাম এই জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন।

এর আগে গত ২ মার্চ রুহুল আমিনের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেছিলেন মহানগর হাকিম চতুর্থ আদালতের বিচারক আতিকুস সামাদ।

নিরক্ষর কৃষকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা

১৪ মার্চ ২০২১, যুগান্তর

জমিসংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে নিরক্ষর কৃষকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ মামলায় গ্রেফতারের ভয়ে ৫ মাস যাবত ঘরছাড়া তিনি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরে বৃদ্ধ কৃষক আবু জামানকে কাবু করতে নারী নির্যাতন, আগুন লাগানো, চুরি এমনকি ডাকাতিসহ পাঁচটি মামলার আসামি করা হয়েছিল।

নরেন্দ্র মোদী: কটাক্ষ করে ফেসবুকে পোস্ট দেয়ায় ঠাকুরগাঁওয়ে কিশোর আটক

২১ মার্চ ২০২১, বিবিসি বাংলা

পুলিশ বলছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে কটাক্ষ করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ার অভিযোগে এক কিশোরকে আটকের পর তাকে আজ আদালতে হাজির করা হচ্ছে।

কিশোরটিকে উত্তরাঞ্চলীয় ঠাকুরগাঁও জেলা থেকে শনিবার বিকেলে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় গ্রেপ্তার করা হয়।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তানভিরুল ইসলাম বিবিসিকে বলেন, বালিয়াডাঙ্গী এলাকার বাসিন্দা এই কিশোরটি ফেসবুকে চার মিনিটের একটি ভিডিও আপলোড করে, যেখানে শুধু ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নয়, বরং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র মন্ত্রীকে নিয়েও কটাক্ষ করা হয়েছে।

আসন্ন বিজিএমইএ নির্বাচন: ভোটার তালিকায় অস্তিত্বহীন কারখানা মালিক

২২ মার্চ, ২০২১, বণিক বার্তা

সাত বছর পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর পরিচালনা পর্ষদের নির্বাচন। পুরনো দুই প্যানেলে সম্মিলিত পরিষদ ও ফোরামের হয়েই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছেন প্রার্থীরা। তবে নির্বাচনে জিততে মরিয়া হয়ে জালিয়াতির আশ্রয় নেয়া হয়েছে। ভোটার বাড়াতে বাস্তবে ব্যবসায়িক কার্যক্রম কিংবা কারখানার অস্তিত্ব নেই এমন প্রতিষ্ঠানের নাম অন্তর্ভুক্ত হয়েছে চূড়ান্ত ভোটার তালিকায়। এজন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ও সিটি করপোরেশনের নথি এমনকি কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর পর্যন্ত জাল হওয়ার তথ্য মিলেছে বণিক বার্তার অনুসন্ধানে।

বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রফতানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) তথ্য অনুযায়ী, সর্বশেষ ২০১৩ সালে সাধারণ সদস্যদের সরাসরি ভোটে বিজিএমইএর পরিচালনা পর্ষদ নির্বাচিত হয়েছিল। নতুন নেতৃত্ব ঠিক হবে আগামী ৪ এপ্রিলের নির্বাচনে। বর্তমানে সংগঠনটির সাধারণ সদস্যের সংখ্যা ৪ হাজার ৩৬৮। চূড়ান্ত ভোটার তালিকায় ঢাকা অঞ্চলে ১ হাজার ৮৫৩ ও চট্টগ্রাম অঞ্চলে ৪৬১ জন ভোটার রয়েছেন। এবারের নির্বাচনে ঢাকা ও চট্টগ্রাম সমিতির ৩৫টি পরিচালক পদের জন্য দুই প্যানেলের ৩৫ জন করে মোট ৭০ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

কোটি টাকার নির্বাচন

০২ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

জাতীয় কিংবা আঞ্চলিক নির্বাচনের মতো সড়কে সড়কে পোস্টার লাগানোর রেওয়াজ নেই। শত শত কর্মী নিয়ে মিছিলও করতে হয় না। তারপরও তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর পরিচালনা পর্ষদের নির্বাচনে কোটি কোটি টাকা খরচ করছে দুই প্যানেল—সম্মিলিত পরিষদ ও ফোরাম। তার বাইরে প্রার্থীরাও ব্যক্তিগতভাবে বিপুল অর্থ ব্যয় করছেন।

দেশের শীর্ষ রপ্তানি আয়ের খাত তৈরি পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সঙ্গে দুই দশকের বেশি সময় ধরে যুক্ত উদ্যোক্তারা বলছেন, বিজিএমইএর আগের যেকোনো নির্বাচনের চেয়ে এবার বেশি অর্থ খরচ করছে দুই প্যানেল। দীর্ঘদিন পর প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচন হওয়ার কারণেই এমনটি হচ্ছে। ভবিষ্যতে নির্বাচনকেন্দ্রিক খরচের লাগাম টানতে সংগঠনের নিয়মনীতিতে পরিবর্তন আনা প্রয়োজন। অন্যথায় তুলনামূলক ছোট ব্যবসায়ীরা নেতৃত্বে আসতে পারবেন না।

কোটি কোটি টাকা কোথায় খরচ হচ্ছে? খোঁজ নিয়ে জানা গেল, দুই মাস ধরে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছে সম্মিলিত পরিষদ ও ফোরাম। প্রার্থী পরিচিতির নামে ঢাকা ও চট্টগ্রামের পাঁচ তারকা হোটেলে বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠান করেছে উভয় জোট। তার বাইরে দেশের বিভিন্ন শিল্পাঞ্চলে বেশ কয়েকটি সভা ও মেজবানের আয়োজন করে একটি জোট। ডিজিটাল মাধ্যমে অর্থ দিয়ে প্রার্থীদের ছবি ও ভিডিও প্রচার করছে উভয় জোট। আবার ব্যবসায় নিয়মিত নয় এমন সদস্যদের কাগজপত্র ঠিকঠাক করে ভোটার করতেও মোটা অঙ্কের অর্থ খরচ করেছে উভয় জোট। তবে করোনার কারণে নির্বাচন বোর্ডের নিষেধাজ্ঞার কারণে গত দুই দিন ফোরাম ও সম্মিলিত পরিষদের সর্বশেষ প্যানেল পরিচিতি সভা স্থগিত হয়ে যায়। এতে খরচ কিছুটা কমেছে দুই জোটেরই।

বিজিএমইএর সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে যুক্ত একজন ব্যবসায়ী নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রথম আলোকে বলেন, বিজিএমইএর নির্বাচনে আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে এবার বেশি অর্থ খরচ করছেন প্রার্থীরা। ভোটে জিততে কেউ কেউ ব্যক্তিগতভাবে কোটি টাকার ওপরে ব্যয় করে ফেলেছেন। ভোটারদের উপহারসামগ্রী দেওয়া থেকে শুরু করে নানাভাবে ভোট টানার চেষ্টা চলছে।

প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ফেসবুকে মন্তব্যের অভিযোগে ব্যাংক কর্মচারী গ্রেপ্তার

০৬ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের একটি পোস্টে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে নিয়ে কটূক্তিমূলক কমেন্ট (মন্তব্য) করার অভিযোগে ফেনীর সোনাগাজীতে এক ব্যাংক কর্মচারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মো. ফারুক হোসেনের দায়ের করা মামলায় গতকাল সোমবার রাতে নুরুল আফছার (২৫) নামের ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

নুরুল আফছার উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের আহম্মদপুর এলাকার সিরাজুল ইসলামের ছেলে। তিনি জনতা ব্যাংক মতিগঞ্জ শাখার কর্মচারী।

এমপির বিরুদ্ধে পোস্ট: ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় অটোরিকশা চালক কারাগারে

১৮ এপ্রিল, ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

কুষ্টিয়ায় এমপি সেলিম আলতাফ জর্জকে নিয়ে ফেসবুকে ‘আপত্তিকর পোস্ট’ শেয়ার করার অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সন্ধ্যায় তাকে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মজিবুর রহমান জানান, রফিকুল ইসলাম (৩০) নামের ওই যুবককে আজ দুপুরে কুমারখালীর দয়রামপুর গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি ওই গ্রামের বাসিন্দা। পেশায় তিনি সিএনজি অটোরিকশা চালক।

বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম সূচকে আরও এক ধাপ পেছাল বাংলাদেশ

২০ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম সূচকে বাংলাদেশ গত বছরের তুলনায় আরও এক ধাপ পিছিয়েছে। আজ মঙ্গলবার রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডারস (আরএসএফ) ২০২১ সালের এই সূচক প্রকাশ করে। সূচকে ১৮০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৫২তম। সূচকে সবার শীর্ষে রয়েছে নরওয়ে।

২০২০ সালের সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৫১তম। আর ২০১৯ সালের সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ১৫০তম। অর্থাৎ, গতবারের সূচকেও বাংলাদেশের এক ধাপ অবনতি হয়েছিল।

এবারের সূচকে প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান সবার নিচে। সূচকে বাংলাদেশের চেয়ে ভালো অবস্থানে রয়েছে পাকিস্তান (১৪৫), ভারত (১৪২), মিয়ানমার (১৪০), শ্রীলঙ্কা (১২৭), আফগানিস্তান (১২২), নেপাল (১০৬), মালদ্বীপ (৭৯), ভুটান (৬৫)।… ….

বিদ্যুৎ-জ্বালানী-খনিজসম্পদ

মাতারবাড়ী বিদ্যুৎ প্রকল্প: ব্যয় বাড়ছে ১৬ হাজার কোটি টাকা

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, বণিক বার্তা

কোল পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি বাংলাদেশ লিমিটেড (সিপিজিসিবিএল) মাতারবাড়ী প্রকল্পে নতুন করে প্রায় সাড়ে ১৬ হাজার কোটি টাকা ব্যয় বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে। এ নিয়ে এরই মধ্যে দুই দফা আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা হয়েছে। সিপিজিসিবিএলের প্রস্তাব যাচাই-বাছাই শেষে একনেকে পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, চাহিদার তুলনায় অতিরিক্ত বিদ্যুৎ সক্ষমতা বাড়ায় এরই মধ্যে সরকারকে বড় অংকের লোকসান গুনতে হচ্ছে। উন্নত বিশ্বসহ চীন-ভারতের মতো বড় অর্থনীতিগুলো কয়লা থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। এ অবস্থায় বিপুল পরিমাণ বিনিয়োগ করে জাতীয় সক্ষমতায় মাত্র ১২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সংযোগের অর্থনৈতিক যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা।

১২ কেজি সিলিন্ডারের এলপিজির দাম ৯৭৫ টাকা

১২ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

অবশেষে গৃহস্থালি রান্নায় ব্যবহৃত তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাসের (এলপিজি) দাম ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি)। বেসরকারি খাতে ১২ কেজি সিলিন্ডারের এলপিজির দাম মূসকসহ সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ৯৭৫ টাকা। আর রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানির সাড়ে ১২ কেজি সিলিন্ডারের দাম ৫৯১ টাকা।

বাঁশখালীতে কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিকদের বিক্ষোভ, গুলিতে নিহত ৫

১৭ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো অনলাইন

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলায় কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রে বেতন-ভাতার দাবিতে শ্রমিকদের বিক্ষোভে গুলির ঘটনায় পাঁচজন নিহত হয়েছেন। আজ শনিবার সকাল ১০টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক সওগাত ফেরদৌস প্রথম আলোকে বলেন, ‘আহত অবস্থায় অনেককে হাসপাতালে আনা হয়েছিল। এর মধ্যে চারজন মারা গেছেন।’ তিনি জানান, নিহত চারজন হলেন আহমেদ রেজা (১৮), রনি (২২), শুভ (২৪) ও মো. রাহাত (২২)। আহত ব্যক্তিদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। 

পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে হাবিবুল্লাহ (১৯) নামের একজন মারা যান। বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শফিউর রহমান মজুমদার এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (আনোয়ারা সার্কেল) হুমায়ূন কবির বিক্ষোভের ঘটনায় শ্রমিকদের মৃত্যুর খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেন।

এস আলম গ্রুপের মালিকানাধীন এসএস পাওয়ার লিমিটেড ও চীনের দুটি প্রতিষ্ঠানের যৌথ উদ্যোগে গণ্ডামারা ইউনিয়নে এই কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপন করা হয়েছে।

‘এলোপাতাড়ি গুলি’র অভিযোগ শ্রমিকদের, ‘শ্রমিকরা আক্রমণ করেছিল’ দাবি পুলিশের

১৭ এপ্রিল ১৭, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলায় কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের শ্রমিকরা বেতন, বোনাসসহ আরও কিছু দাবিতে আজ শনিবার সকাল থেকে বিক্ষোভ করছিলেন। সকাল ১১টার দিকে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ ও গুলিতে পাঁচ জন শ্রমিক নিহত ও অন্তত ১৩ জন আহত হয়েছেন।

বিকেলে বিদ্যুৎকেন্দ্রে কর্মরত দুই শ্রমিকের সঙ্গে কথা হয় দ্য ডেইলি স্টারের। এসময় তারা আজ সকালে সেখানে কী ঘটেছিল তার বর্ণনা দেন।

নারায়ণগঞ্জের শাহেদুল করিম রাজু (৪০) গত সাত মাস ধরে বিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিকের কাজ করছেন। সকালে কী হয়েছিল জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আজ সেহরি খাওয়ার পর কিছুক্ষণ ঘুমিয়েছিলাম। সকালে চীনা কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত দেওয়ার কথা ছিল। পুলিশও এখানে আসে। পুলিশ আসার পর বলেছে- সেখানে যাওয়ার জন্য। আমরা বললাম, চার-পাঁচজন না গিয়ে আমরা সবাই একত্রে যাই। চার-পাঁচ জন কথা বলবে, আমরা সবাই তাদের কথা শুনব। এমন সময় পুলিশ গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। তখন এখানে চিল্লাচিল্লি শুরু হয় আর এলোপাতাড়ি গুলি শুরু হয়।’

আপনাদের কী কী দাবি ছিল? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমাদের দাবি ছিল ১০টা। এর মধ্যে- বাথরুম ঠিক নাই, পানির সমস্যা, রোজার মাসে ডিউটির সময় কমিয়ে দেওয়া, ইফতারি ও নামাজের জন্য সময় দেওয়া। অনেক কোম্পানিতে ১০ ঘণ্টা ডিউটি, অনেক কোম্পানিতে ১২ ঘণ্টা ডিউটি। আরেকটা দাবি ছিল- দুই ঈদে বোনাস দেওয়া।’

সকালে পুলিশের বর্ষণ করা একটি গুলির খোসা দেখিয়ে তিনি বলেন, ‘এই যে গুলির খোসা। স্থানীয়রা সংগ্রহ করেছে। প্রায় একশ থেকে দেড়শ লোক আহত হয়েছে। মারা গেছে প্রায় আট থেকে দশ জন।’

চাঁদপুর থেকে কাজ করতে আসা শ্রমিক রুবেল (৩৫) বলেন, ‘আমাদের দাবি ছিল, আমরা এক ঘণ্টা সময় চেয়েছিলাম। আমাদের ১০ ঘণ্টা কাজ করতে হয়। আমাদের ঘণ্টা হিসেবে টাকা। কারও ১০০ টাকা, কারও ৭০ টাকা, কারও ৫০ টাকা, কারও ১২০ টাকা ঘণ্টা। যত ঘণ্টা কাজ, তত টাকা। আমরা চেয়েছিলাম রমজানের জন্য এক ঘণ্টা বিরতি। এই দাবি নিয়ে গেলে আজ সকালে পুলিশ আমাদের লোকজনের ওপর গুলি শুরু করে। মানুষ আহত-নিহত হয়।’

‘আমাদের এখানে ১০ হাজার শ্রমিক আছে। এখানে বাথরুমের সমস্যা, খাওয়া-দাওয়ার অনেক কষ্ট, থাকার অনেক কষ্ট। আমাদের ফ্যামিলির যেন কষ্ট না হয়, এই ভেবে আমরা আছি। এখানকার চাল-ভাত খাওয়ার কোনো পরিস্থিতি নাই। আমরা বাইরে যেতে পারি না। আমরা বন্দী অবস্থায় থাকি। আমাদের টয়লেট প্রবলেম, পানির প্রবলেম। ডিউটি করে আসার পর পানি পাই না। কারও কাছে যে এসব বলব, এখানে এমন কোনো লোক নাই। আমরা চাচ্ছিলাম- এক ঘণ্টা সময়, যেন ইফতারি বাসায় করতে পারি। পুলিশ আমাদের রক্ত ঝরাইছে…’, এই বলে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি।… ….

বাঁশখালীতে সংঘাত: আন্দোলন চলছিল কয়েক দিন ধরেই

১৭ এপ্রিল ২০২১, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে এস আলম গ্রুপের নির্মাণাধীন বিদ্যুৎকেন্দ্রে একটি চীনা ঠিকাদার কোম্পানির অধীনে তিন ঘণ্টার ওভার টাইমসহ দৈনিক ১২ ঘণ্টা কাজ করে আসা অস্থায়ী শ্রমিকরা রোজা শুরুর পর থেকে ইফতারের সময় এক ঘণ্টা ছুটির দাবিতে আন্দোলন করে আসছিলেন।

আন্দোলনরত শ্রমিক ও বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বকেয়া বেতন ও ইফতারের ছুটি নিশ্চিত করতে কয়েকদিন ধরে আন্দোলন করছিলেন শ্রমিকরা।

শনিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মিছিল নিয়ে চীনা কোম্পানি সেপকো থ্রির সাইট অফিসে যাওয়ার পথে পুলিশের গুলিতে পাঁচজন শ্রমিক নিহত হন।

এই ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত আরও ১২ জনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানান বাঁশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা শফিউর রহমান মজুমদার।

পুলিশ গুলি করার আগে উত্তেজিত শ্রমিকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়েছিল যাতে কয়েকজন পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন।

বাঁশখালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আজিজুল ইসলাম বিদ্যুৎকেন্দ্রে সংঘর্ষের কথা নিশ্চিত করে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এ ঘটনায় আমাদের ছয় পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন।”

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী প্রকল্পের এক শ্রমিক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এই প্রকল্পের শ্রমিকরা সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত কাজ করে থাকেন। রোজা শুরু হওয়ার আগ থেকেই শ্রমিকরা ইফতারের জন্য এক ঘণ্টার বিরতি চেয়ে আসছিলেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ তা মঞ্জুর করেনি।

“এছাড়া প্রতিমাসের ১০ তারিখের মধ্যে শ্রমিকরা আগের মাসের বেতন চেয়ে আসলেও বেতন পরিশোধে ২০ তারিখেরও বেশি সময় পার হয়ে যাচ্ছিল। ”

তিনি বলেন, শনিবার মিছিল নিয়ে চীনা কোম্পানির সাইট অফিসের দিকে রওনা দিলে পুলিশ শ্রমিকদের বাধা দেয়। কিছুক্ষণ বাগবিতণ্ডার পর কিছু শ্রমিক পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট ছুড়তে থাকে। পুলিশ কিছুটা পিছু হটে ৫ থেকে ৭ মিনিটের মধ্যেই গুলি করতে করতে এগুতে থাকে।… …

সাগরে মহীসোপানের দাবি বাংলাদেশের, জাতিসংঘে আপত্তি ভারতের

১৭ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের মহীসোপানের দাবির বিষয়ে জাতিসংঘে আপত্তি তুলেছে ভারত। সমুদ্রপৃষ্ঠের যে বেসলাইনের ভিত্তিতে বাংলাদেশ মহীসোপান নির্ধারণ করেছে, তা ভারতের মহীসোপানের একটি অংশ। তাই ভারত জাতিসংঘের মহীসোপান নির্ধারণবিষয়ক কমিশনে বাংলাদেশের দাবিকে বিবেচনায় না নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে।

 শুক্রবার জাতিসংঘের মহীসোপান নির্ধারণসংক্রান্ত কমিশনে (সিএলসিএস) ভারত এই আপত্তি জানায়।

ভারতের আগে এ বছরের জানুয়ারিতে বাংলাদেশের দাবির বিষয়ে পর্যবেক্ষণ দিয়েছে মিয়ানমার। কিন্তু ভারতের মতো বাংলাদেশের দাবির প্রতি আপত্তি জানায়নি দেশটি। বাংলাদেশ আইনগতভাবে মহীসোপানের যতটা প্রাপ্য, তা থেকে নিজেদের অংশ বলে দাবি করছে দুই প্রতিবেশী দেশ। দুই নিকট প্রতিবেশীর বিরোধিতার কারণে বাংলাদেশের মহীসোপানের বিষয়টির এখনো সুরাহা হয়নি।

 প্রসঙ্গত, ২০১১ সালে জাতিসংঘের কাছে মহীসোপানের দাবির বিষয়ে বাংলাদেশ আবেদন জানায়। গত বছরের অক্টোবরে ওই দাবির বিষয়ে সংশোধনী জমা দেয় বাংলাদেশ।… ….

বাঁশখালীতে পুলিশের ‘অসহিষ্ণু আচরণ’ নিয়ে প্রশ্ন

১৯ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

চট্টগ্রামের বাঁশখালীর নির্মাণাধীন কয়লাবিদ্যুৎকেন্দ্রের শ্রমিক বিক্ষোভ দমাতে পুলিশের গুলি চালানো নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। সংশ্লিষ্ট অনেকেই বলছেন, বিক্ষোভরত শ্রমিকদের ওপর শুরুতেই গুলি না চালিয়ে ধাপে ধাপে এগোনো উচিত ছিল। এ ক্ষেত্রে পুলিশের আচরণ অসহিষ্ণু বলে মত দিলেন তাঁরা।

গুলিবিদ্ধ শ্রমিকেরা অনেকে বলেছেন, পুলিশ শুরুতেই তাঁদের ওপর গুলি চালাবে এমন ধারণা ছিল না।

তবে পুলিশের দাবি, বিক্ষোভকারীদের কয়েকজনের হাতে অস্ত্র ছিল। তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ও রাষ্ট্রীয় সম্পদ ক্ষতি করেছে। কিন্তু দুই দিনে কোনো অস্ত্র উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ। পুলিশের কোনো সদস্যও গুলিতে আহত হননি।… ….

গত শনিবার বাঁশখালীর গন্ডামারায় সংঘর্ষের সময় পুলিশের গুলিতে পাঁচ শ্রমিক নিহত হন। আহত হন ৩ পুলিশসহ অন্তত ৩০ জন। মাসের ৫ তারিখের মধ্যে বেতন পরিশোধ, পবিত্র রমজান মাসে কর্মঘণ্টা ১০ ঘণ্টা থেকে কমিয়ে ৮ ঘণ্টা, শুক্রবার কর্মঘণ্টা ৮ ঘণ্টা থেকে কমিয়ে ৪ ঘণ্টা করাসহ নানা দাবিতে বিক্ষোভ করেন বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণকাজের শ্রমিকেরা।… ….

পুলিশের করা সুরতহাল প্রতিবেদনে পাঁচজনেরই শরীরে গুলির আঘাতের চিহ্নের কথা লেখা রয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, খুব কাছ থেকে গুলি করার কারণে নিহতদের শরীর এফোঁড়-ওফোঁড় হয়ে গেছে।… ….

বিদ্যুৎকেন্দ্রটিতে ছয় হাজার শ্রমিক কাজ করছিল। তাঁদের একজন সিলেটের আমিনুল হক। দাবি আদায়ের জন্য তিনিও শনিবার সকালে বিদ্যুৎকেন্দ্রের ৪ নম্বর গেটে বিক্ষোভ করেন। এখন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২৪ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন। তাঁর পেটে গুলি লাগে।

গতকাল দুপুরে হাসপাতালের শয্যায় আমিনুল হক ঘটনার বর্ণনা দিয়ে প্রথম আলোকে বলেন, শনিবার সকাল ১০টার দিকে সবাই দাবি আদায়ের জন্য ৪ নম্বর গেটে দাঁড়ান। তাঁদের চারজন প্রতিনিধি পুলিশসহ মালিক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলতে যান। তাঁরা আধা ঘণ্টা পর ফিরে এসে জানান, দাবি মানা হবে না। তখন শ্রমিকেরা সবাই উত্তেজিত হয়ে পড়েন। ২ থেকে ৩ মিনিটের মাথায় পুলিশ সদস্যরা গুলি ছুড়তে থাকেন তাঁদের ওপর। চোখের সামনে কয়েকজন শ্রমিক মাটিতে লুটিয়ে পড়েন।

আমিনুল হক বলেন, তাঁদের ধারণা ছিল, পুলিশ টিয়ার গ্যাস, রাবার বুলেট নিক্ষেপ করবে কিংবা লাঠিপেটা করবে। কিন্তু এসব কিছু না করেই এলোপাতাড়ি গুলি করতে থাকে।

শ্রমিকদের ওপর গুলির ঘটনায় যুক্ত ছিলেন গন্ডামারা পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা। ওই ফাঁড়িতে ১৫ থেকে ১৬ জন সদস্য রয়েছে। বাঁশখালী থানার ওসি শফিউল কবির জানান, তাঁদের থানা-পুলিশের কেউ সেখানে ছিলেন না।… ….

পরিবেশ

৩ নদীর সম্মিলিত প্রবাহে বঙ্গোপসাগরে প্রতিদিন ৩ বিলিয়ন মাইক্রোপ্লাস্টিক প্রবেশ

২৩ জানুয়ারি ২০২১, দ্যা বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড বাংলা অনলাইন

নতুন গবেষণা অনুসারে গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র ও মেঘনা নদীর সম্মিলিত প্রবাহের সঙ্গে প্রতিদিন বঙ্গোপসাগরে ৩ বিলিয়ন মাইক্রোপ্লাস্টিক কণা প্রবেশ করে থাকতে পারে।

এটি নদীতে মাইক্রোপ্লাস্টিকের প্রতিপত্তি, বৈশিষ্ট্য এবং মৌসুমী বৈচিত্র্যের বিষয়ে প্রথম গবেষণা।

ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক সোসাইটির সি টু সোর্স: গঙ্গা অভিযানের অংশ হিসেবে বিজ্ঞানীদের একটি আন্তর্জাতিক দলের সংগৃহীত নমুনা ব্যবহার করে গবেষণাটি পরিচালিত হয়।

বিশেষ ফিল্টার দিয়ে নদীর পানি পাম্প করে সকল কণা সংগ্রহের মাধ্যমে ২০১৯ সালে দুটি অভিযানে ১২০টি নমুনা (প্রাক ও বর্ষাপরবর্তী সময়ে ৬০টি করে) ১০টি স্থানে একত্রিত করা হয় ।

এরপর প্রাক-বর্ষায় গৃহীত ৪৩টি (৭১.৬%) এবং বর্ষা পরবর্তী সময়ে পাওয়া ৩৭টি (৬১.৬%) মাইক্রোপ্লাস্টিক নমুনা বিশ্লেষণ করা হয় ইংল্যান্ডের প্লাইমাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণাগারে।

গৃহীত মাইক্রোপ্লাস্টিকের ভেতর সবচেয়ে বেশি ছিল ফাইবার (৯০%), যার ভেতর ছিল রেয়ন (৫৪%) ও এক্রাইলিক (২৪%)। এ দুটোই সাধারণত পোশাক তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।

নদী প্রবাহের সঙ্গে নদী মুখে (ভোলা, বাংলাদেশ) মাইক্রোপ্লাস্টিকের ঘনত্ব মিলিয়ে যায়। 

বিজ্ঞানীরা ধারণা করছেন, গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র ও মেঘনা নদী অববাহিকা থেকে প্রতিদিন ১ বিলিয়ন থেকে ৩ বিলিয়ন মাইক্রোপ্লাস্টিক নির্গত হতে পারে।

কুহেলিয়ার কান্না

 ২৫ জানুয়ারি, ২০২১, ডেইলি স্টার বাংলা অনলাইন

মাত্র বছর পাঁচেক আগেও মহেশখালী উপজেলার কুহেলিয়া নদী ছিল প্রাণবৈচিত্রে ভরপুর একটি জীবন্তসত্তা। শুধুমাত্র একটি সড়কের জন্য জায়গা করে দিতে নদী আজ প্রায় বিলীন হওয়ার পথে।

নদীর পূর্ব অংশ থেকে তোলা বালি দিয়ে ভরাট করা হয়েছে নদীর পশ্চিম অংশ। প্রায় দুই কিলোমিটার ভরাট করে নিশ্চিহ্ন করে দেওয়া হয়েছে নদীর অস্তিত্ব। আরও সাড়ে পাঁচ কিলোমিটার এভাবে ভরাট করে তৈরি করা হবে চার লেনের সড়ক।

মাতারবাড়িতে নির্মাণাধীন কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্রে যাওয়ার পথ তৈরি করতে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সাড়ে সাত কিলোমিটার নদী ভরাট করে এ সড়ক নির্মাণ করছে। অথচ নদীটির দৈর্ঘ্য মাত্র ১২ কিলোমিটার।

ক্রমাগত ভরাট করার কারণে নদীর বুকে জমেছে পলি ও চর। তাতে আটকে যাচ্ছে যান্ত্রিক ও অযান্ত্রিক নৌকা। নদী সংকুচিত হয়ে পরিণত হয়েছে একটি মৃত প্রায় খালে। থেমে গেছে নদীকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা নৌ-যোগাযোগও।

কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার উজানটিয়া থেকে শুরু হয়ে নদীটি মহেশখালীর মাতারবাড়ি হয়ে বঙ্গোপসাগরে গিয়ে পড়েছে। মাতারবাড়ি, কালামারছড়াও ধলঘাট— এ তিন ইউনিয়নের জীবন-জীবিকার সঙ্গে মিশে আছে এ নদী।

হাজারো লবণ চাষি ও চিংড়ি ব্যবসায়ী এ নদী দিয়ে তাদের উৎপাদিত পণ্য নিয়ে যেতেন চট্টগ্রামসহ দেশের নানা স্থানে। সবচেয়ে বড় বিষয়— এ নদী প্রায় তিন হাজার জেলের জীবিকার মূল উৎস ছিল।

মাতারবাড়ি চার নম্বরের ওয়ার্ডের মোহন জলদাশ তাদেরই একজন। তিনি এই নদীতে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করতেন।

তিনি দ্য ডেইলি স্টারকে বলেছেন, ‘প্রতিদিন ৭০০ থেকে ১০০০ টাকা আয় হত আমার এ নদীতে মাছ ধরে। সেই টাকা দিয়ে আমার চার সদস্যের পরিবারের ভালো মতো চলে যেত। রাস্তা বানানোর জন্য যখন থেকে এ নদী ভরাট শুরু হয়, তখন থেকে ধীরে ধীরে নদীর আয়তন কমতে শুরু করেছে। এখন তো নদী প্রায় মরে গেছে বলা চলে।’

গত ১১ জানুয়ারি সরেজমিনে দেখা গেছে, কুহেলিয়া নদীর ব্রিজঘাট এলাকায় ডাম্পার ট্রাক, পে লোডারদিয়ে নদীর ভরাটের দৃশ্য। সেদিন বিশাল বিশাল লোহার পাত নদীর বুকে দিয়ে জিও টেক্সটাইল ব্যাগ দিয়ে নদী ভরাট করা হচ্ছিল।

মাতারবাড়ি ইউনিয়নের ব্রিজঘাট এলাকা থেকে নদীর পূর্ব পাশে প্রায় দুই কিলোমিটারের বেশি নদী ভরাট করে ফেলা হয়েছে।

কুহেলিয়া নদী রক্ষা কমিটির আহবায়ক আবুল বাশার পারভেজ ডেইলি স্টারকে বলেছেন, ‘এ নদীর ওপর লবণ চাষি, চিংড়ি চাষি ও জেলেরা নির্ভরশীল ছিলেন। এখন সব শেষ হয়ে গেছে।’

‘আমরা প্রতিবাদ করেছি, মানববন্ধন করেছি, যাতে কর্তৃপক্ষ এমন না করে। কিন্তু, শেষ পর্যন্ত কিছুই হয়নি,’ যোগ করেন তিনি।

শিল্পবর্জ্যে মরছে সুতাং

৩১ জানুয়ারি ২০২১, সমকাল

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার অলিপুরের শিল্পকারখানার বর্জ্যে দূষিত হচ্ছে লাখাইর সুতাং নদী। অব্যাহত শিল্পবর্জ্যের দূষণে নদীটি এখন মরতে বসেছে। নদীর পানি কালো বর্ণ ধারণ করেছে। পানি থেকে ছড়াচ্ছে দূর্গন্ধ। নদীর পাড় দিয়ে চলাচল করাও কষ্টকর হয়ে পড়েছে। দূষণের কারণে মৎস্যশূন্য হয়ে পড়েছে নদী। এক সময়ের শান্ত ও স্বচ্ছ নীল জলরাশির সুতাং নদী এখন মৃতপ্রায়। কিছুদিন আগেও নদীতীরে গড়ে ওঠা হাটবাজার ও গ্রামের লোকজন এখানে নিয়মিত গোসল ও গৃহস্থালি কাজকর্ম করতেন। কিন্তু শিল্পবর্জ্যে পানি দূষিত হওয়ায় এখন তা অসম্ভব হয়ে পড়েছে।… ….

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন-বাপার সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জুল সোহেল বলেন, অলিপুর এলাকায় প্রাণ-আরএফএল, স্কয়ার কোম্পানিসহ বেশকিছু কোম্পানির বর্জ্যে দূষিত হয়ে পড়েছে সুতাং নদী। কৃষিকাজে সেচ ব্যবস্থার নামে শৈলজুড়া খালটি জেলা প্রশাসন ২০১৪ সালে পুনঃখনন করে প্রাণ-আরএফএল ও স্কয়ার কোম্পানির সঙ্গে যুক্ত করে দেওয়া হয়। ফলে ওই কোম্পানিগুলোর বর্জ্য সহজেই খালের মাধ্যমে সুতাং নদীতে চলে যাচ্ছে। যে কারণে শিল্পবর্জ্য দূষণে সুতাং নদীটি হয়ে পড়েছে মৎস্যশূন্য। নদীর পানি ব্যবহারকারীরা পড়েছেন মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকিতে। মারা যাচ্ছে হাঁস-মুরগি-গবাদিপশু। মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে চর্মরোগসহ নানা অসুখে। মাঠে ফসল উৎপাদন কমে যাচ্ছে।

জীবাশ্ম জ্বালানি সৃষ্ট দূষণজনিত মৃত্যুতে দ্বিতীয় অবস্থানে বাংলাদেশ

০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১, দ্যা বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড অনলাইন বাংলা

বাংলাদেশে বায়ুদূষণের কারণে এক-তৃতীয়াংশ অকালমৃত্যুর জন্য দায়ী জীবাশ্ম জ্বালানি। বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় এই সংখ্যা দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। সম্প্রতি আন্তর্জাতিক এক গবেষণা প্রতিবেদনে এই তথ্য উঠে আসে।

নতুন এই গবেষণায় ২০১২ সালের বায়ুদূষণ সংক্রান্ত তথ্য-উপাত্ত ব্যবহৃত হয়েছে। সেবছর বায়ুদূষণে বাংলাদেশে ৬ লাখ ৯২ হাজার ৮১ জন মৃত্যুবরণ করে। তাদের মধ্যে ২ লাখ ৫২ হাজার ২৭ জনের মৃত্যু বায়ুতে উপস্থিত জীবাশ্ম জ্বালানির কণার কারণে হয়েছিল। অর্থাৎ প্রায় ৩৬ শতাংশ মৃত্যুর জন্য জীবাশ্ম জ্বালানি দায়ী।

কয়লা, পেট্রোলিয়াম তেল, প্রাকৃতিক গ্যাস ইত্যাদি জীবাশ্ম জ্বালানি হিসেবে পরিচিত। গবেষণা প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিশ্বে পাঁচটির মধ্যে একটি মৃত্যুর জন্য জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহারে সৃষ্ট বায়ুদূষণ দায়ী। এর অর্থ বৈশ্বিক গড়ের তুলনায় বাংলাদেশে মৃত্যুর হার প্রায় দ্বিগুণ।

দক্ষিণাঞ্চলের ৩১টি নৌপথের মধ্যে ২৭টি নাব্যতাসংকটে

১১ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

নাব্যতা সংকটে রয়েছে দক্ষিণাঞ্চলের নৌপথগুলো। এতে নৌযান চলাচল হুমকিতে পড়েছে। বরিশাল বিভাগে ৩১টি নৌপথের মধ্যে মাত্র চারটিতে নৌযান চলাচলের পর্যাপ্ত নাব্যতা আছে। বাকি ২৭টি নৌপথে নৌ চলাচল মারাত্মকভাবে বিঘ্ন ঘটছে। প্রতি শুষ্ক মৌসুমে নাব্যতাসংকট তীব্রতর হয়।… ….

‘বরিশাল বিভাগের নদীসমূহের নাব্যতা বৃদ্ধি, জলাবদ্ধতা হ্রাস, জলাভূমি বাস্তু পুনরুদ্ধার, সেচ ও ল্যান্ডিং সুবিধাদি বৃদ্ধি করে নদী ব্যবস্থাপনার সম্ভাব্যতা যাচাই’ শীর্ষক সমীক্ষাটি শেষ হয় গত ডিসেম্বরে। ওই সমীক্ষা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আবহমানকাল ধরে দক্ষিণাঞ্চলের যোগাযোগের প্রধান ও জনপ্রিয় মাধ্যম নৌপথ। এর ওপরে মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরের ব্যবহার বৃদ্ধি পাওয়ায় দক্ষিণাঞ্চলের নৌপথগুলোর গুরুত্ব আরও অনেক বেড়েছে।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, বরিশাল বিভাগে ৬২টি নদীতে ৩১টি নৌপথ রয়েছে। নদীপথের দৈর্ঘ্য ১ হাজার ৪৭৫ কিলোমিটার। এর মধ্যে মাত্র চারটি নৌপথে পর্যাপ্ত গভীরতা রয়েছে। বাকি ২৭টি নৌপথের মধ্যে তিনটি পথ ‘১২ ও ২৪ নেভিগেশন রুট ’ প্রকল্পের আওয়তায় রক্ষণাবেক্ষণ খনন এবং একটি পথ বিআইডব্লিউটিএর নিজস্ব রক্ষণাবেক্ষণ প্রকল্পের আওতায় খনন করা হচ্ছে। এ ছাড়া বাকি ২৩টি নৌপথের পর্যাপ্ত নাব্যতা বা পানির গভীরতা নেই। এতে নৌ চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে। প্রতিনিয়ত যাত্রীদের ভোগান্তি হচ্ছে।

দূষণ বাড়ছে সুন্দরবনে

১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, সমকাল

মানুষের আগ্রাসনে দূষণ বাড়ছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ সুন্দরবনে। বন-সংলগ্ন এলাকায় শিল্প কারখানা স্থাপন, বনের মধ্য দিয়ে ভারী নৌযান চলাচল, বিষ দিয়ে মাছ শিকার এবং নিয়ন্ত্রণহীন পর্যটনের কারণে ঘটছে এসব দূষণ। যার নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে বনের গাছপালা, বন্যপ্রাণী ও জলজপ্রাণীর ওপর। তবে এ নিয়ে এখনও পূর্ণাঙ্গ কোনো গবেষণা করেনি বন বিভাগ, কোনো বিশ্ববিদ্যালয় বা অন্য কোনো সংস্থা। এমন অবস্থায় আজ পালিত হচ্ছে সুন্দরবন দিবস। ২০০১ সাল থেকে সুন্দরবন সংলগ্ন জেলাগুলোতে বেসরকারিভাবে পালিত হয়ে আসছে দিনটি।

এমনিতেই জলবায়ু পরিবর্তন ও উজান থেকে মিষ্টি পানির প্রবাহ কমে যাওয়ায় সুন্দরবনের পানি ও মাটিতে বেড়েছে লবণাক্ততা। সেই সঙ্গে বিভিন্ন কারণে বেড়েছে নদীভাঙন ও পলি পড়ার হার। তার ওপর মানুষের অবিবেচক কর্মকাণ্ডে দূষণ বাড়ছে সুন্দরবনে। এ নিয়ে উদ্বিগ্ন সুন্দরবন সংশ্নিষ্টরা।

সংশ্নিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সুন্দরবনের চারপাশে ১০ কিলোমিটার এলাকাকে সরকার প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা (ইসিএ) ঘোষণা করলেও সেই এলাকার মধ্যে গড়ে উঠছে শিল্প প্রতিষ্ঠান। গত ৮-১০ বছরে গড়ে উঠেছে অর্ধশতাধিক ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে রয়েছে সিমেন্ট ফ্যাক্টরি, এলপি গ্যাস প্লান্ট, অয়েল রিফাইনারি, বিটুমিন, সি ফুড প্রসেসিং ফ্যাক্টরি প্রভৃতি। বনের খুব কাছেই বিশালাকৃতির খাদ্যগুদাম নির্মাণ করেছে খাদ্য বিভাগ। বেশ কয়েকটি শিল্প কারখানার অপরিশোধিত তরল বর্জ্য ফেলা হচ্ছে পশুর নদে, যা চলে যাচ্ছে বনের মধ্যে নদী ও মাটিতে।

দীর্ঘদিন ধরে মোংলা বন্দর থেকে বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বনের মধ্য দিয়ে ১৩১ কিলোমিটার নদীপথে দেশি-বিদেশি জাহাজ চলাচল করছে। বনের মধ্যে নদী দিয়ে রায়মঙ্গল ও কয়রার আংটিহারা এলাকা দিয়ে জাহাজ যাওয়া-আসা করছে ভারতে। মোংলা বন্দরের পশুর নদের চ্যানেলে প্রতিবছর আসছে গড়ে প্রায় সাড়ে চারশ বিদেশি জাহাজ। এ ছাড়া নদে চলাচল করছে পণ্যবাহী কয়েক হাজার দেশি জাহাজ। এসব জাহাজের ইঞ্জিনের শব্দ, হাইড্রোলিক হর্ন ও রাতে আলো আতঙ্কিত করে তুলছে বন্যপ্রাণীদের। নৌযান থেকে নিঃসৃত তেল ও বর্জ্য ছড়িয়ে পড়ছে বনের মধ্যে। এতে দূষিত হচ্ছে বনের মাটি ও পানি। ২০১৪ সালের ৯ ডিসেম্বর সাড়ে তিন লাখ লিটার ফার্নেস তেল নিয়ে ট্যাঙ্কার ডুবির কারণে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়ে সুন্দরবন। এরপর সুন্দরবনের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত নদীতে পটাশ সার, কয়লা ও ক্লিঙ্কার বোঝাই জাহাজডুবি হয়েছে আরও ছয়-সাতবার।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞান ডিসিপ্লিনের এক গবেষণা প্রতিবেদন বলছে, ২০১০ সালে সুন্দরবনের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত অন্যতম বড় নদ পশুর নদের প্রতি লিটার পানিতে তেলের পরিমাণ ছিল সর্বোচ্চ ১০ দশমিক ৮ মিলিগ্রাম। আর এখন তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৮-তে। অথচ এর স্বাভাবিক মাত্রা ১০ মিলিগ্রাম। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞান ডিসিপ্লিনের অধ্যাপক ড. আবদুল্লাহ হারুন চৌধুরী জানান, সুন্দরবনের মধ্য দিয়ে বয়ে চলা নদের পানি ও মাটিতে দূষণ বেড়েছে। সে কারণে অনেক স্থানে আগের মতো গাছের চারা গজাচ্ছে না। এ ছাড়া নদের পানিতে তেলের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে জলজপ্রাণী। তিনি বলেন, যেসব রুটে নৌযান চলাচল করে, ওই রুটগুলোর বনের পাশে এখন আর তেমন হরিণ, বানরসহ অন্যান্য বন্যপ্রাণী দেখা যায় না।

কয়লার ‘বিষে’ হুমকিতে সুন্দরবন

২ মার্চ, ২০২১, ঢাকা ট্রিবিউন অনলাইন বাংলা

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি সুন্দরবন সংলগ্ন মংলার পশুর নদীতে ৭০০ মেট্রিক টন কয়লা নিয়ে ডুবে যাওয়া কার্গো বিবি-১১৪৮ উদ্ধারে শীঘ্রই কাজ শুরু হওয়ার আশাবাণী দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

যদিও সোমবার (১ মার্চ) পর্যন্ত তাদের কোনো কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে দেখা যায়নি।

একের পর এক কয়লাবাহী কার্গো ডুবির ঘটনা ঘটছে নিয়মিত বিরতিতেই। গত চার বছরে এ ধরনের মোট ৬টি ঘটনায় সুন্দরবন এলাকার নদ-নদীর পানিতে ডুবেছে প্রায় ৩৫শ মেট্রিক টন কয়লা।

আর এভাবে সুন্দরবনে ছড়িয়ে পড়ছে কয়লার ‘বিষ’। ডুবে যাওয়া কার্গোর কয়লা পানির সাথে মিশে রাসায়নিক উপাদান ছড়িয়ে পড়ছে নদীর পানিতে। এতে বিষাক্ত হয়ে পড়ছে নদীর পানি। যা সুন্দরবনের বন্যপ্রাণীর ও প্রাকৃতিক পরিবেশের জন্য হুমকিস্বরূপ।

দেশে ১৭ বছরে বিলীন হয়েছে ৬৬ বর্গকিলোমিটার বন

১১ মার্চ ২০২১, ডেইলিস্টার বাংলা অনলাইন

দেশে ক্রমাগত হারিয়ে যাচ্ছে রেইন ফরেস্ট। গত ১৭ বছরে প্রায় ৬৬ বর্গকিলোমিটার বন বিলীন হয়েছে। যা আয়তনের দিকে থেকে নারায়ণগঞ্জ শহরের সমান।

গত মঙ্গলবার রেইন ফরেস্ট ফাউন্ডেশন নরওয়ে’র (আরএফএন) প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়েছে, গত ২০০২ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত প্রতি বছর প্রায় চার কিলোমিটার করে ক্রান্তীয় রেইন ফরেস্ট ধ্বংস হয়েছে।

২০০১ সালে দেশে ক্রান্তীয় রেইন ফরেস্ট ৯৬৬ বর্গকিলোমিটার থেকে কমে ২০১৯ সালে ৯০০ বর্গকিলোমিটার হয়েছে।

পশুর নদীতে ৪০০ মেট্রিক টন কয়লা নিয়ে কার্গোডুবি

৩০ মার্চ, ২০২১, দেশ রুপান্তর

মোংলা বন্দরের পশুর নদীতে ডুবে গেছে কয়লাবোঝাই একটি কার্গো জাহাজ। মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বন্দর জেটির অপর পাশের কাটাখালী নামক এলাকায় জাহাজটি ডুবে যায়।

ডুবে যাওয়া জাহাজটির কয়লা নিয়ে যশোরের নওয়াপাড়ায় যাওয়ার কথা ছিল। জাহাজটির ধারণক্ষমতা ছিল ৫শ মে. টন। আর বোঝাই করা হয়েছিল ৪শ মে. টন।

এর আগে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি রাতে মোংলা বন্দরের পশুর নদীতে ৭শ মে. টন কয়লা নিয়ে ডুবে যায় এমভি বিবি-১১৪৮ নামক একটি কার্গো জাহাজ।

কীর্তনখোলা নদীর পানিতে স্বাভাবিকের চেয়ে ৪ গুণ লবণাক্ততা

০৬ এপ্রিল, ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

বরিশালের কীর্তনখোলা নদীর পানিতে অস্বাভাবিক মাত্রায় লবণাক্ততা দেখা দিয়েছে। হঠাৎ করে এ নদীর পানির লবণাক্ততা স্বাভাবিকের চেয়ে চার গুণের বেড়ে যাওয়ার কারণ জানা না গেলেও, সংশ্লিষ্টরা ধারণা করছেন উজান থেকে আসা পানিতে লবণাক্ততা বৃদ্ধি বা কম বৃষ্টিপাতের কারণে এটা হয়ে থাকতে পারে। এতে স্বাদু পানির প্রাণী হুমকির মুখে পড়তে পারে আশঙ্কা করছেন পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা।

কীর্তনখোলা পাড়ের স্টেডিয়াম বস্তির বাসিন্দা বিথী আক্তার জানান, হঠাৎ করে গত বেশ কয়েকদিন ধরে কীর্তনখোলার পানি নোনতা লাগছে। এই নদীতে তারা এতদিন গোসল করলেও, অতিরিক্ত লবণাক্ততার কারণে এখন আর নামছেন না।

কীর্তনখোলার মাঝি মোসলেম জানান, গত এক মাস ধরে লবণাক্ততা বেড়েছে। আগে এই পানিতে তারা হাত-মুখ ধুলেও লবণাক্ততার কারণে এখন পানি মুখে তুলতে পারছেন না।

দূষণের কবলে শীতলক্ষ্যা ডাঙায় উঠে আসছে মাছ

১৩ এপ্রিল, ২০২১, বণিক বার্তা

শীতলক্ষ্যা নদীর গাজীপুর অংশে উৎসাহ নিয়ে মাছ ধরছে বেশকিছু মানুষ। গত রোববার থেকেই এ দৃশ্য দেখা যাচ্ছে। কারণ নদীর গভীর পানিতে যেসব মাছের বিচরণ করার কথা, সেগুলো এখন ভেসে উঠছে পানির ওপরে। কোনো কোনোটি রীতিমতো লাফিয়ে ডাঙায় উঠে পড়ছে।

শ্রীপুরের বরমী এলাকা ঘুরে দেখা গেল, ঝাঁকে ঝাঁকে মাছ আর জলজ প্রাণী ভেসে ওঠার ঘটনায় নদীর দুই পাড়ে উৎসবের আবহ তৈরি হয়েছে। বিপুল উৎসাহ নিয়ে মাছ ধরতে নেমে গেছে স্থানীয়রা। তবে এ উৎসবের আবহ সাময়িক। কারণ বিষয়টি যে স্বাভাবিক নয়, তা বুঝতে পারছে নদীতীরের সাধারণ মানুষ।

বংশানুক্রমিকভাবে এ নদীর মাছের ওপর ভরসা করেই জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন এমন কয়েকজন জেলের সঙ্গে কথা হয়। তারা জানান, কয়েক বছর ধরে নদীতে শিল্পবর্জ্য মিশছে। ফলে আগের মতো আর মাছ পাওয়া যায় না। প্রায়ই এভাবে মাছ পানির ওপরে উঠে আসার ঘটনা ঘটে। এভাবে চলতে থাকলে শীতলক্ষ্যা একসময় মাছশূন্য হয়ে পড়বে বলে আশঙ্কা তাদের। নদী মাছশূন্য হলে জীবিকা বদলানো ছাড়া গতি নেই তাদের।

বরমী ও কাপাসিয়ার সিংহশ্রী ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে নদীর মাছ পানির ওপর ভেসে উঠছে। এসব মাছ ধরতে আসা কয়েকজন জানালেন, মাছগুলোকে দেখে মনে হচ্ছিল, এগুলো যেন আর নদীতে থাকতে পারছে না। তাই লাফিয়ে ডাঙায় উঠে আসছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে চিংড়ি থেকে শুরু করে টেংরা, বাইম, রিঠাসহ নানা ধরনের মাছ।

নরসিংদী, গাজীপুর, ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া শীতলক্ষ্যার দৈর্ঘ্য ১০৮ কিলোমিটার। পুরাতন ব্রহ্মপুত্র ও বানার নদী থেকে উত্পত্তি গাজীপুরের শীতলক্ষ্যার। জেলার শ্রীপুর ও কাপাসিয়া উপজেলার মধ্য দিয়ে বয়ে যাওয়া শীতলক্ষ্যাকে ঘিরে এ এলাকার কৃষি, ব্যবসা ও গ্রামীণ অর্থনীতির চাকা ঘোরে। আশপাশ এলাকায় দেশীয় মাছের অন্যতম জোগানদারও এ নদী। এখান থেকে মাছ আহরণ করে জীবিকা নির্বাহ করে বহু মানুষ।

কিন্তু কয়েক বছর ধরে পার্শ্ববর্তী ময়মনসিংহ জেলার ভালুকা উপজেলার শিল্প-কারখানার বিষাক্ত তরল বর্জ্য ক্ষিরু ও মাটিকাটা নদীর মাধ্যমে মিশছে শীতলক্ষ্যায়। ফলে স্বচ্ছ জলের নদী হিসেবে পরিচিত শীতলক্ষ্যা এখন কালো ও দুর্গন্ধযুক্ত বিষাক্ত পানির নদীতে পরিণত হয়েছে। দূষণ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে কমেছে মাছের উৎপাদন। সেই সঙ্গে কমেছে মাছ ধরে জীবিকা আহরণ করা মানুষের সংখ্যাও।

সুন্দরবনের পাশে কেন কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র, প্রশ্ন জন কেরির

১৪ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

সুন্দরবনকে বাঁচাতে বাংলাদেশ সরকারের নানামুখী উদ্যোগ আছে। আবার সুন্দরবনের কাছে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রও করছে সরকার। এই বিদ্যুৎকেন্দ্র সুন্দরবনকে বিপন্ন করে তুলবে—বিশেষজ্ঞরা বারবার বলার পরও সরকার তা বিবেচনায় নেয়নি। সুন্দরবন নিয়ে সরকারের এমন বিপরীতমুখী অবস্থানে ‘বিভ্রান্ত’ মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের জলবায়ু বিষয়ক বিশেষ দূত জন কেরি।

৯ এপ্রিল মাত্র সাড়ে ছয় ঘণ্টার জন্য ঢাকা সফরে এসে সুন্দরবন নিয়ে কোনো রাখঢাক না রেখেই বাংলাদেশ সরকারের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন জন কেরি। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক আলোচনাতেই রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে যুক্তরাষ্ট্রের আপত্তির বিষয়টি তুলেছেন তিনি। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কেরির আলোচনার সময় উপস্থিত থাকা সরকারের উচ্চপর্যায়ের একাধিক সূত্র প্রথম আলোকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

অবশ্য রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের বিষয়টি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনায় তুললেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আলোচনায় এ নিয়ে কিছু বলেননি কেরি। তবে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র যে পরিবেশ বিপর্যয়ের অন্যতম বড় কারণ, এটি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনায় তিনি বলেছেন। কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নেতিবাচক অবস্থানের বিষয়টি বৈঠকে উল্লেখ করেন তিনি।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আয়োজিত ‘লিডার্স সামিট অন ক্লাইমেট’-এর আমন্ত্রণপত্র তুলে দিতে এবার ঢাকা সফর করেন জন কেরি। ২২ ও ২৩ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্রে এই সামিট (সম্মেলন) হবে। তবে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে সম্মেলন হবে ভার্চ্যুয়ালি।

ঢাকায় নামার ঘণ্টা দেড়েক পর জন কেরি রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় প্রথমে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেনের সঙ্গে আলোচনায় বসেন। সেখানে অন্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম ও পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন। ওই আলোচনায় জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি মোকাবিলায় বাংলাদেশের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা আলোচনায় তুলে ধরেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। একপর্যায়ে সুন্দরবনের প্রসঙ্গটি ওঠে। তখন জন কেরিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, সুন্দরবনকে বাঁচানোর জন্য সরকার বনায়ন করার পাশাপাশি নানা উদ্যোগ নিয়েছে। তাঁর এই বক্তব্যের পর জন কেরি বলেন, সুন্দরবন নিয়ে বাংলাদেশের কর্মকাণ্ডে তিনি কনফিউজড (বিভ্রান্ত)! একদিকে বাংলাদেশ সুন্দরবনকে বাঁচানোর উদ্যোগ নিচ্ছে, আবার সেখানে রামপালের মতো প্রকল্পও করছে। এটা কী করে সম্ভব!

আলোচনায় উপস্থিত থাকা একাধিক সূত্র জানায়, সুন্দরবন নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিশেষ দূতের মন্তব্যের কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি বাংলাদেশের কর্মকর্তারা। আলোচনার শেষ পর্যায়ে জন কেরি আবারও সুন্দরবন আর রামপালের প্রসঙ্গটি তোলেন। আব্দুল মোমেনকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘কেন আই মেইক আ আউটরেজাস কোয়েশ্চন? (আমি কি একটা ভয়ানক অনুরোধ করতে পারি?)। কেন ইউ স্টপ রামপাল?’ (আপনারা কি রামপালের কাজ বন্ধ করতে পারেন?)।

দুর্ঘটনা

রাসায়নিক সরেনি, ঝুঁকিও কমেনি

২০ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

দুটি বড় অগ্নিকাণ্ড। তাতে ১৯৫ জনের মৃত্যু। প্রথমটির পর পেরিয়েছে ১০ বছরের বেশি, দ্বিতীয়টির পর কেটেছে দুই বছর। কিন্তু পুরান ঢাকার চিত্র খুব একটা বদলায়নি।

এখনো পুরান ঢাকায় রাসায়নিক ব্যবসা চলছে; দোকান, গুদাম ও কারখানা রয়েছে। এমনকি অবস্থা মোটামুটি আগের মতোই। এর মধ্যেই ঝুঁকি নিয়ে বাস করছে মানুষ। সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোও রাসায়নিক সরানোর বিষয়টি নিয়ে আর উচ্চবাচ্য করছে না। চলে রুটিন কিছু অভিযান।

পুরান ঢাকায় দুই বড় অগ্নিকাণ্ডের একটি নিমতলীর আগুন। ২০১০ সালের ৩ জুন রাতের সেই ঘটনায় ১২৪ জনের মৃত্যু হয়। ৯ বছর পর ২০১৯ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি চকবাজারের চুড়িহাট্টার ওয়াহেদ ম্যানশন নামের একটি ভবনে আগুনে মারা যান ৭১ জন।

আজ শনিবার চুড়িহাট্টার আগুনের দুই বছর হলো। ওই ঘটনার পর সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর ব্যর্থতা সামনে আসে। দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিরা আবার প্রতিশ্রুতি দেন যে পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিক ব্যবসা রাসায়নিক পল্লিতে নিয়ে যাওয়া হবে। এর আগে দ্রুত রাসায়নিক সরিয়ে নিতে টঙ্গী ও শ্যামপুরে দুটি অস্থায়ী গুদাম করা হবে। দুই বছর পরের চিত্র এই যে রাসায়নিক পল্লির মাঠপর্যায়ের কাজ শুরু হয়নি। এমনকি অস্থায়ী গুদামের নির্মাণকাজও শেষ হয়নি।

চুড়িহাট্টা ট্র্যাজেডি: অজুহাতে আটকা অভিযোগপত্র

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, দেশ রুপান্তর

সন্দেহভাজন অন্তত পাঁচ আসামির ঠিকানা সংগ্রহ করতে না পারার অজুহাতে দীর্ঘ দুই বছরেও অভিযোগপত্র হয়নি রাজধানীর চকবাজারের চুড়িহাট্টা ট্র্যাজেডির। ২০১৯ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি মধ্যরাতে চুড়িহাট্টার ওয়াহেদ ম্যানশন ও আশপাশের ভবনে হঠাৎ ছড়িয়ে পড়া আগুনে ৭১ জনের মৃত্যু হয়। ওই ঘটনায় দুজনের নাম উল্লেখ করে বেশ কয়েক জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়। এর মধ্যে সন্দেহভাজন পাঁচজনের নাম-ঠিকানা আজও সংগ্রহ করতে পারেনি পুলিশ।

পুলিশ বলছে, ঠিকানা সংগ্রহের কাজ চলছে। কিন্তু মিলছে না। ঊর্ধ্বতন কর্র্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত পেলেই মামলার অভিযোগপত্র চূড়ান্ত করে আদালতে দাখিল করা হবে।

এদিকে দুই বছরে নানামুখী চেষ্টার পরও এখনো শনাক্ত করা যায়নি তিনটি লাশের পরিচয়। ডিএনএ পরীক্ষাতেও শনাক্ত হয়নি লাশগুলো কার।

এশিয়ায় মোটরসাইকেল দুুর্ঘটনায় শীর্ষে বাংলাদেশ

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, বণিক বার্তা

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) সড়ক ও দুুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউটের (এআরআই) তথ্যমতে, এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় শীর্ষে অবস্থান করছে বাংলাদেশ।

১৯৯৮ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত মোটরসাইকেল দুুর্ঘটনা নিয়ে গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে এআরআই ‘আ রিভিউ অব মোটরসাইকেল সেফটি সিচুয়েশন ইন বাংলাদেশ’ শীর্ষক গবেষণাপত্র প্রকাশ করে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) বরাত দিয়ে এআরআইয়ের গবেষকরা জানান, এ তালিকায় সবচেয়ে নিচে আছে ভুটান। প্রতি ১০ হাজার মোটরসাইকেলের মধ্যে বাংলাদেশে দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে ২৮ দশমিক ৪টি। এর ধারেকাছেও নেই এশিয়ার অন্য দেশগুলো। বাংলাদেশের পর কম্বোডিয়ায় ১১ দশমিক ৯, লাওসে ১১ দশমিক ৫, থাইল্যান্ডে ১১ দশমিক ২, ভারতে ৯, মিয়ানমারে ৮ দশমিক ৬, মালয়েশিয়ায় ৪ দশমিক ৪, ভিয়েতনামে ৪ দশমিক ১, ইন্দোনেশিয়ায় ২ দশমিক ৫ এবং ভুটানে ২ দশমিক ১টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটেছে।

গবেষণাপত্রের ভাষ্যমতে, দেশের মোটরসাইকেল দুুর্ঘটনার ৭৪ শতাংশই মফস্বলে ঘটে। এর বড় কারণ হলো সেখানে ট্রাফিক তদারকি কম। এছাড়া মফস্বলের যাত্রীরা মহাসড়কে বেশি যাতায়াত করেন বলেও দুুর্ঘটনা বেশি ঘটে। মফস্বলের ৭৪ শতাংশ সড়ক দুুর্ঘটনার ৬৯ শতাংশই মহাসড়কে ঘটে। মফস্বলের বিপরীতে নগর-মহানগরে মোটরসাইকেল দুুর্ঘটনার পরিমাণ ৩১ শতাংশ।

বয়স বিবেচনায় ১৯৯৮ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ২৬ থেকে ৩০ বছর বয়সীরা মোটরসাইকেল দুুর্ঘটনায় বেশি মারা গেছেন। তবে ২১ থেকে ৩৫ বছর বয়সীদের মৃত্যুর হারও উদ্বেগজনক। মোটরসাইকেল দুুর্ঘটনার মোট মৃত্যুর ৫৬ শতাংশই ওই বয়সের এবং ৯৬ শতাংশই পুরুষ বলে গবেষণায় উঠে এসেছে।

সপ্তাহের কী বার এবং দিনের কোন সময় বেশি মোটরসাইকেল দুুর্ঘটনা ঘটে, এ ব্যাপারেও এআরআইয়ের গবেষকরা সুনির্দিষ্ট তথ্য দিয়েছেন। এর মধ্যে শনিবার সবচেয়ে বেশি এবং রোববার সবচেয়ে কম মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটে। পরিসংখানে দেখা গেছে, শনিবার ১৬ শতাংশ, বৃহস্পতি ও শুক্রবার ১৫ শতাংশ, সোম ও বুধবার ১৪ শতাংশ, মঙ্গলবার ১৩ শতাংশ এবং রোববার ১২ শতাংশ মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটেছে। সময় বিবেচনায় সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত দুুর্ঘটনা বেশি ঘটে। এক্ষেত্রে কর্মস্থলে যাওয়ার পথে (সকাল ১০-১১টা) এবং বাড়ি ফেরার পথে (বিকাল ৪-৫টা) বেশি দুর্ঘটনা ঘটেছে।

মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার ব্যক্তিদের মধ্যে ৮৮ শতাংশ হেলমেট না পরার কারণে এবং ১২ শতাংশ ত্রুটিযুক্ত হেলমেট পরার কারণে মারা গেছেন।

দুর্ঘটনাপ্রবণ হয়ে উঠছে ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে

১০ মার্চ, ২০২১, বণিক বার্তা

ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণের অন্যতম উদ্দেশ্য ছিল সহজ ও নিরাপদ যাতায়াত ব্যবস্থা গড়ে তোলা। এজন্য একমুখী প্রশস্ত সড়ক, ফ্লাইওভার, আন্ডারপাস, ইন্টারচেঞ্জ, ধীরগতির গাড়ির জন্য আলাদা রাস্তা—কোনো কিছুরই কমতি রাখা হয়নি। এসবের জন্য এক্সপ্রেসওয়েতে কিলোমিটারপ্রতি প্রায় ২০০ কোটি টাকা খরচ হয়েছে। তবে চালুর পর যাতায়াত সহজ হলেও নিরাপদ হয়নি। গত ১৪ মাসে কেবল যাত্রাবাড়ী-মাওয়া অংশেই ৭৯টি সড়ক দুর্ঘটনা হয়েছে। আর এসব দুর্ঘটনায় ৬৫ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে হাইওয়ে পুলিশ। যদিও স্থানীয়দের দাবি, দুর্ঘটনা ও হতাহতের সংখ্যা আরো বেশি।

এক্সপ্রেসওয়েটি দুর্ঘটনাপ্রবণ হয়ে ওঠার দায় নকশাগত দুর্বলতার ওপর চাপাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। সবচেয়ে বেশি সমালোচনা হচ্ছে ভেতরে বাস-বে রাখা নিয়ে। এক্সপ্রেসওয়ের ব্যারিয়ার সঠিকভাবে না বসানো, পর্যাপ্তসংখ্যক পথচারী পারাপারের জন্য ফুটওভারব্রিজ না রাখাকেও দায়ী করা হচ্ছে।

শীতলক্ষ্যায় লঞ্চডুবি: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৪, এখনো নিখোঁজ ২

০৬ এপ্রিল, ২০২১, ডেইলিস্টার বাংলা অনলাইন

নারায়ণগঞ্জে শীতলক্ষ্যায় কার্গো জাহাজের ধাক্কায় যাত্রীবাহী লঞ্চডুবির ঘটনায় আরও পাঁচ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৪ জনে। এখনো নিখোঁজ রয়েছেন আরও দুই জন।

গত রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় নারায়ণগঞ্জ লঞ্চ টার্মিনাল থেকে অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে মুন্সিগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া সাবিত আল হাসান নামের লঞ্চটিকে পিছন থেকে একটি কার্গো জাহাজ ধাক্কা দিলে শীতলক্ষ্যার কয়লাঘাট এলাকায় তা ডুবে যায়।

ধাক্কা-সংঘর্ষেই বেশি ডুবছে যাত্রীবাহী নৌযান

০৭ এপ্রিল, ২০২১, বণিক বার্তা

পণ্যবাহী জাহাজের ধাক্কায় গত রোববার সন্ধ্যায় শীতলক্ষ্যা নদীতে ডুবে যায় ‘সাবিত আল হাসান’ নামের একটি ছোট লঞ্চ। দুর্ঘটনার পর গতকাল রাত পর্যন্ত ৩৫ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এখনো নিখোঁজ রয়েছেন কয়েকজন। এর আগে গত বছরের ২৯ জুন ‘ময়ূর-২’ লঞ্চের ধাক্কায় ডুবে যায় মুন্সীগঞ্জ-সদরঘাট রুটে চলাচল করা লঞ্চ মর্নিং বার্ড। ওই ঘটনায় ৩৪ জনের মৃত্যু হয়। অন্য নৌযানের সঙ্গে ধাক্কা লেগে এমন ছোট কিংবা বড় নৌ-দুর্ঘটনা প্রায়ই ঘটছে। নৌ-পরিবহন অধিদপ্তরের তথ্য বলছে, দেশে সবচেয়ে বেশি লঞ্চ দুর্ঘটনা ঘটে অন্য নৌযানের সঙ্গে ধাক্কা লেগে।

গত বছরের মর্নিং বার্ড দুর্ঘটনার পাশাপাশি আরো দুটি বড় নৌ-দুর্ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে ৫ আগস্ট নেত্রকোনার মদনে ট্রলার ও নৌকার সংঘর্ষে ১৮ জন ও ৯ সেপ্টেম্বর একই জেলার কলমাকান্দিতে বালুবাহী ট্রলারের ধাক্কায় যাত্রীবাহী ট্রলার ডুবে মারা যান আরো ১২ জন। স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) আন্দোলনের পরিসংখ্যান বলছে, ২০২০ সালে সারা দেশে ৭০টি নৌ-দুর্ঘটনা ঘটে। এসব দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় ২১২ জনের। আহত ও নিখোঁজ হন আরো অন্তত ১০০ জন। আরেক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির হিসাব বলছে, ২০১৯ সালে সারা দেশে লঞ্চ, ট্রলার ও নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে ১১৬টি। এর মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাক্কার কারণে ডুবে যায় ৪৪টি নৌযান।

রং বদলে আটক ঠেকাতে চেয়েছিল সাংসদের কার্গোটি

০৮ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

নারায়ণগঞ্জ শহরের কয়লাঘাট এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদীতে যাত্রীবাহী লঞ্চকে ধাক্কা দিয়ে ডুবিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায় কার্গো জাহাজটি। কার্গোটির নাম এসকেএল-৩। এরপর বদলে ফেলা হয় কার্গোর রং। কার্গোটিকে জব্দ করা কোস্টগার্ড কর্তৃপক্ষ এমন তথ্য জানিয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ায় নোঙর করা অবস্থায় ওই কার্গো জাহাজটি আটক করে কোস্টগার্ড। এ সময় কার্গোর চালকসহ ১৪ জনকে আটক করা হয়।

গত রোববার সন্ধ্যার দিকে শীতলক্ষ্যা নদীর কয়লাঘাট এলাকায় জাহাজের ধাক্কায় ডুবে যায় যাত্রীবাহী লঞ্চ সাবিত আল হাসান। ওই দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৩৪ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

এই ঘটনায় গত মঙ্গলবার রাতে কার্গো জাহাজের চালকসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ বন্দর থানায় মামলা করে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। তবে মামলায় কার্গো জাহাজ, এর চালক বা মালিক; কারোই নাম উল্লেখ করা হয়নি বলে জানান বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দীপক চন্দ্র সাহা।

ধাক্কা দেওয়া কার্গোটির নাম এমভি এসকেএল-৩, যার রেজিস্ট্রেশন নম্বর এম-০১-২৬৪৩। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জাহাজটির মালিক বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ তন্ময়ের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান এসকে লজিস্টিকস।

এক বছরে ৫০ নৌ দুর্ঘটনা

১৪ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

নারায়ণগঞ্জের ফারুক হোসেন মালবাহী নৌযানের (বাল্কহেড) সুকানি। গত ১৯ মার্চ বিকেলে বাল্কহেড চালিয়ে শীতলক্ষ্যা হয়ে মেঘনার দিকে যাচ্ছিলেন। পথে কয়লাঘাট এলাকায় নির্মাণাধীন তৃতীয় শীতলক্ষ্যা সেতু এলাকায় বড় একটি কার্গো জাহাজ আড়াআড়িভাবে এসে পড়লে তাঁর বাল্কহেডটির (এমভি পাঁচ ভাই-৩) সেতুর অস্থায়ী লোহার পিলারের সঙ্গে ধাক্কা লাগে। এতে লোহার পিলার বাঁকা হয়ে যায়।

ফারুক হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, পিলারের সঙ্গে ধাক্কা লাগার পর সেতুর লোকজন বাল্কহেডসহ তাঁদের আটকে রাখেন এবং ক্ষতিপূরণ হিসেবে তাঁদের কাছে পাঁচ লাখ টাকা দাবি করেন। পরে বাল্কহেড শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা গিয়ে দেড় লাখ টাকা দিয়ে তাঁদের ছাড়িয়ে আনেন।

নৌযানের চালক ও শ্রমিকেরা বলছেন, শীতলক্ষ্যা নদীর নারায়ণগঞ্জের ওই অংশ বহু বছর ধরেই দেশের ব্যস্ততম বাণিজ্যিক নৌপথ। তবে দখলে-দূষণে দিন দিন সরু খালে পরিণত হচ্ছে শীতলক্ষ্যা। আর এই নদীপথে যাত্রী ও পণ্যবাহী নৌযান চলাচল ও নদীতে নোঙর করে রাখা নৌযানের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় শীতলক্ষ্যায় নৌযান, বিশেষ করে যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) হাইড্রোগ্রাফি বিভাগের জরিপ অনুযায়ী ১৯৬০ সালে শীতলক্ষ্যার মোহনায় নদী ৭৮০ মিটার প্রশস্ত ছিল। ২০২০ সালে সেই নদীর মোহনার প্রশস্ততা ৩৬৫ মিটারে এসে দাঁড়িয়েছে। হাইড্রোগ্রাফি বিভাগের পরিচালক সামসুন নাহার প্রথম আলোকে বলেন, ১৯৬০ সালে প্রথম ও ২০২০ সালে সর্বশেষ শীতলক্ষ্যা জরিপ করে হাইড্রোগ্রাফি বিভাগ। সে অনুযায়ী গত ৬০ বছরে শীতলক্ষ্যার ডেমরা অংশে ১০৬ মিটার, নবীগঞ্জ ফেরিঘাট অংশে ১৫৩ মিটার, বন্দর ফেরিঘাট অংশে ১৩৭ মিটার ও শীতলক্ষ্যার মোহনা শাহ সিমেন্ট পয়েন্টে ৪১৫ মিটার প্রশস্ততা কমেছে।.. …

শীতলক্ষ্যায় লঞ্চডুবি

সাংসদের কার্গোর বেপরোয়া গতি ও সেতুর ভুল নকশাকে দায়ী করেছে কমিটি

১৩ এপ্রিল ২০২১, প্রথম আলো

নারায়ণগঞ্জের কয়লাঘাট এলাকার শীতলক্ষ্যায় লঞ্চডুবির জন্য কার্গো জাহাজের বেপরোয়া গতি ও নির্মাণাধীন তৃতীয় শীতলক্ষ্যা সেতুর ত্রুটিপূর্ণ নকশাকে দায়ী করেছে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় গঠিত তদন্ত কমিটি। একই সঙ্গে নদীর মাঝখানে নির্মাণাধীন তৃতীয় শীতলক্ষ্যা সেতুর পিলার স্থাপন করা এবং নৌপথে প্রতিবন্ধকতামূলক নির্মাণসামগ্রী রেখে নৌপথ সরু করে ফেলাকে দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীতে ৪ এপ্রিল সাংসদ শেখ তন্ময়ের মালিকানাধীন কার্গো জাহাজ এসকেএল–৩–এর ধাক্কায় এমএল সাবিত আল হাসান নামের মুন্সিগঞ্জগামী একটি লঞ্চ ডুবে ৩৪ জন নিহত হন। ওই ঘটনা তদন্তে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়, জেলা প্রশাসন ও বিআইডব্লিউটিএ পৃথক তিনটি কমিটি গঠন করে। এর মধ্যে নৌপরিহন মন্ত্রণালয়ের গঠিত তদন্ত কমিটি গত সোমবার নৌসচিব মেজবাহ্ উদ্দীন চৌধুরীর কাছে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদনে ভবিষ্যতে দুর্ঘটনা রোধে কয়েকটি সুপারিশও করা হয়েছে।

আরমানিটোলায় রাসায়নিক গুদামে আগুন, ৪ জন নিহত

২৪ এপ্রিল, ২০২১, দেশ রুপান্তর

পুরান ঢাকার আরমানিটোলায় একটি আবাসিক ভবনে আগুনে পুড়ে চারজনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও কমপক্ষে ৫০ জন। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে হাজী মুসা ম্যানশন নামে ছয়তলা ওই ভবনটির নিচতলায় থাকা রাসায়নিকের গুদাম থেকে ভয়াবহ এ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের ১৯টি ইউনিট তিন ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

আরমানিটোলার ওই অগ্নিকাণ্ডে আহতদের মধ্যে ২১ জনকে রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে এবং ১৮ জনকে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ (মিটফোর্ড) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাদের মধ্যে চারজন নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন।… …

ভারত-বাংলাদেশ

মোদি আসছেন এতেই আমরা খুশি, তিস্তা নিয়ে আলোচনা এবার না : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

১২ মার্চ, ২০২১, কালের কন্ঠ

শুধু তিস্তাই নয়, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরে বাংলাদেশ-ভারত অমীমাংসিত দ্বিপাক্ষীয় কোনো ইস্যুই আলোচনার টেবিলে গড়াবে না বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আব্দুল মোমেন। তিনি বলেন, নরেন্দ্র মোদি সফর পুরোটাই হবে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর উৎসব উদযাপনের।

আজ শুক্রবার রাজধানীর হোটেল ইন্টার কন্টিনেন্টালে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা সবচেয়ে খুশি, উনি আসছেন। তবে যদি আমাকে জিজ্ঞেস করেন সফরে কোনো ধরণের সমঝোতা স্মারক সই হবে কিনা তবে আমি বলবো অপ্রাসঙ্গিক। আমাদের সাথে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের জন্য আসছেন। এটাই বড় পাওয়া। আর কী চাই?

১৭-২৬ মার্চ কোন রাজনৈতিক দলের কর্মসূচি না দেওয়ার আহ্বান

১৪ মার্চ ২০২১, বাংলা ট্রিবিউন

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেছেন, ১৭-২৬ মার্চ পর্যন্ত বাংলাদেশে ৫ দেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর ভিভিআইপি মুভমেন্টের জন্য নগরবাসীকে কিছুটা ভোগান্তি পোহাতে হতে পারে। এ কারণে নাগরিকদের নির্দিষ্ট সময়ের আগে বাসা থেকে বের হওয়ার আহ্বান করেছেন তিনি।

রবিবার (১৪ মার্চ) দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের হেডকোয়ার্টার্স আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সিটিটিসির প্রধান ও ভারপ্রাপ্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম এ কথা বলেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর উদ্বোধন উপলক্ষে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান ও সরকার প্রধানদের আগমন উপলক্ষে নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

মোদির দ্বৈত অভিযান

১৬ মার্চ, ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফর কেবলমাত্র ‘মুজিব বর্ষ’ উদযাপনেই সীমাবদ্ধ থাকছে না। একই সঙ্গে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনও থাকবে তার মাথায়।

তার অনুষ্ঠানসূচি অনুযায়ী, গোপালগঞ্জ জেলার ওড়াকান্দিতে ‘মতুয়া’ সম্প্রদায়ের পবিত্র মন্দির পরিদর্শনে যাবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, মোদি সেখানে যাচ্ছেন সীমানার ওপারের মতুয়াদের মন জয় করতে, যাদের ভোট পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার ভোটে জয়-পরাজয়ের একটা গুরুত্বপূর্ণ নিয়ন্ত্রক।

মোদি ২৬ মার্চ ঢাকায় এসে ওড়াকান্দিতে যাবেন ২৭ মার্চ। সেদিন থেকেই শুরু হচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ বিধারসভার আট ধাপের নির্বাচনের প্রথম ধাপ। ওড়াকান্দিতে মোদি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করবেন মতুয়া সম্প্রদায়ের প্রতিষ্ঠাতা হরিচাঁদ ঠাকুরের প্রতি। হরিচাঁদ ঠাকুর ১৮১২ সালের ১১ মার্চ জন্ম গ্রহণ করেন ওড়াকান্দিতে। ওড়াকান্দির সঙ্গে জড়িত মতুয়া সম্প্রদায়ের আবেগ।

পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচনে মতুয়ারা এত গুরুত্বপূর্ণ কেন?

বিশ্লেষকরা বলছেন, মোদিই হতে চলেছেন প্রথম কোনো ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী যিনি ওড়াকান্দিতে যাচ্ছেন। এই জায়গাটি পশ্চিমবঙ্গের দেড় কোটি ভোটারের কাছে একটি আবেগজড়িত পুণ্যস্থান। ভারতজুড়ে মতুয়া সম্প্রদায়ের প্রায় সাড়ে তিন কোটি মানুষ বসবাস করেন।

রাজনৈতিকভাবে সচেতন এই সম্প্রদায়ের ভোট ২৯৪টি আসনের মধ্যে প্রায় ৩০টির ভাগ্য নির্ধারণ করবে। এছাড়াও, আরও অন্তত ৬৩টি আসনের ক্ষেত্রেও তাদের পরোক্ষ প্রভাব থাকবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

এই মন্দির যাত্রার মাধ্যমে মোদি মতুয়া ভোট ব্যাংক বিজেপির পক্ষে আনার চেষ্টা করবেন।

নরেন্দ্র মোদির আগমনের প্রতিবাদে ৯টি ছাত্র সংগঠনের সংবাদ সম্মেলন

১৮ মার্চ ২০২১, সমকাল

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমনের প্রতিবাদ জানিয়েছে প্রগতিশীল ৯টি ছাত্র সংগঠনের নেতারা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনের বাইরে ‘প্রগতিশীল ছাত্র সংগঠনসমূহ’র ব্যানারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই প্রতিবাদ জানান তারা।

একই সঙ্গে ১৭-২৬ মার্চ পর্যন্ত রাজনৈতিক দলগুলোকে কর্মসূচি না করার জন্য ডিএমপি কমিশনারের বক্তব্যেরও নিন্দা জানান নেতৃবৃন্দ।

মোদির আগমনের প্রতিবাদে ঢাবিতে ছাত্রজোটের বিক্ষোভ

১৯ মার্চ ২০২১, ঢাকা পোস্ট

বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমনের প্রতিবাদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে মিছিল শুরু করেছে প্রগতিশীল ছাত্রজোট। কাঁটাবন হয়ে মিছিলটি শাহবাগে গিয়ে সেখানে অবস্থান নেওয়ার কথা।

পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী শুক্রবার (১৯ মার্চ) এ বিক্ষোভ মিছিল রাজু ভাস্কর্যে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও ভাস্কর্যের পাদদেশে আগে থেকেই ছাত্রলীগ অবস্থান নেওয়ায় সমাবেশস্থল পরিবর্তন করেছে প্রগতিশীল  ছাত্রসংগঠনগুলো।

কুশপুত্তলিকা নিয়ে পালাল ‘ছাত্রলীগ’

২৩ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর আয়োজনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে অতিথি করার প্রতিবাদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যে মোদির কুশপুত্তলিকা দাহ করার কর্মসূচি দিয়েছিল গণসংহতি আন্দোলনের ছাত্রসংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন। কিন্তু কর্মসূচির আগেই রাজু ভাস্কর্য দখলে নেয় ছাত্রলীগ। আর কুশপুত্তলিকা নিয়ে পালান ছাত্রলীগের কয়েকজন কর্মী।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। ছাত্র ফেডারেশনের পূর্বঘোষিত এই কর্মসূচি হওয়ার কথা ছিল আজ বেলা সাড়ে ১১টায়। ছাত্রলীগ রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অবস্থান নেয় সকাল সাড়ে ১০টা থেকে। বেলা ১১টা ৫০ মিনিটে ছাত্রলীগের দুজন কর্মী মোদির কুশপুত্তলিকা ছিনিয়ে নেন।

বাম ছাত্রজোটের মোদিবিরোধী কর্মসূচিতে ছাত্রলীগের হামলা

২৩ মার্চ ২০২১, সমকাল

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমণের প্রতিবাদে বাম ছাত্রজোটের কুশপুত্তলিকা দাহ কর্মসূচিতে  ছাত্রলীগ হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সড়ক দ্বীপ এলাকায় এই হামলা চালায় কেন্দ্রীয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং মহানগর উত্তরের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এতে কয়েকজন ফটো সাংবাদিকসহ জোটের অন্তত ২৫ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন বলে জানা যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিকেলে নরেন্দ্র মোদির আগমনের বিরোধীতা করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যে বাম ছাত্রজোটের পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি ছিল। তবে সকাল থেকে রাজু ভাস্কর্য এলাকায় অবস্থান নেয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। বিকাল সাড়ে পাঁচটার দিকে ছাত্রজোটের ৩০ থেকে ৪০ জন নেতাকর্মী টিএসসি চত্ত্বর থেকে মিছিল নিয়ে শহীদ মিনার হয়ে আবার টিএসসি ফিরে এসে ডাসের সামনে নরেন্দ্র মোদির কুশপুত্তলিকা দাহ এবং ভারতবিরোধী বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। এসময় ছাত্রলীগের কয়েকজন কর্মী কুশপুত্তলিকার আগুন নেভানোর জন্য দূর থেকে পানি ছুঁড়তে থাকে। এক পর্যায়ে ছাত্রলীগের কর্মীরা জোটের নেতাকর্মীদের লক্ষ্য করে ইট পাটকেল ছুঁড়তে শুরু করে। জোটের নেতাকর্মীরা প্রতিরোধ গড়ে তুললে ছাত্রলীগ সংঘবদ্ধ হয়ে আবারো তাদের উপর হামলা চালালে দুইপক্ষই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

সিলেটে মোদিবিরোধী বিক্ষোভ, আটক ৭

২৪ মার্চ ২০২১, বাংলা ট্রিবিউন

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে বাম গণতান্ত্রিক জোটের কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে সিলেটেও মানববন্ধন এবং কালো পতাকা মিছিল কর্মসূচি পালিত হয়েছে। মানববন্ধন শেষে মোদিবিরোধী স্লোগান দিয়ে কলো পতাকা মিছিল শুরু করলে বাধা দেয় পুলিশ। এ সময় বাম গণতান্ত্রিক জোট সিলেটের নেতৃবৃন্দ প্রতিবাদ জানালে পুলিশ লাঠিচার্জ করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। সাত জনকে আটক করে পুলিশ।

বুধবার (২৪ মার্চ) বিকাল সাড়ে ৪টায় নগরীর চৌহাট্টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে মানববন্ধন করেন বাম গণতান্ত্রিক জোট সিলেটের নেতৃবৃন্দ।

ঢাবিতে মোদিবিরোধী মিছিলে ছাত্রলীগের হামলা

২৫ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রগতিশীল ছাত্রসংগঠনগুলোর মশাল মিছিলের ওপর হামলা চালানোর অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের ওপর। এ ঘটনায় কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে প্রথম আলোর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক আসিফ হাওলাদারসহ বেশ কয়েকজন সাংবাদিক রয়েছেন।

এ ধরনের হামলার পর ক্যাম্পাসে থমথমে পরিবেশ বিরাজ করছিল। ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সাখাওয়াত ফাহাদ প্রথম আলোকে বলেন, ৯টি ছাত্রসংগঠনের মোর্চা প্রগতিশীল ছাত্রসংগঠনসমূহের ব্যানারে সন্ধ্যা ৬টার দিকে টিএসসি থেকে মশাল মিছিল বের হয়। মিছিলটি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে হাকিম চত্বরের সামনে অবস্থান নেয়। পরে সেখান থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে নির্মিত স্মৃতি চিরন্তনের দিকে যায়। স্মৃতি চিরন্তনের উল্টো দিকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবন। মিছিলের শেষ পর্যায়ে আনুমানিক রাত ৮টার দিকে অতর্কিতে তাদের ওপর ছাত্রলীগ হামলা চালায়।

মোদিবিরোধী বিক্ষোভ: সংঘর্ষে উত্তপ্ত বায়তুল মোকাররম এলাকা

২৬ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

মোদিবিরোধী বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে রাজধানীর বায়তুল মোকাররম এলাকায় সাধারণ মুসল্লি ও ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ চলছে। আজ শুক্রবার জুমার নামাজের পরই এই সংঘর্ষ বাধে। জুমার নামাজের মোনাজাত শেষে মুসল্লিদের একাংশ মোদিবিরোধী বিক্ষোভ শুরু করে।

স্লোগান দেওয়ার খানিক পরই ছাত্রলীগের নেতা–কর্মীরা মসজিদের উত্তর পাশের ফটকে মিছিলকারীদের ওপর লাঠিসোঁটা নিয়ে হামলা চালান। প্রায় পাঁচ মিনিট ধরে তাঁরা মিছিলকারীদের মারধর করেন। এতে বিক্ষোভকারীরা পিছু হটে মসজিদের ভেতরে ঢুকে পড়েন। এর খানিক পরই বিক্ষোভকারীরা আবার সংগঠিত হয়ে ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীদের ওপর পাল্টা হামলা চালান। এ সময় প্রায় ১০ মিনিট ধরে দুই পক্ষের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া চলতে থাকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে পুলিশ মসজিদের দিকে কাঁদানে গ্যাসের শেল নিক্ষেপ করে। পুলিশ ফাঁকা গুলিও ছোড়ে।

হাটহাজারীতে পুলিশ-হেফাজত সংঘর্ষ, নিহত ৪

২৬ মার্চ ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে হেফাজতে ইসলামের কর্মীদের সংঘর্ষে অন্তত চার জন নিহত হয়েছেন। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ বক্সের সহকারী উপপরিদর্শক আলাউদ্দিন তালুকদার দ্য ডেইলি স্টারকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, আজ শুক্রবার দুপুরে হাটহাজারীতে পুলিশের সঙ্গে হেফাজতের কর্মীদের সংঘর্ষের পর সেখান থেকে আহতদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে চার জনকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

ঢাকা ও চট্টগ্রামের কিছু এলাকায় দ্রুতগতির ইন্টারনেট সেবা সাময়িক বন্ধ

২৬ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

ঢাকার বায়তুল মোকাররম মসজিদসহ কিছু এলাকা ও চট্টগ্রামের হাটহাজারী এলাকায় দ্রুতগতির মোবাইল ইন্টারনেট সেবা সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে অপারেটর সূত্রে।

ঢাকা ও চট্টগ্রামের কিছু এলাকায় দ্রুতগতির ইন্টারনেট সেবা সাময়িক বন্ধ

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতা করে আজ শুক্রবার দুপুরের পর বায়তুল মোকাররম ও হাটহাজারীতে বিক্ষোভ-সংঘর্ষ হয়। এর মধ্যে হাটহাজারীতে চারজন নিহত হয়েছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।

অপারেটর সূত্রে জানা গেছে, এরপর সন্ধ্যার আগে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) থেকে মোবাইল অপারেটরগুলোকে সংশ্লিষ্ট এলাকায় দ্রুতগতির ইন্টারনেট সেবা বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়।

দেশের বিভিন্ন জেলায় বিজিবি মোতায়েন

২৭ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে বেসামরিক প্রশাসনের সহায়তায় দেশের বিভিন্ন জেলায় বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। বিজিবির পরিচালক (অপারেশনস) লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফয়জুর রহমান আজ শনিবার বিষয়টি প্রথম আলোকে নিশ্চিত করেছেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরবিরোধী বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে গতকাল শুক্রবার দিনভর উত্তপ্ত ছিল ঢাকার বায়তুল মোকাররম এলাকা এবং চট্টগ্রামের হাটহাজারী, ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ কয়েকটি স্থান। বিক্ষোভে অংশ নেওয়া মাদ্রাসাশিক্ষার্থী, ধর্মভিত্তিক দলের নেতা-কর্মী ও মুসল্লিদের একটি অংশের সঙ্গে পুলিশ, সরকারি দলের ছাত্র-যুব-স্বেচ্ছাসেবক সংগঠনের কর্মীদের সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে হাটহাজারীতে চারজন ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় একজন নিহত হন। আহত হন শতাধিক।

‘প্রতিবাদী মুসল্লিদের ওপর হামলা ও হত্যার’ প্রতিবাদে আজ সারা দেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি দিয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। কাল রোববার সারা দেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দিয়েছে তারা। গতকাল রাতেই দেশের বিভিন্ন জেলায় বিজিবির সদস্যদের টহল দিতে দেখা যায়।

প্রেসক্লাবের সামনে থেকে কয়েকজন বিক্ষোভকারী ‘আটক’

২৭ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরবিরোধী বিক্ষোভে পাঁচজন নিহত হওয়ার ঘটনার প্রতিবাদে আজ জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে ভাসানী পরিষদ। সমাবেশ শেষে পুলিশ কয়েকজন বিক্ষোভকারীকে ধরে নিয়ে যায়।

পুলিশ বলেছে, কাউকে ‘আটক’ বা ‘গ্রেপ্তার’ করা হয়নি। সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে কয়েকজনকে ‘হেফাজতে’ নেওয়া হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গুলিতে পাঁচজন নিহত

২৭ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার কুমিল্লা–সিলেট মহাসড়কের নন্দনপুর এলাকায় পুলিশ–বিজিবির সঙ্গে হেফাজতে ইসলামের সংঘর্ষে চারজন নিহত হয়েছেন। আজ শনিবার বিকেল পাঁচটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া শহরের কান্দিরপাড়া এলাকায় ছাত্রলীগ ও মাদ্রাসাছাত্রদের মধ্যে সংঘর্ষের পর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক মাদ্রাসাছাত্রের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

নিহত ব্যক্তিরা হলেন নন্দনপুর হারিয়া গ্রামের আবদুল লতিফ মিয়ার ছেলে ওয়ার্কশপের দোকানি জুরু আলম (৩৫), সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার দাবিড় মিয়ার ছেলে শ্রমিক বাদল মিয়া (২৪), ব্রাহ্মণবাড়িয়া বারিউড়া এলাকার মৈন্দ গ্রামের জুরু আলীর ছেলে সুজন মিয়া (২২) ও বুধল ইউনিয়নের বুধল গ্রামের প্লাম্বার শ্রমিক মো. কাউওসার (২২)।কান্দিরপাড়া এলাকায় সংঘর্ষে নিহত ছাত্রের নাম জুবায়ের (১৭)।

বায়তুল মোকাররম এলাকায় পুলিশের ১১০০ গুলি, ৯৩ কাঁদানে গ্যাসের শেল

২৮ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম এলাকায় শুক্রবার বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নেতা–কর্মীদের সংঘর্ষের সময় ১ হাজার ১৩৭টি গুলি (৮২৭টি রাবার ও ৩১০টি সিসা) ছুড়েছে পুলিশ। এ সময় ৯৩টি কাঁদানে গ্যাসের শেলও নিক্ষেপ করা হয়। এ ঘটনায় পল্টন মডেল থানায় দায়ের করা মামলায় পুলিশ এ বর্ণনা দিয়েছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদ ঘিরে শুক্রবার জুমার নামাজের পর বেলা দেড়টা থেকে সাড়ে তিনটা পর্যন্ত এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় ধর্মভিত্তিক দলগুলোর নেতা–কর্মীরা মসজিদের ভেতরে আর আওয়ামী লীগ এবং তার সহযোগী সংগঠন যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের নেতা–কর্মীরা মসজিদের বাইরে অবস্থান নেন। তাঁদের সঙ্গে ছিলেন পুলিশের সদস্যরা। মসজিদের বাইরে থেকে তখন মোদিবিরোধী বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে গুলি ও কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে পুলিশ।

সরকারি হিসাবে নিহত ১৭ জন, বেশির ভাগই সাধারণ মানুষ

০৬ এপ্রিল ২০২১, ডেইলিস্টার বাংলা অনলাইন

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সফরের বিরোধিতাকে কেন্দ্র করে বিক্ষোভ, সংঘাত ও সহিংসতায় সরকারি হিসাবে মোট ১৭ জন মারা গেছেন। যাঁদের বড় অংশই সাধারণ মানুষ। এঁদের মধ্যে ১৩ জন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এবং ৪ জন চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে নিহত হন। সরকারি ভাষ্য অনুযায়ী, এঁরা ২৬ থেকে ২৮ মার্চ ‘হেফাজতের ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপের’ সময় সংঘর্ষে মারা গেছেন।

অপরদিকে হেফাজত দাবি করছে, এই সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১৫ জন মারা গেছেন। তাঁরা সবাই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গুলিতে মারা গেছেন। হেফাজত ১৫ জনের নামের তালিকা দিয়ে বলেছে, এঁদের বেশির ভাগ সাধারণ মানুষ।

ঢাকার বায়তুল মোকাররম এলাকায় ২৬ মার্চ জুমার নামাজের পর মোদির সফরবিরোধী বিক্ষোভকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের জেরে চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে মাদ্রাসার ছাত্ররা মিছিল বের করে। তারা থানায় হামলা চালালে সংঘর্ষ বাধে। সেখানে গুলিতে চারজনের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে তার জেরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিক্ষোভ করে মাদ্রাসার ছাত্ররা। তারা রেলস্টেশনসহ বিভিন্ন স্থাপনায় হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে। এরপর টানা তিন দিন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সহিংসতা হয়।

বাংলাদেশের গরিবরা খেতে পায় না, তাই ভারতে আসে: অমিত শাহ

১৩ এপ্রিল, ২০২১, বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

‘বাংলাদেশের গরীব মানুষ এখনও খেতে পাচ্ছে না’ বলে দাবি করেছেন বিজেপির সাবেক সভাপতি ও ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে সরকার গড়তে জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে বিজেপি।

মঙ্গলবার অমিত শাহের একটি সাক্ষাৎকার প্রকাশ করেছে আনন্দবাজার পত্রিকা। তাতে অমিত শাহ জানান, ক্ষমতায় এসে পশ্চিমবঙ্গে অনুপ্রবেশ বন্ধ করবে বিজেপি। 

গত ১০-১৫ বছরে বাংলাদেশের তো আর্থিক উন্নয়ন হয়েছে। তাও কেন লোকে পশ্চিমবঙ্গে অনুপ্রবেশ করছে? আনন্দবাজারের এমন প্রশ্নে অমিত শাহ বলেন, এর দুটো কারণ আছে। এক, বাংলাদেশের উন্নয়ন সীমান্ত এলাকায় নিচুতলায় পৌঁছায়নি। যে কোনও পিছিয়ে পড়া দেশে উন্নয়ন হতে শুরু করলে সেটা প্রথম কেন্দ্রে হয়। আর তার সুফল প্রথমে বড়লোকদের কাছে পৌঁছায়। গরিবদের কাছে নয়। এখন বাংলাদেশে সেই প্রক্রিয়া চলছে। ফলে গরিব মানুষ এখনও খেতে পাচ্ছে না। সে কারণেই অনুপ্রবেশ চলছে। আর যারা অনুপ্রবেশকারী, তারা যে শুধু বাংলাতেই থাকছে, তা নয়। তারা তো ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে ছড়িয়ে পড়ছে। জম্মু-কাশ্মীর পর্যন্ত পৌঁছে যাচ্ছে।

অমিত শাহের মতে, দ্বিতীয় কারণটি হলো প্রশাসনিক সমস্যা। তিনি বলেন, প্রশাসনিকভাবেই এর মোকাবিলা করতে হবে। সেটা পশ্চিমবঙ্গের সরকার করেনি।

পার্বত্য চট্টগ্রাম

চিম্বুকে হোটেল নির্মাণের প্রতিবাদে ম্রোদের লংমার্চ

০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, সমকাল

বান্দরবানের নাইতং পাহাড়ে পাঁচ তারকা হোটেল নির্মাণের প্রতিবাদে চিম্বুক পাহাড়ে বসবাসরত ম্রো আদিবাসীরা লংমার্চ করেছে। রোববার সকাল ৯টার দিকে চিম্বুকের রামরি পাড়া থেকে লং মার্চ শুরু হয়। প্রায় ৩০ কিলোমিটার হেঁটে আসার পর শহরের বোমাং রাজার মাঠে সমাবেশ করে ম্রোরা।

পূর্বঘোষণা ছাড়াই রোববার এ লংমার্চের আয়োজন করে ম্রো আদিবাসীরা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, স্থানীয় প্রশাসন, এমনকি গণমাধ্যমকর্মীরাও লংমার্চের বিষয়ে কিছু জানতেন না। আকস্মিক এই লংমার্চে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকেও অস্বস্তিতে ফেলে দেয়। ম্রো জনগোষ্ঠীর কয়েক হাজার মানুষ চিম্বুক থেকে বান্দরবান শহরে যাওয়ার পথে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে বৈথানি পাড়া ছয় মাইল এলাকায় পুলিশের বাধার মুখে পড়ে তারা। বাধা অতিক্রম করেই প্রায় ৩০ কিলোমিটার পথ হেঁটে এসে শহরের বোমাং রাজার মাঠে এসে লং মার্চ শেষ হয়।

আশ্রয়ণের নামে মারমা পাড়ায় বাঙালিদের পুনর্বাসন

১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১, সমকাল

বিনা নোটিশে, কোনো প্রকার ক্ষতিপূরণ না দিয়ে রাঙামাটির কাপ্তাই উপজেলার শিলছড়ি গ্রামে একটি মারমা পরিবারের জমিতে আশ্রয়ণ প্রকল্প তৈরি করছে উপজেলা প্রশাসন। অর্ধশতাধিক মারমা পরিবারের এই গ্রামে গড়া আশ্রয়ণ প্রকল্পে একাধিক বাঙালি পরিবারকে ঘর বরাদ্দ দেওয়ার কথা স্বীকার করেছে প্রশাসন।

কাপ্তাই উপজেলার ওয়াজ্ঞা ইউনিয়নে শিলছড়ি পাড়াটির অবস্থান। এখানে পাহাড়িদের ৪০ থেকে ৫০ পরিবারের বসবাস রয়েছে। এই পাড়ার বাসিন্দা উলামং মারমার ভোগদখলীয় ২০ শতক জায়গাতে আশ্রয়ন প্রকল্পের তিনটি ঘর বানানোর কাজ শুরু করা হয়েছে।

উলামং জানান, তিনি গত ১৯ জানুয়ারি এ নিয়ে হাইকোর্টে একটি রিট পিটিশন দাখিল করেছেন। তার আইনজীবী আদনান রফিকের মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, রাঙামাটির জেলা প্রশাসক, রাঙামাটি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর উকিল নোটিশ পাঠিয়েছেন। এই সব কিছু তোয়াক্কা না করে স্থানীয় প্রশাসন ঘর নির্মাণের প্রক্রিয়া চালিয়ে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে বংশ পরম্পরায় ভোগ দখলে পাওয়া এই জমিতে আশ্রয়ণ প্রকল্প না করার দাবি জানিয়ে এলাকাবাসী মানববন্ধনও করেছেন।

‘ওভারনাইট বান্দরবান পাঠিয়ে দেব’ বিজ্ঞাপন বন্ধ চায় সংসদীয় কমিটি

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, দেশ রুপান্তর

‘ওভারনাইট বান্দরবান পাঠিয়ে দেব’ বিজ্ঞাপন বন্ধ চায় সংসদীয় কমিটি

বিজ্ঞাপন চিত্রে ‘ওভারনাইট বান্দরবান পাঠিয়ে দেব’ সংলাপ নিয়ে সংসদীয় কমিটিতে আলোচনা হয়েছে।

একটি ব্র্যান্ডের চা পাতার ওই বিজ্ঞাপনে এই সংলাপ ব্যবহার করা হয়েছে। ওই বিজ্ঞাপনে সংলাপ রয়েছে- ‘আপনাকে ওভারনাইট বান্দরবানে পাঠিয়ে দেব’।

সরকারি কোনো কর্মকর্তা ও কর্মচারীর দাপ্তরিক কাজের ব্যর্থতা হিসেবে পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় পদায়ন করা হয়- এমন প্রচার বন্ধে তথ্য মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা নিতে বলেছে সংসদীয় কমিটি।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির যুক্তি, এই ধরনের প্রচার একটি এলাকা সম্পর্কে সারাদেশের মানুষের মধ্যে বিরূপ ধারণা সৃষ্টি করতে পারে।

বুধবার সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত এই সংসদীয় কমিটির বৈঠকে একটি টিভি বিজ্ঞাপন চিত্র নিয়ে আলোচনা ওঠে।

বৈঠকে আলোচনায় বলা হয়, এ ধরনের বিজ্ঞাপনে পার্বত্য অঞ্চল বিষয়ে জনমনে বিরূপ ধারণা সৃষ্টি হয়। এতে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে পার্বত্য এলাকায় বদলি শাস্তিমূলক বদলি হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাবে। সে কারণে এ ধরনের প্রচারণা বন্ধ হওয়া দরকার।

চিম্বুকে আগুনে শেষ ম্রোদের স্বপ্ন, পুড়ল ১০০ একর ফলদ বাগান

২৪ মার্চ ২০২১, সমকাল

বান্দরবানের চিম্বুক পাহাড়ে আগুনে পুড়ে গেছে ম্রোদের বেঁচে থাকার স্বপ্ন। যে বাগানের ওপর নির্ভর ছিল তাদের প্রধান আয়ের উৎস, পুড়ে গেছে তা। চিম্বুকের রামরি পাড়ার ৪০ পরিবারের প্রায় ১০০ একর জায়গার সম্পূর্ণ বাগান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়া বাইট্টা পাড়া ও রাংলাই চেয়ারম্যান পাড়ার বাগানও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। একই সঙ্গে প্রায় ৬ হাজার ফুট পানির পাইপ লাইনও পুড়ে গেছে। মঙ্গলবার দুপুরে আগুন লেগে বুধবার পর্যন্ত জ্বলেছে।

বিবিধ

আল জাজিরার প্রতিবেদন ভিত্তিহীন: পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

০২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বাংলা ট্রিবিউন

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরায় প্রকাশিত “অল দ্য প্রাইম মিনিস্টার’স ম্যান” শিরোনামের প্রতিবেদনকে ভিত্তিহীন ও মানহানিকর আখ্যায়িত করে প্রত্যাখ্যান করেছে বাংলাদেশ সরকার। সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে এই দাবি করা হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, গুরুত্বপূর্ণ হলো এই প্রতিবেদনে ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় গণহত্যার কথা ঐতিহাসিক তথ্যের কথা উল্লেখ করা হয়নি। যখন জামাতের অপরাধীচক্র লাখো বেসামরিক বাঙালিকে হত্যা এবং দুই লাখের বেশি নারীকে ধর্ষণ করেছে। এই প্রতিবেদন আল জাজিরার সম্প্রচার ও তাদের ভাষ্যকার ডেভিড বার্গম্যানের রাজনৈতিক পক্ষপাতের প্রতিফলন। ১৯৭১ সালে নিহতের সংখ্যা নিয়ে চ্যালেঞ্জ করায় বার্গম্যান বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল দ্বারা দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন।… …

আল জাজিরার প্রতিবেদনের প্রতিবাদ সেনা সদরের

০২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরায় প্রকাশিত ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টার’স মেন’ শীর্ষক প্রতিবেদনটির প্রতিবাদ জানিয়ে সেনা সদর বলেছে, এটি ‘সাজানো এবং দুরভিসন্ধিমূলক’।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) থেকে মঙ্গলবার রাতে পাঠানো এক প্রতিবাদ লিপিতে বলা হয়, “আল জাজিরা নিউজ চ্যানেলে ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২১ তারিখ বাংলাদেশ সময় রাত ২টায় ‘All the Prime Minister’s Men’ শীর্ষক সংবাদ প্রচারিত হয়। কল্পনাপ্রসূত ও অসৎ উদ্দেশ্যে প্রচারিত এই প্রতিবেদন সর্ম্পকে সেনাসদর দপ্তর তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।”… ….

সৌদিতে আগুনে ৬ বাংলাদেশির মর্মান্তিক মৃত্যু

১১ ফেব্রুয়ারি ২০২১, সমকাল

সৌদি আরবের মদিনার আল খলিল এলাকার একটি সোফা কারখানায় ভয়াবহ আগুনে ছয় বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। বুধবার এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

রাতে সমকালকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন সৌদিতে বাংলাদেশ দূতাবাসের লিগ্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট মো. মহসীন হোসেন।

প্রবাসীরা ধারণা করছেন, নিহতের সবাই চট্টগ্রামের বাসিন্দা হতে পারেন। তবে তারা অতিমাত্রায় দগ্ধ হওয়ায় তাদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

আল জাজিরার কনটেন্ট সরিয়ে নিতে বিটিআরসিকে আদালতের নির্দেশ

১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ডেইলিস্টার অনলাইন বাংলা

কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল জাজিরায় প্রচারিত ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ শিরোনামে সংবাদটি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে সরিয়ে ফেলতে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে (বিটিআরসি) নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

আজ বুধবার বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আল জাজিরার প্রতিবেদনে পুরো জাতির রক্তক্ষরণ হচ্ছে: হাইকোর্ট

১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বাংলা ট্রিবিউন

কাতারভিত্তিক আল জাজিরা টেলিভিশনে ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টারস মেন’ শীর্ষক তথ্যচিত্র সম্প্রচারের পর এতদিনেও সংশ্লিষ্টরা কোনও ব্যবস্থা না নেওয়ায় উষ্মা প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। এ ধরনের প্রতিবেদনের কারণে পুরো জাতির মধ্যে রক্তক্ষরণ হচ্ছে বলেও মন্তব্য করেছেন আদালত।

বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) উভয়পক্ষের শুনানি শেষে এ সংক্রান্ত রিট আবেদনের চূড়ান্ত নিষ্পত্তি করে বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল হাইকোর্ট বেঞ্চ এই উষ্মা প্রকাশ করেন।

হারিছ ও জোসেফ: অসত্য তথ্য দিয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, প্রথম আলো

নিজেদের নামের পাশাপাশি মা-বাবার নামও বদল করেছেন বহুল আলোচিত তিন সহোদরের দুজন; হারিছ আহমেদ ও তোফায়েল আহমেদ ওরফে জোসেফ। নিজেদের ছবি দিয়ে নতুন নাম আর ভিন্ন ঠিকানা ব্যবহার করে তাঁরা জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট সংগ্রহ করেছেন। নিয়ম অনুযায়ী, জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট করার সময় ব্যক্তিকে সশরীর হাজির থেকে ছবি তুলতে হয়।

প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, হারিছ আহমেদ জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) ও পাসপোর্ট নিয়েছেন মোহাম্মদ হাসান নামে। আর জোসেফ নিয়েছেন তানভীর আহমেদ তানজীল নামে। এ ধরনের কাজ জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন আইন ও পাসপোর্ট অধ্যাদেশ অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ। তাঁদের আরেক ভাই আনিস আহমেদও একই রকম কাজ করেছেন কি না, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

হারিছ ও জোসেফ দুটি খুনের মামলায় যথাক্রমে যাবজ্জীবন ও মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ছিলেন। তাঁদের আরেক ভাই আনিস আহমেদ একটি খুনের মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত ছিলেন। ২০১৯ সালের ২৮ মার্চ হারিছ ও আনিসের সাজা মওকুফ করে প্রজ্ঞাপন জারি করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এর আগে মা রেনুজা বেগমের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জোসেফের সাজা মাফ করেছিলেন রাষ্ট্রপতি। জোসেফ তখন কারাগারে ছিলেন।

 আলজাজিরার তথ্যচিত্রে আমরা অপদস্ত ও বিস্মিত: হাইকোর্ট

১৫ মার্চ ২০২১, সমকাল

আলজাজিরা টেলিভিশনে ‘অল দ্য প্রাইম মিনিস্টার্স মেন’ শিরোনামে সম্প্রচারিত তথ্যচিত্র নিয়ে হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়েছে। রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা হয়েছে- রাষ্ট্রের প্রধান, সরকারপ্রধান ও সেনাবাহিনী প্রধানের বিরুদ্ধে যে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে, তার মাধ্যমে এ মাটির সন্তান হিসেবে আমরা বিস্মিত ও অপদস্ত হয়েছি।

বিচারপতি মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি কামরুল হোসেন মোল্লা সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চের দেওয়া পূর্ণাঙ্গ রায়টি ৩৭ পৃষ্ঠার। সোমবার পূর্ণাঙ্গ রায়টি প্রকাশিত হয়। এর আগে ১৭ ফেব্রুয়ারি সংক্ষিপ্ত রায় দেন হাইকোর্টের ওই বেঞ্চ।

হাইকোর্টের রায়ে ফেসবুক, ইউটিউব, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম কর্তৃপক্ষ যেন প্রতিবেদনটি জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে অনলাইন থেকে সরিয়ে ফেলে এবং পুনরায় আপলোড না করে- সেই বিষয়ে অনুরোধ জানাতে বলা হয়েছে। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে (বিটিআরসি) তাৎক্ষণিকভাবে এ নির্দেশ বাস্তবায়নের জন্য রায়ে বলা হয়েছে।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুন: মৃত ১১, নিখোঁজ ৪০০

২৩ মার্চ, ২০২১, দেশ রুপান্তর

কক্সবাজারের উখিয়ার বালুখালীতে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ভয়াবহ আগুনে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১ জনে দাঁড়িয়েছে। এতে আহত হয়েছেন প্রায় ১৫৫ জন।

আন্তর্জাতিক অভিভাবসন সংস্থা জানিয়েছে, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় চার শ’জনের অধিক নিখোঁজ রয়েছে। এ ছাড়া সাড়ে পাঁচ শ নারী-পুরুষ ও শিশু আহত হয়েছে।

রাস্তা ঝাড়ুর গাড়ি: সেই যন্ত্র ধুলা আরও ওড়ায়

২৮ মার্চ ২০২১, প্রথম আলো

রাজধানীর সড়কে ধুলার যন্ত্রণায় যখন মানুষ অতিষ্ঠ, তখন রাস্তা পরিষ্কারের জন্য কেনা রোড সুইপার ট্রাক তেমন একটা ব্যবহার করছে না ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন। যন্ত্রগুলো দিয়ে রাস্তা ঝাড়ু দিতে গেলে বাতাসে ধুলা আরও বেড়ে যায়। মানুষের তোপের মুখে পড়তে হয় চালকদের।

১২টি সিটি করপোরেশনকে দেওয়া হয়েছিল ২০টি রোড সুইপার।পাঁচ মাস আগে ঘটা করে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে হস্তান্তর। পানি না ছিটালে ধুলা ওড়ে। ছিটালে ধুলো পরিষ্কার হয় না, উল্টো কাদা তৈরি হয়।

সব মিলিয়ে যে উদ্দেশ্যে রোড সুইপার কেনা হয়েছিল, তা পূরণ হচ্ছে না। কিন্তু জনগণের করের টাকা ঠিকই ব্যয় হয়েছে। মোট ২০টি রোড সুইপার কিনতে খরচ হয় ২৯ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। সূত্র জানায়, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের বাজেটের মন্ত্রীর অভিপ্রায় খাত থেকে ‘রোড সুইপার’ কেনার ব্যয় বহন করা হয়। কেনাও হয় স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর ইচ্ছায়। যন্ত্রগুলো আমদানি করা হয় ইতালি থেকে। নিয়ম অনুযায়ী কেনার আগে কার্যকারিতা পরীক্ষার কথা। তবে করোনা মহামারির কারণে তা সম্ভব হয়নি।

Social Share
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •